৭১ এর মোমেনাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাবার হাত ধরে পালিয়ে যাচ্ছিলেন ১১ বছর বয়সী মোমেনা খাতুন। পথে হাতীবান্ধা উপজেলার তালেব মোড়ে পৌঁছলে পাক হানাদার বাহিনীর গুলি এসে লাগে মোমেনার শরীরে। তখন পল্লী চিকিৎসক আ. গফুর গুলিবিদ্ধ মোমেনার চিকিৎসা করান। তাতে তিনি সুস্থ হলেও শরীরের ভেতরেই থেকে যায় গুলিটি। এরপর যুদ্ধ শেষ হয়। পাক হানাদার বাহিনী পালিয়ে যায়। স্বাধীন হয় দেশ। কিন্তু সেই হানাদার বাহিনীর চিহ্ন রয়ে যায় মোমেনার শরীরে। এভাবেই কেটে যায় মোমেনার দীর্ঘ ৪৩টি বছর।


১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাবার হাত ধরে পালিয়ে যাচ্ছিলেন ১১ বছর বয়সী মোমেনা খাতুন। পথে হাতীবান্ধা উপজেলার তালেব মোড়ে পৌঁছলে পাক হানাদার বাহিনীর গুলি এসে লাগে মোমেনার শরীরে। তখন পল্লী চিকিৎসক আ. গফুর গুলিবিদ্ধ মোমেনার চিকিৎসা করান। তাতে তিনি সুস্থ হলেও শরীরের ভেতরেই থেকে যায় গুলিটি। এরপর যুদ্ধ শেষ হয়। পাক হানাদার বাহিনী পালিয়ে যায়। স্বাধীন হয় দেশ। কিন্তু সেই হানাদার বাহিনীর চিহ্ন রয়ে যায় মোমেনার শরীরে। এভাবেই কেটে যায় মোমেনার দীর্ঘ ৪৩টি বছর।

বয়সের ভারে নাজুক হয়ে পড়া মোমেনা ক্রমান্বয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে এলাকাবাসীর সহায়তায় লালমনিরহাট নিরাময় ক্লিনিকের ডাক্তার বিমল চন্দ্রের শরণাপন্ন হন। সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর মোমেনার গলার বাম দিকে ক্ষতস্থানের ভেতরে আটকে পড়া গুলির সন্ধান পান চিকিৎসক। পরে গত মঙ্গলবার রাতে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে গুলিটি বের করা হয়। বর্তমানে তিনি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তৃতীয় তলায় ১৬নং ওয়ার্ডের ৩৬নং বেডে রয়েছেন। চিকিৎসক বিমল চন্দ্র জানান, অপারেশন করে গুলি বের করা হয়েছে।
আজ উন্নত চিকিৎসার অভাবে মোমেনার করুন অবস্থা। তাই তাঁর উন্নত চিকিৎসার জন্য সাহায্যের প্রয়োজন। কয়েকদিন আগে আমি আরেকটি পোষ্ট করেছিলাম। কয়েকজন ইনবক্সে সাহাযয্য করার আশ্বাস দিয়েছেন। তাই যাদের পক্ষে সম্ভব সাহায্য করুন মোমেনাকে।
সহযোগীতা/যোগাযোগ-01961840390 (পারসোনাল বিকাশ নাম্বার)

৮ thoughts on “৭১ এর মোমেনাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

  1. ছবিটি মনে হচ্ছে আপনি সঠিকভাবে
    ছবিটি মনে হচ্ছে আপনি সঠিকভাবে আপলোড দিতে পারেন নি। দয়া করে ট্রেনিং রুমে ছবি আপলোড করার নিয়মটি জেনে তারপর ছবি আপলোড করুন। ট্রেনিং রুমের লিংকঃ http://istishon.blog/node/11

  2. এই দেশ স্বাধীন হয়েছে চেতনা
    এই দেশ স্বাধীন হয়েছে চেতনা ব্যবসায়ীদের জন্য। মোমেনারা এখানে ধুঁকে ধুঁকে মরলেও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কিছু যায় আসে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা শামীম ওসমানের মত সন্ত্রাসীদের সম্পদ। দেশটা তাদের।

  3. বেশ কিছু জায়গা থেকে অনুদানের
    বেশ কিছু জায়গা থেকে অনুদানের আশ্বাস পাওয়া গেছে। আর পত্রিকা গুলো আজ নউজটা কভারেজ করে উপকারই করেছে।

  4. ৭১ এর মোমেনার চেয়ে বেশী
    ৭১ এর মোমেনার চেয়ে বেশী নিঃস্ব শেখ রেহানা। বোনের সাহায্যে বোন এগিয়ে এসেছে। এত সময় কই রাষ্ট্রের মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য চিন্তা করার।

  5. লোটা ভাইরে কইলে ইস্লামি বেংক
    লোটা ভাইরে কইলে ইস্লামি বেংক থেকে কিছু টেকাটুকা ম্যানেজ কইরা দিতে পারেন। দেশে এখন সবচেয়ে হালাল টেকা হচ্ছে ইস্লামি বেংকের টেকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *