অনুগল্প – যৌনাবেগ – খামচি

এই শহরের মানুষ সুযোগ সন্ধানী এবং এই শহরের প্রতি ইঞ্চি জুড়ে প্রেম । ফলে মানুষ উপলক্ষ্য খুঁজে । উপলক্ষ্য খুঁজে প্রেম প্রকাশের ।

শাহজাহানের ভিতরে প্রেম আছে । সে টের পায় কিন্তু প্রকাশ করতে পারে না । স্কুলে থাকাকালীন সময়ে নাহারকে ছত্রিশটা লাভ লেটার লিখেও শেষ পর্যন্ত তার হাতে তুলে দিতে পারেনি । লজ্জা লজ্জা লাগতো । কলেজে এসেও তাই হচ্ছে । ঈশিতা নামের এক চিকন চাকন মেয়ের প্রতি তার প্রেম আছে । ঈশিতাকে দেখলে তার বাম পা কাঁপে । বুক ধকধক করে । চোখের মণি স্থির হয়ে যায় । এইসব যে অগাধ প্রেমের লক্ষণ । অথচ শাহজাহান প্রকাশ করতে পারছে না । সময় কাটে , লজ্জা ভাব কাটে না ।


এই শহরের মানুষ সুযোগ সন্ধানী এবং এই শহরের প্রতি ইঞ্চি জুড়ে প্রেম । ফলে মানুষ উপলক্ষ্য খুঁজে । উপলক্ষ্য খুঁজে প্রেম প্রকাশের ।

শাহজাহানের ভিতরে প্রেম আছে । সে টের পায় কিন্তু প্রকাশ করতে পারে না । স্কুলে থাকাকালীন সময়ে নাহারকে ছত্রিশটা লাভ লেটার লিখেও শেষ পর্যন্ত তার হাতে তুলে দিতে পারেনি । লজ্জা লজ্জা লাগতো । কলেজে এসেও তাই হচ্ছে । ঈশিতা নামের এক চিকন চাকন মেয়ের প্রতি তার প্রেম আছে । ঈশিতাকে দেখলে তার বাম পা কাঁপে । বুক ধকধক করে । চোখের মণি স্থির হয়ে যায় । এইসব যে অগাধ প্রেমের লক্ষণ । অথচ শাহজাহান প্রকাশ করতে পারছে না । সময় কাটে , লজ্জা ভাব কাটে না ।

আজ শাহজাহান প্রেম প্রকাশ করবে বলে সে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তা অনেকাংশে বাস্তবায়নের পথে । সে ভেবে দেখেছে লজ্জা কাটানোর জন্য তার ভিতরের প্রেম ভাব বাইরে জোরালো আকারে প্রকাশ করতে হবে । সেটি সম্ভব সার্বজনীন প্রেম প্রকাশে ।
বিজয় দিবস উপলক্ষে তাদের জেলা শহরের নয়াখাল মাঠে দিন আজ ব্যাপী ফাংশনের আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে নানান কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে মহান বিজয় দিবস স্মরণ করা হচ্ছে । শাহজাহান সকাল থেকে মাঠে উপস্থিত । আজ তার গায়ে লাল পাঞ্জাবি । গালে সাদা লাল রঙ্গে লিখা – বিজয় । ঘাড়ে মাঝারি আকারের একটি জাতীয় পতাকা । মোবাইলে ছবি তুলে দেখেছে তাকে বেশ প্রেমিক প্রেমিক লাগছে । দেশ প্রেমিক ।

দিনের শুরু থেকে সে উৎসাহী । বুকের বা পাশে হাত রেখে পতাকা উত্তোলন দেখেছে , বড় বড় মানুষের ভাষণ শুনেছে গভীর মনোযোগে । জেলা পুলিশ , রেড ক্রিসেন্ট , স্কাউট সদস্যদের কুচকাওয়াজ দেখেছে । তবে তার সবচেয়ে ভালো লেগেছে মুকুল নিকেতন স্কুলের ছাত্র ছাত্রীদের অংশগ্রহণে ড্রিল পর্ব । কিভাবে কিভাবে যেন বাচ্চাগুলো সবুজ মাঠে শাপলা ফুল হয়ে ঢেউ দিয়ে দিল আবার দৌড়াতে দৌড়াতে হঠাৎ করে হয়ে গেল দোয়েল পাখি । শাহজাহান বিস্ময় । সে অনুভব করতে পারছিল তার প্রেম মূলত দেশের প্রতি । নাহার কিংবা ঈশিতা খণ্ডকালীন অনুভূতি ছিল । কিন্তু দেশ ! সেটা অন্যরকম । আসল ।

বিকেলে সম্মিলিত জাতীয় সংগীত গাওয়া হবে । প্রচুর মানুষ মাঠে উপস্থিত হচ্ছে । শাহজাহান লক্ষ্য করলো এদের ভিতরে তার বহু পরিচিত ছেলে মেয়ে আছে । তারা সবাই জোড়া জোড়া বানিয়ে জাতীয় সংগীত গাইতে এসেছে । শাহজাহানের খুব রাগ হয় ।
– এরা কি জাতীয় সংগীত গাইতে এসেছে নাকি মেয়ে নিয়ে ফুর্তি করে এসেছে । সে ভাবে । যত ভাবে তত মন খারাপ হয় । এমনটা করা ঠিক না । মেয়ে নিয়ে ডেটিং করতে নয়াখালে কেন আসতে হবে । রাঙ্গামোড়ের পার্কে চলে যা । নির্জন আছে । চুটিয়ে প্রেম কর । দেশের প্রেমে নিজের প্রেম কেন ডুকাবি হারামজাদা ! পরিচিত ছেলেগুলো খুব ভাব নিয়ে একটা মেয়ের হাত পাকড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে । আর মেয়েগুলোয় না এমন কেন । শাড়ি গয়না পড়ে রঙ্গিল সাজে নয়াখাল মাঠে চলে এসেছে ! আরে বাবা , এইটা কি বিয়ে বাড়ি যে সাজুগুজু করে আসতে হবে ? শাহজাহানের এইসব ভালো লাগে না । এই ছেলে মেয়েগুলোর ভিতর দেশের প্রতি প্রেম নেই । এদের আছে শরীররের প্রতি শরীররের কামনা ।

ইতিমধ্যে প্রচুর মানুষ উপস্থিত হয়েছে । মানুষের মাথায় নয়াখাল মাঠ গিজগিজ কালো । অল্প কিছুক্ষনের মধ্যেই স্পিকারে জাতীয় সংগীত গাওয়া শুরু হবে । সবাই দাড়িয়ে আছে । প্রস্তুত । শাহজাহান মাঠের ডান পাশের কোনায় দাঁড়িয়েছে । তার এতো ভিড় ভালো লাগে না । শাহজাহানের ঠিক সামনে একটি মেয়ে দাড়িয়ে । মেয়েটির পড়নে টিয়া সবুজ শাড়ি , লাল পাড় দেয়া । মেয়েটি উচ্চতায় খাটো । অদ্ভুত বিষয় তার সাথে কোন সঙ্গী নেই । আশেপাশে যারা আছে তাদের কাউকে মেয়েটির সঙ্গী বলে মনে হচ্ছে না শাহজাহানের ।

লাউড স্পিকারে জাতীয় সংগীত শুরু হল । সবাই একসাথে সামনের দিকে তাকিয়ে কণ্ঠে কণ্ঠ মিলিয়ে জাতীয় সংগীত গাইছে । শাহজাহান ঠিকমতো কোরাসে অংশ নিতে পারছে না । তার মাথা এলোমেলো হয়ে আছে । টিয়া সবুজ শাড়ি পড়া মেয়েটির পিছন দিক তাকে তীব্রভাবে আকর্ষণ করছে । যেন এক সমুদ্র ঢেউ তাকে ডুবিয়ে দিতে আমন্ত্রণ জানাচ্ছে । শাহজাহান খপ করে হাত দিয়ে দিল টিয়া সবুজ মেয়েটির পিছন অংশে ।

ভিড় , অনেক ভিড় । চারিদিকে জাতীয় সংগীতের মূর্ছনা । শাহজাহান ক্রমশ ভিড়ে মিশে যাচ্ছে ।

টিয়া সবুজ শাড়ি পড়া মেয়েটির চোখে পানি । তার খুব কষ্ট হচ্ছে তারপরও সে চিৎকার করে গাইছে –

মা, তোর বদনখানি মলিন হলে আমি নয়ন জলে ভাসি। আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি

——–

গল্প – যৌনাবেগ – সুরভী মেডাম

৮ thoughts on “অনুগল্প – যৌনাবেগ – খামচি

  1. আজকের গল্পটা এই শিরোনামে না
    আজকের গল্পটা এই শিরোনামে না হলেই ভাল হত।। শুধু প্রচণ্ড আবেগের দেশপ্রেম জরিত বলে না তার থেকে বেশী শিরোনামের সাথে গল্পের অপ্রাসঙ্গিকতার কারণে…
    আরও ভাল কিছুর অপেক্ষায় থাকলাম!!

    1. আমি এইখানে ফোকাস করেছি – দেশ
      আমি এইখানে ফোকাস করেছি – দেশ প্রেম মূলত কি ? সেটা কিভাবে প্রকাশ করা হয় ?

      শাহজাহানের ধারণা সে দেশ প্রেমি । সে নিজেকে প্রমান করছিল । কিন্তু একজন নারীকে যে নুনতম শ্রদ্ধা করতে জানে না তার মতো কুলাঙ্গার কোনদিন একটি বিজয় দিবসে লাল সবুজের পতাকা ঘাড়ে ঝুলিয়ে দেশ প্রেমিক হতে পারে না । দেশ প্রেম কেবল মাত্র একদিন বিজয়ে সীমাবদ্ধ নয় । দেশ প্রেম বাক্তি মানুষের প্রতিটি সেকেন্ডের কাজে । প্রতিটি সেকেন্ড ।

      মতামতের জন্য অনেক ধন্যবাদ তারিক ভাই , আমি মূলত আমার গল্পের ব্যাখ্যা করি না । যে ভাবে ইচ্ছা ব্যাখ্যা করে নিবে। কিন্তু আপনি আমার খুব কাছের গুরুত্বপূর্ণ একজন রিডার । তাই আমার শিরোনামের মূল উদ্দেশ্য ব্যাখ্যার তাগিদ নিজ থেকে অনুভব করলাম 🙂
      ধন্যবাদ :ফুল:

  2. আজকের টা বেশি জমে ওঠে নি!!!

    আজকের টা বেশি জমে ওঠে নি!!!
    নামের সাথে খুব একটা মিলেনি। এতে পরিবর্তনশীল মানব মনের স্বরূপ বোঝাচ্ছে। আ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *