বস-অধঃস্তন

নিজের প্রতি বসের মুগ্ধ দৃষ্টি চোখ এড়ায় না রিমির। অফিসের সর্বোচ্চ কর্তার এই মুগ্ধ দৃষ্টি রিমির গোপন অহঙ্কার। গোপন সুখও বটে! অত্যন্ত ব্যক্তিত্ববান এই লোকের জন্য অফিসের বেশীরভাগ মহিলা কর্মী পাগল হলেও বস শুধু ওর দিকেই মুগ্ধ দৃষ্টি হানেন। ব্যাপারটা চরম পুলকের।
এই লোকের সাথে সকালে একবার, সন্ধ্যায় একবার দেখা হয় রিমির। ভাগ্য ভালো হলে দুপুরে আরেকবার। কিন্তু তাতেই দুই যোগ দুই, চার চোখের যা কথা হওয়ার হয়ে যায়।


নিজের প্রতি বসের মুগ্ধ দৃষ্টি চোখ এড়ায় না রিমির। অফিসের সর্বোচ্চ কর্তার এই মুগ্ধ দৃষ্টি রিমির গোপন অহঙ্কার। গোপন সুখও বটে! অত্যন্ত ব্যক্তিত্ববান এই লোকের জন্য অফিসের বেশীরভাগ মহিলা কর্মী পাগল হলেও বস শুধু ওর দিকেই মুগ্ধ দৃষ্টি হানেন। ব্যাপারটা চরম পুলকের।
এই লোকের সাথে সকালে একবার, সন্ধ্যায় একবার দেখা হয় রিমির। ভাগ্য ভালো হলে দুপুরে আরেকবার। কিন্তু তাতেই দুই যোগ দুই, চার চোখের যা কথা হওয়ার হয়ে যায়।

আজ অফিসে আসতে একটু দেরী করে ফেলেছে রিমি। জ্যামের কারণে অফিসের গেটে পা রাখতে রাখতে নয়টা দশ বেজে গেছে। এমনিতে ও সিঁড়িই ব্যবহার করে তবে আজ লিফটের দিকে দৌড়ালো। পাঁচ তলায় উঠার জন্য হাতে এখন সময় নেই। কিন্তু যেখানে বাঘের ভয়, সেখানেই রাত হয়।
দ্বিতীয় তলায় অ্যাডমিন ডিপার্টমেন্টে এসে লিফট থামলো।
রিমির কপাল কুঁচকে গেলো। আজ তাড়াহুড়া আছে আর অতি অবশ্যই… প্রতি তলায় আজ লিফটের থামতে হবে।

কিন্তু এ কী!
লিফটে ঢুকলেন রিমির বস। সাথে সাথে নাম না জানা পারফিউমের গন্ধে রিমির মাথা ঘুরে গেলো। সেকেন্ডে সেকেন্ডে চোখাচোখি, লজ্জা পাওয়া, শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত হওয়া ইত্যাদি শারীরিক প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেলো। ঠিক তিন তলায় এসে বস রিমিকে জড়িয়ে ধরলেন। “ইউ নো আই লাইক ইউ!” বলে চুমু দিয়ে বসলেন রিমির ঠোঁটে। কয়েক সেকেন্ড পর ছেড়ে দিয়ে সলজ্জ এক হাসি দিলেন। “No one knows this, OK?”

পারফিউমের গন্ধে রিমির মাথা ঠিকমতো কাজ করছিলো না। কেমন একটা নেশা নেশা ভাব। তার উপর অকস্মাৎ বসের সোহাগে রিমির মাথা আরও ওলোট পালোট হয়ে গেলো।

কিন্তু এটা কি সোহাগ? আমার তো সায় ছিলো না!
পারফিউমের নেশা ভেঙ্গে রিমির আত্মসম্মানবোধ মাথাচাড়া দিয়ে উঠলো।
“ঠাস…!” শব্দে লিফট যেনো কাঁপতে শুরু করলো। বসের গালও লাল হয়ে গেলো। লজ্জায় নাকি ব্যথায়, রিমি সেটা বোঝার আগেই লিফটের দরজা খুলে গেলো।

ঝিম ঝিম মাথা নিয়ে রিমি উত্তর দিলো, “No one will know this.”

৩৩ thoughts on “বস-অধঃস্তন

  1. কোথায় পালালো সত্য?
    দুধের

    কোথায় পালালো সত্য?
    দুধের বোতলে, ভাতের হাঁড়িতে! নেই তো
    রেষ্টুরেন্টে, হোটেলে, সেলুনে,
    গ্রন্থাগারের গভীর গন্ধে,
    টেলিভিশনে বা সিনেমা, বেতারে,
    নৌকার খোলে, সাপের ঝাঁপিতে নেই তো।

    হতাশায় নেই, আশাতেও নেই
    প্রেম-প্রীতি ভালবাসাতেও নেই
    এমন কি কালোবাজারেও নেই
    কোথায় গেলেন সত্য?

    সত্য ফেরারী (আসাদ চৌধুরী…

    ভাল লাগল… দুর্দান্ত!! :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া:

  2. থাবড়ার প্রতিধ্বনি এইখানেও
    থাবড়ার প্রতিধ্বনি এইখানেও শোনা যাচ্ছে। :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: গল্পের সার্থকতাই এখানে… :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :মুগ্ধৈছি: চমৎকার… :ফুল: :ফুল: :বুখেআয়বাবুল: চমৎকার… :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ:

  3. ঝিম ঝিম মাথা নিয়ে রিমি উত্তর

    ঝিম ঝিম মাথা নিয়ে রিমি উত্তর দিলো, “No one will know this.” –

    ছোট হলেও দুর্দান্ত… :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :তালিয়া: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :ফুল: :ফুল: :ফুল: :ফুল: :ফুল:

  4. কানের ভিতর একটি আওয়াজ যেন
    কানের ভিতর একটি আওয়াজ যেন গেঁথে গেল… ঠাস!
    আহ বেচারা, আমি হলে লাল না হয়ে রাগে, দুঃখে, অভিমানে কালো হয়ে যেতাম!

    বরাবরের মত দারুন লিখেছেন ম্যাডাম । এই গল্পটির জন্য স্পেশাল ধন্যবাদ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *