খালেদা জিয়ার কাছে খোলা চিঠি

মাননীয় দেশ নেত্রী,
আপনি নিশ্চই ভালো নাই। আমরাও ভালো নাই। দেশ যেখানে ভালো নাই সেখানে আপনি ভালো থাকার কথা না। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি আপনার মাধ্যমেই দেশে আবার সুদিন ফিরে ফিরে আসবে। আপনার উপর আমাদের আস্থা আছে।


মাননীয় দেশ নেত্রী,
আপনি নিশ্চই ভালো নাই। আমরাও ভালো নাই। দেশ যেখানে ভালো নাই সেখানে আপনি ভালো থাকার কথা না। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি আপনার মাধ্যমেই দেশে আবার সুদিন ফিরে ফিরে আসবে। আপনার উপর আমাদের আস্থা আছে।

আপনি আপোষহীন নেত্রী হিসেবে সর্বজন স্বীকৃত। আমরা অতীতে দেখেছি আপনি কারাবরণ করেছেন কিন্তু নীতির সাথে আপোষ করেননি। মুক্তিযুদ্ধের ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শ আমাকে রাজাকারদের সাথে হাত মেলানোর শিক্ষা দেয় নি। ২০০৮ এর নির্বাচনে প্রথমবার ভোটার হয়েছিলাম। বাকশালীদের আমি কখনোই ভোট দিবোনা। কিন্তু রাজাকারদের সাথে জোট হওয়ার কারনে আমি চার দলীয় জোটকেও ভোট দিতে পারিনি। এজন্য প্রথমবার ভোটার হয়েও নির্বাচনে ভোট দেওয়া থেকে বিরত ছিলাম।

দেশে আজ স্বৈরাচারী শাসন কায়েম করেছে এই সরকার। গৃহপালিত বিরোধীদল দিয়ে তারা আমাদেরকে গণতন্ত্র শিখায়। মুক্তিযুদ্ধের পর অবশ্য আ’লীগ কখনোই গণতন্ত্রমনা দল ছিলনা। শেখ মুজিবের মত হাসিনাও একদলীয় বাকশাল কায়েম করেছে। রক্ষী বাহিনীর ভূমিকায় ছাত্রলীগ। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনায় ৪ টা মামলায় দেড়শ সাধারণ ছাত্রের নাম এলেও, মামলায় অস্ত্রধারী ছাত্রলীগ নেতাদের নাম থাকেনা। কোন বিবেকবান মানুষ এই অপকর্মের সমালোচনা করলে তাকে ‘সুশীল’ গালি দেওয়া হচ্ছে! সরকারের অন্যান্য বাহিনীর মতই ছাত্রলীগ আজ দেশের একটা পদাতিক বাহিনীতে পরিণত হয়েছে। যেন ৭৪এর রক্ষীবাহিনী। শেখ মুজিবকে এই রাজনৈতিক ভুলের মূল্য দিতে হয়েছিলো জীবন দিয়ে। শেখ হাসিনা ব্যাপারটা যত তাড়াতাড়ি বুঝতে পারবে এদেশের জন্য তত ভালো হবে।

মাননীয় দেশনেত্রী, আমরা শুধু আপনাকে বিএনপির অভিভাবক নয়, পুরো জাতির অভিভাবক মনে করি। আমরা আশা করি নির্বাচনের আগেই আপনি শহীদ জিয়ার নীতির স্বার্থে রাজাকারদের সঙ্গ ত্যাগ করবেন। ২০০৮ এর নির্বাচনে আমি ভোট দিতে বিবেকে দেয়নি, কিন্তু আগামী নির্বাচনে আমি শহীদ জিয়ার গড়া দলকে ভোট দিতে চাই। আমাকে ভোট দেওয়ার সুযোগ করে দিন।

ইতি
একজন নগণ্য ভোটার

২২ thoughts on “খালেদা জিয়ার কাছে খোলা চিঠি

  1. আপনি ভালো চিঠি লিখতে জানেন।
    আপনি ভালো চিঠি লিখতে জানেন। এই চিঠিটি বেগম জিয়ার নজরে পড়লে আপনার কপাল খুলে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা। শফিক রেহমানের স্থলাভিষিক্ত হয়ে যেতে পারেন। অগ্রিম অভিনন্দন। :ফুল:

  2. মুক্তিযুদ্ধের ঘোষক শহীদ
    মুক্তিযুদ্ধের ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান:-P

    আচ্ছা জনাব, মেজর জিয়া ঘোষনাটা কোথায়, কোনদিন, কোন সময়, কিভাবে দিছেন তথ্য প্রমাণ সহ আমাদের একটু জানান?
    আর হ্যা, মেজর জিয়া কোন যুদ্ধে শহীদ হয়েছেন, সেই যুদ্ধটা কোনদিন, কোথায়, কার সাথে, অন্যায় নাকি ন্যায়ের বিরুদ্ধে হয়েছিল তাও জানাতে ভুলবেন না কিন্তু ।

    1. সেকি শাহিন ভাই? উনি একাত্তরের
      সেকি শাহিন ভাই? উনি একাত্তরের রেম্ব না … :মাথাঠুকি: :ভেংচি: :হাসি: :হাসি: উনার পক্ষে আর অসম্ভব কি?? 😀

      1. আপনি মুক্তিযুদ্ধের একজন
        আপনি মুক্তিযুদ্ধের একজন সেক্টর কমান্ডারকে নিয়ে নিশ্চই এরকম বলতে পারেন না। অবশ্য আপনার যদি মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কোন প্যাশন না থাকে, মুক্তিযুদ্ধের উপর শ্রদ্ধা না থাকে কিংবা আপনি যদি ছাগু হন তাহলে ভিন্ন কথা।

    2. ২৬ মার্চ চট্টগ্রাম কালুরঘাট
      ২৬ মার্চ চট্টগ্রাম কালুরঘাট বেতারকেন্দ্র থেকে ঘোষণাটা দিয়েছেন। একজন দেশপ্রেমিক প্রেসিডেন্টকে হত্যা করেছে দেশ দ্রোহীরা। ন্যায়ের পক্ষে যুদ্ধে উনি শহীদ।

  3. একাত্তরের রেম্ভো?
    হা হা হা

    একাত্তরের রেম্ভো?
    হা হা হা হা…
    হাসালেন ডন ভাই ।

    যে নিজের স্ত্রীর নিরাপত্তা দিতে পারেনি সে নাকি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণা দিয়া একাই দেশ স্বাধীন কৈরা ফালাইছে!
    তার ঘোষণা শুইনা ঝাঞ্জুয়ারা কি যুদ্ধ করবো, অস্ত্র রেখে পাকিস্তান ভাইগা গেছে আর আমরা স্বাধীন হইয়া গেছি ।
    তয় ঐসময় যা একটু মারামারি হৈছিলো তা লীগসেনাদের বিরুদ্ধে জিয়ার সৈনিকরা করেছিলো ।

    1. যে নিজের স্ত্রীর নিরাপত্তা

      যে নিজের স্ত্রীর নিরাপত্তা দিতে পারেনি সে নাকি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণা দিয়া একাই দেশ স্বাধীন কৈরা ফালাইছে! তার ঘোষণা শুইনা ঝাঞ্জুয়ারা কি যুদ্ধ করবো, অস্ত্র রেখে পাকিস্তান ভাইগা গেছে আর আমরা স্বাধীন হইয়া গেছি । তয় ঐসময় যা একটু মারামারি হৈছিলো তা লীগসেনাদের বিরুদ্ধে জিয়ার সৈনিকরা করেছিলো

      পোস্টকর্তা আসলে কইতে চাইতেছেন সেটাই… :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :ক্ষেপছি:

    2. আমিতো একবারই বলি নাই উনি একাই
      আমিতো একবারই বলি নাই উনি একাই দেশ স্বাধীন করে ফেলছেন। উনি মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়কও না। কিন্তু একজন চৌকস সেনা অফিসার নিঃসন্দেহে। আপনি কী জিয়া বিরোধীতা করতে গিয়ে একটা সেক্টরের যুদ্ধকে অস্বীকার করবেন? দুই প্রজাতির পশুরা অন্যদেরকে তার প্রাপ্য সম্মানটা দিতে জানেনা। এক. ছাগু, দুই. লিগু। আপনি কোনটার ভিতর পড়েন আমি জানিনা।

  4. আদালত স্বীকৃত একজন খুনিকে
    আদালত স্বীকৃত একজন খুনিকে কতটুকু সম্মান দিয়ে কথা বলা উচিৎ তা আমার ভাল জানা আছে ।

    মুক্তিযুদ্ধ ১টি নয়, ১১টি সেক্টর থেকে হয়েছে ।বাকী ১০জন কমান্ডার ও সর্বাধিনায়ককে টপকে বিতর্কিত একজন সেক্টর কমান্ডার কি করে বাংলার মসনদে আসীন হয়েছেন তা আপনার মত ছাগুরা না জানলেও আমরা ভাল করেই জানি ।

    ঘোষণাপত্র পাঠকারী আর ঘোষণাকারী এই দুটি শব্দের পার্থক্য যে জানে না সে যদি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস শেখাতে আসে তবে তার সেই বিকৃত ইতিহাস ও মিথ্যা প্রচারণাকে জুতা মারতে ইচ্ছা করে ।

      1. অশ্লীল ও আক্রমণাত্মক মন্তব্য
        অশ্লীল ও আক্রমণাত্মক মন্তব্য প্রদানের জন্য আপনাকে প্রথমবারের মতো সতর্ক করা হচ্ছে। একই কাজের পুনরাবৃত্তি ঘটালে আপনার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যৌক্তিক এবং ভদ্র ভাষায় মন্তব্য প্রদানের জন্য আপনাকে নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *