জন্মদিন পালন, স্মরন ও উৎযাপন!

অনেক অনেক বছর আগে যখন পৃথিবীতে মানুষ প্রথম আসা শুরু করে তখন জন্মদিন শব্দটি তো দূরের কথা তখন হয়তো দিন আর রাত অর্থাৎ সূর্য উঠা আর সূর্য অস্ত যাওয়া ছাড়া আর কিছুই তারা গণনা করতে পারতো না। ধীরে ধীরে মানুষ গণনা শিখে, দিন তারিখ মাস ইত্যাদির হিসাব নিকাশ করতে শিখে। কিন্তু তারপরেও কি তারা প্রতিবছর জন্মদিন পালন করতো? হয়তো না!


অনেক অনেক বছর আগে যখন পৃথিবীতে মানুষ প্রথম আসা শুরু করে তখন জন্মদিন শব্দটি তো দূরের কথা তখন হয়তো দিন আর রাত অর্থাৎ সূর্য উঠা আর সূর্য অস্ত যাওয়া ছাড়া আর কিছুই তারা গণনা করতে পারতো না। ধীরে ধীরে মানুষ গণনা শিখে, দিন তারিখ মাস ইত্যাদির হিসাব নিকাশ করতে শিখে। কিন্তু তারপরেও কি তারা প্রতিবছর জন্মদিন পালন করতো? হয়তো না!

কারন তখন মানুষের অনেক বেশি কাজ করতে হতো। এখনকার মতো এতো এতো তথ্য প্রযুক্তির ব্যাবহার তখন ছিলোই না। প্রতি বছর জন্মদিন পালন করার সময় কোথায় তাদের! তখন হয়তো মানুষ একশো বছর পরপর তাদের জন্মদিনের কথা স্মরন করতো কাজের ফাকে একটু সময় বের করে। সময়ের পরিবর্তনে মানুষ আরো বেশি সভ্য ও আধুনিক হতে থাকে। কিছুদিন পর থেকে হয়তো মানুষ পঞ্চাশ বছর পরপর তাদের জন্মদিন স্মরন করা শুরু করে। এভাবে বারো বছর, দশ বছর এবং বর্তমানে এক বছর পর পর জন্মদিনকে স্মরন ও পালন করার প্রথা চালু হয়ে গেছে।

ভবিষ্যতে মানুষ আরো আধুনিক ও তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে পরবে। একসময় হয়তো মানুষের হাতে কাজ করার মতো আর কিছুই থাকবে না। সব কাজ প্রযুক্তি করে দিবে। তাহলে মানুষ তখন করবেটা কি?

কি আর করবে, এখন ইতো অনেক অনেক গুরুত্বপূর্ণ দিবসের পাশাপাশি কত আজেবাজে দিবস পালন করে। এখন যেমন প্রতি বছর একবার জন্মদিন পালন করে তখন খুব সম্ভবত মানুষ প্রতি মাসে একবার জন্মদিন পালন করবে। কারও জন্মদিন জানুয়ারির এগারো তারিখ হলে সে ফেব্রুয়ারির এগারো তারিখ, মার্চের এগারো তারিখ এভাবে তার জন্মদিন পালন করেই যাবে। একত্রিশ ওয়ালারা বছরে জন্মদিন একটু কম পালন করবে এই আরকি!! হাতে কাজ নাই কি আর করার।
এভাবে চলতে থাকলে এক সময় হয়তো জন্মদিন সপ্তাহে নেমে আসতে পারে। যার জন্ম শুক্রবারে সে প্রতি শুক্রবারেই তার জন্মদিন পালন শুরু করবে। প্রত্যেক সপ্তাহেই তার জন্মদিনের পার্টি হবে। মানুষের হাতে কাজ থাকবে না এছাড়া আর কিইবা করবে। এমনও হয়তো হবে যে দৈনিক জন্মদিন পালন শুরু হয়ে যেতে পারে। রাত আটটায় জন্ম নেয়া বাচ্চার পরের দিন রাত আটটায় কেকে কেটে জন্মদিন পালন হবে আর গান বাজবে হেপি বার্থডে টু ইউ………

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *