পরিত্যাক্ত-১

অনিচ্ছাকৃত ব্যস্ততায় রাস্তার ফুটপাথ ধরে হাঁটতে হাঁটতে হাঁটতে হাঁটতে ছ’টা রাস্তার মোড়, বেহুদা দাঁড়িয়ে পশ্চাদ্দেশ চুলকাতে থাকা হোঁৎকা চেহারার দু’টো ট্রাফিক পুলিশ, ছেঁড়া দুই টাকার মূল্যমান নিয়ে ঝগড়া করতে থাকা একপাল লুঙ্গি তোলা ফকিরনীর বাচ্চা, ন্যাংটা একটা ছেলেকে কোলে নিয়ে ধুঁকতে থাকা বৃদ্ধা, রাস্তার দু’পাশে হাজার খানেক পরিত্যাক্ত পলিথিন, আস্তাকুঁড় উপচানো স্যানিটারী ন্যাপকিন, অগুণিত গাড়ি আর ধোঁয়া—- সব পেছনে ফেলে আরো একটু এগোই।


অনিচ্ছাকৃত ব্যস্ততায় রাস্তার ফুটপাথ ধরে হাঁটতে হাঁটতে হাঁটতে হাঁটতে ছ’টা রাস্তার মোড়, বেহুদা দাঁড়িয়ে পশ্চাদ্দেশ চুলকাতে থাকা হোঁৎকা চেহারার দু’টো ট্রাফিক পুলিশ, ছেঁড়া দুই টাকার মূল্যমান নিয়ে ঝগড়া করতে থাকা একপাল লুঙ্গি তোলা ফকিরনীর বাচ্চা, ন্যাংটা একটা ছেলেকে কোলে নিয়ে ধুঁকতে থাকা বৃদ্ধা, রাস্তার দু’পাশে হাজার খানেক পরিত্যাক্ত পলিথিন, আস্তাকুঁড় উপচানো স্যানিটারী ন্যাপকিন, অগুণিত গাড়ি আর ধোঁয়া—- সব পেছনে ফেলে আরো একটু এগোই।

ঘড়ির কাঁটা পাল্লা দিয়ে দৌড়ুচ্ছে। সেই সাথে মাথা থেকে রওনা হয়েছে সদলবলে বিষাক্ত ঘাম, পা অব্দি পৌঁছানোর কি বিপুল প্রচেষ্টা। দুপুর দু’টোর সময় পার্কে জায়গার কোন অভাব নেই। জালালুদ্দিন মোহাম্মদ আকবরীয় ভাব নিয়ে পার্কের বেঞ্চ দখল করে অপেক্ষা করছি। আমার কোন তাড়া নেই। বোরকা পরা সদ্য বিবাহিত এক নারী- তরুণী কিংবা বালিকাও হতে পারে। তার সাথে এক মাঝবয়েসী দাঁড়িটুপিপাঞ্জাবীঅলা মর্দ, ইশকুল ড্রেস পরা এক ঝাঁক কিশোর, বাদামের ঝাঁপি নিয়ে ঝিমাতে থাকা এক বাদামঅলা, ক্লান্ত কয়েকটা কাক আর ছিন্নবস্ত্র এক পাগলও আছে আমার প্রতিবেশীর তালিকায়।

আমি তবুও বসে আছি। আমারই কোন তাড়া নেই। কোন উদ্দেশ্য-বিধেয়-সামাজিক-অসামাজিক-একবচন-বহুবচন কিংবা কোন সম্প্রসারণের লক্ষ্য নেই। সদ্য গোঁফ ওঠা এক প্রাপ্তবয়স্ক কিশোর এদিক ওদিক তাকিয়ে আমার দিকে আড়চোখে তাকিয়ে ভ্রুঁ কুঁচকে ইতস্তত পায়চারি করছে। আমি তাকে আস্বস্ত করতে সক্ষম হলাম- তার অবৈধ কর্মকান্ডে আমার কোন উৎসাহ কিংবা আক্ষেপ নেই।

ইশকুলের বাচ্চাদের হল্লা, তরুণ-তরুণীদের ভালোবাসাবাসি, গাঁজায় দম দেয়া প্রাপ্তবয়স্ক কিশোর, সদ্যবিবাহিতঅসমদম্পতি এমনকি পার্কের দারোয়ানও আমার মৌনতাকে বাধাগ্রস্থ করছে না। আমি হিতাহিতজ্ঞানশূণ্য আধশোয়া থেকে একচুলও নড়লাম না। আমি তবুও মৌনতাকে আঁকড়ে ধরে বসে আছি অনন্তকাল। আমি কারো কাছে দায়বদ্ধ নই, আমি কারো হাতের স্পর্শ খুঁজছিনা, আমি কেবলই অসীম নিস্তব্ধতাকে উপভোগ করছি। যদিও আমি ছাড়া আমার চারপাশ পুরোমাত্রায় সরব। প্রতিটি ঘাসের ডগাও এখানে সশব্দে চিৎকার করছে।

পেছনের বেঞ্চে ঘর্মাক্ত হাতে গোলাপ আর উপহার নিয়ে অপেক্ষায় থাকা অভিজ্ঞলম্পটতরুণের আরেক হাতে ক্রমাগত কম্পিতজ্বলন্ত সিগারেট একটি অনাগত মুহুর্তের দৃশ্যপটকে আরো স্পষ্ট করে তোলে। নৈঃশব্দের রঙিন আয়নাটাকে চুরমার করে মঞ্চে প্রবেশ করে ব্রীড়ারত এক কিশোরী কিংবা অনভিজ্ঞাতরুণী। অতঃপর কিছু কপট অভিমান আর অভিনয়শেষে তাদের উঠে চলে যাওয়া আমাকে স্বস্তি দেয়। অবশেষে বিষাদগ্রস্ততা আমাকে খুঁজে পায় পুরোপুরি।

======================
ঘর্মাক্ত একটি গোলাপ,
একটি দোমড়ানো র‍্যাপিং পেপার,
কিছু বাদামের খোসা,
একটি রিক্সা।

এক প্যাকেট কনডম,
একটি পরিপাটি বিছানা,
দু’টো বালিশ,
একটি তুমুল সন্ধ্যা।

ব্যবহৃত কনডম,
কিছু ক্লান্তি,
আর কিছু বিষাদ।

একটি মুঠোফোন,
একটি ফুলের দোকান,
একটি গিফট শপ,
কিছু ভালোবাসা,
কিছু বাদামের খোসা,
একটি রিক্সা,
অব্যবহৃত কনডম,
একটি পরিপাটি ঘর,
আরেকটি তুমুল সন্ধ্যা।

বারে বারে ঘুরে ফিরে আসে
কেবলই-
জমে থাকা একরাশ বিশুদ্ধ বিষাদ !!!
======================
আমি আবারো হাঁটতে থাকি, হাঁটতে থাকি, হাঁটতেই থাকি…

৫ thoughts on “পরিত্যাক্ত-১

  1. আহ এই পোস্ট মিস করছিলাম
    আহ এই পোস্ট মিস করছিলাম ক্যামনে? :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

    আফসুস আপনারে ইস্টিশনের যাত্রীরা কেউ চিনেনা। আজকাল চেনা বামুন ছাড়া প্রসাদ লাভ হয় না দাদা। :কেউরেকইসনা:

    পোস্টের মান নিয়ে কোন কথা হবে না। অসাম :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *