পড়লে পরবেন,না পরলে নাই!(আমার ডায়রি!)

শূন্য থেকে চার বছর! (আম্মু আব্বুর গুল্টু সোনা!!!)

শুধু পরিচিত জনদের চিনেছি! নতুন স্কুলে যাওয়া,বাড়ির বাইরও যে একটা পৃথিবী আছে সেটা বুঝতে পারা! আম্মু আব্বুর কোল থেকে নতুন নতুন মাটিতে নামা,বন্ধু চেনা! নিজেকে না চিনলেও সম্পর্ক বলে একটা ব্যাপার আছে সেটা বুঝতে পারছি!

*পাঁচ থেকে দশ!( বুঝদার বালক)


শূন্য থেকে চার বছর! (আম্মু আব্বুর গুল্টু সোনা!!!)

শুধু পরিচিত জনদের চিনেছি! নতুন স্কুলে যাওয়া,বাড়ির বাইরও যে একটা পৃথিবী আছে সেটা বুঝতে পারা! আম্মু আব্বুর কোল থেকে নতুন নতুন মাটিতে নামা,বন্ধু চেনা! নিজেকে না চিনলেও সম্পর্ক বলে একটা ব্যাপার আছে সেটা বুঝতে পারছি!

*পাঁচ থেকে দশ!( বুঝদার বালক)

এবার আমি যথেষ্ট বুদ্ধিমান হয়েছি! কোনটা ভাল,কোনটা খারাপ সেটা আস্তে আস্তে বুঝতে পারছি! এতদিন যার কোলে প্রসাব করেছি তাকে ভয় পেতে এবং আদবের সাথে কথা বলতে শিখলাম! স্কুলে ট্যালেন্ট হিসেবে পরিচিত হতে লাগলাম! মেয়েদের প্রতি নতুন একটা আকর্ষণ টের পাচ্ছি আস্তে আস্তে!স্কুলের ম্যাম ও বাদ জাচ্ছে না এটা থেকে!মিতু নামের একটা মেয়েকে আলাদা ভাবে ভালো লাগে!

*দশ থেকে পনের!(সেয়ানা কাল)

নিজেকে বেস্ট প্রমানের জন্য সবই করে যাচ্ছি! স্কুলের ফাস্ট বেঞ্চে আমার জায়গা লাগবেই!স্যার ম্যামদের কাছে দিন দিন কদর বাড়ছে! সেই সাথে বাড়ছে ফ্যামালির কঠোরতা! তবে দিন দিন আম্মু নরম হতে শুরু করেছে! হাতে এখন ১০ পনের টাকা আসে!

*পনের থেকে বিশ!(বেয়াদবের আবির্ভাব)

এখন আমি পুরাই পাঙ্খা!এখন আমি একা একা শহরে যাই! নতুন নতুন বন্ধু হচ্ছে! বাল্যকালের ভয়টা কাটিয়ে এখন বাড়িতে নতুন নতুন বন্ধু আনতে শুরু করেছি,বন্ধুদের বাসায় যাচ্ছি! এখন আমার বাসায় ঢুকতে বিকেল পেরিয়ে একটু অন্ধকার হয়ে যায়! আমাকে কি একটু ছাড় দেয়া হচ্ছে নাকি আমি নিজ থেকেই বাঁধার দড়িটা কেটে দিচ্ছি সেটা নিয়ে প্রচণ্ড দ্বিধা-দন্ধের মধ্যে আছি! আম্মু আব্বুর সকল জায়গায় আমাকে সহজ সরল ছেলে হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেয়ার প্রবনতাটা এবার একটু কমেছে!

*একুশ!(বেয়াদবির মধ্যযুগ)

বড় হয়ে গেছি!লিজনকে নিয়ে ১০ কিলোমিটার হেঁটে একটা নির্জন জায়গার খোঁজ করছি,সিগারেট খাব বলে! সব বন্দুরা এখন ঢাকায় থাকে!ছুটিতে এসে বড় শহরের গল্প শোনায়! রিয়াজও এবার ঢাকায় চলে গেল! বড্ড একা হয়ে গেলাম! আমি ও একা, মুন ও একা! একদিন কল দিলাম ওরে, কই তুই? আসলো,আড্ডা দিল! এই প্রথম মুনের প্রতি অন্য রকম একটা ভাবনা এল!ছেলেটা তো ভালোই! ও নাকি চট্টগ্রাম চলে যাবে! এতদিনের ন্যাসেনাল এ পড়ার চিন্তাটা এবার বাদ দিলাম!সাহস করে আব্বুকে বলেই পেললাম,”আব্বু!আমি ফেনীর বাইরে পড়তে যাবো!”

*বাইশ!(বেয়াদব ডি পি এইচ ডি)

এখন আমি মুরুব্বি! পরিবারের সকল সিদ্ধান্তের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং গ্রহণযোগ্য হতে শুরু করেছি! আশেপাশের রসিক মানুষের এখন বয়সের ভারে সিরিয়াস হতে শুরু করেছে!আর তাদের মন ভালো করার দায়িত্ব পড়েছে আমার উপর!প্রথম প্রেমটার কবর দেয়া হয়ে গেছে! অনেক দিন হল তাকে ভুলে গিয়ে অন্য কোন রাজকুমারির জন্য অপেক্ষা করছি!ফেসবুকে আমি এখন চরম পপুলার! শহরের পোলাপাইনের মুখে আমি এখন একটা অতি পরিচিত মুখ! যেখানেই যাই, একটা কদর পাচ্ছি! সিগারেট এখন বাহ্যিক চাহিদা হয়ে গেছে! এর চেয়ে বড়গুলাও এখন স্বাভাবিক!

*তেইশ!(নব্য জেন্টালম্যান)

একটু আউলা যাউলা হয়ে গেছি! সব কিছু এখন একটা দূরতের মধ্যে চলে গেছে! নিজেকে প্রমান করার জন্য যা খুশি তাই করে যাচ্ছি! এমন অনেক বিষয় আছে,যা এখন করতে গেলে মন থেকে বাঁধা আসে! কথা বলার সময় খুব হিসেব করে বলি,বিশেষ করে ফোনে কোন মেয়ের সাথে কথা বলতে গেলে! যত বড় মুরুব্বিই হোক, এখন তার সাথে খোলামেলা আলোচনা করি! সিগারেট লুকিয়ে খাওয়ার মন মানসিকতা বিলুপ্ত হয়ে গেছে! আমার বাপের সমান মুরুব্বি হলেও,একটু আড়াল করি! ব্যাস!
মানুষকে সম্মান দেয়াটাকে এখন শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গেছি!মাথার উপর এখন অনেক বড় বড় দায়িত্ব!একটা মেয়ের সাথে প্রেম প্রেম খেলছি!
এক ধরনের কমপ্লিকেটেড রিলেশানশিপ!ভাল আছি……
to be continued………….

৬ thoughts on “পড়লে পরবেন,না পরলে নাই!(আমার ডায়রি!)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *