কথিত মায়ানমারের সৈন্যরা আমাদের সাথে যুদ্ধ করতে চায় অথচ আমরা ওদের বাঁশ দিতে পারি :D

কড়া জবাব
দেয়া হয়েছে বিজিবির পক্ষ
থেকে।
বিজিবির মহা পরিচালক বলেছে।
মিজানুর রহমানের পরিবারের
দায়িত্ত নেয়া হয়েছে।
এদিকে মায়ানমারের
নিউজপেপারগুলোয় খবর
আসছে ওরা নাকি অলরেডি যুদ্ধের
হুমকি দিচ্ছে।



কড়া জবাব
দেয়া হয়েছে বিজিবির পক্ষ
থেকে।
বিজিবির মহা পরিচালক বলেছে।
মিজানুর রহমানের পরিবারের
দায়িত্ত নেয়া হয়েছে।
এদিকে মায়ানমারের
নিউজপেপারগুলোয় খবর
আসছে ওরা নাকি অলরেডি যুদ্ধের
হুমকি দিচ্ছে।
সৈন্য সমাবেশও নাকি করছে।
করুক।
পাগলের সুখ মনে মনে…
বাদ দেন আমাদের সামরিক
শক্তি কতটা সেটার খবর
কি আমরা রাখি। আসেন দেখি।
বাংলাদেশ আর্মি তে এখন দু লক্ষ
বিশ হাজার একটিভ পারসোনেল
আছে।
রিজার্ভ আছে আরও পঞ্চাশ
হাজার। ওয়ার্ল্ড ডিফেন্স
অর্গানাইজশনের ranking এ
বাংলাদেশ আর্মির rank বার তম।
মডার্ন কমবেট ট্যাঙ্ক টি৫৪/৫৫ ,
টাইপ ৯/৬৯ ট্যাঙ্ক
নিয়ে আছে পুরো একটা আর্মাড
ব্রিগেড। আছে BTR-80 APC 106mm RCL
লাইটওয়েট ট্যাঙ্ক। 37mm, 57mm guns
এবং HN-5A/ B MANPADS বিমান
বিদ্ধংসী কামান
নিয়ে আছে একটা ফুল স্ট্রেংথ
এয়ার ডিফেন্স
আর্টিলারি ডিভিশন। আছে ১২
টা সুইসাইড স্কোয়াড ১৭
ইনফ্যান্ট্রি ব্রিগেড উইথ
হাইলি ট্রেইন্ড
আর্মি পার্সোনেল।বাংলাদেশ
নেভিতে আছে ২৮০০০ একটিভ
পার্সোনেল উইথ বিমান
বিদ্ধংসি twin 40mm gun, triple 324mm
ASTT with A244S LW টর্পেডো যুক্ত
সাতটি অত্যাধুনিক ব্রিগেড
দুটি ডেস্ট্রয়ার ছয়টি কর্ভেটস
আটান্নটা কোস্টেল ডিফেন্স
ক্র্যাফট বাংলাদেশ
এয়ারফোর্সে আছে পনের হাজার
একটিভ হাইলি ট্রেইণ্ড
পার্সোনেল।
কম্ব্যাট এয়ারক্র্যাফট
এবং ইন্টারসেপটর্স আছে ৫২
টা যারমধ্যে আছে রাশিয়ায়
তৈরি ছয়টি মিগ ২৯ এস
ট্যাকটিকাল ফাইটার ,
দুইটা মিগ ২৯
এসিইউবি ট্যাক্টিকাল ফাইটার,
উনিশটা F-7BG ফাইটার,
বারটা F-7MB ফাইটার,
ছয়টী FT-7B ফাইটার।
আছে ৪০ টা কমব্যাট হেলিকপ্টার
এছাড়া আছে পুলিশ rab
প্যারামিলিটারি ষাট হাজার
বিজিবি প্রেসিডেন্সিয়াল
গার্ড এস এস এফ।
রাশিয়ার সাথে যখন
অস্ত্রচুক্তি হয়েছিল তখন
তো টাকার অপচয় বলে অনেক
সুশিল ফাল পাড়ছিলেন।
এখন দেখেছেন কেন দরকার
অস্ত্রের।
এ সরকারের আমলে আর্মিতে যত
আপগ্রেডেশন
হয়েছে গত তিরিশ বছরেও এত হয়
নাই সামরিক শক্তির কথা বাদ
দেন।
ওয়ার্ল্ড ডিফেন্ড
জার্নালে বাংলাদেশের
সাথে কারো যুদ্ধ
লাগলে সবচেয়ে বড়
বাঁধা বলা হয়েছে
“দেয়ার বিগেস্ট স্ট্রেংথ ইজ
দেয়ার ওয়ান সিক্সটি মিলিয়ন
পিপল রেডি টু ডাই ফর দেয়ার
কান্ট্রি এনিটাইম।”
শালার মিয়ানমার,
চীনের সাহায্যে লাফাও।
এই চীন আর আমেরিকার
নাকে মুলা ঝুলাইয়া আমাদের
জন্ম।
আমাদের দেশে যতজন শহীদ
আছে তোমাদের ততজন
আর্মি নাই।
১২ বছরের মুক্তিযোদ্ধা লালু
মিয়াঁর দেশ এ বাংলাদেশ।
এ দেশের মায়েরা সাত
বীরশ্রেষ্ঠ রুমী বদি মঞ্জুদের জন্ম
দেয়।
দিস ইজ অনলি দা ট্রেলার।
সাইজে ছোট। পকেট সাইয
ডায়নামাইট।
ফাটলে উইড়া যাইবা মনা।

১৩ thoughts on “কথিত মায়ানমারের সৈন্যরা আমাদের সাথে যুদ্ধ করতে চায় অথচ আমরা ওদের বাঁশ দিতে পারি :D

  1. আমাদের ধৈর্যশীলতা সবাই
    আমাদের ধৈর্যশীলতা সবাই দুর্বলতা ভাবে। তাই সবায় আগ বাড়িয়ে আক্রমণ করে কিন্তু পরে বলৎকার হয়ে পলায়ন করে।

  2. তবে বাংলাদেশের সামরিক
    তবে বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীকে আরও পেশাদার এবং DGFIকে আরও দক্ষ করে তুলতে হবে। DGFI কে দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির কাজে ব্যবহার না করে দেশের সার্বভৌমত্বের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কাজে লাগানো উচিত।

  3. লেখাটা ওয়ারিশ আজাদ নাফি
    লেখাটা ওয়ারিশ আজাদ নাফি ভাইয়ের।লেখাটা সত্যি তবে প্রেক্ষাপট অনেকখানি বদলিয়েছে।

  4. এটা আমাদের মজিদকন্ঠে লেখকের
    এটা আমাদের মজিদকন্ঠে লেখকের নাম সহকারে দেয়া আছে।
    মূলত লেখাটা নাফিজের নও লেখাটা আদনান হাফিজ মালিকের।

  5. ভাই বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সাতটি
    ভাই বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সাতটি ফিগ্রেট আছে এইটা জানি কিন্তু ২ টা ডেস্ট্রয়ার কোথা থেকে আসলো ? :O

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *