Posted in Uncategorized

মজিদ মিঞা বা প্যাঁচা উপাখ্যান

আমাদের কোন স্মৃতি ছিল না। যা ছিল তা শুধুই বিস্মৃতি। আর আমাদের বিস্মৃতিতে চাদর মুড়ি দিয়ে ঘুমাত একজন মজিদ মিঞা। মজিদ মিঞা জন্মান্ধ, আমরা জানতাম যে ছয় মাস বয়সেই ধরা পরে মজিদ মিঞা মূক ও বধির। তাকে ডাকলে সে তার অন্ধ চোখ জোড়া দিয়ে ফ্যাল ফ্যাল কর তাকিয়ে থাকত আর…

বিস্তারিত পড়ুন... মজিদ মিঞা বা প্যাঁচা উপাখ্যান
Posted in ব্লগ

বৃষ্টি ও মানুষের অসমাপ্ত গল্প

মানুষটি তার ইচ্ছা শক্তি হারিয়ে ফেলেছে। সেই সাথে বৃষ্টি। সুপুরির ডাল বেয়ে নেমে আসা সন্ধ্যাও একসময় ভোর হয়ে আসে অথচ কারো ইচ্ছাই আর ফিরে আসে না। না মানুষটির না বৃষ্টির। গত সন্ধ্যা থেকে রেলিং এ বসে ভিজতে থাকা কাকটিও অবশেষে ডানা ঝাঁপটিয়ে ফিরে যায় নিজ গন্তব্যে। বৃষ্টির তোড়ে নুয়ে যাওয়া…

বিস্তারিত পড়ুন... বৃষ্টি ও মানুষের অসমাপ্ত গল্প
Posted in ব্লগ

স্বর্ণলতা ও সময়

নীলকণ্ঠ পাখির মুখোমুখি গল্প বলতে বসেছিলাম। অথচ বলার মত কোন গল্প আমার কাছে ছিলনা। অবশেষে সেই বিড়ালের গল্প। যে বিড়ালটি স্বাধীনতার আশায় ব্যর্থ হয়ে ছাদ থেকে লাফিয়ে আত্মহত্যা করেছিল। গল্পটি তেমন জমছিল না। তাই শুরু করলাম সেই পরিচিত গল্পটি। স্বর্ণলতা ও সময়ের গল্প। স্বর্ণলতা সময়কে ভালবাসত। কিন্তু স্বর্ণলতা কখনো সময়কে…

বিস্তারিত পড়ুন... স্বর্ণলতা ও সময়
Posted in ব্লগ

বড়শি ও মাছ

ছেলেটি চারটি বৃত্ত আঁকলে সেখানে চারটি মাছ আসে। এবার আমি একটি বড়শি ফেলি। মাছগুলো ছিপে ধরা দেয় না। মাছগুলো হাসছে। হাসি সংক্রামক। কার্নিশের টিকটিকি, জানালার শার্শি, মুখোশ পড়া দেয়াল সবাই হাসছে। আমিও হাসছি অথবা হাসার ভান করছি। হাসতে হাসতে আমার কান্না চাপে, আমি বাইরে চলে আসি। দেখি বৃত্তের মাছগুলো টবের…

বিস্তারিত পড়ুন... বড়শি ও মাছ
Posted in ব্লগ

স্বাধীনতা কি আদৌ সম্ভব ?

একটি মানুষ মুখের সামনে সাপ নিয়া বসা যেকোনো সময় কামড় দিবে । স্বাধীনতা বস্তুটা কেমন ? স্বাধীনতা শব্দটারে সরলীকরণ করলে আমরা দেখি যে ব্যক্তি স্ব- অধীন মানে নিজের অধীন সেই হল স্বাধীন । অর্থাৎ যে ব্যক্তি নিজের মত দ্বারা চালিত হয় সেই স্বাধীন । কিন্তু প্রশ্ন হল ব্যপারটা কি এতই…

বিস্তারিত পড়ুন... স্বাধীনতা কি আদৌ সম্ভব ?