নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

দৃষ্টি আকর্ষণ

  • ট্রেনিংরুম ঘুরে আসুন।
  • ইস্টিশনের এন্ড্রয়েড এ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করুন
  • পরিষ্কার বাংলা দেখার জন্য এখান থেকে ফন্ট ইন্সটল করে নিন।
  • অনলাইনে লেখা কনভার্ট করুন
  • ইস্টিশনের নতুন ব্যানার দেখতে না পেলে/সমস্যা হলে Ctrl+F5 চাপুন।
  • প্যাসেঞ্জার ট্রেন শিডিউল
  • আপনার ব্রাউজার থেকে ইস্টিশনব্লগের সাথে সবসময় যুক্ত থাকতে নিচের লোগোতে ক্লিক করে টুলবারটি ইন্সটল করুন।
  • ওয়েটিং রুম

    এখন 8 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

    • মোমিনুর রহমান মিন্টু
    • মিশু মিলন
    • সত্যর সাথে সর্বদা
    • রাজিব আহমেদ
    • দীপ্ত সুন্দ অসুর
    • ফারুক
    • আব্দুল্লাহ্ আল আসিফ
    • নীল কষ্ট

    নতুন যাত্রী

    • ফারজানা কাজী
    • আমি ফ্রিল্যান্স...
    • সোহেল বাপ্পি
    • হাসিন মাহতাব
    • কৃষ্ণ মহাম্মদ
    • মু.আরিফুল ইসলাম
    • রাজাবাবু
    • রক্স রাব্বি
    • আলমগীর আলম
    • সৌহার্দ্য দেওয়ান

    কুরআন অনলি: (১৪) মুহাম্মদের চ্যালেঞ্জ ও বিশ্বস্রষ্টা!


    অবিশ্বাসীদের যৌক্তিক দাবী ও চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায় 'স্রষ্টার' নামে মুহাম্মদ কীরূপে নিজেই নিজের সার্টিফিকেট প্রদান করেছিলেন, আত্মপ্রশংসা করেছিলেন ও যদি তিনি নিজে 'কুরআন' রচনা করতেন তবে স্রষ্টা তাকে যে ভয়ানক শাস্তি দিতো বলে দাবী করেছিলেন, মৃত্যুকালে তার ঠিক অনুরূপ শাস্তিই তিনি কীরূপে ভোগ করেছিলেন; ইত্যাদি বিষয়ের আলোচনা গত পর্বে করা হয়েছে।মুহাম্মদেরই নিজস্ব জবানবন্দি 'কুরআনের' আলোকে আমারা জানতে পারি, অবিশ্বাসীরা যেমন বিভিন্নভাবে মুহাম্মদ-কে তার নবুয়তের প্রমাণ হাজির করার 'চ্যালেঞ্জ' জানিয়েছিলে, ‘স্রষ্টার’ মুখোশে মুহাম্মদ ও তেমনই তাঁদের উদ্দেশ্যে পাল্টা অভিযোগ ও 'চ্যালেঞ্জ' ছুঁড়ে দিয়েছিলেন। স্রষ্

    ব্যক্তির জ্ঞান চর্চা ও ভয়ের সংস্কৃতি


    জ্ঞানচর্চার স্পৃহা কখনও কখনও ‘অপরাধ’ হয়ে ওঠে। প্রচল রাষ্ট্র ও সমাজের কাছে ওই ব্যক্তি শত্রু হয়ে ওঠে, যে কিনা কেবলই প্রশ্নের উত্তর হাতড়ে বেড়ায়, কেবলই যুক্তি দিয়ে বুঝতে চায় সব কিছুকে। অথচ ব্যক্তির সেই স্পৃহা হয়ত জেগে ওঠে অন্তর্গত নিষ্পাপ বিহ্বলতা থেকে। জাগতে পারে অসহায় বিস্ময় ও ক্রন্দন থেকে। যেমন জেগেছিল আরজ আলী মাতুব্বরের ভেতর। সে ঘটনা সকলেরই জানা। ‘মাকে আমি আর কোনওদিনই দেখতে পাব না!

    কবি ইমরুল কায়েসের কন্যা নবী মুহাম্মদের বিরুদ্ধে কুরআন নকল করে লেখার অভিযোগ করেছিলেন


    আরবের শ্রেষ্ঠ কবি ইমরুল কায়েসের কন্যা তার বাবার কবিতা চুরির অভিযোগ এনেছিলেন কুরআনের বিরুদ্ধে। আগেও এটা নিয়ে লিখেছিলাম। এই বিষয়ে বিস্তারিত লেখার অনুরোধ পেয়ে আবার লিখছি।

    কোরানের আলোকে ইসলামের ইতিহাস (৮)


    এই প্রসঙ্গে ইজিপ্টের প্রাচীন ধ্বংশাবেশ কাউন্সিলের জেনারেল সেক্রেটারী ও প্রাক্তন ভ্রমন ব্যাবস্থা মন্ত্রী প্রফেসর জাহি হাওয়াস তার অনেক সেমিনারে বলেছেন , ইজিপ্টের প্রাচীন শাসকদের মধ্যে কে যে মুসার সময়ের রাজা ছিলেন , তা এখনো সনাক্ত করা সম্ভব হয় নি। ২২/৫/১৯০৫ সালে বাহরাইনের আয়াম পত্রিকায় এক সাক্ষাৎকারে তাকে যখন প্রশ্ন করা হয় কোন কোন ফরাসি বিজ্ঞানি দাবী করেছেন রামসেস২ কোরান ও বাইবেলে বর্ণীত ফেরাউন , তখন জবাবে তনি বলেন , "অবশ্যই না"। মুসার ফেরাউন সমুদ্রে ডুবে মারা গিয়েছিল , আর রামসেস২ এর মমিতে ডুবে মরার কোন আলামত পাওয়া যায় নি। প্রায় সকল রাজকীয় মমির ফরেন্সিক পরীক্ষার পরে , এখন পর্যন্ত এদ

    ভাঙামন্দির অভিযান


    মন্দিরটির কথা শুনেছি সেই ছোটবেলা থেকেই। তখন আমার জন্ম হয়নি। বাবা বলতেন, দেশ ভাগের সময় এদেশে প্রচুর মন্দির ভেঙে ফেলা হয়। হিন্দুদের কোন চিহ্নই রাখবে না বলে। ঐ মন্দিরটা ভাঙতে যায়। তবে পুরোপুরি ভাঙ্গতে পারেনি। শোনা যায় মন্দির ভাঙার সময় দুই জন শ্রমিকের গলাকাটা লাশ পাওয়া যায়। অন্যরা ভয়ে পালিয়ে যায়। সেই থেকে ঐ মন্দির সবাই অভিশপ্ত বলে। মা কালীকে উদ্দেশ্য করে কেউ আর পাঠা বলি দেয় না। হিন্দু নাই, কে পূজো করবে?

    আমি অবাক হই, অবাক হতে থাকি।


    আমি অবাক হই, অবাক হতে থাকি
    শিক্ষিত মানুষগুলির নির্বোধ কাজকর্ম দেখে।

    অবাক হতে থাকি
    বিখ্যাত মানুষগুলির ধর্মবিষয়ে বিখ্যাত নির্বুদ্ধিতা দেখে।

    আমি অবাক হই
    যখন দেখি বিজ্ঞানের কোনো প্রফেসর কোরানের সাথে বিজ্ঞানের মিল খুজে পায়।

    আমি অবাক হই
    যখন দেখি বিশেষজ্ঞ কোনো ডাক্তার আযানের শব্দ শুনেই চেম্বারে রোগী রেখেই নামাজে চলে যায় কিংবা নামাজের জন্য অপারেশন পিছিয়ে দিচ্ছেন।

    আমি অবাক হতে থাকি
    যখন দেখি ইতিহাসের অধ্যাপক ধর্মের গুনগান করতে করতে মুখে ফেনা তুলে ফেলছে।

    নারীবাদ এবং নারী বাদ।


    কলেজের এক অনুষ্ঠানে বাঙলার প্রভাষক আমাকে প্রশ্ন করেছিলেন- কোন ঔপন্যাসিক আপনার পছন্দ?
    উত্তরে বলেছিলাম একক কেউ নাই।
    প্রশ্নকর্তা আমাকে চমকিয়ে দিয়ে আবার প্রশ্ন করলেন- শরৎচন্দ্রকে আপনার কেমন লাগে?
    উত্তরে বলেছিলাম - উনি সাহিত্যিক হিসেবে দারুণ। তবে ঔপন্যাসিক হিসেবে ততটা নয়; যতটা একজন ঔপন্যাসিকের হওয়া প্রয়োজন।

    চৈতি দিদিরা চলে গেছে


    চৈতি দিদিরা চলে গেছে;
    অনেক অন্ধকারে ঘর ছেড়েছে ওরা-
    না,নিকটবর্তী কোন শহর ওদের গন্তব্য নয়
    কিংবা দুদিন বাদে ফিরে আসার
    কোনো অভিপ্রায়ে যাই নি ওরা।

    বিধর্মী সিল লাগানো
    চৈতি দিদিদের পাড়ার অন্যরা
    বেশ আগেই পার হয়ে গেছে;
    নিয়ত নিরাপত্তাহীনতার চাদরে মুড়ে থাকতে হত ওদের,
    হুমকির ভয়ানক সেই স্মৃতি চৈতি দিদিরা ভুলে যায় নি।
    ভুলতে পারেও না।

    পৃষ্ঠাসমূহ

    কু ঝিক ঝিক

    ফেসবুকে ইস্টিশন

    SSL Certificate
    কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর