বাংলা ফোক-ফ্যান্টাসি চলচ্চিত্রে সেরা ১০০ ছবির লিষ্ট।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে ফোক ও ফোক ফ্যান্টাসি ধারার সাল অনুসারে সেরা ১০০ টি চলচ্চিত্রঃ

আজিজুর রহমানের মধুমালা (১৯৬৮),
দিলীপ সোমের সাত ভাই চম্পা (১৯৬৮),
খান আতাউর রহমানের অরুণ বরুণ কিরণ মালা (১৯৬৮),
ই আর খানের রূপবানের রূপ কথা (১৯৬৮),
মহিউদ্দিনের গাজী কালু চম্পাবতী (১৯৬৮),
ইবনে মিজানের পাতাল পুরীর রাজকন্যা (১৯৬৯),
নুরুল হক বাচ্চুর বেদের মেয়ে (১৯৬৯),
ফাল্গুনী গোষ্ঠির মলুয়া (১৯৬৯),
ইবনে মিজানের আমির সওদাগর ও ভেলুয়া সুন্দরী (১৯৭০),
শহীদুল আমিনের রাজকুমারী চন্দ্রবান (১৯৭০),
মঞ্জুর হোসেনের মণিমালা (১৯৭০),
বশীর হোসেনের রাজ মুকুট, (১৯৭০)
শেখ আনোয়ারের সতী নারী (১৯৭৩),

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে ফোক ও ফোক ফ্যান্টাসি ধারার সাল অনুসারে সেরা ১০০ টি চলচ্চিত্রঃ

আজিজুর রহমানের মধুমালা (১৯৬৮),
দিলীপ সোমের সাত ভাই চম্পা (১৯৬৮),
খান আতাউর রহমানের অরুণ বরুণ কিরণ মালা (১৯৬৮),
ই আর খানের রূপবানের রূপ কথা (১৯৬৮),
মহিউদ্দিনের গাজী কালু চম্পাবতী (১৯৬৮),
ইবনে মিজানের পাতাল পুরীর রাজকন্যা (১৯৬৯),
নুরুল হক বাচ্চুর বেদের মেয়ে (১৯৬৯),
ফাল্গুনী গোষ্ঠির মলুয়া (১৯৬৯),
ইবনে মিজানের আমির সওদাগর ও ভেলুয়া সুন্দরী (১৯৭০),
শহীদুল আমিনের রাজকুমারী চন্দ্রবান (১৯৭০),
মঞ্জুর হোসেনের মণিমালা (১৯৭০),
বশীর হোসেনের রাজ মুকুট, (১৯৭০)
শেখ আনোয়ারের সতী নারী (১৯৭৩),
রূপ সনাতনের দয়াল মুর্শিদ (১৯৭৩),
প্রমোদকার (খান আতার ছদ্মনাম) এর সুজন সখী (১৯৭৪),
মহসিনের রাজার হলো সাজা (১৯৭৬),
সফদর আলী ভূইয়ার কাজল রেখা, (১৯৭৬),
আজিজুর রহমানের শাপ মুক্তি (১৯৭৬),
এফ এ বিনুর রাজরানী, (১৯৭৬)
ইবনে মিজানের বাহাদুর (১৯৭৬),
অশোক ঘোষের মতি মহল (১৯৭৭),
ইবনে মিজানের নিশান (১৯৭৭),
কামাল আহমেদের দাতা হাতেম তাই (১৯৭৭),
শফি বিক্রমপুরীর রাজ দুলারী (১৯৭৮),
ইবনে মিজানের শাহজাদা (১৯৭৮),
অশোক ঘোষের তুফান (১৯৭৮),
স্বপন সাহার মেহের বানু (১৯৭৮),
দারাশিকোর ফকির মজনুশাহ (১৯৭৮),
এফ কবির চৌধুরীর রাজমহল (১৯৭৯),
ফয়েজ চৌধুরীর বিজয়িনী সোনাভান (১৯৭৯),
শহীদুল আমিনের রাজকুমারী চন্দ্রবান (১৯৭৯),
আজিজুর রহমানের সাম্পান ওয়ালা (১৯৭৯),
আলমগীর কুমকুমের রাজবন্দী (১৯৭৯),
শহীদুল আমিনের রূপের রানী চোরের রাজা (১৯৭৯),
ইশতিয়াকের চন্দ্রলেখা (১৯৮০),
ফখরুল হাসান বৈরাগীর লুটেরা (১৯৮০),
এফ কবির চৌধুরীর রাজ নন্দিনী (১৯৮০),
ইবনে মিজানের তাজ ও তলোয়ার (১৯৮০),
ইবনে মিজানের জংলী রানী (১৯৮০)
এফ কবির চৌধুরীর রাজকন্যা (১৯৮০),
দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর ওমর শরীফ (১৯৮০),
ফখরুল হাসান বৈরাগীর শাহী দরবার (১৯৮০),
এফ কবির চৌধুরীর আলিফ লায়লা (১৯৮০),
শেখ নজরুল ইসলামের নাগিন,
দিলীপ বিশ্বাসের আনার কলি (১৯৮০),
শহীদুল আমিনের শাহজাদী গুলবাহার, (১৯৮০),
অশোক ঘোষের নবাবজাদী, (১৯৮০),
এফ কবির চৌধুরীর সুলতানা ডাকু (১৯৮০),
অশোক ঘোষের বাদল (১৯৮১),
ইবনে মিজানের রাজ নর্তকী (১৯৮১),
আজিজ মেহেরের আকাশপরী (১৯৮১),
ফয়েজ চৌধুরীর আলতা বানু (১৯৮২),
নাজমুল হুদা মিন্টুর মধু মালতী, (১৯৮২),
শামসুদ্দিন টগরের যুবরাজ, (১৯৮২),
এফ কবীর চৌধুরীর সওদাগর, (১৯৮২),
এফ কবীর চৌধুরীর রাজসিংহাসন. (১৯৮২),
মতিউর রহমান বাদলের নাগিনী কন্যা (১৯৮২)
অশোক ঘোষের টক্কর (১৯৮৩),
এফ কবীর চৌধুরীর আবে হায়াত (১৯৮৩),
ইবনে মিজানের লাইলী মজনু (১৯৮৩),
এম এ মালেকের শাহী চোর, (১৯৮৩),
মাসুদ পারভেজের নাগ পূর্ণিমা, (১৯৮৩),
শামসুদ্দিন টগরের বানজারান, (১৯৮৩),
দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর নাগরাণী, (১৯৮৩),
মোস্তফা আনোয়ারের আঁখি মিলন (১৯৮৩),
এফ কবীর চৌধুরীর পদ্মাবতী (১৯৮৪)
কাজী কামালের মৎস্য কুমারী (১৯৮৪),
সফদর আলী ভুইয়া রসের বাইদানী (১৯৮৪),
এম এ মালেকের হাসান তারেক (১৯৮৪),
ইবনে মিজানের চন্দন দ্বীপের রাজকন্যা (১৯৮৪),
ফখরুল হাসান বৈরাগীর রাজিয়া সুলতানা(১৯৮৪),
মোতালেব হোসেনের সালতানাৎ(১৯৮৪),
আবুল খায়ের বুলবুলের শাহী কানুন(১৯৮৪),
আবদুল লতিফ বাচ্চুর দ্বীপ কন্যা (১৯৮৪),
দারাশিকোর জিপসী সর্দার (১৯৮৪),
দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর মহল (১৯৮৪),
ছটকু আহমেদের রাজদন্ড (১৯৮৪),
মুহাম্মদ হান্নানের রাইবিনোদিনী(১৯৮৫),
আজিজুর রহমানের ফুলেশ্বরী(১৯৮৫),
ইবনে মিজানের রাজ কুমারী(১৯৮৫),
মালেক আফসারীর গীত(১৯৮৫),
দেওয়ান নজরুলের কোরবানী(১৯৮৫),
আজিজুর রহমানের সোনাই বন্ধু(১৯৮৫),
কামরুজ্জামানের রসিয়া বন্ধু(১৯৮৫),
ফখরুল হাসান বৈরাগীর ওয়ারিশ(১৯৮৫).
ইবনে মিজানের সতী নাগকন্যা(১৯৮৫),
আজিজুর রহমানের রঙিন রূপবান(১৯৮৫),
শামসুদ্দিন টগরের নকল শাহজাদা(১৯৮৫),
ইবনে মিজানের পাতাল বিজয়(১৯৮৫),
মো. শাহাজাহানের পরীস্থান(১৯৮৫),
হারুনুর রশীদের গুনাই বিবি(১৯৮৫),
আবুল খায়ের বুলবুলের ফুল কুমারী(১৯৮৫),
শামসুদ্দিন টগরের রাজ ভিখারী(১৯৮৫),
মতিউর রহমান বাদলের দুলারী(১৯৮৬),
জিল্লুর রহমানের আয়নামতি(১৯৮৬),
আবদুস সামাদের শিরি ফরহাদ(১৯৮৬),
মতিউর রহমান পানুর নাগমহল(১৯৮৬),
এম এ মালেকের চাঁদ সওদাগর(১৯৮৬),
এফ কবীর চৌধুরীর বাহাদুর মেয়ে(১৯৮৬),
আবুল খায়ের বুলবুলের জারকা(১৯৮৬),
মাহমুদ হান্নানের মালা বদল(১৯৮৬),
মতিউর রহমান বাদলের চন্দ্রাবতী(১৯৮৬),
নুর হোসেন বলাইয়ের নাগ কন্যার প্রেম(১৯৮৬),
ইবনে মিজানের রঙিন রাখাল বন্ধু(১৯৮৬),
ইবনে মিজানের রাজবধূ(১৯৮৬),
এম এ মালেকের রাজমাতা(১৯৮৬),
রফিকুল বারী চৌধুরীর চন্ডীদাশ রজকিনী(১৯৮৬),
শেখ নজরুল ইসলামের দিদার(১৯৮৬),
ইবনে মিজানের বাহাদুর নওজোয়ান(১৯৮৬),
ইবনে মিজানের বসন্ত মালতী(১৯৮৬), ,
শামসুদ্দিন টগরের সতী কমলা(১৯৮৬),
মিজান চৌধুরীর রঙিন সাতভাই চম্পা(১৯৮৬),
মতিউর রহমান বাদলের শাহ জামাল(১৯৮৬),
শামসুদ্দিন টগরের মহুয়া সুন্দরী(১৯৮৬),
আজিজুর রহমানের কাঞ্চন মালা(১৯৮৭),
শফিউল আলমের অরুণ বরুণ কিরণ মালা(১৯৮৭),
চাষী নজরুলের বেহুলা লখিন্দ(১৯৮৮)’
চাষী নজরুলের সোনার নাও পবনের বৈঠা(১৯৮৯)
সাইদুর রহমানের আলোমতি প্রেম কুমার (১৯৮৯)
তোজাম্মেল হক বকুল বেদের মেয়ে জোছনা(১৯৮৯)

তথ্য সংগ্রহঃ
বইঃ
চলচিত্র নির্মানের নেপথ্যে কথকতা,
ঢাকাই চলচিত্র,
বাংলাদেশ কোষঃচলচিত্র
বাংলাপিডিয়াঃচলচিত্র
উইকিপিডিয়াঃ বাংলাদেশী চলচিত্র
ইন্টারনেটঃ
কালেরকন্ঠ,প্রথমআলো,বাংলাদেশ প্রতিদিন

ইষৎ কপিপেষ্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *