দেশে কুনো গনতন্ত্র নাই। বড় গনতন্ত্র লন্ডনে, ছোট গনতন্ত্র কুয়ালালামপুরেঃ মাদারে গনতন্ত্র

বাংলাদেশে সফর করতে আসা ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সাথে মতবিনিময় করেছেন বেনগলি জাতিয়তাবাদি জামাতে পিছলামী দলের ভাঁড়প্রাপ্ত মহিলা আমির বেগম জিয়া। পাঁচখানা রন্‌গ-বেরন্‌গের জামদানী শাড়ী উপঢৌকন হিসেবে আগেই সুষমা স্বরাজের কাছে পাঠিয়েছিলেন বলে দাবী করেছেন চৌধুরী বাড়ীর একমাত্র চৌধুরী মবিল ব্যবসায়ী শমসের মবিন চৌধুরী।


বাংলাদেশে সফর করতে আসা ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সাথে মতবিনিময় করেছেন বেনগলি জাতিয়তাবাদি জামাতে পিছলামী দলের ভাঁড়প্রাপ্ত মহিলা আমির বেগম জিয়া। পাঁচখানা রন্‌গ-বেরন্‌গের জামদানী শাড়ী উপঢৌকন হিসেবে আগেই সুষমা স্বরাজের কাছে পাঠিয়েছিলেন বলে দাবী করেছেন চৌধুরী বাড়ীর একমাত্র চৌধুরী মবিল ব্যবসায়ী শমসের মবিন চৌধুরী।

বহু দেন-দরবার শেষে সুষমা স্বরাজের দেখা পেয়ে আভেগঘন কন্ঠে বেগম জিয়া হু হু করে কেঁদে উঠলে তাকে স্বান্তনা দেন সুষমা স্বরাজ। এক পর্যায়ে মহাদ্যাশনেত্রী আপুশহীন কন্ঠে নালিশ করেন, এই সরকার অবৈধ, পাঁচ জানুয়ারির নির্বাচন অবৈধ। তিনি আবদার করে বসেন, দিদি আপনেগো লগেই আমরা এক সুতায় বান্‌ধা। আপনেগের নাম বিজেপি আমার নাম বিএনপি, আপনেরা জিতনে ঐ বাকশালী খুশি হয় নাই; যেমনটা হয়েছিলাম আমরা। অথচ আপনেরা তাদের দিকেই গেলেন, আমারে দেখা করার সুযোগও দিলেন না পরথমদিকে। আপনেরা যখন ক্ষেমতায় আসছিলেন; তখন সংখ্যালগু মারছিলেন, আর আমরাও সেই তকন থিক্কাই নিয়ম কইরাই নিয়মিত সংখ্যালগু মাইর‍্যা থাকি। অহন আপনেগো থিক্কাই বলন লাগবো এই সরকার অবৈধ; আপনেরা এই সরকারের লগে নাই, তাইলেই আমরা একলগে থাকতে পারুম।

এমন মামাবাড়ীর বাইক্ক্যা আবদার শুনে সুষমা স্বরাজ বলেন, আপা ইয়ে আপকি ঘর কি বাত্‌ হায়, ঘর কি বাত্‌ ঘরমে রাখিয়ে। হোটেল সোনার গাঁওয়ের “বেঙ্গলি” স্যুইটে মতবিনিময় শেষে দুঃখ ভাঁড়াক্রান্ত মন নিয়ে বেরিয়ে আসেন বেনগলি জাতিয়তাবাদি জামাতে পিছলামির সুরা মজলিশের সদস্যরা। পরথমে তারা চাপা রাখত চায়, আন্‌দার কি বাত আন্‌দারে। তাৎক্ষণিক এক বিবৃতিতে ভাঁড়প্রাপ্ত আরেক নেতা তালুপোড়া, মুখব্যাকা; রফিক সাহেব বর্‌জ কন্‌টে বলেন, এই সরকাররে ভারত সমরতন করে না। সমরত্তন করে আমাগো মাদারে গনতন্‌ত্ররে। কিন্তু সৈয়দ বংশের দুষ্টু ছেলে সৈয়দ আকবার ফাঁস করে দেন মাদারে গণতন্ত্রের কান্দাকাটির কথা। তিনি বলে দেন বাংলাদেশের নির্বাচন এবং অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে নাক গলাবে না ভারতের মুদী সরকার।

এরপরই আরেক বিবৃতিতে মাদারে গণতন্ত্র, একাত্তরের রেম্বর একমাত্র স্ত্রী বেগম জিয়া বলেন, রমযানের পর ঈদের দিন দেড়হাত দেইখ্যা নিবো মুদী সরকাররে। আরেক ভাঁড়প্রাপ্ত নায়েবে আমির মীর জাপর কুল বলেন, আমরা আগেই বলেছিলাম ভারত মানেই মাক্কি; কিপটা। এইজন্যেই তারা আইজ আমাদের মাদারে গনতন্‌ত্রের সাথে সাক্ষাতের সময় শুধু স্যান্ডউইচ, কলা, জুস খাওয়াইছেন। সুষমা কি জানেন না চট্‌টগেরামে ভরমণের সময় আমাগো নেত্রী সকালে নাস্তাতে কি কি খাইছিলেন! তারা কেমন কঞ্জুস এইটা পরমাণ হয় যখন তারা গাড়ি ভাড়া দিয়া আমাদের সাথে দেখা করতে আসে না, আমাদের যেতে হয় গাড়ি ভাড়া খরচা করে দেখা করতে। আমরা এই বাকশালীদের(!) ক্ষমতায় গেলে দেড়হাত দেখে নেবো।

আরেক বিবৃতিতে টাকলা মঈন তুতলিয়ে বলেন, এই মুদী সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রীর কাছে আমাদের মাদারে গণতন্‌ত্র একটা আর্জি জানিয়েছিলেন কিন্তু সেই আর্জি তিনি প্রত্যাখান করে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছেন। তারা স্বৈরাচার, তারা বাকশাল(!), তারা বর্বর-ফ্যাসিস্টের ন্যায় আচরণ করেছে। মুদীর পররাষ্ট্র মন্ত্রী ট্যাকা খরচ কৈরে প্রধানমন্ত্রীর(!) লগে দেখা করতে গেছেন, ট্যাকা খরচ কৈরা মন্দিরে গেছেন, ট্যাকা খরচা কৈরা বিরোধী দলীয় নেত্রী(!) রসুন আপার লগে দেখা করছেন অথচ আমাগো দ্যাখতে আসে নাই, উল্টা আমগোই যাওন লাগছে। আপনারাই বলেন এইডারে কি গণতন্ত্র কওন যায়!!! তারা শেক্কাছিনার লাইগ্যা শাড়ী আনছে আর আমাগো তারে দেওন লাগছে, আমরা মাইন্যা নিলাম। সেন্ডুচ, কেলা, জুস খাইলাম; কাবাব-ফ্রাইয়ের বদলে। এতো কিছু করলাম তার বিনিময়ে কি তারা আমাগো আবদারডা রাখতে পারে নাই!!! আমরা ক্ষমতায় যাইয়া ফ্যাসিবাদী এই মুদী সরকাররে দেইখ্যা লমু, উচিত জবাব দিমু, দেড়হাত দেইখ্যা লমু।

দ্যাশে গণতন্ত্রের অবস্থা কেমন এমন প্রশ্নের জবাবে একাত্তরের পতম রেম্বর পতম ইস্তিরি বলেন, দেশে কুনো গনতন্ত্র নাই। বড় গনতন্ত্র লন্ডনে, ছোট গনতন্ত্র কুয়ালালামপুরে, তাদের ফিরাইয়া আনতে দেন এরপর গনতন্‌ত্রের বন্যায় ভাসাইয়া দিমু। দূরে খাড়াইয়া থাকা লুকেরা তালি ফুডাইলে এক চশমা নেতা চিল্লায়ে বলে উঠেন, মা*র পুত তালি বাজাস না ক্যারে!!!

১১ thoughts on “দেশে কুনো গনতন্ত্র নাই। বড় গনতন্ত্র লন্ডনে, ছোট গনতন্ত্র কুয়ালালামপুরেঃ মাদারে গনতন্ত্র

  1. পরফেসর ব্যানচন সাব, এক্কেবারে
    পরফেসর ব্যানচন সাব, এক্কেবারে তো ফাডাইয়ালাইলেন।
    খারাইয়া লন বস, একবার একটু জিরাইয়া লন, এই লন একডা ডানহিল………

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *