শিশু কিশোরদের নিয়ে ঠাট্টা-তামাশা বন্দ্ব হবে কি?

মন্ত্রীর মহোদয়ের আগমন.. শুভেচ্ছা স্বাগতম।ভূমি মন্ত্রী, ধর্ম মন্ত্রী….. শুভেচ্ছা স্বাগতম। এভাবেই হয়তো সেদিন প্রতিধ্বনি হয়েছিল ঈশ্বরদী আর ময়মনসিংহের আকাশ বাতাস।

না,বনিতা করছি না।খুলেই বলছি।আপনারা দুই জনই মন্ত্রী।একজন মাননীয় ধর্ম মন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান। অপরজন মাননীয় ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরিফ দিলু।সদ্য অভিষিক্ত হলেন আপনারা দু’ জনই।দুই জনকেই বরণ করেছে স্থানীয় জনগণ।তাইতো বর্ণাঢ্য আয়োজন। তোরণ নির্মাণ।মোটর সাইকেল আর মাইক্রোবাসের সুসজ্জিত বহর।কোনটারই কমতি নেই। মন্ত্রী মহোদয়ের আগমন বলে কথা!


মন্ত্রীর মহোদয়ের আগমন.. শুভেচ্ছা স্বাগতম।ভূমি মন্ত্রী, ধর্ম মন্ত্রী….. শুভেচ্ছা স্বাগতম। এভাবেই হয়তো সেদিন প্রতিধ্বনি হয়েছিল ঈশ্বরদী আর ময়মনসিংহের আকাশ বাতাস।

না,বনিতা করছি না।খুলেই বলছি।আপনারা দুই জনই মন্ত্রী।একজন মাননীয় ধর্ম মন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান। অপরজন মাননীয় ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরিফ দিলু।সদ্য অভিষিক্ত হলেন আপনারা দু’ জনই।দুই জনকেই বরণ করেছে স্থানীয় জনগণ।তাইতো বর্ণাঢ্য আয়োজন। তোরণ নির্মাণ।মোটর সাইকেল আর মাইক্রোবাসের সুসজ্জিত বহর।কোনটারই কমতি নেই। মন্ত্রী মহোদয়ের আগমন বলে কথা!

ভাবছেন, খটকা লাগলো কোথায়? খটকা আমার মতো অনেকেরই লেগেছে।আর তাইতো পত্রিকায় সংবাদ শিরোনামও হয়েছে। না, খটকা আপনাদের নির্ভেজাল আগমনে কিনবা প্রস্থানেও নয়। খটকাটা অন্য জায়গায়।আপনারা মন্ত্রী।এলাকায় যাবেন সেটাই তো স্বাভাবিক। ওটা তো আপনাদেরই এলাকা।আপনারা তো যাবেনই।মানুষের সেবা করবেন। কারণ আপনারা রাজনীতিবিদ! মানুষের সাথে দেখা করবে, কথা বলবেন, বক্তৃতা করবেন, ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন, ব্রিজ কালবার্ট উদ্বোধন করবেন।আবার মানুষ নিয়ে পলিটিক্স করবেন।রাজনীতির মধ্যে ‘পলিটিক্স’ ঢুকিয়ে তামাশা করবেন। এই সবই তো আপনাদের কাজ। আরো কত কিছু!

মন্ত্রিত্ব পেয়ে আপনারা দু’জনই নিজ এলাকায় গেলেনও বটে।অভর্থনাও পেলেন। ফিরেও আসলেন।কিন্তু মন্ত্রী মহোদয়েরা কি জানতেন আপনাদের অভ্যর্থনা জানাতে গিয়ে কড়া রোদে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে অপেক্ষাকালে বেশ ক’জন শিশু শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পরেছে? কেউ বা সংজ্ঞাও হারিয়ে ফেলেছে? গুরুতর আহত শিক্ষার্থীকে হাসাপাতালেও ভর্তি করা হয়েছে? আপনারা কি জানতেন আপনাদের আগমনের কারণে শত শত ছাত্র-ছাত্রীকে সেদিন ক্লাস বর্জন করতে হয়েছিল? আপনারা কি জানতেন আপনাদের আসা উপলক্ষে উপজেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ওইদিন বন্ধ রাখা হয়েছিল?

সাবাস মাননীয় মন্ত্রীদ্বয়। সাবাস আপনাদের উভয়কে। সাথে আপনাদের রাজনৈতিক দলকে তো বটেই।এইতো চাই।এমনটি না হলে কী আর আপনারা জনগনের মন্ত্রী? কী বিশাল সৌভাগ্য আপনাদের।সোনার চামচ মুখে নিয়ে জন্মেছিলেন এই দুঃখিনী বাংলার মাটিতে! আপনাদের আগমনে সারি সারি মানুষের অভ্যর্থনা। চারিদিকে জনতার ঢল।জনসভা লোকে লোকারণ্য।বৃদ্ব নারী-পুরুষ, যুবক-যুবতী।সাথে শিশু কিশোর ই বাদ যাবে কেন? হোকনা কুয়াশাছন্ন বিদগুটে শীতের সকাল। কিনবা তপ্ত রোদ আর ভ্যাপসা গরম।তাতে কার কী আসে যায়? হাত তালি আর ফুলেল শুভেচ্ছা।এই সব তো আপনাদের জন্যেই ।আর কী চাই?

আপনাদের রাজনৈতিক মার প্যাঁচের মাইনকা চিপায় পড়ে শিশু কিশোরদের শিক্ষার সাড়ে বারোটা বেজেছে আরো অনেক আগেই।এতেও আপনাদের তিয়াস মিটেনি! হরতালে বন্দ্ব।অবরোধে বন্দ্ব। আর এখন এইসব কী দেখছি? আপনারা মন্ত্রী হয়েছেন তো কী হয়েছে? মন্ত্রী হয়ে আপনারা অভ্যর্থনা নিবেন আর স্কুল কামাই করে কড়া রোদে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকবে কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীরা? অসুস্থ হয়ে পড়বে? এটা তো হতে পারে না।এবং হতে দেয়া যায় না।প্লীজ একটু কান পেতে শুনুন,ব্রিটেনে একজন শিক্ষার্থীকে শুধু মাত্র দেরিতে স্কুলে পৌছানোর জন্যে তার পিতামাতাকে ৬০ পাউন্ড স্টার্লিং জরিমানা দিতে হয়।এটা জনস্বার্থে আদালত কর্তৃক নির্ধারিত। আর আমরা দেখছি কি? বলুনতো, শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জনে বাধ্য করায় কার জরিমানা হওয়া উচিত?

আপনাদের আগমন উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের রাস্তায় দাঁড় করানো একটি নির্লজ্ব তামাশা ছাড়া আর কী হতে পারে? মাননীয় মন্ত্রীদ্বয়, শিশু কিশোরদের নিয়ে এই ঠাট্টা-তামাশা অচিরেই বন্দ্ব হবে কি?

২ thoughts on “শিশু কিশোরদের নিয়ে ঠাট্টা-তামাশা বন্দ্ব হবে কি?

  1. রাজনীতির মধ্যে ‘পলিটিক্স’

    রাজনীতির মধ্যে ‘পলিটিক্স’ ঢুকিয়ে তামাশা করবেন।

    আমরা যত দিন তামাসার উপযুক্ত থাকব ওরা ততদিন তামাসাই করবে । এটাই স্বাভাবিক ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *