“সেক্সট্যান্ট” (১৮+ নহে)

“সেক্সট্যান্ট”

শব্দটা শুনিয়া হয়তো অনেক লুল পুরুষ এবং মহিলাগণ নড়িয়া চড়িয়া বসিয়াছেন। ১৮+ কোনকিছুর আশায় থাকিয়া See More … ক্লিক করিবেন এক্ষনি 😉 সকলকে হতাশার বাণী শোনানো ছাড়া আর কোন কিছু দেওয়ার নাই আপাতত। একটা কাজ করতে পারেন। আপনারা যা খুজতেছেন তা গুগল করলেই আশা করি পাইয়া যাইবেন। না পাইলেও আপাতত কাম চালানের উপাদান পাইতেই পারেন 😛


“সেক্সট্যান্ট”

শব্দটা শুনিয়া হয়তো অনেক লুল পুরুষ এবং মহিলাগণ নড়িয়া চড়িয়া বসিয়াছেন। ১৮+ কোনকিছুর আশায় থাকিয়া See More … ক্লিক করিবেন এক্ষনি 😉 সকলকে হতাশার বাণী শোনানো ছাড়া আর কোন কিছু দেওয়ার নাই আপাতত। একটা কাজ করতে পারেন। আপনারা যা খুজতেছেন তা গুগল করলেই আশা করি পাইয়া যাইবেন। না পাইলেও আপাতত কাম চালানের উপাদান পাইতেই পারেন 😛

আসল কথায় আসি। সেক্সট্যান্ট অতি প্রাচীন প্রায় ১৭শ শতকের মাল 😛 থুক্কু জিনিষ থুক্কু যন্ত্র। 1757 সালে জনৈক পক্ষী (জন বার্ড) প্রথম সেক্সট্যান্ট যন্ত্র তৈরী করেন। তবে ইতোপূর্বে বিখ্যাত বিজ্ঞানী স্যার আইজ্যাক নিউটন কোন মাপার একটি সুত্র বের করেন।প্রতিফলিত দিক নির্নয় যন্ত্র (Reflecting nevigation instrument) নাম অকট্যান্ট (Octant)। কিন্ত তিনি কখনো এটি প্রকাশ করিতে পারেননি।পরবর্তীতে 1730 সালে জন হ্যাডলে ও যুক্তরাজ্যের গনিতবিদ থমাস গডফ্রে এই দুজন এই অকট্যান্ট যন্ত্রটিকে উন্নতি করেন।

সেক্সট্যান্ট (Sextant) এমন একটি যন্ত্র যাহা অতি সুক্ষভাবে তৈরী এবং যাহা উন্নতি ও কোণ মাপার কাজে ব্যাবহৃত হয়। জ্যোতির্বিদ্যায় মহাকাশের যে কোন বস্তুর উন্নতি ও কোণ মাপার কাজে এই সেক্সট্যান্ট একটি অতি প্রয়োজনীয় যন্ত্র হিসাবে পরিগনিত হয়। যদিও এখন এর ব্যাবহার বিলুপ্ত প্রায়। সেই প্রাচীন কালে (প্রাগৈতিহাসিক কমু কিনা বুঝতাছি না) জাহাজের নাবিকেরা সাগরের মাঝখানে দাড়াইয়া মানে জাহাজের উপ্রে দাড়াইয়া কই আছে সেই জায়গা নির্ণয় করতে এই জিনিষের ব্যাবহার করত। কিন্তু ওই দিন কি আর আছে, দিন বদলাইছে না। এখন জিপিএস (গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম) এর দিন। আর আমার জাহাজে তো স্বয়ং স্যাটেলাইট কানেকশনই আছে। সেক্সট্যান্ট এর দিন ক্ষীন হইতে ক্ষীন্তর হইতেছে। তবে ম্যানুয়ালি মাপামাপির যে একটা সুফল আছে তা কেউ অস্বীকার করবে না আশা করি। কারণ যখন সকল কিছু নষ্ট হইব (যা আদৌ সম্ভব কিনা সন্দেহ আছে আমার) তখন এই জিনিষের বিকল্প আর কিছুই নাই।

সেক্সট্যান্ট : এটি একটি দিক নির্নয়ের যন্ত্র।এটা দিয়ে দিগন্ত থেকে সূর্য বা তারা কতটুকু উপরে আছে তা মাপা যায় এবং এর কোনও মাপা যায়। সেক্সট্যান্ট যন্ত্র দিয়ে যে কোন দুটি দৃশ্যমান বস্তুর মধ্যে কোণ পরিমাপ করা যায়। যেমন- আকাশের যে কোন যেমন দিনের বেলায় সূর্য এবং রাতের বেলায় চাঁদ বা নক্ষত্রের সাহয্যে আনুভূমিক সমতল থেকে দুটি বস্তুর মধ্যেকার কোন মেপে নিজের অবস্হান বের করা যায় এই পরিমাপকে সাইটিং বলে।

একটি সেক্সট্যান্ট-এ যে সমস্ত যন্ত্রাংশ থাকে তা হলো-
1. ফ্রেম।
2. হ্যান্ডেল।
3. ইনডেক্স আর্ম।
4. ইনডেক্স মিরর।
5. হরাইজন মিরর।
6. টেলিস্কোপ।
7. টেলিস্কোপ ক্ল্যাম্প।
8. মাইক্রোমিটার ড্রাম।
9. আর্ক।
10. ইনডেক্স মিরর ক্লীপস।
11. ইনডেক্স মিরর শেডস
12. ইনডেক্স মিরর (১)এডজাস্টমেন্ট স্ক্রু।
13. হরাইজন মিরর (২) এডজাস্টমেন্ট স্ক্রু।
14. হরাইজন মিরর ক্লি্পস।
15. হরাইজন মিরর (৩) এডজাস্টমেন্ট স্ক্রু।
16. হরাইজন মিরর শেডস।

সোজা কথা হইলো পিচ্চি কালে যে পড়ছিলাম “ট্যাড়া লম্বা ভূত” সেই সূত্র ব্যাবহার কইরা সকল কাজ কারবার হয়। আজাইড়া জিনিষ নিয়া ত্যানা প্যাচাইলে নির্দিষ্ট প্রজাতি ছাড়া আর কেউ এর মর্ম বুঝবে না।

“নাথিং ইজ পার্ফেক্ট ইন দ্যা ওয়ার্ল্ড” – মহামনীষী পুরোনো পাপী।
সেইরূপ সেক্ট্যান্টের এত গুণগান গাওয়ার পরেও এর কিছু ক্রুটি আছে। যার কিছু একদমই বাই বর্ণ। যেমন কিছু মানুষ ঘাড় ত্যাড়া টাইপের হয়। কিছু মানুষ ঘাউড়া হয়। কিছু বলদ টাইপের হয় আবার কিছু উভলৈঙ্গিক টাইপের। এইসকল কিছুই ব্যাসিক। এইডা আপ্নে চাইলেও বদলাইতে পারবেন না। এই ধরণের কিছু ফিক্সড এরর আছে সেক্সটেন্টের। আর বাকী গুলা এডজাস্টেবল। এইখানে উদাহরণ স্বরূপ দেখাইতে পারি, “গরু মোটাতাজা করণ”, “৭ দিনে মোটা/পাতলা হউন” (ইহা আমার নিজের জন্যে খাটে না), “৭ দিনে কালা মাইয়া ফর্সা করা হয়”, “হেয়ার লাইফ- নগদে টাক্লা থেইক্কা বনমানুষ বানাইয়া দেওয়া হয়” টাইপের আরকি।

এই গেল সাধারণ আর অসাধারণ সেক্সট্যান্ট বচন। এইবার আসি ছুডু পুলাপাইনেরে একটা ছূডূ সাজেশনের ব্যাপারে। সেক্সটেন্ট আমাদের দেশে যখন পোলাপাইন পরীক্ষা দিতে যায় বিশেষ কইরা ভাইবা। তখন কেউ কিছু জিগায় না এইডা নিয়া। মানে প্র্যাক্টিক্যালি আরকি। থিওরী নিয়া ত্যানা প্যাচায়। কিন্তু অন্যান্য দেশে কেউ পরীক্ষার ক্ষেত্রে শুনছি সার্ভেয়ার সেক্সটেন্টের বাক্স দেখাইয়া বলে নিয়া আস আমার কাছে। আইনা ঠিকমতন না দিতে পারলে ওইখানেই বাইর কইরা দিব কইলাম 😉 । “সেক্সট্যান্ট কাউকে দেয়ার সময় এমন ভাবে দিতে হয় যাতে সে হ্যান্ডেল একবারেই ধরতে পারে।”

“হ্যাপী শ্যুটিং ডাউন দ্যা সান”

বিঃদ্রঃ ছবিতে যেই মাইয়া দেখন যাইতাছে ওইডা দেখতে দেই নাই কাউরে। উনার হাতে যেই বস্তুডা আছে উহাই মূলত দ্রষ্টব্য 😛 😛

৪৩ thoughts on ““সেক্সট্যান্ট” (১৮+ নহে)

  1. ধুর , হতাশ হইলাম… (প্রথম
    ধুর , হতাশ হইলাম… (প্রথম চিন্তা… :ভেংচি: )

    কিন্তু পুরো পোস্ট পড়ে একটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার সম্পর্কে জানলাম… :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: অশেষ কৃতজ্ঞতা নাবিক সাহেবরে এই জিনিসটা জানানোর লাইগা… :ফুল: :ফুল: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল:

    বাই দা ওয়ে, চিত্রের আফার লগে আপনার পরিচয় আছে নি?? :ভাবতেছি: :দেখুমনা: :আমারকুনোদোষনাই: :টাল: :নিষ্পাপ:

    1. না রে ভাই 🙁 চিত্রের মতন দুই
      না রে ভাই 🙁 🙁 চিত্রের মতন দুই চাইর খান আফা পাইলে তো মন্দ হইতো না 🙁 হতাশা ব্যাঞ্জক ইমু হপে, খুইজ্জা পাইতাছিনা কুন্ডা দিমু 🙁

        1. ছি ছি বুকে মুকে আইতে পারুম
          ছি ছি :মাথাঠুকি: বুকে মুকে আইতে পারুম না :আমারকুনোদোষনাই: দূরেত্থে কন যা কইবেন :শয়তান: :শয়তান:

          1. চি চি… কি অচালিন…
            চি চি… কি অচালিন… :শয়তান: :শয়তান: :শয়তান: :কল্কি: :দেখুমনা: :দেখুমনা: :আমারকুনোদোষনাই:

  2. নাম দেখে নইড়া চইড়া বসলাম
    নাম দেখে নইড়া চইড়া বসলাম :হাহাপগে:

    কিন্তু পরে আমি হতাশ। এমুন ডাবল মিনিং এর নাম দেয়ার জন্য বৈজ্ঞানিকগো ধইরা পিডান দরকার :ক্ষেপসি:

    পোষ্ট পড়ে নতুন কিছু জানলাম। ধন্যবাদ :থাম্বসআপ:

  3. নামটা সেক্সট্যান্ট দিলো কেন?
    নামটা সেক্সট্যান্ট দিলো কেন? সেক্স এর অর্থ না হয় জানিনা, কিন্তু ট্যান্ট এর অর্থ তো জানি!! ট্যান্ট মানে তো তাঁবু! তাইনা? এই নাম দিলো কিজইন্যে!! এর চেয়ে তো “কুদ্দুসট্যান্ট” দিলেও ভালা হইতো! :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট:

  4. আপনার উপস্থাপনার ভঙ্গি আসলেই
    আপনার উপস্থাপনার ভঙ্গি আসলেই চমকপ্রদ…
    দারুণ মজা পেলুম মাইরি!! :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল: :রকঅন: :রকঅন: :রকঅন:

    1. আপ্নেরা মিয়া সবাই খ্রাফ
      আপ্নেরা মিয়া সবাই খ্রাফ :মাথাঠুকি: ভয়ংকর ব্যাপার স্যাপার :মানেকি: হজ্ঞলতেই বুকে আইতে কয় :খাইছে:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *