কুড়িয়ে পাওয়া চিঠি

প্রিয় মাহমুদা

আজ এক বছর পূর্ণ হলো।একটি বছর। অথচ মনে হচ্ছে তোকে সেইদিন দেখলাম তুই রাস্তা দিয়ে হেটে যাচ্ছিস। আমার দিকে তাকিয়েছিলি কিনা মনে নেই কিন্তু তোর দিকে আমি অপলক তাকিয়ে ছিলাম। রোদেলা দুপুরে গাছের ছায়া ঘেরা পথ দিয়ে তুই হাটছিলি, আমার হৃদয়টা যে তোর সাথে চলে যাচ্ছিল। একবছর পরের দিনটা মেঘাচ্ছন্ন। কে জানে প্রকৃতি হয়তো আমার মনের অবস্থা জানতে পেরেছে।

তোকে অনেক ভাল লেগেছিল। তোকে ভালবেসেছি মন প্রাণ উজাড় করে। তোর জন্য আমার জীবনটা অনেক অনেক পাল্টে গিয়েছে। তোর যোগ্য ছিলাম না আমি। নিজেকে তোর যোগ্য হিসেবে গড়ে তুলতে আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। কিন্তু তোকে আমি হয়তো পাব না।


প্রিয় মাহমুদা

আজ এক বছর পূর্ণ হলো।একটি বছর। অথচ মনে হচ্ছে তোকে সেইদিন দেখলাম তুই রাস্তা দিয়ে হেটে যাচ্ছিস। আমার দিকে তাকিয়েছিলি কিনা মনে নেই কিন্তু তোর দিকে আমি অপলক তাকিয়ে ছিলাম। রোদেলা দুপুরে গাছের ছায়া ঘেরা পথ দিয়ে তুই হাটছিলি, আমার হৃদয়টা যে তোর সাথে চলে যাচ্ছিল। একবছর পরের দিনটা মেঘাচ্ছন্ন। কে জানে প্রকৃতি হয়তো আমার মনের অবস্থা জানতে পেরেছে।

তোকে অনেক ভাল লেগেছিল। তোকে ভালবেসেছি মন প্রাণ উজাড় করে। তোর জন্য আমার জীবনটা অনেক অনেক পাল্টে গিয়েছে। তোর যোগ্য ছিলাম না আমি। নিজেকে তোর যোগ্য হিসেবে গড়ে তুলতে আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। কিন্তু তোকে আমি হয়তো পাব না।

ভাললাগা ভালবাসার একটি বছর। নিজেকে পরিবর্তনের একটি বছর। স্বপ্ন দেখার একটি বছর। তোকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখেছিলাম। ইচ্ছে ছিল পূর্ণিমায় জোছনা ভরা রাতে পাশাপাশি হাত ধরে হাটবো। বিকালে নদীর পাড়ে বসে থাকবো। সমুদ্রের তীরে আসা মৃদু ঢেউগুলো ভেঙে সাদা বালু মাড়িয়ে ভোরের সূর্যোদয় দেখবো। সূর্যাস্ত দেখতে দেখতে হারিয়ে যাব অন্ধকার হয়ে আসা প্রকৃতির মাঝে। চেয়েছিলাম তোর হাতটা আমার হাতে থাকবে। হঠাৎ ভয় পেয়ে শিউরে উঠে তুই আমার হাতটা চেপে ধরবি। আরো কত স্বপ্ন ছিল তোকে নিয়ে। দিন ফুরিয়ে যাবে কিন্তু স্বপ্নগুলো শেষ হবে না।
এই স্বপ্নগুলো অনেক অনেক দামি।

এই স্বপ্ন পূরণ হবার সৌভাগ্য আমার নেই। তুই তো আমার হবি না। তুই অন্যের। তোকে আমি যে স্বপ্ন দেখেছি হয়তো একই স্বপ্ন তুই আরেকজনকে নিয়ে দেখিস। তোর স্বপ্নে অন্য এক রাজপুত্র বিচরণ করে। নারে আমি রাজপুত্র হতে পারবো না। রাজপুত্র হবার যোগ্যতা আমার নেই। সেই যোগ্যতা আমার কখনো হবে না। কিন্তু তুই আমার রাজকন্যা হয়ে থাকবি।

মাঝে মাঝে তোর স্বপ্নগুলো জানতে অনেক ইচ্ছে করে। তুই তোর রাজপুত্রকে নিয়ে কি ভাবিস কল্পনা করি। কখনো নিজেকে তোর রাজপুত্রের স্থানে বসিয়ে নিই। তখন নিজেকে অনেক অনেক সুখি মনে হয়, নিজেকে পৃথিবীর সবচেয়ে ভাগ্যবান বলে মনে হয়।

আমি জানি তোর অনেক স্বপ্ন আছে। নিজেকে নিয়ে , নিজের রাজপুত্রকে নিয়ে। নারে কখনো তোর বাধা হবো না। তোর স্বপ্নগুলো পূরণ হোক। তুই সুখি থাক সেটাই আমি চাই। তোর যেকোন প্রয়োজনে স্বাধ্যের বাইরে গিয়েও সাহায্য করবো। তোর সুখ যে আমার সুখ। তোকে বা নাই পেলাম তুইতো সুখে থাকতে পারবি। সেটাই আমার জন্য অনেক। তোর স্মৃতিগুলো, তোকে নিয়ে দেখা স্বপ্নগুলো আমার জীবনের সবচেয়ে দামি সম্পদ।

আমার জীবনে হয়তো অনেক মেয়ে আসবে। তাদের সাথে সম্পর্ক তৈরি হবে। কিন্তু এই সম্পর্ক হবে জৈবিক। একটা লোক দেখানো একটা সামাজিক সম্পর্ক থাকবে কিন্তু সেটা মেকি,নকল। আমার ভালবাসা পাবেনা। আমি তোকেই ভালবাসি। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত আমি তোকেই ভালবাসবো। শেয নিঃশ্বাস পর্যন্ত তোর জন্য অপেক্ষা করবো।

আমার এখন একটাই লক্ষ্য “আমি অনেক বড় হবো।” যতটা বড় হলে তোকে পাবার যোগ্যতা হবে। জানি তোকে পাবনা তবুও । তোর প্রিয় সব কিছু আমার থাকবে। তোর তো বারবি ডল অনেক পছন্দ তাইনা।আমার রুমে বারবি ডলের প্রথম এডিশন থেকে সব রাখবো। হয়তো এটা অনেকের কাছে আদিখ্যেতা মনে হবে কিন্তু এই আদিখ্যেতাটুকু আনন্দে রাখবে মাঝেমাঝে বিষাদের সাগরে ভাসিয়ে দিবে।

“ভালো থেকো ফুল,
মিষ্টি বকুল,
ভালো থেকো।
ভালো থেকো ধান,
ভাটিয়ালি গান,
ভালো থেকো।
ভালো থেকো মেঘ,
মিটিমিটি তারা।
ভালো থেকো পাখি,
সবুজ পাতারা।
ভালো থেকো। ”

ভাল থাকিস। অনেক অনেক ভাল থাকিস।

ইতি
হতভাগ্য সৈনিক

৪ thoughts on “কুড়িয়ে পাওয়া চিঠি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *