ইবলিশ আর দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর কথোপকথন :

একদিন দেলোয়ার হোসেইন সাঈদী বিদেশের এক রেস্টুরেন্টে বসে খাচ্ছে এসময় সে দেখে ইবলিশ শয়তান তারপাশ থেকে চলে যাচ্ছে তখন সে ইবলিশকে ডাক দিয়ে কুশলাদি জিজ্ঞেস করে বলল ইবলিশ তোমাকে তো ইদানিং বাংলাদেশে দেখায় যায় না কারণ কি?
তখন ইবলিশ বলল হুজুর আমি বাংলাদেশে গিয়ে কি করবো ওখানে তো আপনিই আছেন। আমি তো এক এক করে মানুষকে ধোকা দেই আর আপনি তো ষোল কোটি মানুষকে একসঙ্গে ধোকা দেন ওখানে তো আপনি মানুষকে ঠকাচ্ছেন আমি আর গিয়ে কি করবো তার থেকে এদেশের মানুষকে দেখি ধোকা দেওয়া যায় কিনা। কিন্তু এরা বাঙ্গালীদের মত বোকা না সহজে ধোকা দেওয়া যায় না। আপনি একটু চেষ্টা করে দেখলে হয়তো হইতো।

একদিন দেলোয়ার হোসেইন সাঈদী বিদেশের এক রেস্টুরেন্টে বসে খাচ্ছে এসময় সে দেখে ইবলিশ শয়তান তারপাশ থেকে চলে যাচ্ছে তখন সে ইবলিশকে ডাক দিয়ে কুশলাদি জিজ্ঞেস করে বলল ইবলিশ তোমাকে তো ইদানিং বাংলাদেশে দেখায় যায় না কারণ কি?
তখন ইবলিশ বলল হুজুর আমি বাংলাদেশে গিয়ে কি করবো ওখানে তো আপনিই আছেন। আমি তো এক এক করে মানুষকে ধোকা দেই আর আপনি তো ষোল কোটি মানুষকে একসঙ্গে ধোকা দেন ওখানে তো আপনি মানুষকে ঠকাচ্ছেন আমি আর গিয়ে কি করবো তার থেকে এদেশের মানুষকে দেখি ধোকা দেওয়া যায় কিনা। কিন্তু এরা বাঙ্গালীদের মত বোকা না সহজে ধোকা দেওয়া যায় না। আপনি একটু চেষ্টা করে দেখলে হয়তো হইতো।
তখন দেলোয়ার বলল হ্যাঁ এদেশেই settle হতে হবে শেখের বেটি সেই পুরানো আমলের অকামের ফিরিস্তি টাইনে আনছে। আবার কবে ফাসিতে না চড়া লাগে।
ইবলিশ বলল হ্যাঁ সত্যি কথায় কইছেন এই শেখের বেটির জন্য কোন শয়তানের শয়তানি করতে পারতিছে না। আমার দুইটা শিষ্য তারেক কোকোরেও বিদেশে পাঠায় দিয়ে আমার মাঝা ভাইঙ্গে দিছে। এখন আর আমার ওদেশে কোন কাজ নাই।

৫ thoughts on “ইবলিশ আর দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর কথোপকথন :

Leave a Reply to শাহরুখ পারভেজ সৌরভ Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *