সামাজিক ব্যবসা এবং আমার কিছু প্রশ্ন:

“সামাজিক ব্যবসা হচ্ছে এমন ব্যবসা যা উদ্যোক্তা বা বিনিয়োগকারী একটি সামাজিক সমস্যা সমাধানের জন্য ব্যক্তিগত লাভের আশা ছাড়াই বিনিয়োগ করেন। সামাজিক ব্যবসা লোকসানহীন এমন প্রতিষ্ঠান যা লাভ বন্টন না করে একটি সামাজিক সমস্যা সমাধানের লক্ষে উৎসর্গীকৃত।”
-ড.মোহাম্মদ ইউনুস

আমি ব্যক্তিগত ভাবে যা বুঝেছি। এটা এমন একটা প্রতিষ্ঠান যা ব্যবসার সকল শর্তই পালন করবে কেবল লাভ করবে না। আর করলেও সীমিত আকারে। এবং ঐ লাভ ব্যবসা সম্প্রসারন করবে অথবা কোন দুস্থদের জন্য বরাদ্ধ করা হবে।

“সামাজিক ব্যবসা হচ্ছে এমন ব্যবসা যা উদ্যোক্তা বা বিনিয়োগকারী একটি সামাজিক সমস্যা সমাধানের জন্য ব্যক্তিগত লাভের আশা ছাড়াই বিনিয়োগ করেন। সামাজিক ব্যবসা লোকসানহীন এমন প্রতিষ্ঠান যা লাভ বন্টন না করে একটি সামাজিক সমস্যা সমাধানের লক্ষে উৎসর্গীকৃত।”
-ড.মোহাম্মদ ইউনুস

আমি ব্যক্তিগত ভাবে যা বুঝেছি। এটা এমন একটা প্রতিষ্ঠান যা ব্যবসার সকল শর্তই পালন করবে কেবল লাভ করবে না। আর করলেও সীমিত আকারে। এবং ঐ লাভ ব্যবসা সম্প্রসারন করবে অথবা কোন দুস্থদের জন্য বরাদ্ধ করা হবে।
ড.ইউনুস স্পষ্ট করেই জানিয়ে দিচ্ছেন যে এটি কোন দাতব্য প্রতিষ্ঠান নয়, সে সবার সাথে প্রতিযোগীতা করেই টিকে থাকবে, এই জন্য সরকারি কর মাফ করার কোন প্রয়োজন নেই। যারা বিনিয়োগ করবেন তারা এক সময় তাদের বিনিয়োগের টাকা নিয়ে যেতে পারবেন কিন্তু কোন লাভ পাবেন না।

সামাজিক ব্যবসা আবার দুই ধরনের।
এক. যেকানে কোন লাভ করা যাবে না।
দুই. লাভ যা হবে তা গরীব মানুষের মধ্যে বিতরন হবে।

সনাতন ব্যবসা এবং সামাজিক ব্যবসা এক সাথে সম্ভব কিনা, তিনি বলেছেন সম্ভব এর নাম দিয়েছেন দো-আঁশলা ব্যবসা। আবার এও উল্লেখ করেছেন সর্বোচ্চ মুনাফা করা ও সমাজ কল্যান করার উদ্দেশ্য নিয়ে ব্যবসা করাটা কঠিন। তবে বিশ্ব ব্যাংককে বলেছেন আপনারা তো প্রতি বছর ২০বিলিয়ন ডলার দান করেন। এর মধ্যে অন্তত ৫ মিলিয়ন সামাজিক ব্যবসাকে দিন। অতএব এটা কোন দাতব্যসংস্থাও না আবার পুঁজিবাজারের ব্যবসাও না।

সামাজিক ব্যবসা এবং আমার কিছু প্রশ্ন:
১।আল্লা ব্যবসাকে করেছে হালাল আর সুদকে করেছে হারাম। ব্যবসাকে হালাল করেছে কারন এতে লাভলস দুটাই আছে। ড.ইউনুস কোন লসের কথা বলে নাই। তিনি গর্বের সাথে বলেছেন এতে কোন লস হবে না। লসের ঝুকি না থাকলে তা ব্যবসা হবে কি করে?

২। এই ব্যবসায় লস হলে মূলধন সংকটে পড়বে,তাকে পুনরায় বিনিয়োগের দরকার পরবে। কিন্তু একটা লস প্রকল্পে কোন পুঁজি ফিরিয়ে নেয়ার ঝুকি নিয়ে কেন আবার বিনিয়োগ করতে আসবে?

৩।পুঁজিবাদে উন্মোক্ত বাজারে এই পন্যকে প্রতিদন্ধি করে টিকতে হবে। সবার সাথে তাল মিলাতে দিতে হবে বিজ্ঞাপন। অথচ তিনি বলছেন কোন বিজ্ঞাপনের দরকার নেই। বাংলাদেশে শক্তিদই(গ্রামিন ডানো প্রজেক্ট) এর কি কোন বিজ্ঞাপন দেয়া হয়নি!

৪।প্রতিযোগীতা করতে হলে রিক্স নিতে হবে,রিক্স নেয়া মানেই লস পড়ার সম্ভাবনা তাই যখন সুযোগ থাকবে লাভ করে নিতে হবে না হলে দুর্দিনে টিকার সুযোগ থাকবে না। এরোমেটিক সাবান এক সময় বাজার দখল করে রাখলেও এখন তার বাজার পড়ে গেছে। বাজার ধরে রাখতে সব পন্যকেই যুদ্ধ করতে হয়,প্রতিনিয়ত আপডেট করে নিতে হয়। এই ক্ষেত্রে যাদের পুঁজি বেশি তারা সুফল পাবে। যার কারনে ইউনিলিভারের মতো কোম্পানির লাক্স টিকে যাচ্ছে যুগের পর যুগ।

৫। প্রতিযোগীতায় টিকতে নানা কৌশল নিতে হয়। জ্যোতিরিন্দ্রনাথের জাহাজের ব্যবসার কথা নিশ্চয় মনে আছে? এক সময় ইস্টইন্ডিয়া কোম্পানির কাছে জাহাজ বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছে। ধরা যাকা বাজারে এখন আছে পুঁজিকেক,এর দাম ৮টাকা। এখন নতুন করে সামাজিক কেক বাজারে আসলো।এরা লাভ করবে না তাই দাম ৭টাকা। সবাই সামাজিক কেক কিনবে। কিন্তু এতে পুঁজি কেক বিক্রি কমে যাবে,এভাবে চলতে থাকলে এক সময় পুঁজি কেক বন্ধ হয়ে যাবে। এখন পুঁজি কেক কি আঙ্গুল চুষবে? সে যদি ছোট পুঁজি নিয়ে নামে তবে তাকে ব্যবসায় গুটিয়ে চলে যেতে হবে,আর যদি বড় পুঁজি হয় তবে কি করবে? নিশ্চয় সে বাজারে প্রতিযোগীতার জন্য ৬টাকায় কেক বিক্রি করবে? এবং এভাবে লস দিয়ে দুই বছর চালিয়ে যাবে। কারন পুঁজিকেকের আরো অনেক ব্যবসা আছে,একটায় লস হলে এমন কোন ক্ষতি হবে না। কিন্তু সামাজিক ব্যবসা লস দিয়ে দুই বছর টিকবে কি করে? কে তাকে আবার অর্থ সাহায্য করবে?

৬। সামাজিক ব্যবসা বইটাতে অনেক বড় বড় ব্যক্তির কথা থাকলেও একজনও অর্থনীতিবিদের নাম নাই,বিশ্বের ঝানুঝানু অর্থনীতি বিদরা এই ব্যবসা নিয়ে কি বলেন জানা হলো না।

৭। তিনি বড় বড় করে অনেক বার বলেছেন পুঁজিবাদের সমস্যা হচ্ছে কিন্তু কি সমস্যা হচ্ছে তা বলছেন না। এবং সেই সমস্যা কি ভাবে সামাজিক ব্যবসা সমাধান করবে তার কোন মডেল নাই। অথচ সামাজিক ব্যবসার লাভ দিয়ে অনেক জনকল্যানকর কাজের কথা বলেছেন,কিন্তু এসব কোনটাই পুঁজিবাদের সমস্যা না।

৮। নরসিংদীর কাদির মোল্লা তার আয়ের একটা অংশ দিয়ে তার এলাকায় অনেক উন্নয়ন মূলক কাজ করছেন,স্কুল,কলেজ মসজিদ থেকে শুরু করে সামাজিক সাহায্য।কিন্তু এই জন্যে তো তাকে কোন সামাজিক ব্যবসা খুলতে হয়নি। সামাজিক ব্যবসার যে সকল সুবিধার কথা বলা হয়েছে এসব পুঁজি ব্যবসা দিয়েও করা সম্ভব।

৯। তিনি দাবি করেছেন স্কুলে এই ব্যপারে পড়ানো উচিত। তিনি বলেছেন ব্যবসা দুই প্রকার, ব্যক্তি লাভের ব্যবসা ও সামাজিক ব্যবসা। এখন একজন যদি তার সমস্ত পুঁজি নিয়ে সামাজিক ব্যবসায় নামেন তখন কি হবে? তিনি লাভ নিলেন না কিন্তু চলবেন কি করে? এই ব্যবসায় একজন উদ্দ্যোক্তা কি করে টিকে থাকবে?

১০। তবে ধরে নিতে পারি যার অনেক ব্যবসা আছে তিনি একটি সামাজিক ব্যবসা চালু করবেন।হুম তা পারেন।তিনি বলেছেন মানুষ আনন্দের জন্য ব্যবসা করবেন। সবই ঠিক আছে তাহলে কি দাঁড়াল একজন মানুষের মূল ব্যবসা ঠিক রেখে অতিরিক্ত কিছু পুঁজি সামাজিক ব্যবসার জন্য দিতে পারেন। যার এত টাকা আছে সে চাইলেই তো অনেক কিছু করতে পারেন এর জন্য সামাজিক ব্যবসার তো দরকার পরে না, কাদের মোল্লার উদাহরন তো যথেষ্ট।

১১। কর্মসংস্থানের কথা বলা আছে,এতে সামাজিক ব্যবসায় যেমন হবে অসামাজিক ব্যবসায় তেমনই হবে। কারন দুই ক্ষেত্রেই বাজার অনুসারে বেতন দেয়ার কথা আছে।

১২। একটা মানুষ কখন বুঝবেন যে তার অতিরিক্ত টাকা হয়েছে এখন কিছু টাকা সামাজিক ব্যবসায় বিনিয়োগ করতে হবে। কারন কোথাও তিনি ধনিদের বলেনি যে সংযম করতে হবে। সংযম যদি না করে তবে পুঁজির লোভ ছাড়বে কি করে?

১৩। উদাহরন দিয়েছেন সামাজিক ব্যবসা হিসেবে একটা ব্রিজ করে দেয়া যেতে পারে। তাতে যে টুল আসবে সেই লাভ আবার বিনিয়োগ করা যাবে। এবং গরিবের জন্য টুলের পরিমান কম হবে। এখন গরিবটা নির্ধারিত হবে কি করে? ব্রিজ পাড় হওয়ার সময় কি জিজ্ঞাস করা হবে ভাই আপনি কি গরিব?

১৪। প্রতিষ্ঠানের মালিক যদি হঠাৎ করেই ঘোাষনা দেয়,সে লাভ নিবে না,তাহলে কি প্রতিষ্ঠানটি সামাজিক ব্যবসা হয়ে যাবে? আর কোন পরিবর্তন কিন্তু হলো না।

১৫। বাংলা দেশে তিনটি হাসপাতাল আছে,যেগুলো সামাজিক ব্যবসা করে। অর্থাৎ তার নিজের ইনকাম দিয়ে সে চলে।এবং গরিব মানুষকে বিনামূল্যে চিকিৎসাও করে।হাসপাতাল চালু রাখতে এবং বিনামূল্যে চিকিৎসা দিতে নিশ্চয় অনেক টাকার প্রয়োজন এসব টাকা যদি রোগিদের কাছ থেকেই সংগ্রহ করতে হয় তখন কি এই হাসপাতালের কোন অনন্য বৈশিষ্ট থাকবে?একটি হাসপাতাল করতে যে পরিমান অর্থ লাগে সেই পরিমান অর্থ যদি একটা নিদ্রিষ্ট সময়ে তুলে নিতে হয় তাহলে প্রয়োজনের চেয়ে অতিরিক্ত লাভ করতে হবে।এই বিশাল টাকা তুলে নিয়ে আবার কম টাকায় চিকিৎসা দেয়া কতটা বাস্তব সম্মত?

১৬। ড.ইউনুস যদি কাউরান বাজারের মোড়ে দাঁড়ায় শক্তি দই নিয়ে তিনি দুই ঘন্টায় লাখ খানেক দই বিক্রি করতে পারবেন,কিন্তু ছলিমুল্লা কি পারবে? নিশ্চয় সম্ভব নয়। গ্রামীন ব্যাংক তৃনমূলে কাজ করার লোকবল আছে বলে যেভাবে সে কাজ করতে পারবে একজন ব্যক্তি উদ্যোক্তার পক্ষে তা সম্ভব না। এর জন্য দরকার হবে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা ,কিন্তু এই দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সময় কালে কিভাবে চলবে?

১৪ thoughts on “সামাজিক ব্যবসা এবং আমার কিছু প্রশ্ন:

  1. সামাজিক ব্যবসা জিনিসটাই ডঃ
    সামাজিক ব্যবসা জিনিসটাই ডঃ ইউনুসের ভুংভাং ও পুঁজিবাদকে টিকিয়ে রাখার একটা নবকৌশল। আপনার বিশ্লেষন ভাল লেগেছে। সাধারণ মানুষকে সহজভাবে ইউনুসদের ধান্ধাবাজি সম্পর্কে বুঝাতে হবে।

    পোস্টটি শেয়ার দিলাম। সবাইকে শেয়ার দেওয়ার অনুরোধ জানাইলাম।

  2. সামাজিক ব্যবসা জিনিসটাই
    সামাজিক ব্যবসা জিনিসটাই ভাওতাবাজি। অনেকটা MLM ব্যবসার মত। ভাল বিশ্লেষন করেছেন আপনি।

  3. চমৎকার বিশ্লেষণ। ডক্টর
    চমৎকার বিশ্লেষণ। ডক্টর ইউনুসের ভন্ডামি নিয়ে একটা পোস্ট দেওয়ার ইচ্ছে আছে। আপনার এই পোস্টটা কাজে লাগবে। আগে থেকেই ব্যবহারের অনুমতি নিয়ে রাখলাম।

  4. আপনার সবগুলো প্রশ্নের সাথে
    আপনার সবগুলো প্রশ্নের সাথে সহমত। আসলে সামাজিক ব্যবসা জিনিসটাই পুঁজিবাদের নবরূপ। চমৎকার বিশ্লেষন করেছেন?

  5. প্রাগৈতিহাসিক ডাইনোসরের এরকম
    প্রাগৈতিহাসিক ডাইনোসরের এরকম একটা সাম্প্রতিক বিষয়াবলী নিয়ে এতো সহজ কথায় এতো সুন্দর ব্লগ দেখে খুব ভালো লাগল। খুব প্রাসঙ্গিক এবং খুব তথ্যানুসন্ধানী পোস্ট, খুব ভাল লেগেছে।

    1. সহজ করে লিখার বিষয়টা আমার
      সহজ করে লিখার বিষয়টা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমি চাই সবাই সহজ করে লিখুক। তথ্য আর তত্বের ঝনঝনানি লেখাকে সুখপাঠ্য হতে বঞ্চিত করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *