চৈত্র সংক্রান্তি…

বাংলা পঞ্জিকা অনুযায়ী বসন্তের শেষ মাস চৈত্র । চৈত্র মাসের শেষ দিন কে অভিহত করা হয়েছে চৈত্র সংক্রান্তি নামে । বাংলা বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী বছরের প্রথম পাঁচ মাস (বৈশাখ থেকে -ভাদ্র) পর্যন্ত গণনা করা হয় ৩১ দিনে।বাকী ৭ মাস গণণা করা হয় ৩০ দিনে ।সে হিসাবে ৩০ শে চৈত্র কে ধরা হয় চৈত্র সংক্রান্তি ।

বাংলা সনের শেষ মাসের নাম করণ করা হয়েছে চৈত্র মাস ।চৈত্র মাসের নাম চৈত্র কি ভাবে আসল । আধি পুরাণে বর্ণিত আছে যে রাজা দক্ষের এক কণ্যা ছিল চিত্রা । চিত্রার নামানুসারে এক নক্ষত্র র নাম করা হয় চিত্রা নক্ষত্র এবং চিত্রা নক্ষত্র থেকে চৈত্র মাসের নামকরণ করা হয় । রাজার আরেক কণ্যা ছিল বিশাখা । বিশাখার নামানুসারে বিশাখা নক্ষত্র এবং বিশাখা নক্ষত্র থেকে বৈশাখ মাসের নামকরণ করা হয় ।



বাংলা পঞ্জিকা অনুযায়ী বসন্তের শেষ মাস চৈত্র । চৈত্র মাসের শেষ দিন কে অভিহত করা হয়েছে চৈত্র সংক্রান্তি নামে । বাংলা বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী বছরের প্রথম পাঁচ মাস (বৈশাখ থেকে -ভাদ্র) পর্যন্ত গণনা করা হয় ৩১ দিনে।বাকী ৭ মাস গণণা করা হয় ৩০ দিনে ।সে হিসাবে ৩০ শে চৈত্র কে ধরা হয় চৈত্র সংক্রান্তি ।

বাংলা সনের শেষ মাসের নাম করণ করা হয়েছে চৈত্র মাস ।চৈত্র মাসের নাম চৈত্র কি ভাবে আসল । আধি পুরাণে বর্ণিত আছে যে রাজা দক্ষের এক কণ্যা ছিল চিত্রা । চিত্রার নামানুসারে এক নক্ষত্র র নাম করা হয় চিত্রা নক্ষত্র এবং চিত্রা নক্ষত্র থেকে চৈত্র মাসের নামকরণ করা হয় । রাজার আরেক কণ্যা ছিল বিশাখা । বিশাখার নামানুসারে বিশাখা নক্ষত্র এবং বিশাখা নক্ষত্র থেকে বৈশাখ মাসের নামকরণ করা হয় ।

….সংক্রান্তি । সংক্রান্তি কথাটির অর্থ হল অতিত্রম করা । সূর্য যখন এক রাশি থেকে অন্য রাশিতে প্রবেশ করে তখন তাকে বলা হয় সংক্রান্তি । মাসের শেষ দিনটিকে বলা হয় সংক্রান্তি । যেমন পৌষ মাসের শেষ দিনটিকে বলা হয় পৌষ সংক্রান্তি তেমনি চৈত্র মাসের শেষ দিনটিকে বলা হয় চৈত্র সংক্রান্তি নামে ।

চৈত্র সংক্রান্তি । বাংলা সনের শেষ দিন । শেষ দিন ঋতুরাজ বসন্তের ও ।৩০ শে চৈত্র রবিবার মহাকালের বুকে ঠাই নিবে ১৪২০ বঙ্গাব্দ ।বৈশাখী উৎসবে নিজেকে রঙ্গিয়ে নিবে বাঙ্গালি জাতি ।চৈত্র মাসের শেষ দিনটিতে ফেলা আসা বছরের হিসাবের খাতাকে লোকাচার-পার্বণে বিদায় জানানো হবে ।নতুন করে উদ্যোম ও মঙ্গল প্রত্যাশায় নতুন বছর কে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত হবে বাঙ্গালী। চৈত্র সংক্রান্তি বিশেষ লোক উৎসব । চৈত্র সংক্রান্তি প্রধানত হিন্দু সম্প্রাদায়ের উৎসব হলে ও অসাম্প্রদায়িক বাঙ্গালির কাছে এক বৃহত্তর লোক উৎসবে পরিণত হয়েছে ক্রমে ক্রমে ।চৈত্র সংক্রান্তি এখন কেবল কোন ধর্ম বা মতের মধ্যে আবদ্ধ নেয় তা রুপ নিয়েছে এক সর্বজনীন বর্ণিল উৎসবে । চৈত্র সংক্রান্তির আসল আর্কষন থাকে চড়ক পূজা । এই চড়ক পুজাকে কেন্দ্র করে দেশের আনেক জায়গায় বসে মেলা ।বাংলা সনের শেষ দিনটি কে বিদায় জানানোর জন্য যেমন প্রস্তুত হবে বাঙ্গালী তার ই সাথে সাথে প্রস্তুত হবে আরেক টি নতুন বছর কে স্বাগত জানাতে ।সে সঙ্গে থাতা খোলে কষতে বসবে বিগত বছরের সাফল্য ব্যার্থতা পাওয়া না পাওয়ার হিসাব । সূর্যাস্তের সাথে সাথে নানান আচার অনুষ্ঠানে যেমন বিদায় জানানো হবে চৈত্র কে তেমনি প্রস্তুতি নিবে চৈত্র এর শেষ রাতের প্রহরে সূর্য উদয়ের সঙ্গে সঙ্গে বৈশাখ কে বরণ করে নিতে । রবীন্দ্র নাথ ঠাকুরের ভাষায় যদি বলি

নিশি আবসান প্রায়ই ঐ…
পুরাতন বৎসর হয় গত,
আমি আজ ধুলি তলে জীর্ণ জীবন করিলাম নথ
বন্ধু হও শত্রু হও, যেখানে যে কেউ রও
ক্ষমা কর আজিকার মতন
পুরাতন বৎসরের সাথে পুরাতন অপরাধ যত…

৩ thoughts on “চৈত্র সংক্রান্তি…

  1. বসন্তের শেষ মাস চৈত্র
    বসন্তের শেষ মাস চৈত্র মানে!!!

    বসন্তের মাঝে আরো কয়েকটি মাস আছে তাতো জানতাম না।

    কি সব ইতিহাস লেখেন কে জানে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *