একটি স্বপ্ন এবং বাংলাদেশ

দুপুরে খেয়ে “ভাতঘুম” দিচ্ছিলাম।। যদিও সদ্য মরুভূমি হওয়ার দরুন ঢাকা শহরে ঘুমানো খুবই কষ্টের কাজ।। সেই কষ্টের ঘুম দিতে দিতেই স্বপ্ন দেখা শুরু।। স্বপ্নের মধ্যে কোথাথেকে মধ্যবয়স্ক এবং খুব দুঃখী চেহারার একজন লোক হাজির।।
চিনি না তাকে।। তো তার কাছে গিয়ে তাকে জিজ্ঞেস করলাম , “ ভাই কি নাম আপনার? আপনি কি করেন? আর আপনার চেহারায় এতো দুঃখী ভাব কেন??”
জবাবে সে বলল, “ভাই, আমার নাম বাংলাদেশ।। আমি কিছু করি না।। আর আমার অনেক দুঃখ তাই আমার চেহারা দুঃখী দুঃখী।”
“বাংলাদেশ” শুনে পুরো চমকে উঠলাম।। “আপনি কি এশিয়া মহাদেশ পরিবারের একজন??” জিজ্ঞেস করলাম আমি।।
“জী ভাই । আমি সেই বাংলাদেশ।”

দুপুরে খেয়ে “ভাতঘুম” দিচ্ছিলাম।। যদিও সদ্য মরুভূমি হওয়ার দরুন ঢাকা শহরে ঘুমানো খুবই কষ্টের কাজ।। সেই কষ্টের ঘুম দিতে দিতেই স্বপ্ন দেখা শুরু।। স্বপ্নের মধ্যে কোথাথেকে মধ্যবয়স্ক এবং খুব দুঃখী চেহারার একজন লোক হাজির।।
চিনি না তাকে।। তো তার কাছে গিয়ে তাকে জিজ্ঞেস করলাম , “ ভাই কি নাম আপনার? আপনি কি করেন? আর আপনার চেহারায় এতো দুঃখী ভাব কেন??”
জবাবে সে বলল, “ভাই, আমার নাম বাংলাদেশ।। আমি কিছু করি না।। আর আমার অনেক দুঃখ তাই আমার চেহারা দুঃখী দুঃখী।”
“বাংলাদেশ” শুনে পুরো চমকে উঠলাম।। “আপনি কি এশিয়া মহাদেশ পরিবারের একজন??” জিজ্ঞেস করলাম আমি।।
“জী ভাই । আমি সেই বাংলাদেশ।”
“তো আপনার এতো দুঃখ কেন বলা যাবে?”
“কারণ ভাই আমি ক্যান্সার এ আক্রান্ত।। সেই ক্যান্সার এর নাম আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জামাত-শিবির, হেফাজত।। সেই ক্যান্সারগুলো আমার শরীরে এমনভাবে বাসা করছে যে কোন ঔষধ কাজ করে না।। আমাকে মরতেও দেয় না, বাঁচতেও দেয় না।”
“তো ভালো ডাক্তার দেখান। চিকিৎসা করান।” আমি বললাম তাকে।
“ভাই গত ৪২ বছরে কোন ঔষধ আমার রোগ সারাতে পারেনি। তবে…………………”
“ভাই থামলেন কেন? বলেন।। তবে কি??”
“গত বছর একটা ঔষধ পেয়েছিলাম যেটা খেয়ে মনে হচ্ছিলো কিছুটা কাজ হয়তো করবে। আমি আবার সুস্থ হয়ে উঠবো।। ঔষধটার নাম গণজাগরণ-মঞ্চ। কিন্তু আমার শরীরের ক্যান্সারগুলো এতো শক্তিশালী যে কিছুদিন কাজ করার পর ঔষধটা আর কাজ করে না।” বলতে বলতে বেচারার চোখ ভিজে উঠলো।।
আমি তাঁর কান্না দেখে চুপ করে রইলাম।।
সে আবার শুরু করলো, “ ভাই আমার সাত ছেলেমেয়ে।।কিছুদিন আগে আমার এক প্রতিবেশী আমার মেয়ে সিলেট আর ছেলে খুলনাকে জোর করে নিতে চায়।। আমি এমনিতে অসুস্থ মানুষ , তার উপর ক্ষমতাবান প্রতিবেশীর এই জুলুম কিভাবে সহ্য করবো ভাই বলেন।। আমি গরীব মানুষ।। কিছু করার সামর্থ্য আমার নেই।। আমি, আমি,আমি………………………………”
বেচারা আর কিছু বলে ওঠার আগেই হাউমাউ করে কান্না শুরু করে দিলো।। কাঁদতে কাঁদতে সে হাঁটা শুরু করলো।। আমি তাকে পেছন থেকে ডাকতে লাগলাম।। কিন্তু সে আমার ডাক উপেক্ষা করে হাঁটতেই থাকলো।। আমি এবার তার পিছনে দৌড় শুরু করলাম।। কিন্তু কিছুদূর যেয়ে তাকে আর খুঁজে পেলাম না।। চারিদিকে তার নাম ধরে ডাকলাম।। কিন্তু কোথাও সে নেই।। কোথাও না।।

৬ thoughts on “একটি স্বপ্ন এবং বাংলাদেশ

  1. “গত বছর একটা ঔষধ পেয়েছিলাম

    “গত বছর একটা ঔষধ পেয়েছিলাম যেটা খেয়ে মনে হচ্ছিলো কিছুটা কাজ হয়তো করবে। আমি আবার সুস্থ হয়ে উঠবো।। ঔষধটার নাম গণজাগরণ-মঞ্চ

    অবশেষে অরিন্দম কহিলা বিষাদে…………

  2. “তো ভালো ডাক্তার দেখান।
    “তো ভালো ডাক্তার দেখান। চিকিৎসা করান।” আমি বললাম তাকে।
    “ভাই গত ৪২ বছরে কোন ঔষধ আমার রোগ সারাতে পারেনি। তবে…………………”

    1. ধন্যবাদ ভাই।। আসলে আমি
      ধন্যবাদ ভাই।। আসলে আমি অ্যামেচার তো তাই আরকি।। ভুলগুলো আপনারা ধরিয়ে দিবেন।। তাহলে আরও ভালো কিছু লিখতে পারবো।।

  3. কারণ ভাই আমি ক্যান্সার এ

    কারণ ভাই আমি ক্যান্সার এ আক্রান্ত।। সেই ক্যান্সার এর নাম আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জামাত-শিবির, হেফাজত।। সেই ক্যান্সারগুলো আমার শরীরে এমনভাবে বাসা করছে যে কোন ঔষধ কাজ করে না।। আমাকে মরতেও দেয় না, বাঁচতেও দেয় না।”

    সহমত!

    ঔষধটার নাম গণজাগরণ-মঞ্চ।

    ঔষধের নাম বাংলার তরুণ সমাজ। গণজাগরণ মঞ্চ তার একটা অংশ মাত্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *