পরিচয়, তোমার আমার প্রার্থক্য

আমার পরিচয়, সর্বপ্রথমে আমি মানুষ, তারপর একজন বাঙালী। আমার দেশটা যত গরীব দুর্গন্ধময়ই হউক না কেন, এই দেশটাকে নিয়ে আমার গর্বের সীমা নেই। যে কোনো অবস্থাতেই, যে কোনো স্থান থেকেই আমি বুক ফুলিয়ে বলতে পারি, আমি বাংলাদেশী।


আমার পরিচয়, সর্বপ্রথমে আমি মানুষ, তারপর একজন বাঙালী। আমার দেশটা যত গরীব দুর্গন্ধময়ই হউক না কেন, এই দেশটাকে নিয়ে আমার গর্বের সীমা নেই। যে কোনো অবস্থাতেই, যে কোনো স্থান থেকেই আমি বুক ফুলিয়ে বলতে পারি, আমি বাংলাদেশী।

যারা মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযোদ্ধা ও স্বাধীনতা নিয়ে হা হোতাশ করে তাদেরকে বলছি, একাত্তরে মুক্তিযোদ্ধারা যদি এই দেশটাকে স্বাধীন না করতেন তাহলে তুমি এতটা মাথা উচুঁ করে বাঁচতে পারতে না, হর হর করে যা খুশি তাই বলতে পারতে না। যে শিক্ষার জোরে নিজেকে মহাপন্ডিত ভাবিস তুই, সেই শিক্ষাটা অর্জন করতে পারতি না। পরনে জিন্স কোট আর গলায় টাই-টা থাকত না, ব্যাংকে একাউন্ট থাকত না, সেখানে কোটি কোটি টাকা থকত না। এসব তুই কাদের কল্যাণে পেয়েছিস তা কি জানা আছে তোর? শেখ মুজিবর রহমান ছিল কান্ডারী, যিনি তোর এই সুখের বীজ বপন করে ছিলেন, মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজি রেখে দীর্ঘ নয় মাস সেই ক্ষেতে সেঁচ দিয়েছেন, তারপর তোর ঘরে ফসল উঠেছে। আজ তোর কাছে শেখ মুজিব ভালো না, মুক্তিযোদ্ধারা ভালো না, বীরাঙ্গনারা ভালো না! কেন ভালো লাগে না, তা কি কখনো ভেবে দেখেছিস? কারণ তোর মা তোকে কোলে নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের গল্প শুনায় নি। বলে নি, কতটা ত্যাগ তিতিক্ষার পর আমরা স্বাধীন হয়েছি। রাতের অন্ধকারে পাকিস্তানি আর্মি ও তাদের এ দেশীয় দোসররা ঘুমন্ত মানুষকে কী নির্মম ভাবে হত্যা করেছে! কতটা অত্যাচার করেছে এ দেশের মুক্তিকামী মানুষের উপর, ওদের হিংস্র থাবা থেকে শিশু-কিশোর, যুবক-যুবতী, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা কেউ রেহাই পায় নি! তোর মা তোকে বলে নি, মেয়েদেরকে আর্মিরা কেম্পে নিয়ে গিয়ে কী নিষ্ঠুর অত্যাচার করেছে ওরা। কারণ এসব বললে গুমর ফাঁস হয়ে যাবে, তুই না জানলেও তোর মা জানে কারা এসব করেছে। যুদ্ধের সময় তোর মা তোকে কোলে নিয়ে জীবন বাঁচানোর জন্য পথে পথে ঘোরে বেড়ায় নি।
এ দেশের মুক্তিকামী মানুষ যখন শত্রুর উপর ঝাপিয়ে পড়ে ছিল, অসহায় মানুষ যখন প্রাণের ভয়ে দিকবেদিক ছুটতে ছিল, তখন তোর মা হয়ত রাজরানীর হালে ছিল, হয়ত এসব তাকে স্পর্ষ করতে পারে নি। হয়ত তুইও এসব জানিস। তাই তো এদেশর স্বাধীনতাকে মেনে নিতে পারিস না, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃতি ও অবজ্ঞা করার হিম্মত করিস, শত্রুর পতাকা হাতে নিয়ে স্টেডিয়ামে গিয়ে উচ্ছ্বাসে মেতে উঠিস! কারণ যারা এই মাটির সন্তান হওয়ার পরও এদেশের বিরুদ্ধে অস্ত্র ধরে ছিল, মানুষ হত্যা করে ছিল, মা বোনদের সম্ভ্রম লুটে ছিল, সেই বর্বরেরা তোর পূর্ব পুরুষ, তোর আত্মীয়, প্রিয়জন অথবা তুই যাদেরকে অনুসরণ করিস, তারা।
সেই জন্যেই তুই ভাবতে পারিস না এই দেশটা স্বাধীন না হলে কী পরিণতি হত তোর। তুই কি এভাবে গলাবাজী করতে পারতি? তোর শরীরটা এমন নাদুসনুদুস হয়ে চর্বিগুলো তামাশা দেখাতে পারত না, তোর দেহটা হত হাড়গিলা বা শালিকের মতো অপুষ্টির দৃষ্টান্ত। তোর বোনকে পাকিস্তানিরা ধরে নিয়ে যেত, তারপর ইচ্ছেমত পর্দা শিখাতো, উলঙ্গ করে নাচাত, নাচতে না পারলে, ঠিকমত মজা না দিতে পারলে, স্তন টেনে ছিড়ে ফেলত, উরুর মাংস কেটে নিত, যোনিপথে বন্ধুকের নল ঢুকিয়ে দিত। পরিশেষে তোর বোন মরে পড়ে থাকত কোনো ডাস্টবিনে অথবা নদীনালায়। তোর মা-র ভেতরে পাকিস্তানি বীজ ভরে দিত, তারপর সেই বীজ থেকে একটা জরজ পয়দা হত, তুই সেই জারজকে কি তোর ভাই বলে পরিচয় দিতে পারতি? হয়ত পারতি। বোনের লাশের পাশে দাড়িয়ে হয়ত আজকের মতোই শত্রুর পক্ষ নিয়ে গলাবাজি করতি, আনন্দে নেচে উঠত তোর মন। কারণ তুই বিকৃত মস্তিষ্কের অধিকারী, অন্ধকার আদি যুগের বাসিন্দা, ভুলে সভ্য যুগে চলে এসে ছিস। তাই তো তোর কাছে সত্য ভালো লাগে না, স্বাধীনতা তেঁতো লাগে!
আমি তোর মতো নই। সভ্য যুগে আমার বাস। তাই তো যারা আমার বাবাকে হত্যা করেছে, আমার ভাইকে পুড়িয়ে মেরেছে, আমার মা-কে নির্মম ভাবে অত্যাচার করেছে, আমার বোনকে পাশবিক নির্যাতন করেছে, আমি তাদের পক্ষ অবলম্বণ করতে পারি না। ওদের নাম শুনলে আমার পায়ের নিচে থেকে মাটি সরে যেতে চায়, রক্তে আগুন লেগে যায়। একাত্তরে যেভাবে আগুন ধরে ছিল মুক্তিযোদ্ধার রক্ত কণিকায়। মুক্তিযোদ্ধারা আমার গুরু, ত্রিশ লক্ষ শহীদ আমার ভাই, সকল বীরাঙ্গনা আমার মা, যেসব মেয়েদেরকে ধরে নিয়ে গিয়ে পাষান্ডরা অমানসিক নির্যাতন করেছে, কুকুরের মতো কামড়ে মুখমন্ডল বিগডে় দিয়েছে, স্তন টেনে ছিড়ে নিয়েছে, বেয়নেট দিয়ে গুঁতিয়ে যোনিপথ বীভত্স করে হত্যা করেছে, ওরা সবাই আমার বোন ছিল।
তোমার আমার প্রর্থক্য এখানেই। তুমি এখানে বাস করেও এখানকার নও, আর আমি আপাদমস্তক এখনাকার। এদেশের প্রতিটি ধূবলিকণা, এদেশের দরিদ্রতা, বৃক্ষ লতা, লাল সবুজের পতাকা, ইতিহাস ঐতিহ্য সবই আমার। যা দেখলে, যার গল্প শুনলে তোমার বমি আসতে বমি আসতে চায়!
http://swapnochor.blogspot.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *