বাঙ্গালী বীরের জাতি??

বাঙ্গালী নাকি বীরের জাতি। কারন যুদ্ধ করে আমরা দেশ স্বাধীন করেছি। ভাষার জন্য জীবন দিয়েছি। আমাদের ইতিহাসতো বীরগাঁথা নকশীকাঁথা। কোন সন্দেহ আছে? না আমার সন্দেহ নাই কিন্তু প্রশ্ন আছে।

বীরের জাতির আজ এ কি অবস্থা? দেশের দিকে তাকান, বীর না পীর নিজে-ই বুঝতে পারবেন। বীরের জাতির পোলাপান পড়াশুনা করে একটা সনদ পত্রের জন্য। যেন দেশের বাহিরে যেতে পারে, ভালো ভবিষ্যৎ গড়তে পারে। বীরের জাতির উঠতি মেয়েরা নিজেদের সমান অধিকার দাবি করে, কিন্তু বাসে তারা দাড়িয়ে থাকতে পারবেনা পুরুষের মত, তাদের কে বসতে দিতে হবে। বীরের জাতির সরকারি অফিসার ঘুষখোর। টাকা ছাড়া কাজ হয়না। বীরের জাতির পুলিশরা নাকি জনগনের বন্ধু, আসলে এমন বন্ধু, যে বন্ধুর খপ্পরে পড়লে নিজেকে শেষ হয়ে যেতে হয়। বীরের জাতির মন্ত্রী এম পি রা নিজেদের নিয়ে বিজি, জনগনের কাজ করবে কখন?



বাঙ্গালী নাকি বীরের জাতি। কারন যুদ্ধ করে আমরা দেশ স্বাধীন করেছি। ভাষার জন্য জীবন দিয়েছি। আমাদের ইতিহাসতো বীরগাঁথা নকশীকাঁথা। কোন সন্দেহ আছে? না আমার সন্দেহ নাই কিন্তু প্রশ্ন আছে।

বীরের জাতির আজ এ কি অবস্থা? দেশের দিকে তাকান, বীর না পীর নিজে-ই বুঝতে পারবেন। বীরের জাতির পোলাপান পড়াশুনা করে একটা সনদ পত্রের জন্য। যেন দেশের বাহিরে যেতে পারে, ভালো ভবিষ্যৎ গড়তে পারে। বীরের জাতির উঠতি মেয়েরা নিজেদের সমান অধিকার দাবি করে, কিন্তু বাসে তারা দাড়িয়ে থাকতে পারবেনা পুরুষের মত, তাদের কে বসতে দিতে হবে। বীরের জাতির সরকারি অফিসার ঘুষখোর। টাকা ছাড়া কাজ হয়না। বীরের জাতির পুলিশরা নাকি জনগনের বন্ধু, আসলে এমন বন্ধু, যে বন্ধুর খপ্পরে পড়লে নিজেকে শেষ হয়ে যেতে হয়। বীরের জাতির মন্ত্রী এম পি রা নিজেদের নিয়ে বিজি, জনগনের কাজ করবে কখন? বীরের জাতির সুশীল সমাজ টক শো নিয়ে আছে, আর বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের কাণ্ডারি হয়ে আছে, তাদের এত ভাবার দরকার কি? আমার এত গুলো প্রশ্নের জবাব কি পাব??

১৪২১ শুভ নববর্ষ, ১৯৬৮ সালে ছায়ানট সর্বপ্রথম এই বাঙালি বর্ষ উদযাপন অনুষ্ঠান শুরু করে, তা মনে হয় অনেকে-ই জানে না। যাই হোক এখন জানলে। প্রশ্ন করা হলে বীরের জাতির অনেকে-ই উত্তর দিবে… এই দিনে পান্তা খাওয়া হয়।
মাত্র একদিন পান্তা খাই, দাম দিয়ে কিনে ইলিশ মাছ খাই। ১৯৬৮ -২০১৪ এত গুলো বছরে আমরা আসল পান্তা খাওয়া মানুষ গুলোর জন্য ২ বেলা ভাতের সংস্থান করতে পারিনাই, তাও আমরা বীরের জাতি?????? এটা ক্যামন বীর???

সত্যি কথা বলতে কি… ১৯৯৭ – ২০১০ পর্যন্ত আমি আর আমার বন্ধুরা পহেলা বৈশাখে যত মজা করেছি, আমার মনে হয়না বাংলাদেশের ৫% মানুষ এমন মজার স্বাদ নিতে পেরেছে, বিস্তারিত নাই বা বললাম। আমার কাছের বন্ধুরা খুব ভালো করে আমাকে চিনে। শুধু এতোটুকু বলি পহেলা বৈশাখ-এ এমন কোন মজা এখন পর্যন্ত সৃষ্টি হয়নাই, যেটার স্বাদ আমরা গ্রহন করিনাই। ২০১০-২০১৪ এই ৪ বসর, আমি বাদ দিয়েছি, কিন্তু আমার বন্ধুরা কিন্তু বাদ দেয়নি। তারা চালিয়ে যাচ্ছে। আমি ৪ বসর ধরে নববর্ষ উদযাপন করিনা, আমার কষ্ট হয়। সত্যি খুব কষ্ট হয়। আসলে এক দিনের নাটক করতে আমার মন চায় না। যখন এত মানুষ দেখি রঙ বেরঙের কাপড় পড়ে প্রেমিক, মা, বাবা, ভাই, বোন আর আত্মীয় বা বন্ধু বান্ধব দের নিয়ে খুব মজা করে ঘুরছে আর পান্তা ইলিশ খাচ্ছে। আর অন্য দিকে ৬ বসরের বস্তির মেয়েটা খাবার কুড়িয়ে খাচ্ছে, তখন নিজেকে বীরের জাতি বলতে খুব লজ্জা লাগে। না আমি কিন্তু শ্রেনি বিভাজনের বিপক্ষে না। কিন্তু নুনতম জীবনের স্বাদ গ্রহনের পক্ষপাতি। গত বসর একটা অনু কাব্য লিখেছিলাম।
“আমার বলতে লজ্জা লাগে শুভ নববর্ষ
যখন দেখি তুমি খাও… পড়ে থাকা খাবার
আর আমি খাই… পান্তা ইলিশ মৎস্য”।

আমি এমন বীরত্ব চাইনা। চাইনা এমন আধুনিকতা। আর এমন একদিনের ফাজলামি নাটকও দেখতে চাইনা। তাই গত ৪ বসর ধরে অনেকের দাওয়াত পাওয়া সত্ত্বেও রমনা বটমূলে যাই না। -আরাফাত।

২ thoughts on “বাঙ্গালী বীরের জাতি??

  1. তাই গত ৪ বসর ধরে অনেকের

    তাই গত ৪ বসর ধরে অনেকের দাওয়াত পাওয়া সত্ত্বেও রমনা বটমূলে যাই না।

    বর্জন করা বোধহয় কোন সমাধা নয়। তারচেয়ে আপনি নিজে দেখুন যে আপনি সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য কতটুকু কি করতে পেরেছেন…।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *