দাড়ির স্বাধীনতা

:-অচিন!(কিছুটা উচ্চ কন্ঠস্বরে)
:-কি হইছে?(ঘুম জরানো কন্ঠে)
:-ঘরিতে ১০ টা বাজছে, এখন ঘুম থেকে উঠ।
:-তাতে কি? আজ তো ভার্সিটি বন্ধ?
:-ভার্সিটি বন্ধ হয়েছে তাতে কি, চেহারার অবস্থা দেখেছিস একবার?
:-কেন? কি হয়েছে চেহারার? সুন্দরই তো লাগছে মনে হয়।
:-সুন্দর লাগছে, নাকি বান্দর লাগছে। একবার আয়নায় গিয়ে দেখ।
:-এত কথা না বাড়িয়ে, কি করতে হবে সেটা বল?
:-সেলুনে যাবি!
:-কেন?
:-কেন মানে! সেলুন মানুষ কি করতে যাই?
:-সেলুনে তো দুই ধরনের মানুষ থাকে। একজন চুল-দাড়ি কাটে, আরেকজন কাটায়।
:-তুই কি সেলুনে চাকরি করিস, যে সেখানে গিয়ে মানুষের চুল-দাড়ি কাটবি।
:-তাহলে!

:-অচিন!(কিছুটা উচ্চ কন্ঠস্বরে)
:-কি হইছে?(ঘুম জরানো কন্ঠে)
:-ঘরিতে ১০ টা বাজছে, এখন ঘুম থেকে উঠ।
:-তাতে কি? আজ তো ভার্সিটি বন্ধ?
:-ভার্সিটি বন্ধ হয়েছে তাতে কি, চেহারার অবস্থা দেখেছিস একবার?
:-কেন? কি হয়েছে চেহারার? সুন্দরই তো লাগছে মনে হয়।
:-সুন্দর লাগছে, নাকি বান্দর লাগছে। একবার আয়নায় গিয়ে দেখ।
:-এত কথা না বাড়িয়ে, কি করতে হবে সেটা বল?
:-সেলুনে যাবি!
:-কেন?
:-কেন মানে! সেলুন মানুষ কি করতে যাই?
:-সেলুনে তো দুই ধরনের মানুষ থাকে। একজন চুল-দাড়ি কাটে, আরেকজন কাটায়।
:-তুই কি সেলুনে চাকরি করিস, যে সেখানে গিয়ে মানুষের চুল-দাড়ি কাটবি।
:-তাহলে!
:-তাহলে আবার কি? তোর নিজের চুল-দাড়ি কাটতে যাবি।
:-চুল! কি হয়েছে আমার চুলের? আমার চুল তো এখনও ছোট।
:-ছোট? পিছন দিয়া যে লেঞ্জা বের হয়েছে, সেগুলি কে কাটবে।
:-পারবো না?
:-পারবি না মানে? তারাতারি সেলুনে যা, গিয়ে চুল দাড়ি কেটে আই । সেলুন থেকে এসে কাপর ধুয়ে গোসল করবি ।
:-দাড়িও কাটতে হবে?
:-দাড়িও কাটতে হবে মানে? মুখে হচ্ছে তোর ছাগলা দাড়ি, এগুলো তুই আর কি বড় করবি। তাছারা দাড়ি রাখলে তোকে জিএমবি বলে পুলিশ ধইরা থানায় নিয়ে যাবে।
:-থানায় নিয়ে গেলে নিয়ে যাবে।
:-পরে তোকে ছাড়াবে কে?
:-কেন?বাবা।
:-তোর বাবে তোকে এক টাকা দিয়েও ছাড়াবে না।
:-না ছাড়ালে আর কি করার? থানায় বসে বসে বেসুরা গলায় গান গাব। তাতে পুলিশ পাগল হয়ে আমায় ছেড়ে দিবে।
:-হুমম। ছারবে, নাকি বাইন্দা পিটাবে দেখা যাবে।
:-তুমি যাই বল, আমি কাটবো না।

অনেক কথপোকথন এর পর শেষ সিন্ধান্ত হল এই যে, আমি এখন চুল-দাড়ি কাটবো না।
কিছুক্ষন পর ঘুম থেকে উঠে বাথরুমে গিয়ে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে দাঁত ব্রাশ করছি, আর দেখছি আমার চুল দাড়ি কি বেশি বড় হয়ে গিয়েছে? আমাকে কি আসলেই জিএমবি লাগে?
চুল দাড়ি থাকলেই আমি জিএমবি, আর না থাকলে আমি ভালো মানু্র।
কেন? কেন আমাদের এই ধারনা?
আসলে ধারনা আপনা আপনি সৃষ্টি হয় না, সেটা সৃষ্টির পিছনে কিছু না কিছু কারন থাকে।
আর আমার মনে হয় এই ধারনাটা সৃষ্টির পিছনেও কোন কারন রয়েছে। আর সেই কারনটা হতে পারে এই যে, জিএমবি ভাইদের মুখে মনে হয় দাড়ি থাকে। আচ্ছা বুঝলাম দাড়ি থাকে, তাই বলে তাদের কে পুলিশ ধরবে কেন। নিশ্চয় সেটার পিছনেও কিছু কারন আছে। হ্যাঁ আছে, কি কারন? জিএমবি নামের এই সংস্থাটি আমাদের দেশে নানা ধরনের অরজগতা সৃষ্টি করেছে, এখনও করছে।

তো অবশেষে আমার কথা এই যে,জিএমবি ভাই আপনারা দাড়ির মত এরকম একটা পবিত্র জিনিস রেখে কেন বিভিন্ন ধরনের খারাপ কাজ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *