প্রেয়ষীকে লিখা চিঠি

প্রেয়ষী জানো ফার্স্ট ইয়ার থেকেই তোমাকে লাভ করি এখনো করি।কিন্তু তুমি আমার থেকে অনেক অনেক দূরে চলে যাচ্ছো আজকের পর থেকে।আর কখনো আমার তোমার কিংবা তোমার আমার দেখা হবে কিনা জানি না।কিংবা দেখা হলেও দুজন দুজনকে চিনবো কিনা জানি না।বিধাতার এক অপূর্ব খেয়াল আমার এই প্রেম আমি তোমাকে অনেক ফলো করতাম তোমার বিরক্ত লাগতো কি?বোধহয় লাগতো।আসলে কিইবা করার ছিলো আমার এ ছাড়া নপুংসকের মত তোমার দিকে শুধু চেয়েই থাকতাম।তোমাকে নিয়ে কত কবিতা কত গান লিখলাম লাভ হলো কি কিছু?না কিচ্ছু হয় নি সত্যি ফেলেই দিয়েছি কবিতার খাতা গানের ডায়রি আমার অতীত বর্তমান সব।আজ অনেক কান্না পাচ্ছে কিন্তু ইচ্ছে করছে না কাঁদতে হাসতে ইচ্ছে করছে চিৎকার করে হাসতে ইচ্ছে করছে।জানো ইদানিং খুব ভয় করে যদি তোমার মুখায়ব ভুলে যাই তাই বারবার দেখতে ইচ্ছে করে ।কতবার করে বলি যে ওভারব্রিজ ছাড়া রাস্তা পার হয়ো না দুরন্ত বাসচালক হেয়ালিতে চাপা দিয়ে গেলে তোমাকে তখন কি হবে?জানো আজকাল রাতে চশমা পড়ে ঘুমাই চশমা ছাড়া চোখে কিছু দেখতে পাই না তো স্বপ্নে যাতে তোমাকে আবছা দেখতে না হয়।আর জানো ১৭ জুন যে বৃষ্টিতে ভিজে ভিজে কলেজে এসেছিলে তোমাকে খুব সুন্দর দেখাচ্ছিলো আর তোমার চুলগুলো এলোমেলো থাকলে বড্ড বেশি সুন্দর লাগে তোমাকে।আজকেও অনেক সুন্দর দেখাচ্ছিলো মাঝে মাঝে ইচ্ছে করে আত্মহত্যা করি।এবার দিয়ে ৫০১ বারের মত চিন্তা করেছি মরার।দেখো একদিন আমার মরণ তোমার সামনেই হবে কিন্তু জানবে না চিনবে না আমায়।হয়ত মানবতার খাতিরে পকেট থেকে ফোনটা বের করে খোঁজ দেওয়ার চেষ্টা করবে আমার পরিবারের কাউকে তখনই আঁতকে উঠবে ওয়ালপেপার হিসেবে তোমার ছবিটা দেখে অনেক কষ্টে তুলেছিলাম ছবিটা।হয়ত মনে পড়ে যাবে আমার কথা হয়ত চোখের কোনে জলও জমবে এক দু ফোটা উষ্ঞ জল টপটপ করে গাল বেয়ে পড়বে আমার রক্তাক্ত শরীরে।অতঃপর চোখের জলের মত তোমার জীবনও ছুটে চলবে এই ব্যস্ত শহরে আমায় ভুলে এই ব্যস্ত শহরের নিঃস্তদ্ধতায় ডুবে যাবে।কখনো হয়ত মনে পড়লে বলে উঠবে পাগল একটা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *