“ধোঁকা ভাষন”

[২য় পর্ব্ব]

বাঘ মামাজি একটা সুন্দরী গাছের ছায়ায় আরামে বসতে, শেয়ালটা উঠে বসলো একটা মরা গাছের গুড়ির উপরে।

পেছনের দু’পায়ে ঠেস্ দিয়ে ভাড়ি নিতম্বের উপরে বসলো শেয়ালজি।
মুখটাকে জঙ্গলের দিকে বাঁগিয়ে ধরে ডাকতে শুরু করে দিল, রাজনৈতিক ভাষনের মত করে।
বলতে লাগলোঃ
শেয়ালঃ হে আমার জঙ্গলের সন্মানিত পশু সম্প্রদায়, আপনাদের উদ্দেশ্যে সুন্দরবনের রাজন,
দি রয়েল বেঙ্গল টাইগার মহোদয়ের আকুল আহ্বান পৌঁছে দিচ্ছি, সকলে মনোনিবেশ সহকারে শ্রবন করুন!
সর্ব্বনাশা সিডরের তাণ্ডব লীলায় আজ আমাদের জীবনে নেবে এসেছে করাল মৃত্যুর আতঙ্ক!
খাদ্যের অভাবে মঙ্গার কারনে পশুকুল একে একে মৃত্যুবরনে বাধ্য হচ্ছে!

[২য় পর্ব্ব]

বাঘ মামাজি একটা সুন্দরী গাছের ছায়ায় আরামে বসতে, শেয়ালটা উঠে বসলো একটা মরা গাছের গুড়ির উপরে।

পেছনের দু’পায়ে ঠেস্ দিয়ে ভাড়ি নিতম্বের উপরে বসলো শেয়ালজি।
মুখটাকে জঙ্গলের দিকে বাঁগিয়ে ধরে ডাকতে শুরু করে দিল, রাজনৈতিক ভাষনের মত করে।
বলতে লাগলোঃ
শেয়ালঃ হে আমার জঙ্গলের সন্মানিত পশু সম্প্রদায়, আপনাদের উদ্দেশ্যে সুন্দরবনের রাজন,
দি রয়েল বেঙ্গল টাইগার মহোদয়ের আকুল আহ্বান পৌঁছে দিচ্ছি, সকলে মনোনিবেশ সহকারে শ্রবন করুন!
সর্ব্বনাশা সিডরের তাণ্ডব লীলায় আজ আমাদের জীবনে নেবে এসেছে করাল মৃত্যুর আতঙ্ক!
খাদ্যের অভাবে মঙ্গার কারনে পশুকুল একে একে মৃত্যুবরনে বাধ্য হচ্ছে!
এহেন বিপদের করাল থাবা হতে বাঁচতে হলে আমাদের নিজেদেরই উপায় উদ্ভাবন করে নিতে হবে!
সেই লক্ষে আমাদের মহান রাজন এক জরুরী অধিবেশনের আহ্বান করেছেন!
সম্ভাব্য মৃত্যুর হাত হতে বাঁচতে আসুন আমরা সেই মহতী অধিবেশনে যোগদান করে নিজেদের মূল্যবান মতামত দান করে আশু সমাধানে ব্রতী হই!
কিছুক্ষনেই অধিবেশনের কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে, তাই অনতিবিলম্বে এখানের এই বৃহত্‍ সুন্দরী বৃক্ষের পাদদেশের সভায় যোগদান করে বেঁচে থাকার পথকে প্রশস্থ করে তুলুন!

এভাবে ইনিয়ে বিনিয়ে সুন্দর করে বক্তৃতা দিতে লাগলো ধূর্ত শেয়াল পণ্ডিত্‍জী!

দেখতে দেখতে অনেক পশু এসে দুরে দুরে বৃত্তাকারে দাড়িয়ে শেয়ালের ভাষন শুনতে লাগলো অবাক বিস্ময়ে !

শেয়াল এবারে থেমে গিয়ে কয়েক মূহুর্ত পরে সকলের দিকে তাঁকিয়ে বলতে লাগলোঃ
শেয়ালঃ আপনাদের উপস্থিতি আমাকে মূগ্ধ করেছে। এবার আপনারাই ভেবে বলুন, আমরা এই মঙ্গার সময় নিজেরা খাদ্য নিয়ে কামড়াকামড়ি করে হাড়িয়ে যাবো এই সুন্দর পৃথিবীর সুন্দরবন হতে, নাকি এমন কোনো ব্যবস্থা গড়ে তুলবেন যাতে সকলে মিলে মিশে বাঁচতে পারি সমতায় ! বলুন আপনাদের মতামত দিন দয়া করে!

এমনি সময় পালের গোদা শুয়োর মহাশয় তার স্বভাবজাত ঘোঁত্‍ ঘোঁত্‍ শব্দে বলে উঠলোঃ
শুয়োরঃ আমরা মুখ্খু সুখ্খু মানুষ অতশত কি বুঝবো?
আপনি পণ্ডিত্‍ মানুষ যা করার তাতো আপনাকেই করতে হবে পণ্ডিত্‍জী।

শেয়ালঃ তাহলে প্রথমেই আমাদের একটা সমিতি করে নিতে হবে এবং সেই লক্ষে একটা কমিটি করে নেওয়া প্রয়োজন!
আমার এই প্রস্তাবের আপনাদের পক্ষে আপনাদের সমর্থন আছে কিনা তাই বলুন আগে।

সকল পশু তাদের নিজ নিজ কন্ঠধ্বনি দিয়ে নিজ নিজ মতামত ব্যক্ত করলে এবার শেয়ালজী বলতে শুরু করলোঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *