গানের কথা- ২ অঞ্জন দত্ত

“পাড়ায় ঢুকলে ঠ্যাং খোঁড়া করে দেবো/বলেছে পাড়ার দাদারা
অন্য পাড়া দিয়ে যাচ্ছি তাই/রঞ্জনা আমি আর আসব না…”
অতি পরিচিত দুটো প্রিয় গানের কলি। আমার একারই না অনেকেরই।
গায়কের নামটা আরো পরিচিত। “অঞ্জন দত্ত”

“”১৯৯৮-৯৯ সালের কথা। হঠাৎ একদিন আব্বু নতুন কম্পিউটার নিয়ে গেল বাসায়। উদ্দেশ্য ব্যাবসার কাজ সহজ করার জন্য। আমার বয়স তখন ৫ কি ৬। কম্পিউটার আনা হল ঠিকই, কিন্তু তা ব্যাবসার কাজে না এসে, সারাদিন ভর চলত গানবাজনা। বাপ সৌখিন মানুষ। তারওপর সংগীত-চলচ্চিত্র নিয়ে ব্যাপক জ্ঞান।

“পাড়ায় ঢুকলে ঠ্যাং খোঁড়া করে দেবো/বলেছে পাড়ার দাদারা
অন্য পাড়া দিয়ে যাচ্ছি তাই/রঞ্জনা আমি আর আসব না…”
অতি পরিচিত দুটো প্রিয় গানের কলি। আমার একারই না অনেকেরই।
গায়কের নামটা আরো পরিচিত। “অঞ্জন দত্ত”

“”১৯৯৮-৯৯ সালের কথা। হঠাৎ একদিন আব্বু নতুন কম্পিউটার নিয়ে গেল বাসায়। উদ্দেশ্য ব্যাবসার কাজ সহজ করার জন্য। আমার বয়স তখন ৫ কি ৬। কম্পিউটার আনা হল ঠিকই, কিন্তু তা ব্যাবসার কাজে না এসে, সারাদিন ভর চলত গানবাজনা। বাপ সৌখিন মানুষ। তারওপর সংগীত-চলচ্চিত্র নিয়ে ব্যাপক জ্ঞান।
আবিষ্কার করলাম যে, কম্পিউটারে ঘুরে-কয়েকটি গানই চলছে বেশ। কথাগুলোয় অত্যন্ত মজার। “পাড়ায় ঢুকলে ঠ্যাং গুড়ো করে দিব” কিংবা “কাল সাহেবে মেয়ে স্কুল পালিয়ে ” বা “মাগো মা চললাম আমি, করতে নিজের সংসার” অথবা “বেলা বোস তুমি শুনতে পাচ্ছো কি….।”
গান বা সংগীত বোঝার বয়স তখনো হয়নি। কিন্তু এ গানগুলো তখন থেকেই প্রিয় হয়ে গেল।””

তখন আধা পপ-আধা ক্ল্যাসিক গানের যুগ চলছে কলকাতায়। আর ঢাকায় ব্যান্ড দিয়ে মাতাচ্ছেন জেমস-হাসান-বাচ্চু। কলকাতায় নাম উঠেছে অঞ্জন দত্তদের।
অঞ্জন দত্ত গান গাওয়া শুরু করেন খুব সম্ভব “৮৫ সালের পর। প্রথম এ্যালবাম ১৯৯৪ সালে। নাম- “শুনতে কি পাও?” পকাশের পর তাঁকে চিনতে মানুষের দেরি হয় নি। প্রথম এ্যালবামেই বাজিমাত। এরপরের বছরেই নতুন এ্যালবাম “পুরোন গিটার।” যথারীতি সাফল্য। এরপর থেকে প্রতিবছরেই দুই-একটি করে এ্যালবাম বের হতেই থাকল।
তবে এখন এ্যালবাম করে গান গাওয়া প্রায় ছেড়েই দিয়েছে। শেষ এ্যালবাম বাংলাদেশের বাপ্পা মজুমদার ও এস, আই টুটুলের সাথে “আবার পথে দেখা” ২০০৭ সালে।
বর্ণিল ক্যারিয়ার। ১৯৯৮ সালে “বড়দিন” চলচ্চিত্রের পরিচালনা দিয়ে পরিচালক অঞ্জন দত্তের জীবন শুরু। এরপর বেশ কিছু ছবি করেছেন। বেশ নামও কামিয়েছে।

অঞ্জন দত্তের মোট প্রকাশিত এ্যালবামের সংখ্যা ১৬টি। বাংলাদেশেও বেশ কয়েকবার এসেছেন গান গাইবার জন্য। অঞ্জন দত্তের গান মানে একটা অন্যকিছু। অন্য সুর, অসাধারণ লিরিক, হাস্যরস। সবমিলিয়ে অদ্বিতীয়া। মুলত তাঁর গানগুলো জীবনমুখী। সহজ সুর আর সহজ কথায় যে কত সুন্দর গান হতে পারে, তার উদাহারণ তিনি। তাঁর গানের সম্ভার নিয়ে অঞ্জন সংগীত হিসেবে আলাদা শাখা খুললেও দোষ ক্রুটি কিসু হবে না তাঁর গান এমনই যে, অল্প শোনা একটা মানুষের পক্ষেও বলে দেয়া সম্ভব, এটা অঞ্জনদার গান। যদিও কিছুক্ষেত্রে “কবির সুমন”এর গানের সুরের সাথে তাঁর মিল রয়েছে।

তবে অঞ্জন দত্তের গান নিয়ে কিছু সমালোচনাও শোনা যায়। যেমন- অনেকে বলে অঞ্জন দত্ত’র বিভিন্ন গানের সুর প্রায় একইরকম, একই সুর ঘুরিয়ে ফিরিয়ে তিনি অনেক গানে ব্যবহার করেন। কেউ মনে করে, তার গানের কথা খুব হাল্কা ধরনের। এছাড়া তার গানের সুরে অনেক ক্ষেত্রেই বিভিন্ন পাশ্চাত্য মিউজিসিয়ান যেমন, সিমন এবং গারফাঙ্কল, বব ডিলান এদের গানের সুরের অনুসরণ লক্ষ্য করা যায়। এসব ব্যাপার খুব স্বাভাবিক।
স্বয়ং “রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর” যদি “মোৎজার্ট”, কিংবা “বাঙ্কোস” এর সুরের অনুকরণ করতে পারেন, তবে অঞ্জন দত্তই বা পারেন না কেন।

আমার কাছে রবীন্দ্রনাথ, লালন আর হাসন রাজার পর যদি কেউ থেকে থাকে, সেটা অঞ্জন দত্ত। এত সুন্দর মেলোডি সবার পক্ষে আনা সম্ভব না।
মানুষ হিসেবে তিনি তাঁর গানের মতই,
“আমি অন্যকিছু নই, আমি সবাই”

বৃষ্টির গান গেয়েছে, কলকাতার গান গেয়েছেন, ঢাকার গান গেয়েছেন, ভালবাসার গান গেয়েছেন, বয়সের গান গেয়েছেন। কি বাদ রেখেছেন!! তাঁর সহজ কথার গানগুলোর দর্শনই আলাদা।
আসলে অঞ্জন দত্তের গান অতুলনীয়, অসাধারণ।
আর বেশি কিছু বলব না। “অঞ্জন দত্ত, অঞ্জন দত্তই।”
তাঁর একটি গানের দুটো লাইন দিয়ে শেষ করি,

“…আমার আকাশ আমি যতই হাজার অন্য রঙে আকি
আকাশ সে তো নীল থেকে যায়
আমার সাদা কালো শহর সে তো
সাদা-কালো থাকে
আমি যত রঙিন নিয়ন জ্বালাই…

আমি অন্যকিছু নই, আমি সবাই…”

৬ thoughts on “গানের কথা- ২ অঞ্জন দত্ত

  1. হুমম বুঝলাম। তবে শাহ আব্দুল
    হুমম বুঝলাম। তবে শাহ আব্দুল করিমের কথা কি ভুলে গেছেন? হয়তো তাকে আপনার নাও ভালো লাগতে পারে। ওনার সিনেমাগুলো আসলেই সুন্দর। রঞ্জনা আমি আর আসবো না। অভিনয়টাও দারুণ করে। ম্যাডলি বাঙ্গালীতে ফাটিয়ে দিয়েছেন। বলা যায় যেখানে হাত দেন সেখানেই সফল।

  2. অঞ্জন দত্ত এক সময় কি প্রচন্ড
    অঞ্জন দত্ত এক সময় কি প্রচন্ড নাড়া দিতো! নচিকেতা! এখন রবীন্দ্র সংগীত আর কবীর সুমন…। ভাল পোস্ট। লিখতে থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *