[ধোঁকা ভাষন]

. . . .(৪র্থ পর্ব্ব)

দু’দিন হয়ে গেল কিন্তু কেউ এলোনা খাদ্য নিয়ে।
ক্ষুধায় কাঁতর অধৈর্য বাঘ অবশেষে তিনদিনের বিকেলে একটা হুংকার ছেড়ে ডাকলো;
বাঘঃ কোথায় শেয়াল?

অদুরেই একটা খালের চড়ায় কাঁকড়া খুঁজে খাচ্ছিল শেয়ালটা।
ডাক শুনেই তীরে উঠে ছুটে এলো যথাস্থানে।
দেখা মাত্র বাঘ বললো;
বাঘঃ বেশ দেখিয়েছিশ্ তোর পনিসসের নমুনা।
বলিহারী তোর আক্কেল, একটা লোভের মূলো ঝুলিয়ে বসিয়ে রেখেছিশ্ এখানে।
বেশ পারিশ্!

শেয়ালঃ রাঁগ্বেন্না সভাপতি সাহেব মামাজী।
আসলেই দারুন মঙ্গা চলছে, একদম খাদ্য জুঁটছেনা। এই দু’দিনে মাত্র একটা কাঁকড়া ধরেছিলুম তা ও একটা ঠ্যাং রেখে, ভেগে গেল !


. . . .(৪র্থ পর্ব্ব)

দু’দিন হয়ে গেল কিন্তু কেউ এলোনা খাদ্য নিয়ে।
ক্ষুধায় কাঁতর অধৈর্য বাঘ অবশেষে তিনদিনের বিকেলে একটা হুংকার ছেড়ে ডাকলো;
বাঘঃ কোথায় শেয়াল?

অদুরেই একটা খালের চড়ায় কাঁকড়া খুঁজে খাচ্ছিল শেয়ালটা।
ডাক শুনেই তীরে উঠে ছুটে এলো যথাস্থানে।
দেখা মাত্র বাঘ বললো;
বাঘঃ বেশ দেখিয়েছিশ্ তোর পনিসসের নমুনা।
বলিহারী তোর আক্কেল, একটা লোভের মূলো ঝুলিয়ে বসিয়ে রেখেছিশ্ এখানে।
বেশ পারিশ্!

শেয়ালঃ রাঁগ্বেন্না সভাপতি সাহেব মামাজী।
আসলেই দারুন মঙ্গা চলছে, একদম খাদ্য জুঁটছেনা। এই দু’দিনে মাত্র একটা কাঁকড়া ধরেছিলুম তা ও একটা ঠ্যাং রেখে, ভেগে গেল !

বাঘঃ তা আমি এখন কি করতে পারি যদি দয়া হয় একটু বলে দিলে বাধিত হই!

শেয়ালঃ এ হেন লজ্জা কেন দিচ্ছেন মামাজী! বিষয়টা একটু ভেবে দেখুন!
তবে আজ কিছুক্ষনের মধ্যেই হয়তো আপনাকে মাংস খাওয়াতে পারবো, আপনি নিজে যদি সব গুব্লেট্ করে না ফেলেন।

বাঘঃ কিযে বলিশ্ কিচ্ছু বুঝছিনা!
কোথায় মাংস ?

শেয়ালঃ সূস্থ্য হোন মামা সরি সভাপতি সাহেব! ঐ ওখানে চুপ্টি করে দেখতে থাকুন, কী আমি করি!

বাঘ মামাজী একটু নড়েচড়ে আয়েস করে বসতে শেয়াল উঠে বসলো সেই মরা গাছের গুড়িটার উপরে।
তারপর ডাক জুড়ে দিল;
শেয়ালঃ হুক্কাহুয়া হুক্কা হুক্। হে আমার
পনিসসের সন্মানিত সদস্যবৃন্দ!
আমরা জানি খাদ্য সঙ্কটের কারনে খাদ্য সংগ্রহ করা সম্ভব হচ্ছেনা।
তাই বলে লেজ গুটিয়ে বসে থাকলে আমরা কেহই বাঁচতে পারবোনা!
এ বিষয় কি করনীয় থাকতে পারে সেই লক্ষে মহামান্য রাজন সভাপতি সাহেব জরুরী এক অধিবেশনের আহ্বান জানিয়েছেন।
তাই যে যেখানে আছেন অনতিবিলম্বে মহান সংসদে উপস্থিত হয়ে অধিবেশনকে সাফল্যমণ্ডিত করে আশু সমাধানে এগিয়ে আসুন।

এভাবে ভাষন দিতে দিতে দেখা গেল,
সেদিনের চেয়ে আরো অধিক পশু সমাগম ঘটেছে।

শেয়ালটা এবারে তার কন্ঠস্বর চেঞ্জ করে বলতে শুরু করলো;
শেয়ালঃ আমি বুঝতে পারছি আপনাদের মন থাকা সত্যেও করার কিছু নেই আপনাদের পক্ষে।
তবে আমি মাননীয় সাংগঠনিক মহাশয়ের দৃষ্টি আকর্ষন করে বলছি,
এ বিষয়ে তিনি কী করবেন বলে ভেবেছেন তা এই সংসদে পেশ করুন!

পালের গোদা শুয়োর যেন বেকায়দায় পরে গেছে! থতমত খেয়ে একটু সমুখে এগিয়ে বললো;
শুয়োরঃ কিন্তু আমি কি করতে পারি?
শেয়ালঃ কেন আপনিইতো সংগঠন পরিচালনার দায়িত্ব নিজেই সেধে সেধে নিয়েছেন নিজের কাঁধে!
এখন আপনাকেইতো যা করার তা করতে হবে !
তবে হ্যা আপনি চাইলে আমি আপনাকে আপনার করনীয় বিষয় বাত্লে দিতে পারি!
ইচ্ছে করলেই আপনি পনিসসকে টিকিয়ে রাখতে পারেন!

শুয়োরঃ তা কি করে সম্ভব, কি বলছেন, আমি যে আপনার কথার মাথা মুণ্ডু কিছুই বুঝছিনা !

শেয়ালঃ কেন বুঝবেননা অবশ্যই বুঝবেন, বুঝিয়ে বলছি, খেয়াল করে শুনুন।
বিধাতা আপনার শরীরে মাংস সম্ভার দান করেছেন তা যদি আপনি পনিসসে দান করেন, তাহলে তা খেয়ে পনিসসের শীর্ষ নেতারা বেঁচে থাকতে পারে।
নেতারা বেঁচে থাকলে পনিসস বেঁচে থাকবে। পনিসস বাঁচলে সুন্দরবনের অস্তিত্ব বেঁচে থাকবে, আশা করি আমি আপনাকে বোঝাতে পেরেছি!

শেয়ালের কথায় প্রচণ্ড রেঁগে ঘোঁত্‍ ঘোঁত্‍ করে শুয়োরটা বললো ;

[ আগামী ৫ম পর্ব্বের অপেক্ষায় থেকো বন্ধুরা ]

৩ thoughts on “[ধোঁকা ভাষন]

  1. ব্লগে ইস্টিশনবিধি বলে একটা
    ব্লগে ইস্টিশনবিধি বলে একটা আইন আছে। সেই আইনটা পড়ে তারপর পোস্ট দেন। একদিনেই সব প্রসব করার দরকার কি? এসব ছাগলামীর কোন মানেই হয় না।

  2. আপনাকে ইস্টিশনবিধি পড়ে ব্লগিং
    আপনাকে ইস্টিশনবিধি পড়ে ব্লগিং করার জন্য অনুরোধ জানানো হচ্ছে। ফ্লাডিং এর কারণে আপনার পোস্টটি প্রথম পাতা থেকে সরিয়ে আপনার ব্যক্তিগত ব্লগে স্থানান্তরিত করা হল।

  3. ইস্টিশন বিধি অনুযায়ী
    ৫. প্রথম

    ইস্টিশন বিধি অনুযায়ী
    ৫. প্রথম পাতায় একজন যাত্রী’র দুই’য়ের
    অধিক পোস্ট এলে ফ্লাডিং বলে গণ্য
    করা হবে। কোন যাত্রী’র প্রথম পাতায়
    দুই’য়ের অধিক পোস্ট
    দেখা গেলে পুর্বের পোস্টের গুরুত্ব
    বিবেচনায় যে কোন দুইটি রেখে অন্য
    পোস্টগুলো প্রথম
    পাতা হতে সরিয়ে দেয়া হবে।
    যে কোনো ধরনের স্প্যামিং,
    কোডিং মুছে দেয়া হবে।

Leave a Reply to devu Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *