উপমহাদেশীয় চলচিত্রে একটি পেশার অবমূল্যায়ন

আমাদের ভারতীয়
উপমহাদেশীয় অঞ্চলের
চলচিত্র এবং নাটকগুলিতে নার্স (সেবিকা)
চরিত্রটিকে কিভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়
তা নিয়ে ক লাইন লেখার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছিলাম।
আমি ব্যাক্তিগতভাবে সিনেমা খুব
কম দেখি।
ছোটবেলা থেকে এ পর্যন্ত
যতগুলো সিনেমা দেখেছি তার
মধ্যে কতক সিনেমায় এই মহান নার্সিং পেশাটির
চরিত্রকে কিভাবে মুল্যায়ন
করা হয়েছে তা সংক্ষেপে তুলে ধরছি।



আমাদের ভারতীয়
উপমহাদেশীয় অঞ্চলের
চলচিত্র এবং নাটকগুলিতে নার্স (সেবিকা)
চরিত্রটিকে কিভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়
তা নিয়ে ক লাইন লেখার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছিলাম।
আমি ব্যাক্তিগতভাবে সিনেমা খুব
কম দেখি।
ছোটবেলা থেকে এ পর্যন্ত
যতগুলো সিনেমা দেখেছি তার
মধ্যে কতক সিনেমায় এই মহান নার্সিং পেশাটির
চরিত্রকে কিভাবে মুল্যায়ন
করা হয়েছে তা সংক্ষেপে তুলে ধরছি।
বিভিন্ন সিনেমায়
দেখেছি যে নার্সকে মূলত
ভিলেনের
সহযোগী হিসেবে ব্যাবহার
করা হয়েছে।
কোথাও কোথাও
নার্সকে অর্থের
বিনিময়ে গর্ভপাত, অর্থের
বিনিময়ে বাচ্চা বদল,
হাসপাতালে ওউষধ
প্রয়োগে কাউকে হত্যার চেস্টা,
কিংবা কিছু না হলেও ঠায়
দাড়িয়ে থাকে নীরব একটি চরিত্রে রুপায়িত হতে দেখা যায়। কখনও বা ভিলেন কর্তৃক উতকোচ নিয়ে বেশ লোভী একটি চরিত্রে ব্যাবহার হতেও দেখা যায়।
কেন এই ধরনের চারিত্রিক বইশিষ্ট্য ফুটিয়ে তোলার জন্য সেই আদিকাল থেকেই নার্স পেশাটিকে খুজে নেয়া হয় তা বুঝে উঠতে পারি না। কোন ছবির কথা হয়ত কেউ বলতেই পারবে না যেখানে নার্স চরিত্রটিকে কোন ভাল উদাহরণ হিসেবে মহামান্য পরিচালক ব্যাবহার
করেছেন।
একবার তো এক ভারতীয় সিরিয়ালে দেখেছি যে নার্স নিজেই ভিলেন,
যে কি না রোগিকে হত্যা করে তার সম্পত্তি দখলের
চেস্টা করছে!
দৃশ্যপটগুলো বিশ্লেষন
করলে দেখা যায় এজীবনকালে ছবির
পরিচালকদের নিকট নার্স
একটি ক্রাইমনির্ভর, অসত এবং অসাধু চরিত্র হিসেবেই মূল্যায়িত হয়েছে। এবং যা বাস্তবতার সম্পুর্ন
পরিপন্থী।
আমি জানি না কেন অত্র
অঞ্চলের ছবি পরিচালনা
ব্যাক্তিবর্গেরনিকট
নারসিং পেশাটিকে এইরুপ মনে হয়,
যে তারা সবসময়
নার্সেকে একটি ভিলেনি চরিত্রে রুপায়িত
করেন। আর কেনই বা নার্স সম্পর্কে তাহাদের সাধারন নলেজ এতই কম। নাকি এই পেশার মানুষগুলোর প্রতি ওনাদের বিশেষ প্রতিহিংসা কাজ করে? নাকি নার্স নামক পেশাটিকে নিকৃস্টরুপ কিছু মনে করেন? নাকি, নার্সিং প্রফেশনে নারীদের সংখ্যা বেশী বলে কেউ প্রতিবাদ করতে পারবে না -এটা ভাবেন? নাকি একটি পবিত্র পেশার মানুষদের অপমান করে পইশাচিক আনন্দ লুফেন? নাকি নার্সরা উপহাসের পাত্র হিসেবে সাধারন দর্শকদের মনের খোরাক জোগান? কোন অধিকারে আপনারা একটি পেশাকে ছোট করে তার মজা লুটেছেন? আর নয়, দেশের নিউ জেনারেশন এর নার্সরা এখন অনেক সচেতন।
কেন, কোন
পজেটিভ
চরিত্রে কি নার্সদের
ব্যাবহার করা গেল না???
তেনাদের
বারংবার এই অসামান্য
ভূলের কারনে আজ পূরো নার্সিং
প্রফেশনটির ইমেজের চরম অবক্ষয়
ঘটেছে। এই ধরনের নিকৃস্ট
সিনেমা দেখে সাধারন পাব্লিক
এটাই এখন
ধারনা করে বসে যে নার্স
মাত্রই নেগেটিভ
একটা কিছু।
তাই এখন
থেকে দেশে এই ধরনের নার্স অবমাননাকারী কোন
ছবি মুক্তি পেলে নার্স
অবমাননার দায়ে সেই
পরিচালকের
বিরুদ্ধে আইনি ব্যাবস্থা গ্রহনের দাবি জানাই।
আপনারা সহযোগীতা করলে সুফল
আসবেই।

৫ thoughts on “উপমহাদেশীয় চলচিত্রে একটি পেশার অবমূল্যায়ন

  1. অনেক কিছু চোখের সামনে থাকে
    অনেক কিছু চোখের সামনে থাকে কিন্তু ভালভাবে চিন্তা করে দেখা হয় না, আসলেই নার্সিং প্রফেশনকে চলচিত্র গুলোতে পজেটিভ চরিত্রের চেয়ে নেগেটিভ চরিত্রে দেখানোর হার অনেক বেশি,যার দায় আমাদের চলচিত্র নির্মাতাদের উপরই বর্তায়,আশা করি নতুন প্রজন্মের নির্মাতারা এ ব্যাপারে আরও সচেতন হবেন।

  2. আপ্নাকে ধন্যবাদ যে ব্যাপারটা
    আপ্নাকে ধন্যবাদ যে ব্যাপারটা বুঝতে পেরেছেন।আমি নিজেও একজন নার্স।
    তবে সেই সিনেমা নির্মানকারী কাউকে আমি খুজছি। এই বার্তাটা তদের কাছে পউছাতে চাই।

  3. সরকারী হাসপাতালের নার্সদের
    সরকারী হাসপাতালের নার্সদের মোবাইল চুরি/বাচ্চা চুরি করে বেচে দেয়া আর বেসরকারী হাসপাতালের আন্তরিক সেবা প্রদান এসব ছাড়াও নার্সদের জীবন জীবিকা নিয়ে আলাদাভাবে কাজ করা যায়। তবে চলচ্চিত্রের স্ক্রীপ্ট এবং কাহিনী যা ডিমান্ড করে সেভাবেই দেখানো হয়। কোনো পেশাকে অবমূল্যায়ন করে কি চলচ্চিত্র তৈরী হয়? উপস্থাপনার গুণ/দোষেই কেঁচে যেতে পারে অনেক কিছুই। সেটার দায় পরিচালকের ওপরেই বর্তায়। সালমান শাহ – শাবনূর অভিনীত একটি সিনেমায় দেখেছি শাবনূর নার্স না হয়েও নার্সদের পোশাক পরে নার্সদেরকে নিয়ে লাফিয়ে লাফিয়ে গান গেয়ে বেড়াচ্ছে। এসব কি যৌক্তিক? কাহিনী এবং চিত্রায়ন নিয়ে যথেষ্ট কৌশলী না হলে কিছুই দৃষ্টিনন্দন হবে না।

  4. এটা শুধু নার্সদের ক্ষেত্রে
    এটা শুধু নার্সদের ক্ষেত্রে বলছো কেন? ছবির কাহিণীর প্রয়োজনে চরিত্রগুলো সাজানো হয়। সেক্ষেত্রে অনেকগুলো চরিত্রই নেগেটিভ হওয়াটাই স্বাভাবিক। আর সেক্ষেত্রে প্রফেশন থাকতেই পারে। এক্ষেত্রে তাদেরও যুক্তি আছে। অনেক নার্সই মহান চরিত্রে অভিনয় করছে। তাঁদের দায়িত্বশীল কাজে, স্নেহে, ভালবাসায় রোগীকে দ্রুত সুস্থ করে তুলছে। :ভাঙামন: :গোলাপ:
    তবে একথা ঠিকযে সিংহভাগ ক্ষেত্রেই নার্স চরিত্রটি নেগেটিভ। যা বিরুপ ধারণা সৃষ্টি করতে সক্ষম। এমনিতেই আমাদের সমাজে নার্সদের খুব ভালো চোখে দেখা হয়না। অবমাননাকর অবস্থায় পরতে হয় অহরহ।

  5. এটা খুবি নগন্য সিনেমায়
    ঘটেছে।

    এটা খুবি নগন্য সিনেমায়
    ঘটেছে। এখানে তোমায়
    বাস্তবতা বিবেচনা কর্তে হবে।
    সিনেমার মূল ভিত্তি হল
    মানুষের জীবনাচরণ ছবিতে তুলে ধরা।
    বাস্তবক্ষেত্রে নার্স মানেই
    অইরকম কিছু না, তোমার
    কাছে কি মনে হয়?@কমরেড?

    আর সরকারী হাসপাতালের নার্সরাও কিন্তু সেকেন্ড ক্লাস অফিসার। অফিসারের নামে মোবাইল চুরির অভিযোগ করলেন @মি.শওকত**** কেমনে কি?

Leave a Reply to শওকত খান Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *