২৬শে মার্চ পর্যন্ত এই আন্দোলন চালিয়ে নেওয়া হোক আর দরকার হলে বিজয় দিবস পর্যন্ত চলবে ।

অন্যায় করে যে ,আর অন্যায় সহে যে দুজনেই সমান অপরাধী !
আমি অপরাধী হতে চাই না ।শুধু একটা কথাই বলব ২৬শে মার্চ পর্যন্ত এই আন্দোলন চালিয়ে নেওয়া হোক । ২৬শে মার্চে জামাত-শিবির ও ধর্ম ভিত্তিক রাজনীতি আইন করে নিষিদ্ধ করার আল্টিমেটাম দেওয়া আছে । দরকার হলে আইন মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্ম সুচী করা হোক আর কঠিন ,কঠিন কর্মসুচি ঘোষণা করা হোক । জামাত-শিবিরের হরতালের দিন সমাবেশ ডাকা হোক । আমরা সাথে ছিলাম ,থাকব ।

অন্যায় করে যে ,আর অন্যায় সহে যে দুজনেই সমান অপরাধী !
আমি অপরাধী হতে চাই না ।শুধু একটা কথাই বলব ২৬শে মার্চ পর্যন্ত এই আন্দোলন চালিয়ে নেওয়া হোক । ২৬শে মার্চে জামাত-শিবির ও ধর্ম ভিত্তিক রাজনীতি আইন করে নিষিদ্ধ করার আল্টিমেটাম দেওয়া আছে । দরকার হলে আইন মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্ম সুচী করা হোক আর কঠিন ,কঠিন কর্মসুচি ঘোষণা করা হোক । জামাত-শিবিরের হরতালের দিন সমাবেশ ডাকা হোক । আমরা সাথে ছিলাম ,থাকব ।
এখন দেখা যাবে যুদ্ধ ক্ষেত্রে কে ,কে থাকে ? আমাদের উপস্থিতিই আমাদের শক্তি । এখন দেখব কোন কোন মন্ত্রী আমাদের এখানে এসে সংহতি প্রকাশ করে । মুখে বলে জামাত-শিবিরের রাজনীতি বন্ধ করার কথা কিন্তু গোপনে যেন তারা নিজেরাই জামাত-শিবিরের হাতে জিম্মি ।
আমরা ঘর থেকে বেরোলাম , স্লোগান দিলাম , দুইজন শহীদ হল ।আমাদের একটাই স্বার্থ আমরা যেন পাপমুক্ত দেশে বসবাস করতে পারি । কতটা দেশ দ্রোহী হলে একটা রাজনৈতিক দলের মানুষ নিজের দেশের পতাকা পুরতে পারে । এখন যদি শহীদ মুক্তি যোদ্ধারা বেচে থাকত তাহলে তারা ভাবত এই দেশ স্বাধীন করেছি ,কিন্তু এই দেশের মানুষ তা কাজে লাগাতে পারে নাই ।
আমাদের এখন একটা জিনিস দরকার মনোবল ।আমরা যারা আন্দোলনে জড়িয়ে গেছি তারা যেন পালিয়ে না যাই । পরাজিত সৈনিক মরেও শান্তি পায় না । আমাদের আন্দোলনের শেষের অবস্থা দেখে আমার মনে হয়েছিল ধীরে ধীরে এ যেন নেতিয়ে পড়েছে । কাল যদি আবার বলা হয় আমাদের আন্দোলন থেকে ওমুক দিন মহাসমাবেশ ডাকা হয়েছে আপনারা সময়মত এসে পরবেন ।তাহলে ঐদিন রাত থেকেই জামাত-শিবির তাদের তান্ডব আবার চালাবে । এবং এরকম হতে দেওয়া ঠিক হবে না । আমাদের দাবী না মেনে নেওয়া পর্যন্ত আন্দোলন টিকিয়ে রাখতে হবেই এর কোন বিকল্প নেই ।দরকার হলে বিজয় দিবস পর্যন্ত চলবে ।
কিন্তু পিছিয়ে আসলেই সব শেষ হয়ে যাবে ।

১১ thoughts on “২৬শে মার্চ পর্যন্ত এই আন্দোলন চালিয়ে নেওয়া হোক আর দরকার হলে বিজয় দিবস পর্যন্ত চলবে ।

    1. এটা কোন ব্যাপার না । আসলে আমি
      এটা কোন ব্যাপার না । আসলে আমি সেইদিন রাতে আমার কাছের মানুষদের কাছে ঘটনা গুলো শুনি । আর আমি এত ভয় পেয়ে যাই যে আমি একটা অগোছালো পোস্ট দিয়ে দেই ।

  1. আপনার আগের পোষ্টের বিষয়বস্তু
    আপনার আগের পোষ্টের বিষয়বস্তু খুব গুরুত্বপুর্ণ ছিল।যদিও সেটা আজকের আগে আমি ঘুনাক্ষরেও বুঝতে পারি নাই যে কোন কারনেই হোক।তাই এখানে দুঃখ প্রকাশ পুর্বক ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি আগের পোষ্টে করা মন্তব্যটির জন্যে।

  2. দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত
    দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত রাজপথ ছাড়বো না ঠিক আছে, তয় হুদা কামে রাজপথে থাইক্যা লাভ নাই। জামাত শিবির টুট টুট পুতরা জাতীয় পতাকা ছিড়ে ফেলবে আর পাব্লিক রাজপথে নাইমা গানা বাজানা করবো, এমুন প্রতিবাদের মাইরে বাপ। আমরা সহিংস হতে চাই

    1. আমি সেরকম কিছু লিখতে চাইছিলাম
      আমি সেরকম কিছু লিখতে চাইছিলাম । কারন যারা রাজাকারের মুক্তি চায় তারা নিজেরাও রাজাকার আর তাদেরকেও রাজাকারের মতই মারা উচিৎ । নাহলে ওদের সন্তানরা আরো ডেঞ্জারাস হবে ।

  3. ডেঞ্জারাস হইতে আর বাকি আছে
    ডেঞ্জারাস হইতে আর বাকি আছে কি। রাজাকারের বিবিরা সব ডজন ডজন শিবির পইদা করছে। একাত্তরের পর প্রথম ও প্রধান ভুল হইছে রাজাকারগো প্রজনন ক্ষমতা নষ্ট না করা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *