বিজ্ঞানের মৃত্যু

আর কতদিন আমরা এভাবে চলবো বলো তো!
যতই তোমার ঠোঁটে আমার ঠোঁট লেগে থাকুক
চুম্বুকের মতন;
যতই তোমার ভিতরে প্রবেশ করতে করতে
হয়ে যাই এক অভিন্ন মাংসের দলা
তবু আমাদের প্রিয় ঘরের দেয়ালে ভাঙনের শব্দ
রড, সিমেন্ট, পলেস্তেরা সব পড়ছে খসে
আমাদের প্রিয় ঘর পড়ছে ভেঙে -সেই শব্দ
কি শুনতে পাওনা তুমি?



আর কতদিন আমরা এভাবে চলবো বলো তো!
যতই তোমার ঠোঁটে আমার ঠোঁট লেগে থাকুক
চুম্বুকের মতন;
যতই তোমার ভিতরে প্রবেশ করতে করতে
হয়ে যাই এক অভিন্ন মাংসের দলা
তবু আমাদের প্রিয় ঘরের দেয়ালে ভাঙনের শব্দ
রড, সিমেন্ট, পলেস্তেরা সব পড়ছে খসে
আমাদের প্রিয় ঘর পড়ছে ভেঙে -সেই শব্দ
কি শুনতে পাওনা তুমি?
জানো না যে মহাবিস্ফোরণের পর সবকিছু এক থাকে না?

মহাবিস্ফোরণের পর তোমার আর আমার পৃথিবীটা এক নেই
আমরা বাস করি এখন দুই ভিন্ন পৃথিবীতে
আর নিষ্ঠুর সূত্রানুযায়ী আমরা চলে যাচ্ছি পরস্পর থেকে দূরে
আমাদের দেহের নৈকট্য হয়ে গেছে প্রেমের ব্যস্তানুপাতিক
মহাবিস্ফোরণের পর আমাদের উন্মত্ত রাতগুলির পর
দিনের আলোয় আমরা শুধু খুজি অচেনা মানুষে চেনা ছায়া।

এভাবে স্মৃতি রোমন্থন করে কয়দিন?
একসময় আমরা ছিলাম একই পরমানুতে একই জলের ফোটায়
একসময় আমরা আয়নার অভাবে দেখে নিতাম একে অপরকে
সেই দিন মরে গেছে, পচে গেছে, গলে গেছে,
আমাদের ভালোবাসা মরে গেছে
ভালোবাসা যীশু না যে জেগে উঠবে মৃত্যু থেকে
ভালোবাসা পুনর্জন্ম মানে না যে আবার জনম নেবে
আমরা দুজনে কেবল কাধে নিয়ে ফিরছি প্রেমের লাশ
সেই সুপ্রিয় সুঘ্রান নেই;চতুর্দিকে বধ্যভূমির বিকট গন্ধ।

তবে কেন হতে দিলাম আমরা অই অশুভ বিস্ফোরণ?
আর কি কোন উপায় ছিল না আমাদের কাছে?
জানি না; কোন তত্ত্ব আছে এই প্রশ্নের উত্তরে?
সবকিছুর শেষ হতে হয়;সব পুরাতন চলে যায় নতুনের আগ্রাসনে
সব বিশ্বাস,সব আনন্দ সব দুঃখ একদিন চলে যায়
আসে নতুন বিশ্বাস, আনন্দ আর দুঃখ ।
হয়ত আমাদের সেই আগের সুখ-দুঃখগুলো
হয়ত আমাদের সেই আগের বিশ্বাস আর প্রেম
নতুন প্রকৃতির সাথে পারছিল না খাপ খাওয়াতে
তাই এককালের পরাক্রমশালী ম্যামথের মতন
আমাদের মহান প্রেম আজ বিলুপ্ত,আমাদের প্রেমের হাড়গোড়
এখন শুধু স্মৃতির জাদুঘরে প্রদর্শনের জন্য
হায়! একদিন যে প্রেম ছিল
এর অধিক কী বা বলার আছে!!

এখন কী করার আছে তবে ?
এই অকাট্য সত্য মেনে নিতে হবে?
যখন জানি ভালো করেই বিদ্যুৎ নেই
তখন শুধু শুধু তোমার রক্তিম সকেটে আমার প্লাগ
ক্রমাগত গমন নির্গমনে পন্ডশ্রম কি যৌক্তিক?
আমরা কি যুক্তিহীন পাগল হবো তাহলে?

আমাদের ভালোবাসা মরে গেছে- এই সত্য মেনে নিয়ে
আমাকে চুম্বন করো,আমার মুখ চেপে ধরো তোমার স্তনে
পৃথিবীতে বেচে থাকতে সবাইকে অভিনয় করতে হয়
আসো আমরাও করি;অভিনয় করি যেন সবকিছু আগের মতন
চলো পাগল হয়ে যাই;যেন মৃত প্রেমের হারগোড়
আবার জীবন্ত মনে হয়,যেন মহাবিস্ফোরণ হয়নি কখনো।
বিজ্ঞানের কাছে ঈশ্বর মরে গেছে বহুদিন হলো
তবু কি এখনো মানুষ যায় না চার্চে ঈশ্বরের ছায়া খুজতে?
আমাদের ভালোবাসা মরে গেছে বহুদিন হলো
তবে আমরা কেন যেতে পারি না একে অপরের ভিতরে
ভালবাসার ছায়া খুজতে?
এই যান্ত্রিক শতাব্দীর সব কারখানার শব্দ চাপা পড়ুক
মধ্যযামে তোমার উন্মত্ত শীৎকারে
এই বিশ্বের সব মহান বিজ্ঞানের গ্রন্থ জ্বলুক
তোমার সকেটের অযৌক্তিক বিদ্যুতের আগুনে
তোমার গর্ভ ধারন করুক হে পাগলিনী আমার
নতুন এক যুগবাণীঃ
“বিজ্ঞান আজ মৃত,আর আমরাই তার খুনি”

(নীটশের “God is Dead” দর্শন থেকে অনুপ্রানিত)

১ thought on “বিজ্ঞানের মৃত্যু

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *