আম-দুধে মিশা গেছে, আমি হইছি আটি…

পাগলের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য এরা সাত-পাঁচ না ভেবে যখন যা খুশি কইতে পারে।
আইজকা সম্ভবত আমার মাথার তার ছিঁড়ছে। অতএব আমিও ধাপধাপ কইরা এখন কিছু কথা কইয়ালাইতেছি। জানি অনেকেই মাইন্ড খাইবেন ওপেন স্টেজে কথাগুলান কওয়ায়। মাগার আইজ যেহেতু আমি সুস্থ মস্তিষ্কের নাই। তাই আইজকাই ধাপধাপ কইয়ালাইলাম।

আপ্নেগো মনে আছে নি, মেলা কয়দিন আগে বরিশাল ছাত্র মৈত্রীর পোলাপাইন, বরিশাল ছাত্র ইউনিয়নরে পিডাইছিলো। মাইর খাইছিলো সভাপতি অন্তর চক্রবর্ত্তী, এবি সিদ্দিকের হাত ভাইঙ্গা দিছিলো, যে ব্যথা এখনো পুরাপুরি সারে নাই।

পাগলের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য এরা সাত-পাঁচ না ভেবে যখন যা খুশি কইতে পারে।
আইজকা সম্ভবত আমার মাথার তার ছিঁড়ছে। অতএব আমিও ধাপধাপ কইরা এখন কিছু কথা কইয়ালাইতেছি। জানি অনেকেই মাইন্ড খাইবেন ওপেন স্টেজে কথাগুলান কওয়ায়। মাগার আইজ যেহেতু আমি সুস্থ মস্তিষ্কের নাই। তাই আইজকাই ধাপধাপ কইয়ালাইলাম।

আপ্নেগো মনে আছে নি, মেলা কয়দিন আগে বরিশাল ছাত্র মৈত্রীর পোলাপাইন, বরিশাল ছাত্র ইউনিয়নরে পিডাইছিলো। মাইর খাইছিলো সভাপতি অন্তর চক্রবর্ত্তী, এবি সিদ্দিকের হাত ভাইঙ্গা দিছিলো, যে ব্যথা এখনো পুরাপুরি সারে নাই।
সেইসময় ফেসবুক-ব্লগে বেশ লেখালিখি করছিলাম ছাত্র ইউনিয়নের হয়ে মৈত্রীর বিরুদ্ধে। ঘটনার দুইদিন পরে আমি জরুরী কাজে ভোরে গ্রামের বাড়ি গিয়ে আবার বিকালেই বরিশাল ব্যাক কইরা শুনি তাদের মইধ্যে মিউচুয়াল হইয়া গেছে। আইজকা আর মিথ্যা কমু না। আমি একটুও খুশি হই নাই। আমার দুইটা ভাই আহত হইছে আর কিছু না কইরাই মিউচুয়াল। কিন্তু যেহেতু এইটা ছিল সংখ্যাগরিষ্ঠের মতের ভিত্তিতে পার্টির সিদ্ধান্ত, আমারো কিছু করার ছিলো না, অন্যগোও না।

যাউকগা, যেহেতু তাগো মিউচুয়াল হওনের সময় ছিলাম না, প্রথমে জানি নাই। পরে শুনলাম।এবং দুইজন নেতার কাছ দিয়াও ঘটনার সত্যটা পাইছি। ঘটনা হইল, মৈত্রী ক্ষমা চাইলো,দুঃখ প্রকাশ করলো। মিউচুয়াল হওয়ার পর তারা যখন দুইপক্ষই একসাথে বইসা সেভেন আপ আর বিড়ি খাইতেছে, হঠাৎ আমার প্রসঙ্গ উইঠা আবার পরিস্থিতি গরম। “প্রীতম চৌধুরী যা লিখছে সেইগুলা কি ঠিক লিখছে?? ওরে মানা কইরা দিয়েন।”
তখন, ছাত্র ইউনিয়ন বরিশাল জেলার খুবই প্রভাবশালী এবং বিশাল বড় নেতা (সাবেক) বলিয়া উঠলেন, “হু ইজ প্রীতম চৌধুরী?? সে ছাত্র ইউনিয়নের কেউ না। তার কোন লেখার দায়িত্ব ছাত্র ইউনিয়ন নেবে না। ওর সাথে আপনারা বুইঝা নেন।”
তখন, যেহেতু অন্তর চক্রবর্ত্তী আমার ভাই, সে কইলো, “প্রীতম আমার ভাই। আমার ভাইর ব্যাপারটা আমি নিজে দেখতেছি।”

এখন কথা হইলো, ছাত্র ইউনিয়নের জন্য যে লেখা লেখার কারনে আমারে হুমকি দেয়া হইছিলো মাইরা ফেলানোর। যে ইউনিয়নের লাইগা আমি মৈত্রীর লগে কামড়াকামড়ি করলাম অনলাইনে, কাম শেষে সেই ইউনিয়ন আমারে চিনে না।

আম চিনেন? আম? এক হাতে আম নিবেন। আমটা নিয়া ছিলবেন … এইবার একটা বাটিতে দুধ নিয়া আমটারে কচলাইবেন। দেখবেন আমে-দুধে মিশা গেছে, আপনার হাতে রইছে আটিখান। এইখানেও তেমন আম-দুধে মিশা গেছে, আমি হইছি আটি…

অতএব, ভাইয়েরা, লাগবো না আমার ইউনিয়ন করা। যেহেতু ইউনিয়ন আমারে চিনে না, আমিও চিনি না। ইউনিয়নের সাথে আমার কোন সাংগঠনিক সম্পর্ক নাই। কয়েকজনের সাথে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক আছে, তা আজীবন থাকবে। কোন প্রোগ্রাম হইলে বাইরের মানুষেরা যেমন যায়, ওইরকম যাইয়া ঘুইরা ফিরা চইলা আমু।
যেহেতু ইউনিয়ন আমার দায় নেবে না, আমার কথা কেউ যদি কয় আমি ইউনিয়ন করি, আমিও এর দায় নিমু না।

১৩ thoughts on “আম-দুধে মিশা গেছে, আমি হইছি আটি…

  1. .হুম যেহেতু ইউনিয়ন আমার দায়
    .হুম যেহেতু ইউনিয়ন আমার দায় নেবে না, আমার
    কথা কেউ যদি কয় আমি ইউনিয়ন করি, আমিও এর দায়
    নিমু না।-+-+-+কত সুন্দর. কথা 🙂

  2. আম-দুধে মিশা গেছে,
    আমি হইছি

    আম-দুধে মিশা গেছে,
    আমি হইছি আটি…

    এমন সুবিধাবাদীদের পক্ষ থেকে আপনি সত্যিই ক্ষতিগ্রস্ত।

  3. “প্রীতম চৌধুরী যা লিখছে

    “প্রীতম চৌধুরী যা লিখছে সেইগুলা কি ঠিক লিখছে?? ওরে মানা কইরা দিয়েন।”

    আপনি প্রীতম চৌধুরী?
    আমার যতদূর ধারনা, আপনি আমার ফ্রেন্ড লিস্টে ছিলেন!
    আপনি কি ফেসবুকের সেই প্রীতম চৌধুরী?

  4. এজন্যই আমি ক’দিন আগেই কইসিলাম
    এজন্যই আমি ক’দিন আগেই কইসিলাম এক ছোটো ভাইরে, বাঙলাদেশে ভাম রাজনীতি হইতেসে বেশ্যাবৃত্তির মতো। তাগো উদ্দেশ্য পেটটা সচল রাখা। এজন্য সিফিলিস-গণোরিয়া বাছবিছারের ব্যারা থাকলে চলে না। সবার খাটেই উঠতে হয়।

  5. বাংলাদেশের বর্তমান ভামরা এই
    বাংলাদেশের বর্তমান ভামরা এই রকমই। আমরা অনেক আগে থেকেই জানি। আপনি একটু দেরীতে বুঝলেন। তবে রাজনৈতিক মতাদর্শ ঠিক রাইখাও এক্টিভিজম চালানো যায়। আপনি অনলাইন এক্টিভিস্ট। আপনি আপনার ভুমিকা অনলাইনেই রাখতে পারেন।

    1. ভাইরে, একসময় ব্যাপক উৎসাহ
      ভাইরে, একসময় ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা নিয়ে রাস্তায়ই ছিলাম। যখন মোহভঙ্গ ঘটলো, তখন দেখি পায়ের নিচে মাটিই নাই। 🙁

  6. যে ইউনিয়নের লাইগা আমি মৈত্রীর

    যে ইউনিয়নের লাইগা আমি মৈত্রীর লগে কামড়াকামড়ি করলাম অনলাইনে, কাম শেষে সেই ইউনিয়ন আমারে চিনে না।

    দুঃখজনক!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *