কবি, সুলতা এবং…


রুদ্র মোহাম্মদ ইদ্রিস

যখন সপ্তর্ষিমন্ডলের দিকে তাকাই
মনে হয় সেখানেও তুমি –
সগর্বে হাটছ সুলতার হাত ধরে
দ্রাঘিমার আরো উপরে-




রুদ্র মোহাম্মদ ইদ্রিস

যখন সপ্তর্ষিমন্ডলের দিকে তাকাই
মনে হয় সেখানেও তুমি –
সগর্বে হাটছ সুলতার হাত ধরে
দ্রাঘিমার আরো উপরে-

যে হাত ছুঁয়েছে সুলতার মুখ – গ্রীবা
সে হাত স্পর্শ করেছে হিমাদ্রী।

দিনে দিনে তোমার র্কীতিস্তম্ভ
জমে উঠেছে অন্তহীন বিস্ময় নিয়ে
জ্যোতিষ্কের কক্ষপথে – তুমি অমর পথের যাত্রী।

এক সবুজ আঁচল রমণী হাটে
কবিতার পাতায় পাতায়
টর্চ হাতে – কষ্টের রাতে…

হে কবি তুমি আর সুলতা যখন
বসো পাশাপাশি মুখোমুখি
অবাক তাকিয়ে রয়
একপাশে হিমাদ্রী – অন্যপাশে সপ্তর্ষি ।।

১৯ thoughts on “কবি, সুলতা এবং…

  1. যখন গুয়ের দিকে তাকাই
    মনে হয়

    যখন গুয়ের দিকে তাকাই
    মনে হয় সেখানেও কৃমি –
    সগর্বে হাগছে সুলতার হাত ধরে
    কমোডের আরো উপরে-

    যে হাগু ছুঁয়েছে কবির মুখ – গ্রীবা
    সে হাগু স্পর্শ করেছে হিমাদ্রী।

    দিনে দিনে তোমার কোষ্ঠকাঠিন্য
    জমে উঠেছে হাগুহীন বিস্ময় নিয়ে
    পায়ুষ্কের গুপ্তপথে – তুমি অমর টয়লেট
    যাত্রী।

    এক হলুদ হাগু ছপিনীর হাটে
    কবি তার হাগায় হাগায়
    বদনা হাতে – কোষ্টের রাতে…
    হে রুগী তুমি আর সুলতা যখন
    বসো পাশাপাশি মুখোমুখি
    অবাক তাকিয়ে হাগে
    একপাশে খালেদা জিয়া – অন্যপাশে মতিউর রহমান নিজামী।।

    1. যখন গুয়ের দিকে তাকাই
      মনে হয়

      যখন গুয়ের দিকে তাকাই
      মনে হয় সেখানেও কৃমি –
      সগর্বে হাগছে সুলতার হাত ধরে
      কমোডের আরো উপরে-
      যে হাগু ছুঁয়েছে কবির মুখ –
      গ্রীবা সে হাগু স্পর্শ করেছে হিমাদ্রী।
      দিনে দিনে তোমার কোষ্ঠকাঠিন্য
      জমে উঠেছে হাগুহীন বিস্ময় নিয়ে
      পায়ুষ্কের গুপ্তপথে – তুমি অমর টয়লেট
      যাত্রী।
      এক হলুদ হাগু ছপিনীর হাটে
      কবি তার হাগায় হাগায়
      বদনা হাতে – কোষ্টের রাতে…
      হে রুগী তুমি আর সুলতা যখন
      বসো পাশাপাশি মুখোমুখি
      অবাক তাকিয়ে হাগে
      একপাশে খালেদা জিয়া – অন্যপাশে মতিউর রহমান নিজামী।

      আপ্নের নামে আমি মামলা করুম, মিয়া… হাসতে হাসতে চেয়ার থেকে পইড়া গেলাম… :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :শয়তান: :শয়তান: এমনে অমানুষিকভাবে প্রশংসা করলে কপিকুল কবতে লেখা ছেড়ে দিয়ে কমোডের মইদ্ধে গিয়া লুকাইব যে… :ভেংচি: :হাসি: :হাসি: 😀

    2. আপ্নে বেশী, বেশী খারাপ। কপি
      আপ্নে বেশী, বেশী খারাপ। কপি মাইন্ড খেয়ে কপিতা প্রসব করা বন্ধ করলে আমাদিগকে ব্যাপুক বিনুদুন কি আপ্নে দিবেন? জনগন আপনাকে ক্ষমা করবে? বলেন, আপনি বলেন?

    3. (No subject)
      :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:

  2. আইচ্ছা, সু–লতা আফায় কই
    আইচ্ছা, সু–লতা আফায় কই থাকে?? :বিষয়ডাকী: হেতেরে খুব দেখতে মুঞ্চায়… এই কবতে পইড়া তার অনুভূতি জানতে মুঞ্চায়… :শয়তান: :কল্কি: :দিবাস্বপ্ন: :টাল:

  3. ভাই এই সুলতার হাত থেইকা ক্ষমা
    ভাই এই সুলতার হাত থেইকা ক্ষমা দেন কাল রাতে খোয়াবে দেখলাম সুলতারে নিয়া হাই কমোডের উপর বইসা আছি।সুলিতার কফালে লাল টিফ,জিগাইলে কয় এইটা বসুন্ধরা রেড হিস্যু,কেঁচিদা কাইট্রা কফালে ফরসে। 🙁 😀

  4. কবিবর আপনি লিখতে থাকুন। আপনার
    কবিবর আপনি লিখতে থাকুন। আপনার সৃষ্টিশীল মননে শয়নে-স্বপনে (এবং স্বপ্নদোষে), ঘুমে-জাগরনে, গৃহে-দপ্তরে, বনে-বাদারে, আগাড়ে-ভাগাড়ে লিখতে থাকুন কবিতা। কম্পিউটারে লিখুন, নাতো কাগজে লিখুন। কাগজ না থাকলে সারমেয় কিংবা গোলাম আজম/সা.কা. চৌধুরী/দেলু সাঈদীর পশ্চাৎদেশের চামড়া ছিলে, শুকিয়ে তার উপর লিখুন। কলাপাতায় লিখুন। আর কিছু না থাকলে পাথরে খোদাই করে লিখুন। কবি, আপনিতো জানেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সাহেব একদিনে হিট খান নাই। তবে তিনি আপনার মত পোঁ ভিটামিনযুক্ত “…ন্দানি” খেয়েছিলেন কিনা জানা নাই। তাতে কি? এই পোঁ ভিটামিনযুক্ত “…ন্দানি”ই হোক আপনার প্রেরনার উৎস, Shoeলতা বিষয়ক রোমান্টিকতার অগ্নিতে ঘৃতাহুতি। সেদিন আর বেশী দূরে নয়, Shoeলতা ঘেঁটেঘুঁটে, চেটেপুটে, ঠেলে-খুঁটে, যেদিন আপনি বিশ্বসাহিত্যের আকাশে পন্ডিত শ্রীযুক্ত রসময় গুপ্তের চেয়েও উজ্জ্বলতর নক্ষত্র হয়ে জ্বলে উঠবেন। আপনার প্রতি রইলো আমার অশেষ ভিটামিন “পোঁ” যুক্ত শুভকামনা।

    By the by, কবিবর আপনার নিকট একখান কুশ্চেন ছিল। Shoeলতা মানে কি জুতার ফিতা?

    1. এই মহান কবিকে উদ্দেশ্য করে
      এই মহান কবিকে উদ্দেশ্য করে আমার ছোট্ট রসগোল্লা মিশ্রিত কিছু কথা ছন্দের তালে তালে …… 😀

      এই যে বাঁচা দুলিয়ে পাছা যাইতেছো কোথা ছুটিয়া
      এই যে চাচা বিশ্ব ব্রক্ষ্মান্ড আপনারে যায় খুজিয়া ।।

      কেনো হে বাঁচা আমারে খুজিছো কেনো মনে এতো দন্ধ
      বলি যে চাচা আপনার মেয়ে আমার প্রেমেতে অন্ধ ।।

      বল কি বাঁচা কথা কি সত্য সঙ্কা জাগিছে মনে
      মনের মাঝে গুরুডঙ্কা বাজিতেছে ক্ষণে ক্ষণে ।।

      জি হ্যাঁ চাচা কথাটি সত্য বলিলাম অকপটে
      মনের শঙ্কা দূর করিলাম আসুন ছায়াতটে ।।

      বলি যে বাঁচা মেয়েটি আমার বড়ই লক্ষ্মী সুমতি
      প্রেমের নামে ছলনার ছলে করনাকো দুর্নীতি ।।

      কি বলেন চাচা আপানার মেয়ে আমার জানের জান
      কথা দিলাম চাচা আপনার মেয়ের করিবনা অসম্মান ।। :মাথাঠুকি:

      ক্ষমা সুন্দর নজরে দেখিবেন কবি ……

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *