কমন সেন্স

ধরুন, আপনি প্রাইভেট কার চালিয়ে ঢাকা থেকে সিলেট যাচ্ছেন। গাড়ির নাম্বার “ঢাকা মেট্রো ক-০৩-২৫১৩”। ঢাকা থেকে সিলেটের দূরত্ব ৩৪৬ কি.মি। যেই স্পিডে গাড়ি চালালেন তাতে সকাল ১০টা ২৩ মিনিটে রওনা দিয়ে ওখানে পৌঁছালেন বিকাল ৪টা ৫৪ মিনিটে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ড্রাইভারের নাম কি??

এই প্রশ্নের উত্তর যদি আপনি দিতে পারেন, তাহলে আপনার মধ্যে “কমন সেন্স” বলে আসলেই একটা ব্যাপার অবশ্যই আছে।

আর এই কমন সেন্স নিয়ে যদি বাংলাদেশের ইতিহাসটা একটু মনোযোগ দিয়ে পড়েন, তাহলে আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন যে, একাত্তরে রাজাকারদের কার্যকলাপ কতটা নৃশংস ছিলো, বুঝতে পারবেন যে সেই নৃশংসতা এখনো কতটা চলমান। এটাও বুঝতে পারবেন, একটা মানুষের চিন্তা ভাবনা কতটা বিকৃত এবং কুরুচিপুর্ণ হলে “খুন-ধর্ষণ-গণহত্যা-লুটপাট” সহ আরো বীভৎস অপরাধ করে সেই অপরাধগুলোকে ধর্মের চাদরে ঢেকে দিয়ে ধর্মকে বিকৃত করে দেয় শুধুমাত্র নিজেকে বাঁচানোর জন্য! তারপর সেই ধর্মকে পুঁজি করে ব্যবসা করে, রাজনীতি করে, মানুষে মানুষে বিভেদ লাগিয়ে দেয়!

আর এই সব কিছু বুঝার পর আপনি অন্তত জামায়েত-শিবির-রাজাকারদের পক্ষ নিতে পারবেন না, আপনি চাইবেন যে প্রত্যেকটা রাজাকারের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড হোক। এবং এটাও চাইবেন যে, এদের অনুসারী নব্য রাজাকারদেরও বিচারের আওতায় আনা হোক। কারণ আপনার কমন সেন্স আছে।

৪ thoughts on “কমন সেন্স

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *