হেফাজত কি লাইনে আসছে ?

গত ১১ এপ্রিল, ২০১৪ শুক্রবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম নগরের লালদীঘি ময়দানে হেফাজতে ইসলাম আয়োজিত দুই দিনব্যাপী শানে রিসালত সম্মেলনের উদ্বোধনী দিনের দ্বিতীয় অধিবেশনে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির শাহ আহমদ শফি বক্তব্য রাখেন |

আহমদ শফী বলেছেন, ‘হাসিনা সরকার, আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ সবাই আমাদের বন্ধু। এদের সঙ্গে কোনো আদাবত (শত্রুতা) নাই। কেউ যদি বলে, হাসিনা সরকার, ছাত্রলীগ আমাদের দুশমন, এটা বুঝাটা ভুল হবে। এদের কাউকে কোনো দিন আমি গালি দেই নাই।’
শফী বলেন, ‘আমরা ভালো হলে সরকার ভালো হবে। আমরা যদি খারাপ হই, সরকার খারাপ হবে। আমাদের ওপর জুলুম অত্যাচার চালাবে।’


গত ১১ এপ্রিল, ২০১৪ শুক্রবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম নগরের লালদীঘি ময়দানে হেফাজতে ইসলাম আয়োজিত দুই দিনব্যাপী শানে রিসালত সম্মেলনের উদ্বোধনী দিনের দ্বিতীয় অধিবেশনে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির শাহ আহমদ শফি বক্তব্য রাখেন |

আহমদ শফী বলেছেন, ‘হাসিনা সরকার, আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ সবাই আমাদের বন্ধু। এদের সঙ্গে কোনো আদাবত (শত্রুতা) নাই। কেউ যদি বলে, হাসিনা সরকার, ছাত্রলীগ আমাদের দুশমন, এটা বুঝাটা ভুল হবে। এদের কাউকে কোনো দিন আমি গালি দেই নাই।’
শফী বলেন, ‘আমরা ভালো হলে সরকার ভালো হবে। আমরা যদি খারাপ হই, সরকার খারাপ হবে। আমাদের ওপর জুলুম অত্যাচার চালাবে।’

তিনি সম্মেলনে আসা নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে আরও বলেন, ‘আসুন আমরা আল্লাহর দরবারে তওবা করি। আমরা খারাপ হয়ে গেছি। না হয়তো আমাদের এ দেশ সোনার বাংলা হবে না কেন। আমরা আল্লাহর দরবারে দোয়া প্রার্থনা করি, বাংলাদেশকে যেন সোনার বাংলা বানাতে পারি। যেসব ব্যবসায়ী ব্যবসা চালাতে পারছে না, তাদের জন্য তিনি দোয়া করেন। যে সব গার্মেন্টস বন্ধ হয়ে গেছে সেগুলো যাতে আবার চালু হয়, রাস্তাঘাট ভালো হয় সে জন্য দোয়া করেন।’

হেফাজতে ইসলামের প্রধান আল্লামা আহমেদ শফির উক্ত বক্তব্যের সাথে গত বছরের এপ্রিল/মে মাসে তার দেওয়া বক্তব্যগুলোর মধ্যে বিস্তর পার্থক্য পরিলক্ষিত হচ্ছে | প্রশ্ন হল গত একবছরে কি এমন পরিবর্তন হইলো যে আল্লামা শফির মত ধর্মান্ধের কাছে আওয়ামী লিগ/হাসিনা সরকারকে বন্ধু মনে হচ্ছে ?? কিংবা, কিভাবে আওয়ামী লিগ/হাসিনা সরকার গত একবছরে আল্লামা শফির কাছে নাস্তিক দল হতে আস্তিকদের দলে রুপান্তরিত হইলো ?? 😕

এই প্রশ্নের উত্তর তিন ধরনের হতে পারে|

এক: আওয়ামী লিগ হেফাজতে ইসলামকে টাকা দিয়ে কিনে ফেলেছে !! ( এক্ষেত্রে প্রশ্ন আসবে আল্লামা শফি গতবছর শাপলা চত্বরে যে সমাবেশ করেছিলেন তা তিনি কাদের প্ররোচনায় ও কি উদ্দেশ্যে করেছিলেন?? )

দুই: হেফাজত এদেশের সেক্যুলার শক্তির সামর্থ্য সম্পর্কে ভালো ধারণা পেয়েছে এবং তাই তারা নিজেদের শুধরে নিয়ে ওয়াহাবী ভাবধারার মোল্লাতন্ত্রকে মধ্যম আঙ্গুল দেখাচ্ছে !!! (তাহলে কি বলা যায় এদেশে মোল্লাতন্ত্র/ধর্মীয় রাজনীতির দিন ফুরিয়ে আসছে ? )

তিন: শফির ঐ বক্তব্যের পিছনে তাহলে কি সশস্ত্র মৌলবাদীদের কোনো বিধ্বংসী চাল আছে ??? :-O

১৪ thoughts on “হেফাজত কি লাইনে আসছে ?

  1. হেফাজত লাইনে আসবে এটা বিশ্বাস
    হেফাজত লাইনে আসবে এটা বিশ্বাস করা বোকামী। এ প্রসঙ্গে হুমায়ুন আজাদ’র একটি প্যারা কোড করলামঃ

    বাঙলাদেশে লোক দেখানো ধর্মচর্চার অসুস্থ জোয়ারের কাল চলছে এখন । সংবিধানে ধর্মের শ্লোক অন্তর্ভুক্ত হয়েছে, ইসলাম ঘোষিত হয়েছে রাষ্ট্রধর্মরূপে । টেলিভিশনে আজান বাজে; রাষ্ট্রের ব্যবস্থাপকেরা সেতু, সড়ক, সিনেমা হল,কারখানা উদ্বোধনের সময় হাত তুলে মোনাজাত করেন, যদিও টেলিভিশনে তাঁদের ঠোঁটের আকৃতি দেখে বোঝা যায় তাঁরা মনে মনে কোনো মোনাজাতই করছেন না, বা করে চলছেন একান্ত ব্যক্তিগত মোনাজাত । পীরেরা প্রবল হয়ে উঠেছে দিকে দিকে, নতুন নতুন পীরের প্রাদুর্ভাব ঘটছে, ভক্তের সংখ্যা ও টুপির উৎপাদন বাড়ছে, এবং কারো কারো মাথায় বিস্ময়কর ঘোমটা উঠছে । নতুন শিল্পসুন্দর মসজিদ উঠছে, জীর্ণ মসজিদগুলো অভিনব রূপ পাচ্ছে । শাসক সম্প্রদায় ক্লান্তিহীনভাবে ইসলামের বাণী আবৃত্তি করছেন, ওই বাণী পুনরাবৃত্তি করতে করতে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত প্রাসাদ থেকে বস্তি পর্যন্ত ছোটাছুটি করছেন। ইসলামের এমন ব্যাপক সম্প্রচারে সুখ ও উল্লাস বোধ করা যেতো যদি যাঁরা এখন ইসলামের একান্ত সেবক হিশেবে দেখা দিয়েছেন, তাঁরা হতেন ধার্মিক, সৎ ও বৈধ। আমাদের শাসকমন্ডলি বৈধ নন; তাই অবৈধ গোষ্ঠির পক্ষে ধর্মের কথা বলা অশালীন অবৈধতা । জনগণ যাঁদের সৎ ও ধার্মিক ব’লে জানে না, যাঁদের ক্ষমতা অধিকারের পদ্ধতি ইসলামবিরোধী, তারা কি তার ভার নিতে পারেন? তাঁরা ভার নিতে পারেন ইসলামের? তাঁরা যে-ইসলামের কথা বলেন, তা কোন ইসলাম? তাঁরা কেনো বলেন ইসলামের কথা? এটা কি ধর্মের প্রতি গভীর অনুরাগ, নাকি এর পেছনে রয়েছে দুরভিসন্ধি? আমাদের শাসকসম্প্রদায় অবৈধ শোষকমাত্র; ইসলামকে ব্যবহার করেন তাঁরা নিজেদের বৈধ ক’রে তোলার জন্যে, নিরুপায় গরিব সাধারণ মানুষের ওপর শোষণ চালানোর জন্যে । তাঁদের ইসলাম মৌখিক ও আনুষ্ঠানিক ইসলাম, তা সত্য ইসলাম নয়।

    – হুমায়ুন আজাদ
    শোষকের ধর্ম / রাজনৈতিক প্রবন্ধসমগ্র

    1. হেফাজতের পল্টি দেখে বুঝছি
      :থাম্বসআপ:
      হেফাজতের পল্টি দেখে বুঝছি ধর্মান্ধদের লাইনে নিয়ে আসা সম্ভব !! কিন্তু এদের সম্পূর্ণভাবে সরকারের নিয়ন্ত্রণে আনতে কিছুটা সময় হয়ত লাগবে … রাজনীতি থেকে ধর্মকে দূরে সরিয়ে ব্যক্তিগত পর্যায়ে নিয়ে যাওয়াই এখন রাষ্ট্রের মূল দায়িত্ব হওয়া উচিৎ | :কেউরেকইসনা:

  2. চিন্তার বিষয়। সম্ভবত মাদ্রাসা
    চিন্তার বিষয়। সম্ভবত মাদ্রাসা শিক্ষা ব্যবস্থার পরিবর্তন কিংবা মদিনা সনদে রাষ্ট্র গঠনের অঙ্গীকার এর কারনও হতে পারে।

    1. ধর্মান্ধদের সম্পূর্ণভাবে
      ধর্মান্ধদের সম্পূর্ণভাবে সরকারের নিয়ন্ত্রণে আনতে কিছুটা সময় লাগবে … :কথাইবলমুনা:

    1. @শেহজাদ আমান,
      আওয়ামী লীগ

      @শেহজাদ আমান,
      আওয়ামী লীগ নামের পাশে “ফ্যাসিস্ট” শব্দটি দেখে অবাক হলাম …. :-O

      ইসলামিস্ট বিএনপি প্রতি আপনার পরামর্শ কি হবে তা কিন্তু জানা গেল না !? :কনফিউজড:

  3. হেফাজত কোনদিনও লাইনে আসবে না
    হেফাজত কোনদিনও লাইনে আসবে না ।লীগের প্যাদানি আর মুড়ি-মুড়কি খেয়ে এখন যা বলছে তা স্রেফ ভন্ডামি আর ভাওতাবাজি ।

    1. হেফাজত কোনদিনও লাইনে আসবে না

      হেফাজত কোনদিনও লাইনে আসবে না ।

      সব রাজনৈতিক দলই যদি এদের প্যাদানির উপর রাখে তাহলে এরাও লাইনে আসতে বাধ্য হবে !! 😕
      ধর্মান্ধদের সাথে লড়তে হলে অনেক বিষয় মাথায় রেখে লড়তে হবে |

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *