হালের ফ্যাশন “নাস্তিকতা” !!?!!

তুই নাস্তিক ? ভাল কথা । তুই তোর নাস্তিকতাবাদ লইয়া থাক । তোরে কে কইছে আরেক জনের ধর্ম বা বিশ্বাস নিয়া কথা কওনের । আর এতই যদি বিশ্বাস তোর নাস্তিকতার উপর তাহলে তুই ওপেন হস না ক্যান ? তোর কিসের এত ভয় ? জীবন তো একটাই । যেভাবেই থাকস না ক্যান তুই তোর বিশ্বাস নিয়া বাইচ্যা থাকবি । তা না কইরা চোরের মত লুকাইয়া লুকাইয়া সামাজিক মিডিয়াগুলোতে চিক্কুর পাইড়া বেড়াস ! শালা বলদের দল।


তুই নাস্তিক ? ভাল কথা । তুই তোর নাস্তিকতাবাদ লইয়া থাক । তোরে কে কইছে আরেক জনের ধর্ম বা বিশ্বাস নিয়া কথা কওনের । আর এতই যদি বিশ্বাস তোর নাস্তিকতার উপর তাহলে তুই ওপেন হস না ক্যান ? তোর কিসের এত ভয় ? জীবন তো একটাই । যেভাবেই থাকস না ক্যান তুই তোর বিশ্বাস নিয়া বাইচ্যা থাকবি । তা না কইরা চোরের মত লুকাইয়া লুকাইয়া সামাজিক মিডিয়াগুলোতে চিক্কুর পাইড়া বেড়াস ! শালা বলদের দল।

আসলে বর্তমানে নাস্তিকতাবাদ হইছে হালের একটা ফ্যাশন ! কে কার থেকে কত বেশি ফ্যাশন করতে পারে সেই প্রতিযোগিতা চলছে হালের ফ্যাশন এই নাস্তিকতায় ? আজ পর্যন্ত এমন কোন নাস্তিক দেখলাম না যে খুল্লাম-খুল্লা নিজের অরিজিনাল প্রোফাইল ফটোগ্রাফ দিয়া ফেসবুকিং বা ব্লগিং করছে !

নাস্তিকরা ধর্ম-কর্ম বিশ্বাস করেন না ! তাদের বিশ্বাস মানবধর্মই বড় ধর্ম । খুব ভাল কথা । তাহলে তাদের মানব ধর্মে কি এই শিক্ষা দেওয়া হয় যে অন্যের ধর্ম বা বিশ্বাসকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য কর ? এই শিক্ষাই যদি মানবধর্ম দিয়ে থাকে তবে সেই ধর্মের মাইরে বাপ ।

ধর্মের বিশ্বাস যার যার ব্যক্তিগত । এর উপর জোর-জবরদস্তি করার কিছু নেই । একজন মানুষ বালেগ হওয়ার পর সম্পূর্ণ স্বাধীন সে কি করবে না করবে । এ ক্ষেত্রে ভাল উদাহরণ হচ্ছে চীন । সবাই জানেন চীনের মূল ভূখন্ডের সরকার কমিউনিজম অনুসরণ করে । তারপরও চীন ধর্মের ক্ষেত্রে অসাম্প্রদায়িক । তাইতো চীনে সপ্তম শ্রেণী পর্যন্ত কোন ধর্ম শিক্ষা দেওয়া হয় না । এরপর যে যার যার বিশ্বাসের স্থান থেকে যে ধর্মকে ভাল মনে করে সে ধর্ম অনুসরণ করে ।

আগেও বলেছি আবার বলছি ধর্ম যার যার বিশ্বাসের জায়গা । এখানে জোর করার কিছু নাই । একটু খেয়াল করলেই দেখা যায় প্রতিটি ধর্মের বেসিক সমান । প্রতিটি ধর্মই মানুষকে সামাজিক হতে শিক্ষা দেয় । এখানে উগ্রতার কোন জায়গা নেই । তারপরও কেউ যদি কোন ধর্ম মানতে না চান সেটা তার একান্তই ব্যক্তিগত ব্যাপার । এখানে কারো হস্তক্ষেপের সুযোগ নেই । ধর্ম বিশ্বাস করে না এমন মানুষ লন্ডনে প্রচুর দেখতে পাওয়া যায় । দেশে থাকতেও এমন অনেক মানুষকে জানতাম যারা ধর্ম-কর্ম করেন না । তাই বলে তারা অন্যের ধর্ম বিশ্বাসকে খাট বা বাকা চোখে দেখে না । কিন্তু গত দু-এক বছর ধরে দেখছি কিছু বিকারগ্রস্ত নাস্তিক ফেসবুক এবং ব্লগিং-এ অন্যের ধর্ম বিশ্বাসকে আঘাত করে কথা বলছে ! যেটা খুবই দুঃখজনক ।

মাঝখানে আবার শুনতে পেলাম এগুলা নাকি সব সাজানো নাটক । ব্লগকে সচল রাখা বা এর সদস্য বাড়ানোর জন্যই নাকি ব্লগের কতিপয় হর্তাকর্তারা ইচ্ছা করেই এই কাজগুলা করতেন । যেহেতু নিকগুলা ছিল ভূয়া (মানে তাদের সৃষ্টি) ! তাই যা খুশি ইচ্ছা তাই লিখে রেখে দিত । সত্যিই যদি সাজানো হয়ে থাকে তবে এদের প্রতি ধ্বিক্কার জানানোর ভাষা জানা নাই । এখানে সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে অন্য কোন ধর্মকে (সব ধর্মের প্রতি সম্মান রেখেই বলছি) যতটা না টার্গেট করে এগুলা করা হয় তারচেয়ে বেশি টার্গেট করা ইসলাম ধর্ম কে ! অবশ্য এর একটা কারণও আছে বলে মনে করি, যেহেতু বাংলাদেশ ৯৫ শতাংশ মানুষ ইসলাম ধর্মের অনুসারী তাই তারা নিজের ধর্মকেই প্রথম টার্গেট করে ।এই জন্য খারাপ ভাবে বলতে গেলে বলতে হয় – তোমগো কারোরে কি ইসলাম ধর্ম গু…. মারছিল, নাকি ……. করছিল ?

অশিক্ষিত বা লেখাপড়া কম জানা মানুষজন নাস্তিক এমনটা দেখা যায় না । খুব অবাক লাগে যখন দেখি পড়ালেখা জানা শিক্ষিত মানুষরাই সাধারণত বেশি নাস্তিক হয়ে থাকেন ! তবে এটাই স্বাভাবিক । কারণ তারা প্রচুর পড়াশুনা করেন এবং বেশি (একান্তই আমার অভিমত) পড়াশুনা করার ফলেই তারা আর ধর্মকে বিশ্বাস করতে চান না । ভাল কথা বিশ্বাস কইরেন না । তাই বলে অন্যের বিশ্বাসকে আঘাত করবেন বা গালাগালি দিবেন নাকি ?

বিঃ দ্রঃ ব্লগিং এবং ফেসবুকে যত নাস্তিক দেখি তাদের বেশির ভাগই ছদ্মনাম এবং কার্টুনমার্কা ছবি দিয়া প্রোফাইল পিকচার দেন । আর সারাদিন হাতি-ঘোড়া মাইরা বেড়ান । ভাই আপনাদের থেকে জামাত-শিবির অনেক ভাল । ওরা ওদের অরিজিনাল ছবি দিয়া ওপেন থ্রেট দেয় । আপনাদের মত ভোগ্লামি করে না ।

৫৩ thoughts on “হালের ফ্যাশন “নাস্তিকতা” !!?!!

    1. সাহসের কিছু নাই ভাই । যেটা
      সাহসের কিছু নাই ভাই । যেটা সত্য সেটা সত্যই । ফারাবী বলেন আর তেতুল হুজুর ওরফে শফি হুজুর বা বাবুনগরীদের মত কট্টর ইসলামের ধ্বজাধারীদের কথায় বলেন, এদের যেমন আমাদের এই সমাজে দরকার নেই ঠিক তেমনি ইসলাম ধর্ম বা অন্যের ধর্মকে কটাক্ষ করে কথা বলা নাস্তিকরাও কাম্য নয় ।

  1. নাস্তিকরা ধর্ম-কর্ম বিশ্বাস

    নাস্তিকরা ধর্ম-কর্ম বিশ্বাস করেন না ! তাদের বিশ্বাস মানবধর্মই বড় ধর্ম । খুব ভাল কথা । তাহলে তাদের মানব ধর্মে কি এই শিক্ষা দেওয়া হয় যে অন্যের ধর্ম বা বিশ্বাসকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য কর ? এই শিক্ষাই যদি মানবধর্ম দিয়ে থাকে তবে সেই ধর্মের মাইরে বাপ ।

    :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

  2. সারা বিশ্বে ধর্মের মানুষের
    সারা বিশ্বে ধর্মের মানুষের তালিকা wikipedia থেকে সংগ্রহ কিত ।
    Christianity 2.1 billion
    Islam 1.6 billion
    Secular[a]/
    Nonreligious
    [b] /Agnostic/
    Atheist
    ≤ 1.1 billion
    Hinduism 1 billion
    Chinese
    traditional
    religion[c]
    394 million
    Buddhism[d] 376 million
    Ethnic religions
    excluding some
    in separate
    categories
    300 million
    African
    traditional
    religions 100 million
    Sikhism 23 million
    Juche[e] 19 million
    Spiritism 15 million
    Judaism 14 million
    Bahá’í 7 million
    Jainism 4.2 million
    Shinto 4 million
    Cao Dai 4 million
    Zoroastrianism 2.6 million
    Tenrikyo 2 million
    Neo-Paganism 1 million
    Unitarian
    Universalism 800,
    000
    Rastafarianism 600,
    000
    Scientology 500,
    000
    আপনি নিশ্চই নিজের মতা মত অন্যের ওপর চাপাতে চেষ্টা করবেন না । সাত শত কোটি মানুষের সাতশত চিন্তা ভাবনা । আপনি শুধু নাস্তিক দের পঁচাচ্ছেন । তাদের দোষ তারা অন্যকে নিয়ে কথা বলে কিন্তু সারা বিশ্বে ধর্ম নিয়ে বারাবারি সিয়া ছুন্নি যুদ্ধ অশান্তি মানুষে মানুষে ভেদাভেদ সম্পর্কে কিছু বললেন না । আপনি নিশ্চয় জামাত শিবিরের জোরপূর্বক ধর্মান্তরের কথা ভুলে জাননি । জামাত শিবীর প্রফাইলে ছবি দেয় কারন তারা মরলে বেহেস্ত পাবে ।

    1. কোকিল ফারাবী @ ভাইয়া, কিছু
      কোকিল ফারাবী @ ভাইয়া, কিছু মনে করবেন না বড় ভাই হিসাবে এটা আপনার প্রতি আমার পরামর্শ (আপনার প্রোফাইলে জন্ম সাল ঠিক থাকলে আপনি আমার অনেক ছোট) যে কারো লেখা পড়ার পর মন্তব্য দেওয়ার আগে দয়া করে লেখকের বক্তব্যটি বোঝার চেষ্টা করবেন । জানি এটা খুব সহজ না । কারণ আপনার দেওয়া তথ্য অনুসারে বলে সাত শত কোটি মানুষের সাতশত চিন্তা ভাবনা । এতগুলা কথা বললাম শুধু আপনার একটি কথার জন্য – “আপনি শুধু নাস্তিকদের পঁচাচ্ছেন” ।

      আমার লেখার কোথায় আপনার মনে হল আমি নাস্তিকদের পচাচ্ছি ? আমি বার বার বলেছি আপনি যদি কোন ধর্ম বিশ্বাস না করেন কোন বিষয় না । এটা আপনার বিশ্বাস এবং বোঝার বিষয় । আবার সেই কথাই বলতে হচ্ছে, আপনি (ভাই এখানে “আপনি” কথাটি রুপক অর্থে ব্যবহার করেছি । আপনি “কোকিল ফারাবী” নিজে এটাকে ব্যক্তিগতভাবে নিবেন না আশা করি) মানবধর্ম অনুসরণ করেন ! ভাল কথা । তাই বলে কি অন্যের ধর্ম বা বিশ্বাস কে আঘাত করে কথা বলবেন ?

      ভাইয়া ব্যক্তিগত ভাবে আমি খুবই অসাম্প্রদায়িক । জোর জবরদস্তি পছন্দ না । এক্সট্রিম কোন গষ্ঠিই পছন্দ করি না । সেটা আমার ধর্মই হোক আর অন্যের ধর্মই হোক । জামাত-শিবিরের মাইরে বাপ । শালাগো উষ্ঠা দিয়া দেশ থেকে বাইর করে দেওয়া উচিত । এতে আর কিছু না হোক, দেশের কিছু জনসংখ্যা তো কমবে । :ভেংচি:

      আর শিয়া-সুন্নির মারামারির কথা কি বলব ভাই ? এদের এই মারামারি আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সঃ) ওফাত নেওয়ার পর থেকেই শুরু হয়ে গেছে । এইযে মারামারি এবং নিজেদের মধ্যে ভেদাভেদ এইটা মনে হয়না কেয়ামতের আগ পর্যন্ত থামবে ! কিন্তু তাই বলে ওরা তো আর অন্যের ধর্মকে আঘাত করে না । এরা যে যার যার দৃষ্টিভঙ্গিকে সঠিক হিসাবে দাবি করে এবং সেই দাবির পরিপ্রেক্ষিতে দেখা যায় এই মারামারি বা হানাহানি । যা কারো কাম্য নয় । এই শিয়া-সুন্নি বিষয়ে সব কিছুই তো “ওপেন” । শুধু এতটুকুই বলতে পারি আল্লাহ আমাদের হেদায়েত করুন । আমরা যেন মানুষের মত মানুষ হতে পারি ।

      বিঃ দ্রঃ যার রাজনৈতিক মতাদর্শ “বিপ্লব” হতে পারে তার দৃষ্টিভঙ্গি কিন্তু খুব সহজেই অনুমেয় !

      1. নাস্তিকতা নিয়ে পৃথিবীর কোথাও
        নাস্তিকতা নিয়ে পৃথিবীর কোথাও কি হানাহানি হয়েছে? বরং পৃথিবীর সকল জায়গায় নাস্তিকরা সংখ্যালঘু হিসাবে নির্যাতিত। আর প্রকৃত নাস্তিকরা শান্তিকামী। তারা মুক্তচিন্তার প্রকাশ ঘটায়। বরং আজ সমগ্র বিশ্বে ধর্মবাদিরা বেশি উগ্র, বেশি সাম্প্রদায়িক। উদাহরণ আশাকরি দিতে হবেনা। নাস্তিকদের মধ্যে মেরে ফেলার মত সাম্প্রদায়িকতা পৃথিবীর কোথাও ঘটেছে ববলে জানা নেই।

        বাংলাদেশে নাস্তিকতার চর্চা এখনো প্রাইমারি লেভেলে। এখানে অনেকে ভুলভাবে নাস্তিকতার চর্চা করে। এটা সঠিক পথ না। আর কেন ছদ্মনামে করে এটা কি বুঝেন না? শহিদ হওয়ার জঝবা ওদের মধ্য নেই। পরকালের দেনা-পাওনার কিছু নাই, তাই বেঁচে থাকাটাকে মুল্যবান মনে করে।

        আপনার এই তথ্যটাও ভুল, সব নাস্তিক ছদ্মনাম ব্যবহার করে। অনেকেই নিজের নামেই তার বিশ্বাসের প্রচার করে। ছদ্মনামের পরিসংখ্যান ধর্ম বিশ্বাসীদের মধ্যে একেবারে কম না।

        ধর্মকে উলঙ্গভাবে আক্রমণ করাকে উগ্রতা বলা যায়, সেটা নাস্তিকতার চর্চা নয়।

        1. নাস্তিকতা নিয়ে পৃথিবীর কোথাও

          নাস্তিকতা নিয়ে পৃথিবীর কোথাও কি হানাহানি হয়েছে?

          এই একটা কথা দিয়া সব জায়েজ করা চেষ্টা করাটা কি ঠিক বলে মনে করেন ? আমি আমার পুরা লেখায় একবার নয় বেশ কয়েকবার বলার চেষ্টা করেছি নাস্তিকতা নিয়ে আমার কোন সমস্যা নাই এবং আমার বিশ্বাস সাধারণত বোধ-বুদ্ধি সম্পন্ন কোন মানুষেরই সমস্যা হওয়ার কথা না ।

          আপনি শুধু শুধুই সাফাই দিচ্ছেন যেটার কোন দরকার নেই । আপনার মত আমিও বিশ্বাস করি এবং জানি প্রকৃত নাস্তিকরা কেমন । কিন্তু আমার এই লেখাটা ছিল সেই সব মানুষদের (নাস্তিকদের) প্রতি যারা উগ্র ইসলামিক টেরোরিস্ট বা উগ্রপন্থীর মত বন্দুকের বদলে কলম দ্বারা শান্তকামী ধর্ম অনুসারীদের কটাক্ষ করে কথা বলে । এই কথাটাই বার বার করে বোঝাতে চাচ্ছি ।

          আপনার কি মনে হয় নাস্তিকরা কেন ছদ্মনাম ব্যবহার করে ফেসবুকিং বা ব্লগিং করে তা আমি বুঝি না ? বেচে থাকাটাকেই যদি তার মূল্যবান হিসাবে দেখে তবে কেন শান্তিভাবে সেই জীবন-যাপন না করে অহেতুক অন্যের সাথে বিবাদ সৃষ্টি করে চলছে ?

          আমার তথ্য কোথাও ভুল না ! আমি লেখার সময় যে শব্দগুলি শুধু মিস করে ছিলাম পরে তা কারেকশন করে দিছি । দয়া করে একটু দেখে নিবেন আশা করি ।

          ছদ্মনামের পরিসংখ্যান ধর্ম বিশ্বাসীদের মধ্যে একেবারে কম না।

          ভাই এই ছদ্মনামধারীরা (আমার দেখা ও বিশ্বাস থেকে বলছি) কেউ অন্যের ধর্ম বা বিশ্বাস নিয়ে অহেতুক খোচা-খুচি করে না ।

          ধর্মকে উলঙ্গভাবে আক্রমণ করাকে উগ্রতা বলা যায়, সেটা নাস্তিকতার চর্চা নয়।

          জি ভাই, আপনার সাথে সাথে আমিও এই কথা বিশ্বাস করি । আমার লেখার কোথাও কি আপনি পেয়েছেন এই শান্তিকামী মানুষ্দেরকে টার্গেট করে কিছু বলতে ? লেখাটি ছিল সেই সব ভন্ড- প্রতারক ও উগ্র নাস্তিকদের জন্য যারা সাম্প্রদায়িকতার মাধ্যমে বিবাদ সৃষ্টি করছে !

        2. ভাই সবার কাছে বিনিত অনুরোধ
          ভাই সবার কাছে বিনিত অনুরোধ লেখাটি না বুঝলে আবার পড়েন । কোথাও যদি শব্দ চয়নে ভূল হয়ে থাকে নিজ গুনে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন এই আশা করি । আমি কোথাও কোন শান্তিকামী নাস্তিকদেরকে টার্গেট করে কোন কথা বলিনি । আমি বার বার করে উগ্রপন্থি নাস্তিকদের ব্যাপারে বলার চেষ্টা করছি । আমাদের সমাজে যেমন জামাত-শিবির উগ্রপন্থি একটি সংগঠন ঠিক তেমনি ব্যক্তিগত ভাবে কিছু নাস্তিক আছেন যারা অহেতুক অন্যের বিশ্বাস বা ধর্মকে আঘাত করে উগ্রতাকে উস্কে দেন বা দিচ্ছেন ।

          জামাত-শিবির এবং উগ্র নাস্তিকরা আমাদের সমাজে একটি অস্থির পরিবেশ সৃষ্টি করে রেখেছে যা কারোই কাম্য নয় ।

        3. ভাই সবার কাছে বিনিত অনুরোধ
          ভাই সবার কাছে বিনিত অনুরোধ লেখাটি না বুঝলে আবার পড়েন । কোথাও যদি শব্দ চয়নে ভূল হয়ে থাকে নিজ গুনে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন এই আশা করি । আমি কোথাও কোন শান্তিকামী নাস্তিকদেরকে টার্গেট করে কোন কথা বলিনি । আমি বার বার করে উগ্রপন্থি নাস্তিকদের ব্যাপারে বলার চেষ্টা করছি । আমাদের সমাজে যেমন জামাত-শিবির উগ্রপন্থি একটি সংগঠন ঠিক তেমনি ব্যক্তিগত ভাবে কিছু নাস্তিক আছেন যারা অহেতুক অন্যের বিশ্বাস বা ধর্মকে আঘাত করে উগ্রতাকে উস্কে দেন বা দিচ্ছেন ।

          জামাত-শিবির এবং উগ্র নাস্তিকরা আমাদের সমাজে একটি অস্থির পরিবেশ সৃষ্টি করে রেখেছে যা কারোই কাম্য নয় ।

      1. হুম দেখা জাচ্ছে নাস্তিকতা

        হুম দেখা জাচ্ছে নাস্তিকতা পৃথিবীর ৩য় শীর্ষ ধর্ম!

        হুম তাই তো দেখতাছি উইকিপিডিয়াতে । তারপরেও নাকি এরা বলে সংখ্যালঘু ! ক্যামনে কি ?

  3. নাস্তিক শব্দটা জামায়াত
    নাস্তিক শব্দটা জামায়াত বিএনপির সৃষ্টি । হয়ত কোটিতে ১০ টা নাস্তিক আছে বাংলাদেশে । এই ধর্ম ব্যবসায়ীরা দেখি সাধারন মানুষ গুলারেউ ছাড়তেছেনা ।
    জামাত শিবির রাজাকার এই মুহূর্তে বাংলা ছাড় । ।

    1. আপনি তো দেখি দলকানা শ্রেণীর
      আপনি তো দেখি দলকানা শ্রেণীর লোকজন ভাই । অবশ্য হবেনই বা না কেন ? যার জন্ম সাল হতে পারে ২৮শে ফেব্রুয়ারি ২০১৪ ! তারমানে দাড়ায় আপনার বয়স হচ্ছে মাত্র ৩ মাস ৫ দিন (৯৭ দিন) ! আপনি দেখি কথা ফোটার আগেই ব্লগিং শুরু করে দিছেন !?! 😀 আপনার আর দোষ কি দিব ? এই তিন মাসে আপনি যা দেখেছেন তাই বলেছেন ! :ভেংচি: (ভাইয়া মজা করলাম, কিছু মনে করবেন না আশা করি । জন্ম সালটা ঠিক করে নিবেন)

      “নাস্তিকতা জামাত-বিএনপির সৃষ্টি” – এই তথ্য আপনি কই পাইলেন ভাই ? জামাত-বিএনপির জন্মের আগে থেকেই নাস্তিকতাবাদ চালু হয়ে আসছে । নাস্তিকতা নিয়া আমার কোন এলার্জি নাই । আপনার কথায় সঠিক – হয়ত কোটিতে ১০ টা নাস্তিক আছে বাংলাদেশে । কোন সমস্যা না এটা । আমার এলার্জি হচ্ছে সেইখানে যেখানে আপনি আপনার বিশ্বাসকে অন্যের বিশ্বাসের উপর জোর করে চাপিয়ে দিবেন বা দিচ্ছেন এবং অন্যের বিশ্বাসকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে কথা বলছেন ।

      1. আমি যে দলকানা নই তা আমার ব্লগ
        আমি যে দলকানা নই তা আমার ব্লগ দেখেই বুঝতে পারবেন । আমি এখন পর্যন্ত কোনো নাস্তিক কে দেখিনি । এবং জোর করে মতবাদ চাপানোর ব্যপারটা দয়া করে একটু বুঝিয়ে বলুন । আমার তো মনে হয় না বাংলাদেশের নাস্তিকতার সঙ্গার সাথে ধর্মবিশ্বাসের কোনো সম্পর্ক আছে । নাস্তিকতা বলতে তো আপনারা এটা বোঝেন যে যারা যুদ্ধাপরাধীর বিচার চায় তারা নাস্তিক । এবং বেশির ভাগ সময় নাস্তিক অপবাদ টা পায় মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা ।
        আর জন্মতারিখ এর ভুল ধরিয়ে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ আমি আসলে খেয়াল করিনি । এখন ঠিক করে নিয়েছি দেখতে পারেন ।

        1. ধন্যবাদ । আপনি খুবই
          ধন্যবাদ । আপনি খুবই সৌভাগ্যবান যে এখন পর্যন্ত কোন নাস্তিক দেখিন নি । তারমানে দাড়ায় আপনার আশে পাশে যারা আছেন তারা সবাই আস্তিক ! এটা খুব ভাল লক্ষণ । জোর করে মতবাদ চাপানোর বিষয়টি হচ্ছে – আপনার বিশ্বাস কে যেভাবে হোক ভূল প্রমাণিত করে আমার বিশ্বাসের উপর আপনাকে নিয়া আসা । প্রয়োজন পরলে শক্তিও প্রয়োগ করা । বুঝতে পেরেছেন এবার ? আর ব্লগে কিছু স্বীকৃত নাস্তিক আছেন, যেমন – আসিফ মহিউদ্দীন, দাড়িপাল্লা ধমাধম, আরিফুর রহমান ইত্যাদি । সময় সুযোগ হলে ওনাদের লেখাগুলা পইড়েন । আশা করি এরপর বুঝতে পারবেন কেন এই লেখাটি দিয়েছি ।

          ভাইয়া দয়া করে এই ভুল ধারণাটা থেকে বের হয়ে আসুন “বেশির ভাগ সময় নাস্তিক অপবাদ টা পায় মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা” । অবশ্য এতে আপনার দোষ দিয়ে লাভ নেই । গত বছরের ৫ই ফেব্রুয়ারির আন্দোলনের পর থেকে জামাত-বিএনপির প্রোপাগান্ডার ফসল এটা । এটা তাদের অপপ্রচার যে – মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মানেই নাস্তিক !

          যে দিনকাল পড়ছে ভাই তাতে হক কথা বলাও বিপদ । হক কথা যদি কারো পক্ষে যায় তবেই কাম সারছে । অপরপক্ষ থেকে আপনি হয়ে গেলেন দালাল ! কিন্তু একটু চিন্তা করে দেখেন আপনি যখন সত্যি কথা বলবেন তখন সেটা কারো না কারো পক্ষে যাবেই যাবে ।

          1. যে দিনকাল পড়ছে ভাই তাতে হক

            যে দিনকাল পড়ছে ভাই তাতে হক কথা বলাও বিপদ । হক কথা যদি কারো পক্ষে যায় তবেই কাম সারছে । অপরপক্ষ থেকে আপনি হয়ে গেলেন দালাল ! কিন্তু একটু চিন্তা করে দেখেন আপনি যখন সত্যি কথা বলবেন তখন সেটা কারো না কারো পক্ষে যাবেই যাবে ।

            :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

          2. যেমন – আসিফ মহিউদ্দীন,

            যেমন – আসিফ মহিউদ্দীন, দাড়িপাল্লা ধমাধম, আরিফুর রহমান ইত্যাদি ।

            আপনি পোস্টে বললেন বাংলাদেশের সব নাস্তিক ছদ্মনামে লেখে। উদাহরণ দিয়ে যে তিনজনের নাম দিলেন তাদের দুইজনই নিজ নামে লেখেন। আবার তিনজনই থাকেন দেশের বাইরে। এরা তিনজন ক’জন আস্তিকের রগ কাটছে, ক’জন আস্তিককে মাইর দিছে, ক’জন আস্তিককে মেরে ফেলার হুমকি দিছে?… পরিসংখ্যানটা দয়া করে বলবেন?

          3. ভাই অহেতুক সোজা সরল একটা
            ভাই অহেতুক সোজা সরল একটা জিনিষরে আপনি প্যাচাইতাছেন আর ডিফেন্ড করে যাচ্ছেন । আমি তো বার বার বলে যাচ্ছি আমার লেখাটা কোন শান্তিকামী মানবধর্ম অনুসারী মানুষকে নিয়ে লেখা না ! লেখাটা হচ্ছে উগ্র নাস্তিকদের প্রতি ! আপনি কেন বার বার উগ্রপন্থিদের পক্ষ নিয়ে ডিফেন্ড করছেন আমার বোধগম্য না ! নাকি আপনিও একজন উগ্রপন্থি নাস্তিক ?

            আমি যে তিনজনের নাম নিছি তাদের প্রতে্যককেই আমি ভাল করে চিনি । আপনাকে আর এদের ব্যাপারে ব্যাখা দিতে হবে না ! আর যেই সব রগ কাটা আস্তিকদের ব্যাপারে বলছেন তাদের ব্যাপারে সবাই জানে যে তারা কারা । জামাত-শিবির এর লোকজন ছাড়া এমন দু-একজনকে আস্তিককে দেখান যে কিনা গিয়ে নাস্তিকের রগ কাইট্যা দিয়া আসেছে !

            আর হ্যা, আপনার মত এখন আমিও যদি জামাত-শিবিরের ডিফেন্ড করতে শুরু করে দেই তাহলে সেটা কি খুব একটা গ্রহণযোগ্য হবে । এখন আবার দয়া করে বলবেন না যে আমি তো অলরেডি সার্টিফিকেট দিয়াই দিছি যে জামাত-শিবির ওদের থেকে ভাল ! আমি শুধু এই দুই প্রজাতির উগ্রপন্থিদের মধ্যে তুলনা করেছি মাত্র ।

            জামাত-শিবির যেমন ভন্ড-প্রতারক ঠিক তেমনি যেসব নাস্তিক অন্যের ধর্ম বা বিশ্বাসকে আঘাত করে কথা বলে তারাও ঠগ, ভন্ড এবং প্রতারক ।

          4. আপনার ধারনা কি? নাস্তিকরা ঘরে
            আপনার ধারনা কি? নাস্তিকরা ঘরে বসে বসে মুড়ি খাবে, আর আস্তিকরা ধর্মের নামে অনাচার করে যাবেন। কিচ্ছু বলা যাবেনা! অদ্ভুদ আপনাদের চিন্তা ভাবনা। আপনি নাস্তিকতা বা মুক্তচিন্তার সংঙ্গাই জানেন না। মুহাম্মদ কেন এতগুলা বিয়ে করছে, এটা জানার অধিকার আমার আছে। ধর্মের দুর্বলতা নিয়ে কথা বললে আপনাদের ইমান নড়বড়ে হয়ে যায়। ধর্মের নামে আপনারা যা ইচ্ছে তা করবেন, সেখানে প্রশ্ন ছুড়লেই বিরাট অপরাধ হয়ে যায়!

          5. ল্যাঞ্জা ইজ ডিফিকল্ট টু হাইড
            ল্যাঞ্জা ইজ ডিফিকল্ট টু হাইড ! বাইর হইয়া গেছে না আপনার ল্যাঞ্জা । আমাকে তো অনেক নসিহত দিলেন

            নাস্তিকতা নিয়ে পৃথিবীর কোথাও কি হানাহানি হয়েছে? বরং পৃথিবীর সকল জায়গায় নাস্তিকরা সংখ্যালঘু হিসাবে নির্যাতিত। আর প্রকৃত নাস্তিকরা শান্তিকামী। তারা মুক্তচিন্তার প্রকাশ ঘটায়। বরং আজ সমগ্র বিশ্বে ধর্মবাদিরা বেশি উগ্র, বেশি সাম্প্রদায়িক। উদাহরণ আশাকরি দিতে হবেনা। নাস্তিকদের মধ্যে মেরে ফেলার মত সাম্প্রদায়িকতা পৃথিবীর কোথাও ঘটেছে ববলে জানা নেই।

            বাংলাদেশে নাস্তিকতার চর্চা এখনো প্রাইমারি লেভেলে। এখানে অনেকে ভুলভাবে নাস্তিকতার চর্চা করে। এটা সঠিক পথ না। আর কেন ছদ্মনামে করে এটা কি বুঝেন না? শহিদ হওয়ার জঝবা ওদের মধ্য নেই। পরকালের দেনা-পাওনার কিছু নাই, তাই বেঁচে থাকাটাকে মুল্যবান মনে করে।

            আপনার এই তথ্যটাও ভুল, সব নাস্তিক ছদ্মনাম ব্যবহার করে। অনেকেই নিজের নামেই তার বিশ্বাসের প্রচার করে। ছদ্মনামের পরিসংখ্যান ধর্ম বিশ্বাসীদের মধ্যে একেবারে কম না।

            ধর্মকে উলঙ্গভাবে আক্রমণ করাকে উগ্রতা বলা যায়, সেটা নাস্তিকতার চর্চা নয়।

            তারপর যখন বল্লাম

            আপনি কেন বার বার উগ্রপন্থিদের পক্ষ নিয়ে ডিফেন্ড করছেন আমার বোধগম্য না ! নাকি আপনিও একজন উগ্রপন্থি নাস্তিক ?

            এরপর দিলেন

            আপনার ধারনা কি? নাস্তিকরা ঘরে বসে বসে মুড়ি খাবে, আর আস্তিকরা ধর্মের নামে অনাচার করে যাবেন। কিচ্ছু বলা যাবেনা! অদ্ভুদ আপনাদের চিন্তা ভাবনা। আপনি নাস্তিকতা বা মুক্তচিন্তার সংঙ্গাই জানেন না। মুহাম্মদ কেন এতগুলা বিয়ে করছে, এটা জানার অধিকার আমার আছে। ধর্মের দুর্বলতা নিয়ে কথা বললে আপনাদের ইমান নড়বড়ে হয়ে যায়। ধর্মের নামে আপনারা যা ইচ্ছে তা করবেন, সেখানে প্রশ্ন ছুড়লেই বিরাট অপরাধ হয়ে যায়!

            নিজেই একবার নিজেরে শান্তিকাম কইলেন । তারপর আবার কইলেন – ধর্মকে উলঙ্গভাবে আক্রমণ করাকে উগ্রতা বলা যায়, সেটা নাস্তিকতার চর্চা নয়। সব কিছুই দেখি বুঝেন । তাহলে আবলামি করেন ক্যান ? আপনাদের আবলামির কারণেই শাহবাগের আন্দোলনে সবাইকে গণহারে নাস্তিকতার উপাধি পাইতে হইছিলো !

            ও আরেকটি কথা আমার ধর্ম-এর দুর্বলতা নিয়ে আমাকে থাকতে দেন । আপনাকে কেউ সেই দুর্বলতা দূর করার ঠেকা দেয় নাই । নিজের জ্ঞান নিজের কাছে রাখেন । এই কারণেই লেখার প্রথমেই বলছি –

            তুই নাস্তিক ? ভাল কথা । তুই তোর নাস্তিকতাবাদ লইয়া থাক । তোরে কে কইছে আরেক জনের ধর্ম বা বিশ্বাস নিয়া কথা কওনের । আর এতই যদি বিশ্বাস তোর নাস্তিকতার উপর তাহলে তুই ওপেন হস না ক্যান ? তোর কিসের এত ভয় ? জীবন তো একটাই । যেভাবেই থাকস না ক্যান তুই তোর বিশ্বাস নিয়া বাইচ্যা থাকবি । তা না কইরা চোরের মত লুকাইয়া লুকাইয়া সামাজিক মিডিয়াগুলোতে চিক্কুর পাইড়া বেড়াস ! শালা বলদের দল।

          6. বিঃ দ্রঃ ব্লগিং এবং ফেসবুকে

            বিঃ দ্রঃ ব্লগিং এবং ফেসবুকে যত নাস্তিক দেখি তাদের বেশির ভাগই ছদ্মনাম এবং কার্টুনমার্কা ছবি দিয়া প্রোফাইল পিকচার দেন । আর সারাদিন হাতি-ঘোড়া মাইরা বেড়ান । ভাই আপনাদের থেকে জামাত-শিবির অনেক ভাল । ওরা ওদের অরিজিনাল ছবি দিয়া ওপেন থ্রেট দেয় । আপনাদের মত ভোগ্লামি করে না ।

            জ্বি ভাই, ল্যাঞ্জা ইজ ডিফিকল্ট টু হাইড! ধর্মের প্রয়োজনে আপনি জামাতকে মেনে নিচ্ছেন্ আপনার ল্যাঞ্জা বাহির হইয়া গেছে! এইবার মুড়ি খান গিয়া। যৌবন যন্ত্রণা টিকতে না পারলে একটা মুতা বিয়া করে নিতে পারেন। অথবা আমস্ট্রারডামে গিয়া হালাল বেশ্যাখানায় আনন্দে মেতে উঠতে পারেন। ধর্মের প্রয়োজনে যে জামাতকে ভাল বলতে পারে, তার উদ্দেশ্য অবশ্যই খারাপ।

          7. এই জ্ঞান লইয়া নাস্তিকতা করেন
            এই জ্ঞান লইয়া নাস্তিকতা করেন ? এই বুঝছেন এতক্ষনে ।

            ধর্মের প্রয়োজনে আপনি জামাতকে মেনে নিচ্ছেন্

            ধর্মের প্রয়োজনে জামাতকে মেনে নেই নাই, আপনাদের (জামাত-শিবির এবং উগ্র নাস্তিক) মত ভন্ড, প্রতারক এবং উগ্রদের সাথে জামাত-শিবির তুলনা করেছি ।

            জি ভাই এইটা একবার না যতবার লাগে ততবার বলতে রাজি আছি । আমরা আমাদের অরিজিনাল প্রোফাইল পিকচার দিয়া জামাত-শিবির, বিএনপি এমনকি আপনার মত উগ্রদের বিরুদ্ধে কথা বলি । লুকাইয়া ছুপাইয়া কিছু করি না ।

            যৌবন যন্ত্রণা টিকতে না পারলে একটা মুতা বিয়া করে নিতে পারেন। অথবা আমস্ট্রারডামে গিয়া হালাল বেশ্যাখানায় আনন্দে মেতে উঠতে পারেন।

            এই সকল কর্মকান্ড আপনার মত বলদগুলার লাইগ্যা । প্রকৃত মুসলমানদের জন্য না । আপনি তো দেখ্ছি সেই জামাত-শিবিরের অর্ধ শিক্ষিত গাধাগুলার মতই আরেকজন । যারা কিনা ব্লগ দিয়া ইন্টারনেট চালায় । সারাদিন ধরে ইসলাম ধর্মের ছিদ্রানেষন করা বাদ দিয়ে একটু পড়া-শুনা করেন কাজে দিবে । আর কিছু না হোক অহেতুক ভুয়া নিউজ নিয়ে দৌড়া দৌড়িটা কমবে । আর এইসব বিজনেস পলিসিও বুঝতে সুবিধা হবে ।

            আর জনাব কোন কিছু না পাইলেই কেন যৌনতার মধ্যে আইসা পড়েন আপনারা । আপনাদের কাছে কি যৌন সুখ ছাড়া পৃথিবীতে আর কোন সুখ নাই । আপনার সাথে চলছিল ধর্ম বিশ্বাস এবং জামাত-শিবির নিয়ে কথা । সেখানে আপনি আমাকে

            যৌবন যন্ত্রণা টিকতে না পারলে একটা মুতা বিয়া করে নিতে পারেন। অথবা আমস্ট্রারডামে গিয়া হালাল বেশ্যাখানায় আনন্দে মেতে উঠতে পারেন।

            এই লাইন ধরাইয়া দিলেন ! বুঝলাম না । আপনার অবস্থা হয়ছে – মিলুক না মিলুক ছিল্ল তো ! হুদা মিছা হোগা দিয়া পাহাড় ঠেইলেন না । জানেন তো এতে পাহাড়ের কিন্তু কিছুই হবে না, মাঝখান দিয়া আপনি আপনার হোগাডাই ছিলবেন !!!!!

          8. হুদা মিছা হোগা দিয়া পাহাড়

            হুদা মিছা হোগা দিয়া পাহাড় ঠেইলেন না । জানেন তো এতে পাহাড়ের কিন্তু কিছুই হবে না, মাঝখান দিয়া আপনি আপনার হোগাডাই ছিলবেন !

            এই ডা কি কইলেন?

          9. এইডা ক্যান কইলাম বুঝলেন না
            এইডা ক্যান কইলাম বুঝলেন না ?

            যৌবন যন্ত্রণা টিকতে না পারলে একটা মুতা বিয়া করে নিতে পারেন। অথবা আমস্ট্রারডামে গিয়া হালাল বেশ্যাখানায় আনন্দে মেতে উঠতে পারেন।

            এক লাইনে কথা হচ্ছে আরেক লাইনে ঠেইল্যা দিলেন বাপারটা কি মিলল ? আরেকটা জিনিষ সকল টাইপের তর্ক-এর কোন এক সময় যৌনতায় গিয়া ঠেকে ! এইটার ব্যাপারটা তো বুঝলাম না ? সকল তর্ক-বিতর্ক কি ……. মাথায় গিয়া আটকাইয়া যায় নাকি ?

  4. নাস্তিক দেখা মাত্রই তাদের
    নাস্তিক দেখা মাত্রই তাদের কল্লা ফেলে দিতে হবে। এই সমাজে তাদের বেঁচে থাকার অধিকার নাই। তাদের সব পোষ্টে গিয়া তাদের বাপের সাথে বোনের, মায়ের সাথে তার ত্যানা প্যাঁচাইতে হবে। এতে তারা ওই ত্যানা ছুটাইতে গিয়া মূল স্টোরী থেকে দূরে সরে যাবে। তারপর আস্তিক বন্ধু বান্ধবদেরকে একটা কোনোমতে জোড়াতালি দিয়ে বানানো ছবি দেখিয়ে বলতে হবে- ওই শালা নাস্তিকের বাচ্চা নবীজির জুতা মোবারক নিয়ে কটু কথা বলসে। ব্যস, আর বলতে হবে না। সবাই মিলে নাস্তিকটারে সাইজ করে ফেলা কোনো ব্যাপার না। পারলে বাঁশের কেল্লার বড়ভাইদের সহায়তায় কল্লা নামিয়ে দেয়া যেতে পারে। ধর্ম বাঁচাতে সবই সহীহ। বিচার যাই হোক, দলিলপত্র দোচার টাইম নাই, তালগাছটাকে অবশ্যই মুঠোর ভেতর আঁকড়ে ধরে ঝাঁকি দিতেই হবে। নারায়ে তাকবীর !!!

    1. নারে ভাই, এই জিনিষটাই ভাল নয়
      নারে ভাই, এই জিনিষটাই ভাল নয় । নাস্তিক দেখা মাত্রই কল্লা ফেলে দিতে হবে যেমন কাম্য নয় ঠিক তেমনি নবীজি দুঃসচরিত্রের (নাউজুবিল্লাহ) অধিকারী ছিলেন এটা শুনতে হবে এমন মানুষের কাছ থেকে যে কিনা ধর্মই বিশ্বাস করে না ! সুতরাং সেটাও কাম্য নয় । আর আইন কখনোই নিজের হাতে তুলে নেওয়াটা কোন সমস্যার সমাধান নয় ।

      1. ‌আরে ভাই, নবীরে নিয়া কথা
        ‌আরে ভাই, নবীরে নিয়া কথা বলবে, তারে ছাইড়া দিতে হবে? কল্লা ঘাড়ের উপ্রেই থাকার অধিকার নাই তার।

  5. আজ পর্যন্ত এমন কোন নাস্তিক
    আজ পর্যন্ত এমন কোন নাস্তিক দেখলাম না যে খুল্লাম-খুল্লা নিজের অরিজিনাল প্রোফাইল ফটোগ্রাফ দিয়া ফেসবুকিং বা ব্লগিং করছে !



    আমার ফ্রেন্ড লিস্টে ন্যূনতম দশ জন ফ্রেন্ড আছে যারা নাস্তিক। যাদের প্রত্যেকেই নিজের ছবি ব্যাবহার করে।

  6. দুঃক্ষিত! আমার মনে হয় লেখায়
    দুঃক্ষিত! আমার মনে হয় লেখায় একটু ভুল হেয়েছে, সেটা কারেকশন করে নিচ্ছি – আজ পর্যন্ত এমন কোন নাস্তিক দেখলাম না যে খুল্লাম-খুল্লা নিজের অরিজিনাল প্রোফাইল ফটোগ্রাফ দিয়া অন্যের ধর্ম বা বিশ্বাসকে ছোট বা খাট করে ফেসবুকিং বা ব্লগিং করছে !

  7. ভাইজান, শুরুর দুইডা প্যারাই
    ভাইজান, শুরুর দুইডা প্যারাই কলাম, প্যারা দেওইন্যা!!! শুরুতেই; কলেন তোরডা লয়ে তুইই থাক। আবার লগে কলেন হ্যাডম থাইকল্যে সামনে আয়!!! কেমনে কি কলেন ভাই!!! আগা মাথা তো কিচুই বুইজবের পারতেছি না!!!

    পরের প্যারায় কলেন, ফটুগ্রাফ লিয়ে!!! ক্যারে ভাই আচিপ মহিউদ্দিন কি ছুপা ছবি দিয়া কাম করে? সুব্রত শুভ কি ছুপা ছবি দিয়া কাম করে? তয় ভাই কথা হলো যে, আপনি যেবা কইরে ঢালাওভাবে দুনিয়ার নাস্তিক কুলরে ফ্যাশনি নাস্তিক কয়ে আপবাদ দেলেন, তাতে কইরে আপনেরও ভুল হইয়েছে। সব নাস্তিকই কলাম ফ্যাশনি না, কিছু নাস্তিক ফ্যাশনি। একিভাবে সব ধার্মিকি; ধার্মিক না, কিছু আছে লুক দেখানি।

    আপনি যেবা কইরে উদ্যত হয়ে নাস্তিগেরে মাইরবার চাইলেন, ঠিক একি স্বভাবের নাস্তিকেরাই উদ্যত হয়ে ফ্যাশনি নাস্তিকতা নামক চুলকানি দেখায়।

    1. ভাইজান, শুরুতেই যেইডা কইছি
      ভাইজান, শুরুতেই যেইডা কইছি ঐডা হইতাছে যে যার যার মত থাক সেই কারণে । পরেরডার তিনডা শব্দ লেখা হয়নি যেটা পরে কারেকশনে দিছি । 😀 আমি দুনিয়ার সকল নাস্তিকরে ঢালাও ভাবে কোন জায়গায় ফ্যাশনি নাস্তিকের অপবাদ দেই নাই । খুব খেয়াল কইরা ভাইজান । লেখা না বুঝলে ভাল ভাবে আবার পড়েন …… 😀

  8. বিঃ দ্রঃ ব্লগিং এবং ফেসবুকে

    বিঃ দ্রঃ ব্লগিং এবং ফেসবুকে যত নাস্তিক দেখি তাদের বেশির ভাগই ছদ্মনাম এবং কার্টুনমার্কা ছবি দিয়া প্রোফাইল পিকচার দেন । আর সারাদিন হাতি-ঘোড়া মাইরা বেড়ান । ভাই আপনাদের থেকে জামাত-শিবির অনেক ভাল । ওরা ওদের অরিজিনাল ছবি দিয়া ওপেন থ্রেট দেয় । আপনাদের মত ভোগ্লামি করে না ।

    জামাত যেখানে ভালোর সারটিফিকেট পাইয়া গ্যালো সেখানে আর কি কইতাম? :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

    1. ভাই এই শালাগো সার্টিফিকেট
      ভাই এই শালাগো সার্টিফিকেট দিলাম এই কারণে যে তারা যা করে সামনা সামনি করে, আলো আধারে থেকে করে না । সুতরাং আমার কথা হচ্ছে আমি যা বলব তা কেন লুকাইয়া বলব ? প্রশ্ন আমার এখানেই ।

  9. আপনার এপ্রোচটাও খুবই আগ্রাসী
    আপনার এপ্রোচটাও খুবই আগ্রাসী টাইপের হয়ে গেছে। পাইলে খায়া ফালামু টাইপ। এই দর্শন নিয়ে যারা চলে তাদের সবাইরেই আমি সেলাম ঠুকে বলি- দূরে গিয়া মরেন।

    আমি জানি এবং ধারণা করছি ব্যক্তি হিসেবে আপনি মোটেও এমন আগ্রাসী নন। কিন্তু ধর্মের প্রশ্নে আপনি ছাড় দিতে ইচ্ছুক নন বলেই এমন আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে লিখেছেন। তাহলে আপনার ধর্ম আপনাকে কি শিক্ষা দিলো সেটা বিচারের ভার আপনার উপরেই দিলাম। আমি নাস্তিক নই। কিন্তু উগ্র আস্তিক এবং উগ্র নাস্তিক দুই দলরেই উষ্টার উপ্রে রাখা সমর্থন করি।

    1. না ভাই কোন আগ্রাসী মনভাব
      না ভাই কোন আগ্রাসী মনভাব নিয়েই এই লেখা দেই নাই । তবে কোথাও যদি শব্দ চয়নে ভূল হয়ে থাকে তবে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন আশা করি । আমার পুরা লেখার কোথাও – “ধর্মের প্রশ্নে আপনি ছাড় দিতে ইচ্ছুক নন বলেই এমন আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে লিখেছেন” এই মনভাব পোষন করিনি । আমি বার বার বলার চেষ্টা করেছি আপনি যদি কোন ধর্ম বিশ্বাস না করেন তবে সেটা আপনার একান্তই ব্যক্তিগত ব্যাপার । এখানে কোন প্রশ্ন করার কিছু নাই । কিন্তু ভাই আমার প্রশ্ন হচ্ছে আপনি কেন আমার বিশ্বাস বা শ্রদ্ধাকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করবেন ? Thats it brother ……..

      1. তুই নাস্তিক ? ভাল কথা । তুই

        তুই নাস্তিক ? ভাল কথা । তুই তোর নাস্তিকতাবাদ লইয়া থাক । তোরে কে কইছে আরেক জনের ধর্ম বা বিশ্বাস নিয়া কথা কওনের । আর এতই যদি বিশ্বাস তোর নাস্তিকতার উপর তাহলে তুই ওপেন হস না ক্যান ? তোর কিসের এত ভয় ? জীবন তো একটাই । যেভাবেই থাকস না ক্যান তুই তোর বিশ্বাস নিয়া বাইচ্যা থাকবি । তা না কইরা চোরের মত লুকাইয়া লুকাইয়া সামাজিক মিডিয়াগুলোতে চিক্কুর পাইড়া বেড়াস ! শালা বলদের দল।

        :আমিকিন্তুচুপচাপ: :আমিকিন্তুচুপচাপ: :আমিকিন্তুচুপচাপ: :আমিকিন্তুচুপচাপ: :আমিকিন্তুচুপচাপ: :আমিকিন্তুচুপচাপ:

        1. জি ভাই আপনার কোট করার জায়গা
          জি ভাই আপনার কোট করার জায়গা আমি আরো সংক্ষিপ্ত করে দিতাছি – জীবন তো একটাই । যেভাবেই থাকস না ক্যান তুই তোর বিশ্বাস নিয়া বাইচ্যা থাকবি । এই বিশেষ জায়গাটাই তো আপনি ধরেছেন । ঠিক জায়গাই ধরেছেন, আমি নিজেও স্বীকার করছি । এই দুইটা লাইন লেখার কারণ হচ্ছে – ফেসবুকে এমন অনেকজন-কে পেয়েছি (আমি ভূল না করলে আপনিও হয়তো বা পেয়েছেন) যে আল্লাহ ও রাসূলের নামে কুৎসা রটনা রটায় এবং সাথে সাথে হাসি, চোখ টিপি ইত্যাদি বিভিন্ন ইমো দিয়ে তার বন্ধুদের বলে সে বিপদে আছে !

          1. পুরা লেখায় কিছুক্ষণ পর পর
            পুরা লেখায় কিছুক্ষণ পর পর সংশোধন করতেছেন! নাস্তিক আর আবালের মধ্যে পার্থক্য এবার আপনি নিজেই খুঁজে নেন।

          2. পুরা লেখায় বার বার সংশোধন

            পুরা লেখায় বার বার সংশোধন করতেছেন!

            ভাই চোখের কি মাথা খাইছেন ? পুরা লেখায় শুধু এক জায়গায় ছয়টা শব্দ বাদ দিছিলাম সেগুলা পরে লিখে দিছি । এর থেকে বেশি কিছু তো করি নাই । সেটা কোথায় দিছি তা নিচে দিলাম –

            মূল লেখাটি ছিল এমন –

            আজ পর্যন্ত এমন কোন নাস্তিক দেখলাম না যে খুল্লাম-খুল্লা নিজের অরিজিনাল প্রোফাইল ফটোগ্রাফ দিয়া ফেসবুকিং বা ব্লগিং করছে !

            পরে হয়েছে –

            আজ পর্যন্ত এমন কোন নাস্তিক দেখলাম না যে খুল্লাম-খুল্লা নিজের অরিজিনাল প্রোফাইল ফটোগ্রাফ দিয়া অন্যের ধর্ম বা বিশ্বাসকে ছোট বা খাট করে ফেসবুকিং বা ব্লগিং করছে !

            এবার স্যার বলেন আর কোথায় কোথায় আমি সংশোধন দিয়েছি ? আপনি যে বললেন আমি বার বার সংশোধন দিয়েছি তা আপনি এবার আমাকে দেখান ! আপনাদের সমস্যা কি জানেন ? আপনারা জ্ঞানের ঠেলায় খুব তাড়াতাড়ি ধরারে সরা জ্ঞান করা শুরু করে দেন ।

            জনাব আবালগিরি কম করবেন । বার বার বলতাছি লেখা না বুঝলে আবার পড়েন ! ও দুঃক্ষিত আপনি কেন আবার পড়বেন । আপনি তো আবার সেই হালের ফ্যাশনবাজ “নাস্তিক”! এই জন্যই তো বলি আপনার গায়ে কেন এত লাগে ?

    2. আপনার এপ্রোচটাও খুবই আগ্রাসী

      আপনার এপ্রোচটাও খুবই আগ্রাসী টাইপের হয়ে গেছে। পাইলে খায়া ফালামু টাইপ। এই দর্শন নিয়ে যারা চলে তাদের সবাইরেই আমি সেলাম ঠুকে বলি- দূরে গিয়া মরেন।

      :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

    3. কিন্তু ধর্মের প্রশ্নে আপনি

      কিন্তু ধর্মের প্রশ্নে আপনি ছাড় দিতে ইচ্ছুক নন বলেই এমন আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে লিখেছেন। তাহলে আপনার ধর্ম আপনাকে কি শিক্ষা দিলো সেটা বিচারের ভার আপনার উপরেই দিলাম।

      সহমত।যে ধার্মিক ধর্মকে অস্ত্র করে মানুষকে তাড়িয়ে বেড়াবে বুঝতে হবে তার ধর্ম বিশ্বাসের কোথাও গলদ আছে।
      জানতে হবে, হয় সে ধর্মকে চিনে নাই অথবা ধর্ম-র মূলমন্ত্র তার কাছে বিমূর্ত হয়ে ধরা দ্যায় নাই।

      1. এখানে কোন জায়গাতেই ধর্মকে
        এখানে কোন জায়গাতেই ধর্মকে অস্ত্র বানানো হয় নি । সোজা-সাপ্টা একটি কথাই বলার চেষ্টা করা হচ্ছে – যে যার যার বিশ্বাস নিয়ে থাকুক । অহেতুক আরেকজনের বিশ্বাসকে কাটা-ছেড়া না করা হোক ।

    4. আতিক ভাই, আমাদের নবীর নামে,
      আতিক ভাই, আমাদের নবীর নামে, ইসলাম ধর্মের নামে যা তা বললে, তারে ছেড়ে দিবো? কাল কেয়ামতের ময়দানে আল্লার কাছে কি জবাব দিবো, এটা ভাবতেই আমি ভয়ে শ্যাষ…. :দেখুমনা: :দেখুমনা: :দেখুমনা:

  10. অনলাইনে নাস্তিকতার কথা লেখা
    অনলাইনে নাস্তিকতার কথা লেখা হইল নিজের নাক কেটে হিট কামানোর মত। কিছু কিছু সেলিব্রেটি নায়িকা যেমন নগ্ন হইয়া পোপুলার হয় ঠিক সেরকম। এভাবেই তারা অনলাইনে পরিচিতি পায়। উদাহরণ, মগাচীপ আসিফ্যা

      1. কিছু কিছু সেলিব্রেটি নায়িকা

        কিছু কিছু সেলিব্রেটি নায়িকা যেমন নগ্ন হইয়া পোপুলার হয় ঠিক সেরকম। এভাবেই তারা অনলাইনে পরিচিতি পায়।

        সহমত!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *