“টক!!” শো সমাচারঃ পাগলে কি না বলে!

পরশু একটা টক শোতে উপস্থাপকের সাথে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদের কথোপকথনের একটা অংশঃ

উপস্থাপকঃ বিরোধীদলীয় নেত্রীর সফররত ভারতের রাষ্ট্রপতির সাথে দেখা করা কি উচিত ছিলো না?
রিজভীঃ আমাদের নেত্রী তো বলে দিয়েছেন যে হরতাল ভেঙ্গে তিনি প্রণব মুখার্জীর সঙ্গে দেখা করবেন না।
উপস্থাপকঃ কিন্তু আপনারা তো জানতেন যে প্রণব মুখার্জী এই সময়ে বাংলাদেশ সফরে আসবেন, তারপরও কেন হরতাল দিলেন?
রিজভীঃ কিন্তু জাতি তো আর জানতো না।


পরশু একটা টক শোতে উপস্থাপকের সাথে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদের কথোপকথনের একটা অংশঃ

উপস্থাপকঃ বিরোধীদলীয় নেত্রীর সফররত ভারতের রাষ্ট্রপতির সাথে দেখা করা কি উচিত ছিলো না?
রিজভীঃ আমাদের নেত্রী তো বলে দিয়েছেন যে হরতাল ভেঙ্গে তিনি প্রণব মুখার্জীর সঙ্গে দেখা করবেন না।
উপস্থাপকঃ কিন্তু আপনারা তো জানতেন যে প্রণব মুখার্জী এই সময়ে বাংলাদেশ সফরে আসবেন, তারপরও কেন হরতাল দিলেন?
রিজভীঃ কিন্তু জাতি তো আর জানতো না।

কতবড় বেকুবের মত উত্তর, “জাতি তো আর জানতো না”। আরে ব্যাটা হরতালের তারিখ কি তোরা ঠিক করেছিস নাকি জাতি ঠিক করেছে? আর জাতি জানতো না তোরা বুঝলি কিভাবে? যারা পত্রিকা পড়ে, গ্রামে যারা রেডিও শোনে তারা সবাই জানে। এরপরও যারা না জেনে থাকে, তারা হরতাল তো দূরের কথা, দেশে কোথায় কি হচ্ছে তা নিয়েও তেমন ভাবেনা।
তোকে একটা ঢোল গলায় দিয়ে আর হাতে একটা হ্যান্ডমাইক ধরিয়ে দিয়ে রাস্তায় নামিয়ে দেওয়া উচিত ছিলো জাতিকে জানানোর জন্য যে ভারতের রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশে আসবেন।
শালা গঁঞ্জিকাসেবী কোথাকার।

আরেকটি টকশোতে এই বিষয় নিয়ে কাদের সিদ্দীকিকে প্রশ্ন করা হলে স্বভাবসুলভ কুটিল হাসি দিয়ে বললেন, “প্রণব বাবু ব্যক্তিগতভাবে আমার সাথে পরিচিত, আমার সাথে তার একটা পারিবারিক বন্ধন তৈরি হয়েছে। তিনি আমাদের দেশে আসবেন এই সময়ে সরকারের উচিত ছিলো পুলিশ বাহিনী দিয়ে সহিংসতা সৃষ্টি না করা।”
অথচ উনি সুকৌশলে এড়িয়ে গেলেন আসল কারনটি। মূল সমস্যাটি যে বিএনপি-জামায়াতের ডাকা হরতাল তা তিনি একবারও উল্লেখ করলেন না, বরং সমর্থন করলেন। তার এই স্বাধীনতাবিরোধী নীতির কারনে “বঙ্গবীর” পদবীটি তার নামের পিছনে বড়ই বেমানান! নতুন কোনো পদবীর কথা ভাবতে হবে।

কাল রাতে “দিকভ্রান্ত” টিভির একটি টকশোতে উপস্থাপক নিজেই জামাত শিবিরের পক্ষাবলম্বন করে বললেন, হিন্দুদের বাড়িঘর এবং মন্দির শিবিরের ছেলেরা পাহারা দিচ্ছে হিন্দুদের সাথে নিয়ে!!!
শিবিরের ছেলেরা নাকি এরকম কাজ স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত কখনো করেনি!!!
সব শালা মুনাফেকের দল। মুখে ধর্মের নাম নিয়ে মিথ্যাচার কাহাকে বলে, কত প্রকার ও কি কি তা এই কাঁঠাল পাতা ভক্ষণকারী ছাগুগুলো জাতিকে দেখিয়ে দিচ্ছে।
(বিঃদ্রঃ কারো সুশীলানুভূতিতে আঘাত লাগলে আমার দুঃখপ্রকাশ করা ছাড়া কিছু করার নাই)

৫ thoughts on ““টক!!” শো সমাচারঃ পাগলে কি না বলে!

  1. এইসব ভণ্ড মিথ্যাবাদীদের কথা
    এইসব ভণ্ড মিথ্যাবাদীদের কথা শুনতে শুনতে ঘৃনার পাহাড় জমা হচ্ছে। এরা কি সবাইকেই ব্রেইন ওয়াশড ছাগু মনে করে?

  2. কত দিন যাবৎ পার্টির অফিসে বসে
    কত দিন যাবৎ পার্টির অফিসে বসে আছেন? তার মাথায় এখন আর কিছু থাকার কথা কি ? তোতা পাখির মত নেত্রীর কথা বক বক করে বলে যাচ্ছেন! নিজের মাথায় কিছু আছে বলে তো মনে হয় না। এদের নিজের বিবেক-বুদ্ধি সব বিসর্জন দিয়ে পেটনীতি চালিয়ে যাচ্ছেন আর কি! এভাবেই যায় যতদিন! মনে হয়না আর বেশী দিন যাবে ?

  3. শুনলাম জামাত শিবির নাকি
    শুনলাম জামাত শিবির নাকি শান্তি বাহিনী গঠন করছে হিন্দুদের রক্ষা করার জন্য। এই খবর শুনলে শান্তি কি আর এলাকায় থাকতে পারবে? :মাথাঠুকি:

    1. একাত্তরেও শান্তিবাহিনী
      একাত্তরেও শান্তিবাহিনী করেছিল। তার ফল সংখ্যালঘুরা ভালভাবেই পেয়েছে।

  4. টকশো তখন সার্কাস হয়ে যায়
    :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: টকশো তখন সার্কাস হয়ে যায় :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *