লিভটুগেদার বিকৃত মানসিকতার বহিঃপ্রকাশ

সময়ের তালে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশে সর্বক্ষেত্রে উন্নতির ছোঁয়া লাগতে শুরু করেছে । শিক্ষায় বিশেষ করে নারী শিক্ষায় বিশ্বের অনেক উন্নত দেশকে পেছনে ফেলেছে ৫৬ হাজার বর্গমাইলের ছোট্ট বাংলাদেশটি । কয়েক দশক আগে যে দেশটির নারীদেরকে ঘরের বাহিরে বের হতে নানা বাধার সম্মূখীন হতে হত সেই দেশটির নারীরা আজ শুধু উচ্চশিক্ষা অর্জন করে ক্ষান্ত নয় তারা বেশ সম্মানের চাকরিও করছে । কর্মস্থলে বাংলাদেশী নারীদের পদচারণা কেবল দেশের পরিমন্ডলেই সীমাবদ্ধ নেই তারা বিশ্বের বহুদেশে দেশের হয়ে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখছে । নারীর এ উন্নতির পেছনে বেগম রোকেয়া সাখাওয়াতদের মত মহীয়সী নারীদের ভূমিকা অনস্বীকার্য । দেশের মানুষদের পূর্ব সংস্কার ভেঙ্গে সকলেই বুঝতে শিখেছে একজন শিক্ষিত মা একটা শিক্ষিত জাতি দিতে পারে । নারী শিক্ষার হার বৃদ্ধির পাওয়ার কারনে দেশে শিক্ষিতের হার প্রায় শতভাগ নিশ্চিত হওয়ার দ্বারপ্রান্তে । বাংলাদেশের মত একটি তৃতীয় বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশে সরকারের আন্তরিকতায় পুরুষদের চেয়ে নারী শিক্ষার হার কয়েক শতাংশ বেশি । নারীদের ডিগ্রি পর্যন্ত শিক্ষা অর্জনে সুযোগ প্রদানের লক্ষ্যে সরকার তাদের শিক্ষাকে অবৈতনিক ঘোষণা করেছে । সরকার প্রদত্ত সুযোগকে কাজে লাগিয়ে দেশের অশিক্ষিত, অল্পশিক্ষিত অভিভাবকরা তাদের কন্যা সন্তানদেরকে উচ্চশিক্ষা প্রদানের সাহস পাচ্ছে । নারী শিক্ষা উন্নয়নের কারনে দেশের অনেক সমস্যাও বিলুুপ্তির পথে । যার মধ্যে বাল্যবিবাহ বন্ধ, বিবাহে যৌতুক ব্যবস্থার প্রতি ঘৃণা এবং দেশের জনসংখ্যা অতিরিক্ত বৃদ্ধির হার ক্রমশই কমে আসছে ।

কোন বস্তুর সূফলের অন্তরালে তার একটি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া থাকে । অর্জন বা প্রাপ্তির তুলনায় সে পার্শ¦ প্রতিক্রিয়ার মাত্রা কম হয় না। বাংলাদেশে সরকার প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাকে মানুষের দোড় গোঁড়ায় পৌঁছে দিতে পারলেও উচ্চ শিক্ষা অর্জন করতে হলে শিক্ষার্থীদেরকে ছুটতে হয় শহর পানে । নিজের পরিচিত শহর ছেড়ে একটি অপরিচিত শহরের ভিন্ন পরিবেশে একজন পুরুষ শিক্ষার্থীর জন্য অনুকূলের হলেও নারী শিক্ষার্থীদের পোহাতে হয় অনেক ঝক্কি-ঝামেলা । সকল সমস্যার মোকাবেলা করে একজন শিক্ষার্থী খুব দ্রুতই নতুন পরিবেশের সাথে নিজেকে মানিয়ে নিয়ে অভ্যস্থ হয়ে পড়ে তার আসল উদ্দেশ্য সাধনে । চলার পথে জীবনের অভিজ্ঞতায় যোগ হয় অনেক কিছু । বন্ধুত্ব হতে থাকে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত শিক্ষার্থী কিংবা অন্যান্য মানুষের সাথে । কেউবা ছেলে বন্ধু আবার কেউবা মেয়ে । বন্ধুত্ব গড়িয়ে আস্তে আস্তে রূপ নেয় প্রেমে । শিক্ষার্থীরা একেবারে অভিভাবক শূন্য অবস্থায় থাকার কারনে কেউ তাদেরকে ভাল মন্দের পার্থক্য বুঝিয়ে দেয়ার থাকে না । যে অভিভাবকদের কঠোর নির্দেশনায় জীবনের দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হয়েছে তাদের অনুশাসনের বাইরে এসে শিক্ষার্থীরা স্বাধীনতার চুড়ান্ত স্বাদ ভোগ করতে গিয়ে মাঝে মাঝে জড়িয়ে পড়ে অনৈতিক সম্পর্কে । আবেগকে প্রশমন করতে না পেরে বয়সের গতি অনেককেই এমন মোহে মোহিত করে যা থেকে ফিরে আসা অনেকটাই অসম্ভব । বন্ধুত্বের উচ্ছ্বাস এবং বিদেশী অপসংস্কৃতির প্রভাবে বাংলাদেশের ছেলেমেয়ার জড়িয়ে পরে বিবাহপূর্ব অনৈতিক শারীরীক সম্পর্কে । এ সম্পর্ককে ধারাবাহিক করার জন্য ছেলে মেয়েরা জড়িয়ে পরে লিভটুগেদারে । যা একদিকে যেমন মানসিক বিকারের বহিঃপ্রকাশ তেমনি পারিবারিক ব্যবস্থায় ভাঙন সৃষ্টির একটি অন্যতম কারন । বাবা-মা সন্তানের প্রতি পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস রেখে, তাদেরকে নিজেদের কাছ থেকে দূরে রেখে, মাথার ঘাম পায়ে ফেলে টাকা রোজগার করে নিজেরা ঠিক মত না খেয়ে সন্তানের লেখা-পড়ার নিশ্চিত করার জন্য টাকা পাঠায়, যাতে সন্তানের কোন কষ্ট না হয় । অভিভাবকের দেয়া সে টাকা আসল উদ্দেশ্যে ব্যয় না করে যখন কোন অনৈতিক সম্পর্ক ধারাবাহিক করার কাজে ব্যয় করা হয় তখন সেটা জাতির ভবিষ্যত কর্ণধারদের জন্য কতটা নীতির এবং বাবা-মায়ের ঋণের দায় শোধ করার জন্য কতটা সহায়ক তা কোন অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের ভাবার অবকাশ থাকে না । বাবা-মা যখন তার সন্তানের উচ্চ শিক্ষা নিয়ে কোন প্রতিবেশীর সাথে গর্ব ভরে গল্প করেন তখন তার সন্তান যৌবনকে উপভোগ করার জন্য কোন এক ফ্লাটে কিংবা পার্কের নির্জনে কাটায় । এর পরিনতি কোন কালেই ভাল হবে না হবার নয় । অতি সম্প্রতি এমনি এক লিভটুগেদারের কারনে বলি হতে হয়েছে একজন মেডিকেল ছাত্রীকে । বাবা-মা স্বপ্ন বুনেছিল তার মেয়ে ডাক্তার হয়ে যেমনি তাদের পরিবারকে স্বচ্ছল করবে তেমনি গরীব দুস্থদের সেবা করে বিনা চিকিৎসায় মরতে দেবে না । অন্যদিকে তাদের মেয়ে তখন তার ছেলে বন্ধুকে নিয়ে স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে বাড়া বাসায় দৈহিক কামনা নেভানোয় ব্যস্ত । কথিত স্বামীর সাথে ঝগড়া-ঝাটির এক পর্যায় খুন হল মেয়েটি । কিছু কিছু মৃত্যু আছে যা তেমনি দহন করে না কিন্তু মেডিকেল ছাত্রীটির এ মৃত্যু তার বাবা-মায়ের কপালেও কলঙ্কের তিল অঙ্কন করে দিয়ে গেল ।

মানুষের জন্য শ্রেষ্ট ও পূর্ণ জীবনব্যবস্থা ইসলামসহ প্রতিটি ধর্মেই বিবাহের প্রতি গুরুত্বারোপ করেই কেবল ক্ষান্ত হয় নি বরং বিবাহ পূর্ববর্তী শারীরীক সম্পর্কের প্রতি দিয়েছে কঠোর নিষেধ । বিবাহ কেবল একটি মেয়ে আর একটি ছেলের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন নয় । বিবাহের মাধ্যমে দুটি পরিবারের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপিত হয় । বিয়ের উদ্দেশ্য কেবল মানুষের জৈবিক চাহিদা পূরণও নয় বিবাহের মাধ্যমে সন্তান উৎপাদন হয় সর্বোাপরি মায়ার বন্ধন সৃষ্টি হয় । বিবাহ সামাজিক বিশৃঙ্খলা রোধ করে সমাজে শান্তির ফল্গুধারা বর্ষিত করে । ধীরে ধীরে সমাজ ব্যবস্থাকে ঘুনে ধরতে শুরু করছে । বিদেশী পচনশীল সংস্কৃতি আমাদেরকে কুঁড়ে কুঁড়ে খেতে শুরু করেছে । দেশে চালু হয়েছে বিবাহোত্তর শারীরীক সম্পর্ক স্থাপন ক্রিয়া । যা শুধু অনৈতিকই নয় বরং সমাজের জন্য ধ্বংসাত্মক । দেশের কয়েকটি গণমাধ্যম ইতোমধ্যে প্রকাশ করেছে রাজধানী ঢাকাসহ প্রতিটি বিভাগীয় এমনকি মফস্বল শহরেও চালু হয়েছে লিভটুগেদার । হাজার হাজার তরুন তরুনী কোথাও স্বামী-স্ত্রীর পরিচয়ে আবার কোথাও অন্য কোন সম্পর্কের পরিচয় মেতে উঠেছে যৌবনের লীলা-খেলায় । এরকম চলতে থাকলে অচিরেই দেশের সামাজিক বন্ধন ছিন্ন হয়ে পারিবারিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পরবে । পশ্চিমা বিশ্বের মত অশান্তির দাবানলে প্রতিমূহুর্তে ছাড়খাড় হবে ছোট্ট শান্তির দেশটি । বিবাহপূর্ববর্তী লিভটুগেদার এবং শারীরীর সম্পর্ক বন্ধে সকলকে ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলতে হবে । এর কুফল সম্পর্কে সকলকে সচেতন হতে হবে । সরকারকে কঠোর নীতিমালা প্রণয়েন মাধ্যমে এ ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধে যথেষ্ট আন্তরিকতার পরিচয় দিতে হবে । কোন অবস্থাতে যদি এ অনৈতিক কর্মকান্ড বিজয়ী হয় তবে দেশের চরম পরিনতি কেউ রুদ্ধ করতে পারবে না । কাজেই শিক্ষিতরা যদি শিক্ষিতের মত কাজ না করে তবে দেশের আগামী জাহেলি যুগের চেয়েও বর্বর হবে । নারীদের অবস্থা আবারও ২০০০ বছরের পূর্বের অবস্থায় ফিরে যাবে । নারীরা ভোগ্য পণ্য ব্যতিরেকে আর কোনভাবেই মূল্যায়িত হবে না । সুতরাং দেশের সকলের স্বার্থে সবাইকে এ কু-কাজ থেকে বিরত রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার এখনই সময় । কোন অপশক্তি যদি মূলে বিনাশ না করা যায় তবে পরে সেটা ধ্বংস করা অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায় । এটা যত দ্রুত বুঝতে পারা যাবে জাতির জন্য ততোটা মঙ্গলের হবে ।

রাজু আহমেদ । কলাম লেখক ।

১৫ thoughts on “লিভটুগেদার বিকৃত মানসিকতার বহিঃপ্রকাশ

  1. বিয়ে করার মধ্যে, ভালোবাসার
    বিয়ে করার মধ্যে, ভালোবাসার মানুষকে ‘বউ’ বলে দাকার যে সুখ, সেটা কি এই লিভ টুগেদার করনেওয়ালারা কখনো বুঝবে?

  2. প্রথমত, আপনি দুজন মানুষের
    প্রথমত, আপনি দুজন মানুষের ভালোবাসাকে “যৌবনকে উপভোগ করা ” বলে কটাক্ষ করেছেন। লিভ টুগেদার হোক আর বিয়ে হোক অথবা স্রেফ ভালো লাগা হোক, দুজন মানুষের ভালোবাসাকে এভাবে কটাক্ষ করার কোনো অধিকার আপনার নাই।

    আপনি নীতি নৈতিকতার মানদন্ড নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারেন না। এটা প্রত্যেকের ব্যক্তিগত ইচ্ছা আকাঙ্খার বহিঃপ্রকাশ। আপনার তথাকথিত ধর্মীয় সামাজিক কিংবা অসামাজিক নিয়মনীতি কখোনোই মানুষের সুস্থ স্বাভাবিক মৌলিক প্রয়োজনকে বাধা দেয়ার ক্ষমতা রাখে না।

    অবশ্য ইসলাম নামক যে অদ্ভুত জীবনব্যবস্থার কথা আপনি টেনেছেন, তাতে নারীকে কতটা মানুষ গণ্য করা হয় তাও প্রশ্ন

      1. সমকামিতা, উভয়গামীতা যেটাই
        সমকামিতা, উভয়গামীতা যেটাই হোক, সেটা কি মানুষের ব্যক্তিগত পছন্দের অন্তর্ভুক্ত নয়? আপনার কোন অধিকার আছে অন্য একজনের ব্যক্তি স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করার? জানতে পারি কি?

        1. ঢিল টা মনে হয় ঠিক জায়গাতেই
          ঢিল টা মনে হয় ঠিক জায়গাতেই দিয়েছি…।

          সমস্যা নেই আমার। খালি বাংলাদেশের সমকামী আর উভয়কামী মানুষজনের কাছে খালি তাদের এক নম্বর প্রতিপক্ষে পরিণত হইছি আর কি…?

          :কানতেছি: :কানতেছি: :কানতেছি: :কানতেছি: :কানতেছি:

          1. যদি সমস্যা নাই থাকে তবে লিভ
            যদি সমস্যা নাই থাকে তবে লিভ টুগেদার অথবায়া সমকামিতাকে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা অসুস্থতা বলার পেছনে যৌক্তিকতা কি?

          2. যদি সমস্যা নাই থাকে তবে লিভ
            যদি সমস্যা নাই থাকে তবে লিভ টুগেদার অথবায়া সমকামিতাকে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা অসুস্থতা বলার পেছনে যৌক্তিকতা কি?

          3. ভাই, সমকামী বা উভয়কামী
            ভাই, সমকামী বা উভয়কামী মানুষদের সাথে যথেষ্ট মেশার ও জানার সুজোগ হয়েছে আমার। তাদের লাইফস্টাইল, চিন্তাধারা সম্পর্কে আমি জানি।

            কিছু মানুষ আছে, যারা চাইলেই সমকামীতা থেকে বের হতে পারবেনা। তারা স্বভাবতই নিজ লিঙ্গের মানুষের প্রতিই দুর্বল। তাদের এই ব্যাপারটা কোন অপরাধ নয়।

            কিন্তু, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সমকামিতা একটা perversion আর অসুস্থতায় পরিণত হয়েছে।

            সমকামিতাকে একটা পর্যায় পর্যন্ত মেনে নেয়া যায়। কিন্তু, উভয়কামিতা আবার কেন? সো, অনেক প্রবলেম আছে ব্যাপারটায়…। আপনি নিজেই আগে ব্যাপারগুলো ভালো করে জানেন এবং বুঝেন।

            আর, লিভ টুগেদার কোন অপরাধ নয়। তবে, বিয়ে তার থেকে অনেক ভাল একটা জিনিস। তাই ভাল জিনিসটাকেই কি গ্রহণ করা উচিত নয়?

          4. সমকামিতাকে একটা পর্যায়
            সমকামিতাকে একটা পর্যায় পর্যন্ত মেনে নেয়া যায়। কিন্তু, উভয়কামিতা আবার কেন?

            মেনে নেয়া না নেয়ার অথরিটি আপনারে কে দিছে ভাই? উভয়গামীতা কেনো সে প্রশ্ন করাটাও আপনার অনধিকার চর্চা।

            আর, লিভ টুগেদার কোন অপরাধ নয়। তবে, বিয়ে তার থেকে অনেক ভাল একটা জিনিস। তাই ভাল জিনিসটাকেই কি গ্রহণ করা উচিত নয়?

            ভালো মন্দ কোন পাল্লায় মাপছেন আপনি? অদ্ভুত তো :মানেকি:

          5. আইছে ত্যানা পেছাইন্নাওয়ালা।
            আইছে ত্যানা পেছাইন্নাওয়ালা। :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ:

            আগে এসব কিছু নিয়ে একটু ভালোভাবে জ্ঞান আর অভিজ্ঞতা অর্জন করেন তো ভাই।

          6. আপনার অভিজ্ঞতা আর জ্ঞানের
            আপনার অভিজ্ঞতা আর জ্ঞানের নিকুচি করি। যা প্রশ্ন করছি তার জবাব দিন।
            ব্যক্তিগত আক্রমণ থেকে সাবধান থাকবেন।

          7. ভাই, রাগ কইরেন না।
            আপনি যদি

            ভাই, রাগ কইরেন না।

            আপনি যদি সত্যিকার সত্যান্বেষী আর অনুসন্ধিৎসু মনের অধিকারি হন, তাহলে আপনি নিজেই এই প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন।

            আপনার জন্য শুভকামনা থাকলো।

            :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ:

  3. যে ধর্ম শিশুকামিতাকে প্রশ্রয়
    যে ধর্ম শিশুকামিতাকে প্রশ্রয় দেয় তাকে আপনি বলেছেন ‘শ্রেষ্ঠ ও পূর্ণ জীবনব্যবস্থা’? হাহ!! যে ধর্ম যুদ্ধে বন্দি নারীদের ধর্ষণকে অপরাধ বলে মনে করে না, আপনি তার আলোকে মানুষের ব্যক্তিগত ভালোলাগাকে বিচার করছেন? আপনার মানসিক সৌন্দর্য কিরূপ তা ব্যাখ্যা করা নিষ্প্রয়োজন।

  4. যে ধর্ম শিশুকামিতাকে প্রশ্রয়

    যে ধর্ম শিশুকামিতাকে প্রশ্রয় দেয় তাকে আপনি বলেছেন ‘শ্রেষ্ঠ ও পূর্ণ জীবনব্যবস্থা’? হাহ!! যে ধর্ম যুদ্ধে বন্দি নারীদের ধর্ষণকে অপরাধ বলে মনে করে না, আপনি তার আলোকে মানুষের ব্যক্তিগত ভালোলাগাকে বিচার করছেন?

    আপনার ধর্মীয় জ্ঞানের দৌড় কতদুর সেটা কিন্তু বলেন নি।
    কোনদিন কি কোরান হাদিস খুলে দেখেছেন যে তাতে কি লেখা আছে?
    নাকি দু চার পাতা বলগ পড়ে বক্তা হয়েছেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *