কে?

:কেন এমন হয়?
কেন হচ্ছে এমন?
জ্বলছে আগুন পথে ঘাটে
পুড়ছে মানুষজন।

:কম তো নয় ৪৩ বছরের
পঁচা-বাসি অর্জন।

:সে কি কথা?
আপনারা সব নেগেটিভলি নেন।

:তবে পজিটিভ কিছুর ফিরিস্তি দেন।



:কেন এমন হয়?
কেন হচ্ছে এমন?
জ্বলছে আগুন পথে ঘাটে
পুড়ছে মানুষজন।

:কম তো নয় ৪৩ বছরের
পঁচা-বাসি অর্জন।

:সে কি কথা?
আপনারা সব নেগেটিভলি নেন।

:তবে পজিটিভ কিছুর ফিরিস্তি দেন।

:পোষাক রপ্তানিতে প্রায় শীর্ষে এদেশ,
বৈদেশিক রিজার্ভ আছেই নাকি বেশ।
বিদেশ থেকে আসছে রেমিটেন্স,
তারপরও ৪৩ বছরে দেখেন না
কোনও চেঞ্জ!!

:কার শ্রমে,কার ঘামে?
জীবন বিকায় ছাইয়ের দামে,
মাস শুরুতেই পকেট ফাঁকা
এভাবেই তো চলছে জীবনের চাকা।

:খাদ্যে তো আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ,
রাশি রাশি ফলে অন্ন।

:কৃষক কি পায় তার দাম?
চালের দাম কেন বাড়ে?
কে লুটে তার কষ্টের ঘাম?

:আজ্ঞে মশাই!বি প্র্যাকটিকেল,
দেশটাতো গরিব!
এতসব রাতারাতি?
পুরাই আজিব!

:কিভাবে বাড়ে ধনীর ধন?
হাজারগুণে ফুলেন-ফাপেন
রাজনীতি কীট গণ?

:ক্ষমতায় যে থাকে
তার তো কিছুটা বাড়ে,
এটাইতো দুনিয়ার নিয়ম।

:ব্রিটিশ লুটেছে
পাকিরা শুষেছে
বিরোধী ত্যানারা
বাড়িয়েছে তো ঢেড়,
লুটের বেলায় নেই তো হের ফের!

:সংবিধান আর নিরপেক্ষ
এই নিয়ে যখন টানাটানি,
৪৩ বছরের সাথে এর
সম্পর্কটা কি শুনি?

:সংবিধান কি শুধুই নির্বাচনী?
আসল কথা তো একটাই-
কে হবে ক্ষমতার রাণী?
“গণতন্ত্র-মানবাধিকার
সমাজতন্ত্র-শোষণমুক্তি
জাতীয় স্বার্থ-জনস্বাস্থ্য
ধর্ম নিরপেক্ষতা-উপজাতিসত্তা
শিক্ষা-নৈতিকতা….”
৪৩ বছরে এই ধারা
বাস্তবায়িত হয়েছে কি একটিবার?

:আস্তে মশাই!
এখন ওকথার সময় নয়,
রুখতে হবে শিবির-জামাত-রাজাকার।

:শুধু কপটতার ব্যালটে
আর জবরদস্তির বুলেটেই
করবেন জয় জয়কার?
প্রয়োজন-
জ্ঞানের আলোয় প্রচারিত
নিষ্কলঙ্ক মানবতার,
অথচ ৪৩ বছরে ধ্বস নেমেছে-
শিক্ষা-সংস্কৃতি-নৈতিকতার।

:শিক্ষার হার তো বেড়েছে।

:চেতনার মানটা কোথায় নেমেছে?
পরিমল কে?সাভারে যারা করল ধর্ষন-
সবাইতো শিক্ষিতজন।

:আওয়াজ তো উঠেছে-
করতে হবে লিঙ্গ কর্তন।

:লিঙ্গ কর্তনেই কি সব সমাধান?
নাটক-সিনেমা-বিজ্ঞাপনে
যৌনতার উন্মুক্ত আহ্বান।

:এর সাথে ৪৩ বছরের কি সম্পর্ক?

:শত্রুর মুখোমুখি দাড়িয়ে যে যুবক
মৃত্যুকে করেছিল নির্ভয়ে আলিঙ্গন,
দেশ মাতার মান বাঁচাতে
মা-বোনের মান বাঁচাতে
নিপীড়িতের জান বাঁচাতে
লড়েছিল যে মরণ পণ,
সে কেন আজ খুনি,কেন সে ধর্ষক?
সে কেন আজ লাঠিয়াল?
কে বানালো তাকে বোমাবাজ?
কে বানালো চাঁদাবাজ?
কে বানলো তাকে কোপা শাকিল,
কে বানালো পরিমল-জুলহাস?
কে বানালো আজ তাকে
বর্বর মৌলবাদের দাস?

:থামুন!থামুন!!প্লিজ!!!

৭ thoughts on “কে?

  1. আহ দারুণ অসাধারণ! ছন্দ, শব্দ
    আহ দারুণ অসাধারণ! ছন্দ, শব্দ প্রয়োগ লা জবাব। বিশ্লেষণ নিখুঁত। শুধু একটা জায়গায় দ্বিমত-

    :আস্তে মশাই! এখন ওকথার সময় নয়, রুখতে হবে শিবির-জামাত-রাজাকার। :শুধু কপটতার ব্যালটে আর জবরদস্তির বুলেটেই করবেন জয় জয়কার

    গণতন্ত্রের ফাঁক গলে আপনি কি চান ফের জাতির পতাকা খাঁমচে ধরুক পরাজিত শকুন?

    1. ধন্যবাদ।
      দ্বিমত থাকবেই নইলে

      ধন্যবাদ।
      দ্বিমত থাকবেই নইলে সভ্যতার বিকাশ থেমে যাবে।তবে দ্বিমতে যে অর্থ আপনি ভেবে নিয়েছেন আমি তাতে মোটেও বিশ্বাসী নই।যে জায়গাটুকুতে আপনার দ্বিমত তা সহ পরের লাইন দুটো খেয়াল করুন।“শুধু”(খেয়াল কইরা) ব্যালট আর বুলেটে জামাত-মৌলবাদ দমন করার চিন্তাটা ভুল।অপ্রিয় মনে হলেও তা সত্য।কারণ এদেশের শতকরা ৮০ভাগ মুসলিম অধিবাসীর শতকরা ৮৫-৯০ জন ধর্মীয় কুসংস্কারাচ্ছন্ন।এমন একটা সমাজে এই বৃত্তটাকে ভাঙ্গার যখন প্রয়োজন তখন কি কিছু ধর্মীয় অনুশাসন উপরে ফেলতে হবে না?জোর করে কি তা সম্ভব?একটা আইডোলজীকে অন্য আরেকটা মানবিক,উন্নততর আইডোলজি দিয়েই পরাস্ত করা সম্ভব।আর এর জন্য জ্ঞানের সাহায্যে নিষ্কল্ঙ্ক মানবতার প্রচার করে মনবতাবিরোধীদের বিরুদ্ধে একটি ভিত্তি নির্মানের প্রয়োজন।৪৩ বছরে তা গড়ে উঠে নি।আজও সে উদ্যোগ নেই।ক্যান্সার হলে উন্নত চিকিৎসা লাগে,টোটকা হাকিমী-কবরাজীর দ্বারস্থ হলে রোগীর মরন ঠেকায় কে?

  2. সে কেন আজ খুনি,কেন সে

    সে কেন আজ খুনি,কেন সে ধর্ষক?
    সে কেন আজ লাঠিয়াল?
    কে বানালো তাকে বোমাবাজ?
    কে বানালো চাঁদাবাজ?
    কে বানলো তাকে কোপা শাকিল,
    কে বানালো পরিমল-জুলহাস?
    কে বানালো আজ তাকে
    বর্বর মৌলবাদের দাস? – See more at: http://istishon.blog
    /node/6203#sthash.tDEwnlpI.dpuf

    ছন্দ অতো জমাট বদ্ধ না হলেও । ইটস আ নাইস পয়েম !

  3. চমৎকার লিখেছেন ভাইজান কাব্য
    চমৎকার লিখেছেন ভাইজান কাব্য এবং ছন্দ দুটি খুব সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলতে পেরেছেন ……… :থাম্বসআপ:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *