ফেইসবুকে কাদের মোল্লার ফাঁসি নিয়ে আমাদের সবার পরিচিত প্রোফাইলের স্ট্যাটাস সমুহের সংকলন

পাপ মোচনের শুভ সূচনা

১২ ডিসেম্বর রাত ১০ টা বেজে ১ মিনিট ছিল সমগ্র বাংলাদেশীদের জন্য পবিত্র মুক্ত বাতাসে নিঃশ্বাস নেয়ার শুভ মহরত । আর যাপিত জীবনের অন্যতম অনুষঙ্গ তরুণ প্রজন্মের মত প্রকাশের শক্তিশালী হাতিয়ার ফেইসবুকে জুড়ে ঠিক সেই সময়ের অনুভূতি আমরা ধরে রেখেছি আমাদের ফেইসবুক স্ট্যাটাসে ।

পাপ মোচনের শুভ সূচনা

১২ ডিসেম্বর রাত ১০ টা বেজে ১ মিনিট ছিল সমগ্র বাংলাদেশীদের জন্য পবিত্র মুক্ত বাতাসে নিঃশ্বাস নেয়ার শুভ মহরত । আর যাপিত জীবনের অন্যতম অনুষঙ্গ তরুণ প্রজন্মের মত প্রকাশের শক্তিশালী হাতিয়ার ফেইসবুকে জুড়ে ঠিক সেই সময়ের অনুভূতি আমরা ধরে রেখেছি আমাদের ফেইসবুক স্ট্যাটাসে ।
আমাদের সেই তাৎক্ষনিক বিশুদ্ধ অনুভূতিগুলো সব একসাথে করলে কেমন হয় , সেই ভাবনা থেকেই আমাদের পরিচিত মুখগুলোর ঠিক সেই সময়ের স্ট্যাটাস এইখানে তুলে ধরবার চেষ্টা করা হচ্ছে । এই পোস্ট নিয়মিত আপডেট হবে । কারও পোস্ট এইখানে সংযুক্ত করতে চাইলে কমেন্ট অপশনে তা যোগ করে দিবেন । মূল পোস্টে সেটি আপডেট করা হবে । ধন্যবাদ

Arif Jebtik

khariz! joy bangla!!

Omi Rahman Pial

আপা, সংসদ নির্বাচনে জনগণের একতরফা রায় নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন আপনি ও আপনার দল। অভিনন্দন সেজন্য। গণতন্ত্রের রাজপথে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির বিজয় অবশ্যই আনন্দের। কিন্তু আমি আপা বিজয়ের আনন্দ করতে আসি নাই। বিচারের দাবি নিয়ে আসছি। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবি। আর সেইজন্য আপনার সামনে তুলে ধরছি ১৬ বছর আগে জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেত্রী হিসেবে আপনারই ভাষণের উল্লেখযোগ্য অংশ। ১৯৯৬ সালের ব্যর্থতা নিশ্চয়ই ২০০৯ সালেও দেখতে হবে না আমাদের। স্বাধীনতার পক্ষের আপামর জনগণের বিশ্বাস, এবার আপনি নিশ্চয়ই সেটা করে দেখাবেন। আমরা আশায় বুক বাধলাম।…

২০০৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর উপরের কথাগুলা লেখছিলাম ব্লগে।

কৃতজ্ঞ থাকলাম আপা, , কৃতজ্ঞ মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য নেতৃত্বের জন্য… এ লড়াইয়ের শেষ পর্যন্ত সঙ্গে আছি, কারণ বাঙালী জেনে গেছে একমাত্র আপনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগই দিবে শহীদদের স্বজন ও বীরাঙ্গনাদের ন্যায় বিচার পাওয়ার নিশ্চয়তা

জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু

Lutfor Rahman Riton

কসাই কাদের ঝুললো!
লুৎফর রহমান রিটন

কাদের মোল্লার হইলো ফাঁসি
সোনার বাংলা ভালোবাসি…
একাত্তরের কসাই কাদের ফাঁসির মঞ্চে ঝুললো
জয় বাংলা শ্লোগান ধ্বনি রক্তে কাঁপন তুললো!
তিরিশ লক্ষ শহিদ আজকে অশ্রুতে উৎফুল্ল!
স্বাধীনতার ইতিহাস এক নতুন পাতা খুললো–
কুলাঙ্গার এক হিংস্র ঘাতক ফাঁসির মঞ্চে ঝুললো!
–জয় বাংলা…

শাবাশ শেখ হাসিনা!
অভিনন্দন গণ-জাগরণ মঞ্চ!
স্যালুট ট্রাইব্যুনাল ও আপীল বিভাগ!
ব্রাভো এটর্নি মাহবুবে আলম!

ডাক্তার আইজূ

এনড ইন দ্যা এনড জাসটিস ইজ ডান! শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ বিচার প্রক্রিয়া শুরু করার জন্য-বিচারকদের ধন্যবাদ ন্যায় বিচার করবার জন্য-প্রসিকিউশনকে ধন্যবাদ মামলা উপস্হাপনের জন্য- অনলাইন কমিউনিটিকে ধন্যবাদ বিচার প্রক্রিয়া আস্হা রাখার জন্য।-ওয়ান ডাউন- মোর টু গো! জয় বাংলা জয় বন্গবন্ধু!

দূর্যোধন দূর্যোধন

ভি ফর ……………ভিক্টরি !

Lucky Akter

ফাঁসি কার্যকর৷ মুক্তির সংগ্রাম চলবে৷৷৷৷ জয় বাংলা৷৷৷৷

Nijhoom Majumdar

প্রিয় আব্বা এবং আম্মা, ঠিক এই মুহূর্তে আপনাদের জড়িয়ে ধরে চিৎকার করে আনন্দের কান্না কাঁদতে মন চাইছে। জাস্টিস সার্ভড…

বউরে বেশ উদাস নয়নে দীর্ঘঃশ্বাস ফেলে কাদের মোল্লার রিভিউ শুনানির প্রথম দিন বললাম, “নিজেকে পরাজিত লাগে। আর পরাজিত লাগলেই প্রথম প্রেমিকার কথা মনে পড়ে, প্রথম প্রেমটা ছিলো আমার একটা পরাজয়, বুঝলা?”, বউ রেম্বোর মত আমার দিকে অগ্নি দৃষ্টি দেয়। আমি সেই চাপ সামলে বলি, “আর জয়ী হলে তোমার কথা মনে হয়। তুমিই তো আমার একমাত্র সত্যকারের জয়”, বউয়ের অগ্নি দৃষ্টি থামে না। হাতের আঙ্গুলে হিসেব করে করে বলল, “তুমি তো প্রায়ই ফুটবল আর ক্রিকেট খেলতে গিয়া হাইরা আসতা, তাইনা?” আমি আরো বেশী উদাস হয়ে যাই…এবার তার সাথে খানিকটা কানেও কম শুনি। বউ কিছু না বলে গুমোট মুখে গত ২৪ ঘন্টা দিন পার করলো। আজকে যুদ্ধে জয়ী হবার পর, বউয়ের মুখে হাসি। মিষ্টি হাসি দিতেই অনুরোধ করে বসি “একটু উস্তা ভাজি রান্না করে দিবা প্লিজ? আজ এ লগনে উস্তা ভাজি খেয়ে তোমাকে একটা রবীন্দ্র সঙ্গীত শুনিয়ে দিব খন”

মহামান্য কহেন

কাদের মোল্লার ফাঁসী কার্যকর হয়ে গেছে- কারা অথোরিটি কনফার্ম করেছে।

ফরিদপুরে হাজার হাজার মানুষ মহাসড়কে নেমে এসেছে যাতে কাদের মোল্লার লাশ সেখানে না ঢুকতে পারে।

জয় বাংলা!

Sobak Pakhi

এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি; সকল দেশের রাজা, রানী, রাজকন্যা, রাজপুত্র সে যে আমার জন্মভূমি।

জয় বাংলা!

সিডাটিভ হিপনোটিক্স

আমরা প্রথম ভূমিকম্প তৈরী করলাম আজ। তো আফটার শক ওয়েভের জন্য প্রস্তুত থাকবেন। বিচারক দের নিরাপত্তা বাড়ান। প্রসিকিউটর দের নিরাপত্তা বাড়ান। জনতার জন্য নিরাপত্তা দেন। এইটা প্রথম প্রায়োরিটি হওয়া উচিত। আগামীকাল কতজন মারা যাবে তার একটা হিসাব টুকে রাখার মত হতে পারে।

এটা শেষ ফাঁসি না। তৃপ্তির ঢেকুড় তোলার সুযোগ নাই। বহু পথ বাকি। আর মন্ত্রী এবং প্রতিমন্ত্রী রা একটু মুখটা অফ রাখলে ভালো। ফাঁসি কখন হবে তা আপনাদের না বললেও চলতো। এতে নিজপক্ষ কে আশা দেয়া হয়, প্রতিপক্ষ কে তা প্রতিকার/প্রতিশোধের সময় দেয়া হয়। আর বক্তব্যের সাথে কাজের মিল না থাকলে পক্ষ হতাশ হয়। প্রতিপক্ষ নতুন হিশাব কষে।

আর, হে মানব জাতি, তোমাদের বড়ই তাড়াহুড়া। এই আয়াত হুমায়ূন আহমেদ বেশী ইউজ করতো। গত দুইদিন তার এই বাক্য ব্যবহারের যথার্থতা ব্যাখ্যা সহ ফুল মার্কসে নম্বর পাইছে।

কাউরে ধন্যবাদ দেব না। ক্রেডিটও দেবো না। প্রজন্মের মুক্তিযোদ্ধা বা নেতাও বলবো না। বাপ চাচা রা চাদরের নীচের রাইফেল নিয়া খালি পেটে অপারেশনে গেছে। একটা আর্মি ক্যাম্পের জোয়ান দের খাদ্য হইছে মা-বোন। বায়োনেট দিয়ে খুচিয়ে মেরে ফেলছে পেটের বাচ্চা। গ্রেনেড চার্জ করছে নিষ্পলক চোখে। হাত কাপে নাই। কত মায়ের ছেলে আজও ফেরে নাই।

যা করছেন তা ছিলো রক্তের ঋণ শোধ। তাও পুরা টা শোধ হয় নাই। দেশ যদি মা হয়, তবে মায়ের রক্তে ভেজা শাড়ির ঋণ শোধ আজীবনেও সম্ভব না। কর্তব্য পালনে হাততালি মানায় না। অনেক বিপদ আসবে। হুমকি আসবে। বাট ডিউটি কলস ফার্স্ট। আর এই কর্তব্য পালনে মৃত্যু আসলেও তা ভাগ্য। অনেক বছর পর প্রজন্ম আপনার নাম নিয়ে বলবে, দ্যাট গাই ডাইড ফর জাস্টিস। ডাইড উইথ ডিগনিটি।

Subrata Shuvo

পাকিন্তান আসলেই একটা বেইমান জাতি। যাদের জন্য অপকর্ম করে কাদের মোল্লার ফাঁসি হল এখন সেই পাইক্কারা নীরব। তার থেকে আমেরিকা অনেক ভাল। বিভিন্ন মানবাধিকার পাঠিয়ে অন্তত রায় অকার্যকর করতে চেয়েছিল। মালিক হয়ে গোলামকে ভুলে যায়নি। পাকিন্তানে তিন দিন শোক দিবস পালন করার তেব্র দাবী জানালাম।

কাসাফাদ্দৌজা নোমান

বাংলা বর্ণমালাকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে-
১. স্বরবর্ণ
২ .ব্যাঞ্জনবর্ণ

ব্যাঞ্জনবর্ণের প্রথম বর্ণ “ক”, ক তে কাদের মোল্লা। ক এর খেল খতম, নেক্সট………।।

জয় বাংলা

শামীমা মিতু

রাজীবের (থাবা বাবা) রক্তের বদলা আমরা নিয়েছি। জেগে থাকে শাহাবাগ।

DrAtiqul Haq

সেদিন বাঁশেরকেল্লা পোস্ট দিছিল- আল্লাহ্‌ চেয়েছেন তাই কাদের মোল্লার ফাঁসি শেষ মুহুর্তে থামিয়ে দিয়েছেন। রাখে আল্লাহ্‌ মারে কে?
আজকে তো তাইলে বলার কথা- আল্লাহ্‌ চাইছেন তাই কসাই কাদেরের ফাঁসি হয়েছে। মারে আল্লাহ্‌ রাখে কে????
…হা হা হা পারফেক্ট বুমেরাং

নুর নবী দুলাল

রাত ১০-০১ টায় স্বাধীনতার ৪৩ বছর পর মিরপুরের কসাই কাদের এর ফাঁসি কার্যকরের মাধ্যমে জাতি দায়মুক্ত হওয়ার পথে যাত্রা শুরু করল।

জয়বাংলা!

তারিক লিংকন

‘স্বেচ্ছা অবসর’, ‘সেচ্ছা নির্বাসন’, ‘আত্মহত্যার’ পর “স্বেচ্ছা অসুস্থ” টাইপের কোন শব্দের উদ্ভব ঘটল বাঙলা ভাষায়… […মাইনাস এরশাদ…] ওয়ানওয়ে টিকেট…

শফি হুযুরের জন্য শুভ কামনা… […মাইনাস হেলিকপ্টার…]

ক্ষুদ্র জীবনের সেরা সপ্তাহান্তিক অবকাশ কাটাচ্ছি !!

জিয়া পরবর্তী বাঙলার রাজনীতিতে এমন বাঙলাদেশ কেউ দেখি নি।।
এটি ইতিহাসের দেনা শোধের প্রথম ধাপ মাত্র…
একাত্তরের চেতনায় নতুন বাঙলা গড়ার প্রত্যয়ে তরুণ প্রজন্ম!!

জয় শাহবাগ… জয় প্রজন্ম…
জয় বাঙলা… জয় বঙ্গবন্ধু…

[…জল্লাদে সম্রাট শাহজান ও তার টিমকে স্যালুট…]

ডন মাইকেল কর্লিওনি

মাগো, দেখ ৪২ বছর ধরে যে জারজ শুয়োরটা সদম্ভে তোমার বুকের উপর দাঁড়িয়ে বুক ফুলিয়ে বলেছিল, ‘বাংলাদেশ হয়েছে বলে অনেকের মাতব্বরি বেড়ে গেছে’।” , আমরা তাকে আজ ঝুলিয়ে দিয়েছি। যে শুয়োরটা হজরত আলির চার মেয়েকে নির্মম নৃশংসতায় ধর্ষণ করেছিল, আজ আমরা তার দণ্ড ছিঁড়ে ফেলেছি। যে জারজ শুয়োরটা খুচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করেছিল কবি মেহেরুন্ননেসাকে, আমরা তাকে ধরিয়ে দিয়েছি নরকের টিকিট। মাগো, একটাবার অভিমান ভুলে মুখ তুলে তাকাও, অনেক অবিচার হয়েছে তোমার উপর, অনেক লাঞ্ছনা-গঞ্জনা সইতে হয়েছে তোমাকে আমাদের অসম্ভব মুঢ়তায়… ফাকিস্তানি শুয়োরগুলো তোমার বুকের উপর লাফিয়ে লাফিয়ে বলেছে, একবার হত্যা করেছি, আবারও করবো। আমরা কিছুই করতে পারিনি। কেননা, তখন আমাদের হাতপা ছিল বাঁধা কিন্তু হৃদয়ের গভীরে আমরা জানতাম, আমরা হারব না। বাংলা মায়ের দামাল ছেলেরা হারতে জানে না। আমরা আজ ৪২ বছরের পুরনো দায় থেকে মুক্তির পথে প্রথম ধাপ অতিক্রম করলাম। একটু ফিরে তাকাও মা আমরা প্রত্যেক জারজকে না ঝুলিয়ে বাড়ি ফিরব না…

গনজাগরন তৈরির পথিকৃৎ শহীদ জননী জাহানারা ইমামকে, নিজের প্রানের উপর ঝুঁকি নিয়ে, পুরো বিশ্বের আজাইরা মোড়লগিরিকে ৭১রের পর আরেকবার মিডলফিঙ্গার দেখিয়ে, পিতার ওয়াদা পূরণের জন্য, একটা অসাধ্য সাধন করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কে এবং জাতিকে জাগিয়ে রেখে অনির্বাণ আলোকমালা ছড়িয়ে যাবার জন্য বাঙলার দামাল তারুণ্যকে অসংখ্য অসংখ্য ধন্যবাদ, ভালোবাসা, শুভকামনা ও স্যালুট…

জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু
জয় জাহানারা ইমাম
জয় শেখ হাসিনা
জয় তারুণ্য
জয় জনতা

অভিবাদন বাংলাদেশ…

ইচ্ছাঘুড়ি রাইয়ান

কাদের মোল্লার ফাঁসি হইয়া গেছে,
যারা যারা খুশি লাইক মারুন
আর যারা খুশি না ব্লক মারুন।

খুশিতে বাকরুদ্ধ হয়ে গেলে কমেন্টে আপনার অনুভূতিও শেয়ার করতে পারেন।

Edited & Updated

পারভেজ এম রবিন

কাদেরকে কাদেরের মত থাকতে দাও//আমি কাদেরকে আমার মত ঝুলিয়ে দিয়েছি//যে রায় ছিলনা ছিলনা সেটা না পাওয়াই থাক।//রায় পেলে নষ্ট জীবন।

তোমার এই দুনিয়ার নিরপেক্ষ আলোয়//কিছু সন্ধ্যের গুঁড়ো মানবতার মত//যদি ফাঁসি পেতে চাও//তবে গা ঝুলিয়ে দাও//ভি সাইনে চোখ রাখব না না না…

এই ট্রাইব্যুনাল করবে ছারখার//আর লবিং করবে বাঁচবার//আমি রাখতে চাই না আর তার//কোন মানবতাভরা আবদার//তাই স্লোগান দিচ্ছি বারবার
ফাঁসির দড়ি দেখা যায়…

কখনও অ্যামেনেস্টি থেকে চুপ করে//যদি নেমে আসে মানবতা খুব ভোরে//লাফিয়ে উঠে তুমি//কোরোনা আপিল
আপিলে কোন লাভ নেই…

কাদেরের জন্য আলো জ্বেলোনা কেউ//সে বধ্যভূমির লাশে গুনেছে ঢেউ//সেই শহীদের অভিশাপে হারিয়ে গেছে
বাঁচার আর আশা থাকবে না না না…

কাদেরের পালে ছিল ছাগল যত//তারা মারছে মানুষ সব নিজের মত//কখনও সময় পেলে একটু ভেব//তোমার জন্মদাতা কে?

ডলারের ভারে কাদের চায়না ছুঁতে//যাবজ্জীবন পেলে ভি সাইন দেখাতে//সে এক ভি সাইনেই ফাঁসি পেয়েছে//পুটু মারা শেষ হয় না না না…

#RIP_কাদের_মোল্লা
রেস্ট ইন পাকিস্তান

Fahmidul Hannan Rupak

প্রতীক্ষার মাঝেও যে আনন্দ মিশে থাকে সেটা আজই বুঝতে পারলাম। অবশেষে ফাসি, ফাঁসি, ফাঁসি।

গাজি ফাতিহুন নূর
Now i’m happy

Kallol Mustafa

কুখ্যাত রাজাকার কাদের মোল্লার ফাসীকে কেন্দ্র করে বরাবরের মতোই জামাত সারা দেশে পরিকল্পিত ভাবে তান্ডব চালাচ্ছে- হিন্দু পল্লী,সরকারি প্রতিষ্ঠান, দোকান-পাট, ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান, জানবাহন ইত্যাদি এই জামাতি তান্ডবের লক্ষ বস্তু । শুধু জামাতি সেন্ট্রাল কমান্ড নয়, গ্রাম-থানা-উপজেলা-জেলা-বিভাগ পর্যায়ের জামাত-শিবিরের ‘তান্ডব সংগঠকদের’ সমন্বিত প্রচেষ্টা ছাড়া এটা সম্ভব নয়। তাৎক্ষণিক ভাবে তান্ডব ঠেকানোর পাশাপাশি এই ‘তান্ডব সংঠকদের’ দ্রুত সানাক্ত করে গ্রেফতার ও বিচারের আওতায় আনা এখন সবচেয়ে জরুরী কাজ।

রাজাকারের ফাসী আমরা চাই রাজাকার এবং রাজাকারের বাচ্চাদের বিষদাত ভেঙে দেয়ার জন্য, এদের বিষাক্ত নি:শ্বাস থেকে বাংলাদেশকে চিরতরে মুক্ত করার জন্য, যেন কাদের মোল্লার মতো কেউ বাংলার মাটিতে দাড়িয়ে বলতে না পারে: “বাংলাদেশ হয়েছে বলে অনেকের মাতব্বরি বেড়ে গেছে।”এই লক্ষকে মাথায় রেখেই প্রথম ফাসী আমরা স্বস্তির সাথে উদযাপন করতে চাই, সেজন্য সারা দেশের মানুষকে জামাতি তান্ডবের হাত থেকে রক্ষা করা এখন ক্ষমতাসীন সরকারের সবচেয়ে জরুরী দ্বায়িত্ব।

চরম উদাস

চারিদিকে ক্রন্দন, বস্তুনিষ্ঠ আলোচনা, কুৎসিত পলিটিক্স নিয়ে হাহাকার, মানবতার পরাজয়, সত্যিকারের যুদ্ধাপরাধী খুঁজে বের করার আহ্বান ইত্যাদি ইত্যাদি দেখে একটাই উত্তর …

ও ভাই, আপনে যে ছাগল বাসায় জানে?

মুহাম্মদ রাফিউজ্জামান সিফাত

— কাদের মোল্লার লাশের কোন দোষ নাই ।

= যারা এমন কথা বলছেন দয়া করে আমাকে একটি প্রশ্নের উত্তর দিন । ১৯৭১ এ স্বাধীনতা যুদ্ধে আমাদের ৩০ লক্ষ ভাই বোনকে পাক হানাদার আর রাজাকার হত্যা করেছিল । তাদের কয়জনের লাশ সঠিক সৎকারের মাধ্যমে দাফন হয়েছিল । কয়জন মুসলমানের লাশ ইসলামিক শরিয়ায় কবর দেয়া হয়েছিল আমার কয়জন হিন্দু ভাই বোনকে তাদের নিয়মে চিতায় পুড়ানো হয়েছিল ? হিসাব দিন ।

সেদিন সেই লাশগুলো খেয়েছিল রাস্তার কুকুর , ক্ষুধার্ত শুকুন । সেই লাশগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল ড্রেনে , নর্দমায় , ডাস্টবিনে । তাহলে আজ আমি কেন রাজাকার কসাই কাদেরের লাশে মানবতা চুদাবো ? কোন যুক্তিতে ?

— কাদের মোল্লা যা করেছে আমরাও যদি তাই করি তবে তার সাথে আমাদের পার্থক্য কই রইল ?

= আপনি কি ঠিক আছেন ! আপনার এই কথার অর্থ হচ্ছে কসাই কাদের ৭১ এ বাংলাদেশী ভাই বোনদের মেরেছে , ৪২ বছর পর আমরা ফাঁসিতে তাকে মারলাম । সেও মেরেছে আমরাও মারলাম মানে আমরা এখন কাদের মোল্লার সহচর ? কাদেরের বিচার করে কাদের আর আমরা ষোল কোটি বিচার প্রত্যাশী বাঙ্গালী এক !!

রাজাকার মানে রাজাকার । যারা বাংলাদেশের মাটি অস্বীকার করেছে তাদের কোনমতেই বাংলাদেশের মাটিতে জায়গা হতে পারে না । এই কথা বলে আমি যদি বিবেকহীন , নিষ্ঠুর হয়ে যাই কারও কাছে । আমি তাতেই খুশি । ( যদিও ফরিদপুরে তার কবর খোঁড়া হচ্ছে , তারপরও আমি আমার দাবী জানিয়ে যাবো )

রাজাকার কাদের মোল্লার লাশ বাংলাদেশে চাই না । ওভার এন্ড আউট

Arif R Hossain

…তখন ক্লাস সিক্স এ পড়ি
আমার বাসার সামনে একটা ছোট খেলার মাঠ ছিল; একদিন পোদ্দারি করে ভাবলাম মাঠের উন্নয়ন নিয়ে আশেপাশের বিল্ডিঙে চিঠি দিবো

আমার স্কুল বন্ধু সজীবের খুব ভালো ছবি আঁকার হাত ছিল। ওকে দিয়ে একটা A4 সাইজের কাগজে পোস্টার বানাতে বসলাম; “আমাদের খেলার মাঠ… সইবে না কোনও আঘাত” টাইপ হেডিং দিয়ে বিভিন্ন অব্যবস্থাপনা (রাতে মাঠে টিউবলাইটের ব্যবস্থা করা চাই, মাঠে ময়লা ফেললে চলবে না, ড্রেনের উপর ঢাকনা চাই) ইত্যাদি ইত্যাদি পয়েন্ট নিয়ে চিত্রসহ একটা চমৎকার পোস্টার বানিয়ে ফেললাম

পোস্টারের শেষের দিকে , বন্ধু সুন্দর করে ফাঁসির দড়ির ছবি একে পাশে লিখে দিলো; “রাজাকারের ফাঁসি চাই”

আমি অবাক হয়ে বললাম, ‘এটা কেন লেখলি এখানে?’
“তারা আমার আব্বার খুনী”
‘ওহ মাই গড… আঙ্কেল না বেঁচে আছে? গতকালকেই তো দেখলাম তোকে রিক্সা দিয়ে স্কুলে নামায় দিতে’
“হু… তো? যুদ্ধের সময় খুন করতে চাইসিলো, কিন্তু পারে নাই… তাই বলে খুনীকে খুনী ডাকবো না?…তোর আব্বাকে জিজ্ঞেস কর, তারও খুনী এই রাজাকারেরা”

পরের দিন বাসার কাছে, ফার্মগেটের হলিক্রসের উল্টা দিকের দোকান হতে ১০০ টা ফটোকপি করলাম এই কাগজ
দোকানদার ট্যারা চোখে তাকিয়ে আছে আমি পিচ্চির দিকে। এক সময় জিজ্ঞেস করেই ফেললো; ‘রাজাকাররা তোমার কি ক্ষতি করসে?’ আমি ফটোকপি গুলো নিতে নিতে বললাম, “ও আমার আব্বার খুনী”
দোকানদার বেচারা আর হিসাব মিলাতে পারে না, এই হাফপ্যান্ট পড়া ছেলে বলে কি!! এর আব্বা সেই সময় মারা গিয়ে থাকলে এই পিচ্চি এদ্দিন পরে জন্ম নিলো কেমনে?
…নাকি, সেই সময়েই জন্মাইসে, আসলে হে বাওইন্না…হিসাব তো মিলে না
কথা না বাড়ায়ে আমি জোরে জোরে হেঁটে বাসায় ঢুকার আগেই আশেপাশের বিল্ডিঙের সব বাসার দরজার নিচ দিয়ে পোস্টার ঢুকিয়ে দিলাম
বিলি করার পরেও বেশশ কিছু পোস্টার বেঁচে গিয়েছিল; সেগুলো, ৫ তলার ছাদে উঠে ২ হাত ছুঁড়ে উড়িয়ে দিয়েছিলাম
…সেই ২০ বছর আগের একটা চাওয়ার রেজাল্ট আজ এসেছে!

কারো মৃত্যু নিয়ে উল্লাস করতে শিখাইনি আমার পরিবার… কিন্তু, সে যে আমার আব্বার খুনী! আব্বার ভাগ্য ভালো দেখে বেঁচে গেছে তো কি হয়েছে? তাই বলে, খুনী তো আর বাঁচতে পারে না। আজ যদি পারতাম, রায়ের কপি ফটোকপি করে বাড়িতে বাড়িতে বিলি করতাম, আর বেঁচে যাওয়া কপিগুলো, ছাদে উঠে উড়িয়ে দিতাম

আজ যে, এক প্রজন্মের ফাদার্স-ডে

চরম উদাস

কাদের মোল্লাকে যদি মানুষ বলে ডিফাইন করা হয়, তাইলে আজকে এই মুহূর্তে মানুষ নামক পদ থেকে পদত্যাগ করলাম। এইবারে পশু হয়েই উল্লাস করি বরং খানিক। পশু হয়েই কাঁদি খানিক জবাই হয়ে ফ্যানের সাথে ঝুলতে থাকা কবি মেহেরুন্নেসার জন্য,কাঁদি খানিক কিশোর পল্লবের জন্য, কাঁদি খানিক সাংবাদিক খন্দকার আবু তালেবের জন্য, কাঁদি খানিক আলোকদী গ্রামের সাড়ে তিনশত মানুষের জন্য, কাঁদি খানিক আলী লস্করের স্ত্রী আমিনা, তার পেটের সন্তান, দুই মেয়ে খাদিজা তাহমিনা, দুই বছরের ছেলে বাবু আর বারো জনের কাছে ধর্ষিত হওয়া এগারো বছরের ধর্ষিত শিশুটির জন্য। অনেক কিছু ভাবা ছিল। প্রথম হায়েনার ফাঁসি হলে কি করবো। আনন্দে লাফাবো, কাচ্চি রান্না করতে বসে যাবো, চিৎকার করে জাতীয় সঙ্গীত গাইবো। কিন্তু কখনো ভাবিনি সেই ফাঁসি কার্যকর হবার পরে কান্না আসবে, বুক ফেটে হাহাকার আসবে। বোধকরি ১৬ই ডিসেম্বরেও মুক্তিযোদ্ধাদের একই অনুভূতি হয়েছিল। বিজয়ের মূল্য বিজয়ের আনন্দকে ম্লান করে দিয়েছিল। আম্মার আব্বা, চাচা কেউ মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না। আমি যুদ্ধে আমার খুব কাছের কাউকে হারাইনি।তারপরেও আমি প্রতি মুহূর্তে আমার বুকের ভেতর অনুভব করি স্বজন হারানোর বেদনা। একটা মানুষের চোখের সামনে তার অন্তঃসত্ত্বা মা, বাবা, বোন, দুই বছরের ভাই কে মারার বেদনা, নিজ চোখের সামনে নিজ কন্যার ধর্ষিত হতে হতে মৃত্যুবরণ করতে দেখার বেদনা, নিজ কন্যার মস্তকবিহীন লাশ ঝুলতে দেখার বেদনা। আমি যদি পশু হয়ে অনুভব করতে পারি, কেউ কেউ মানুষ হয়ে কেন সেটা পারেনা?

Onu Tareq

বাঙ্গালী একটা অদ্ভুদ জাতি, এক অসহায় মাসুম বৃদ্ধের অকালমৃত্যুতে উল্লাস করে সবাই !!

পুনশ্চ — আমরা কিন্তু এই বাংলাদেশই চেয়েছিলাম।

Foring Camelia

দেশটা আমার , দেশ কে কলঙ্কমুক্ত করার দায়টাও আমার । কাঁদের মোল্লার ফাঁসি দিয়ে দায় মেটবার প্রথম ধাপ আমরা পার করছি ।

জয় বাঙলা , বাঙলার জয় …………।

ঐ “V” এই বার আমরা দেখাব , সবাই কে ” V ”

মাজহার মিথুন

বাংলার আকাশে একটা পাখি এতদিনের জমানো দীর্ঘশ্বাস দু ডানায় চাপিয়ে উড়ে গেল আহ! আমি অবাক বিস্ময়ে তাকিয়ে থাকি, আমার বিশ্বাস হয়না, এ দেশ মা মাটির দাম দিতে জানে, এ দেশ জানে ফিরিয়ে দিতে রক্তের বিপরীতে স্বাধীনতা। ধন্যবাদ, ধন্যবাদ, ধন্যবাদ। ভাষা হারিয়ে ফেললাম বোধহয়।

Masum Reza

পাঠ করো মিলিত মানুষেরা.. পাঠ করো তোমাদের উঠোনে উঠোনে.. লন্ঠনের আলোয় পাঠ করো.. পাঠ করো বিজয়.. পাঠ করো গৌরব.. পাঠ করো কলঙ্ক মুক্তির পুঁথি..

Akhtaruzzaman Azad

সালাম নিয়ো মা সুফিয়া, সালাম রুমির মাগো;//শাহবাগের জয় হয়েছে, আবার দুজন জাগো!
বীর বাঙালি জাগল আবার জয় বাংলার প্রেমে,//বিজয়গাথা রইল গাঁথা শাহবাগের ফ্রেমে।
বাঁধ মানে না অশ্রু মাগো উল্লাসের এ ভারে;//বীর বাঙালি পেরেছিল, বীর বাঙালি পারে!
গড়ব এবার দেশটি এমন — সুজল-সুফল-নিবিড়;//ধ্বংস হবে হেফাজতি, জঙ্গি জামাত-শিবির।

শাহবাগি-ফ্যাসিবাদী আমরা দারুণ মিতা;//টুঙ্গিপাড়ায় কবর ফুঁড়ে হাসছে জাতির পিতা।
ঝুলল কাদের, ভুলল জাতি দুঃখ ছিল যেটি;//জয় বাংলা, জয় হে মুজিব; শাবাশ শেখের বেটি!

ব্রাত্য রাইসু

কাদের হ্যাংগড, এরশাদ আটক – দেশ ওয়ান নাইটে যথেষ্ট জরুরি হইয়া পড়ছে! মহাভারতের যজ্ঞারম্ভ নাকি?

Ananya Azad

এখন আর দেশদ্রোহী বাস্টার্ড মোল্লাকে নিয়ে কিছু বলতে চাচ্ছি না। শুধু স্মরণ করতে চাচ্ছি, আমাদের মুক্তিযোদ্ধা ও বীরঙ্গনাদের। যাদের কারণে আমরা বাঙলাদেশ পেয়েছিলাম। সেই বীর সৈনিকদের আমরা কী আসলেই সম্মান দিতে পেরেছিলাম? তাদের স্বপ্নের বাঙলাদেশ কী আমরা তৈরি করতে পেরেছিলাম? জননী জাহানারা ঈমামের ত্যাগের মূল্য বুঝেছিলাম? পাকিস্তানি- ধর্মান্ধ মৌলবাদীগোষ্ঠী- জামায়াতে ইসলামীর হাতে নিহত সকল পরিবারের প্রতি রইলো আমার অন্তরের অন্তস্তল থেকে ভালোবাসা এবং শ্রদ্ধা।

সময় অনেক বেশি লেগেছে; কিন্তু বাঙালি আবারও প্রমাণ করেছে পাকিস্তান নয়; আমরা বাঙলাদেশ চেয়েছিলাম। যুদ্ধ এখনও শেষ হয় নি; কেবল শুরু।

জয় বাঙলা।

Farzana Kabir Khan Snigdha

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ। ট্রাইবুনালকে ধন্যবাদ। আন্তর্জাতিক চাপের পরেও যে তিনি এবং তারা থেমে যাননি, সেজন্য তিনি এবং তারা বিশেষ প্রশংসার অধিকারী। ধন্যবাদ শহীদ জননী জাহানার ইমামকে ,গণ জাগরণ মঞ্চকে, ধন্যবাদ তরিকুল ইসলাম শান্ত, রাজীব হায়দার সহ সমস্ত সহযোদ্ধাকে। দূরে থাকলেও দেশটাকে এক মুহুর্তের জন্য ভুলিনা। সাইবারে বসে কত যে আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান গুলোর সঙ্গে যু্দ্ধ করেছি আর আমার বন্ধুরা আমাকে সমর্থন দিয়েছেন; সেজন্য আপনাদের সবাইকে ধন্যবাদ আর প্রাণ ঢালা শুভেচ্ছা। আমাদের সংগ্রাম চলবে। জয় বাংলা।।

মোস্তাক খসরু

অবশেষে শহীদ জিয়া তার একাকিত্ব ঘোচানোর মত একজন শহীদ(জামাতবিএনপির ভাষায়) কাদের মোল্লাকে পেলেন, যার সাথে একান্তে মনের কথা শেয়ার করতে পারবেন। অপঘাতে মৃত্যুর পরও এরা দুজনেই শহীদি মর্জাদা পেয়েছেন। শহীদ জিয়ার আড্ডার ব্যাবস্থা করতে শেখ হাসিনার চেষ্টার ত্রুটি নেই দেখে বেশ ভাল লাগছে।

Jyotika Jyoti

আমরা যদি না জাগি মা, কেমনে সকাল হবে … ফেব্রুয়ারি থেকে ১০মাস প্রতিটি দিন আমাদের মায়েরা অস্থির ছিলেন, আমাদের সাথে সাথে তারাও জেগে ছিলেন । আজ শাহাবাগের জয়ে আমাদের মায়েরা হাসছেন , তাও জানি। মা…… তোমাদের এতদিনের আতঙ্ক , অপেক্ষা আর আশীর্বাদের উপহার কালকের পবিত্র সূর্যোদয় , নতুন সকাল ! আমরা না জাগলে কি হত !!! মনে পড়ছে শহীদ জননী জাহানারাইমাম কে

রাজু রনরাজ

-বাচ্চারা আমরা সবচে বেশী মানবতা,সর্বোচ্চ
মানবাধিকার কোথায় দেখেছি?
‘স্যার,ইরাকের আবুগারিব কারাগারে স্যার’
-বাচ্চারা বলতো এই পৃথিবীতে মানবাধিকার
এবং মানবতার দিক
দিয়ে কারা বেশী এগিয়ে আছে?
‘স্যার আম্রিকা স্যার’
-একটি মানবতাবাদী যন্ত্রের নাম বলো?
‘স্যার ড্রোন স্যার’
-বাচ্চারা লাষ্ট
কোশ্চেন,একটি সুবিধাবাদী মানবাধিকারী সংঠনের
নাম বলো।
‘স্যার,জাতিসংঘ স্যার!দি গ্রেট ইউনাইটেড ন্যাশন!
এসোসিয়েশন অব চুতিয়াবাদ’
ফ্লাই এওয়ে পিটার//ফ্লাই এওয়ে পল…//গুড বাই পিটার//গুড বাই পল!

৩৭ thoughts on “ফেইসবুকে কাদের মোল্লার ফাঁসি নিয়ে আমাদের সবার পরিচিত প্রোফাইলের স্ট্যাটাস সমুহের সংকলন

    1. কি যে বলেন !! আমি আনন্দের
      কি যে বলেন !! আমি আনন্দের সাথে আপনার স্ট্যাটাস যুক্ত করেছি ।

      সেইসাথে আরেকটা কথা আর কারও বাদ পড়লে কমেন্ট অপশনে দিয়ে দিবেন । আপডেট করে নিবো । 🙂

      :ফুল:

      1. দেখেন এইখানে প্রতিটা
        দেখেন এইখানে প্রতিটা স্ট্যাটাস কতটা উদ্দীপনামূলক আর আমার পুরাই লুলামি 😛 ধন্যবাদ আপনাকে। প্রিয়তে নিলাম

        1. দেখেন এইখানে প্রতিটা

          দেখেন এইখানে প্রতিটা স্ট্যাটাস কতটা উদ্দীপনামূলক আর আমার পুরাই লুলামি

          What about my one…? পুরাই ফাইজলামি…

  1. ভাল একটা কাজ করেছেন !! নিজের
    ভাল একটা কাজ করেছেন !! নিজের নাম দেখে অবাক লাগছে…
    :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ফুল: :ফুল: :ফুল: :ফুল: :ফুল:

    1. বিনয় দেখালেন
      ধন্যবাদ তারিক

      বিনয় দেখালেন :ভাবতেছি:

      ধন্যবাদ তারিক ভাই , চেষ্টা করছি সেই সময়কে ধরে রাখতে একসাথে । যেন একবসায় সবাই আমাদের অনুভূতি দেখতে পারে । পরিচিত কারও স্ট্যাটাস বাদ পড়লে জানাবেন :ফুল:

      1. বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ

        বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ। ট্রাইবুনালকে ধন্যবাদ।
        আন্তর্জাতিক চাপের পরেও যে তিনি এবং তারা থেমে যাননি, সেজন্য তিনি এবং তারা বিশেষ প্রশংসার অধিকারী। ধন্যবাদ শহীদ জননী জাহানার ইমামকে ,গণ জাগরণ মঞ্চকে, ধন্যবাদ তরিকুল ইসলাম শান্ত, রাজীব হায়দার সহ সমস্ত সহযোদ্ধাকে। দূরে থাকলেও দেশটাকে এক মুহুর্তের জন্য ভুলিনা। সাইবারে বসে কত যে আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান গুলোর সঙ্গে যু্দ্ধ করেছি আর আমার বন্ধুরা আমাকে সমর্থন দিয়েছেন; সেজন্য আপনাদের সবাইকে ধন্যবাদ আর প্রাণ ঢালা শুভেচ্ছা। আমাদের সংগ্রাম চলবে। জয় বাংলা।।

        Farzana Kabir Khan Snigdha

  2. অসংখ্য ধন্যবাদ সিফাত
    অসংখ্য ধন্যবাদ সিফাত ভাই……

    স্মৃতিগুলোকে একসঙ্গে বেধে রাখার চেষ্টা করার জন্য………

    ………..জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু।

  3. ভালো উদ্যোগ। লিস্টে নিজের নাম
    ভালো উদ্যোগ। লিস্টে নিজের নাম দেখে কেমুন যেন সেলিবেরেটি মুনে হইতাছে নিজেরে। যেইটা কখনই হইতে চাই নাই জীবনে… খ্যাক খ্যাক… আপনি পারেনও :শয়তান:

    1. দিলুম বানাইয়া
      আমার বখরা দেন

      দিলুম বানাইয়া 😉

      আমার বখরা দেন 😀

      ( না না , সেলেব্রেটী হিসেবে না । যাদের আমরা মোটামুটি সবাই চিনি জানি তাদের কথাই সাজিয়ে তুলে ধরা । যেন হারিয়ে না যায় । খুজলে একসাথে সবাইকে পাওয়া যায় )

      ধন্যবাদ আতিক ভাই :গোলাপ:

  4. আমি একটা দিলাম-
    “অবশেষে শহীদ

    আমি একটা দিলাম-

    “অবশেষে শহীদ জিয়া তার একাকিত্ব ঘোচানোর মত একজন শহীদ(জামাতবিএনপির ভাষায়) কাদের মোল্লাকে পেলেন, যার সাথে একান্তে মনের কথা শেয়ার করতে পারবেন। অপঘাতে মৃত্যুর পরও এরা দুজনেই শহীদি মর্জাদা পেয়েছেন। শহীদ জিয়ার আড্ডার ব্যাবস্থা করতে শেখ হাসিনার চেষ্টার ত্রুটি নেই দেখে বেশ ভাল লাগছে।”

    —-মোস্তাক খসরু

  5. কখনও অ্যামেনেস্টি থেকে চুপ

    কখনও অ্যামেনেস্টি থেকে চুপ করে//যদি নেমে আসে মানবতা খুব ভোরে//লাফিয়ে উঠে তুমি//কোরোনা আপিল আপিলে কোন লাভ নেই… কাদেরের জন্য আলো জ্বেলোনা কেউ//সে বধ্যভূমির লাশে গুনেছে ঢেউ//সেই শহীদের অভিশাপে হারিয়ে গেছে বাঁচার আর আশা থাকবে না না না… কাদেরের পালে ছিল ছাগল যত//তারা মারছে মানুষ সব নিজের মত//কখনও সময় পেলে একটু ভেব//তোমার জন্মদাতা কে? ডলারের ভারে কাদের চায়না ছুঁতে//যাবজ্জীবন পেলে ভি সাইন দেখাতে//সে এক ভি সাইনেই ফাঁসি পেয়েছে//পুটু মারা শেষ হয় না না না… #RIP_কাদের_মোল্লা রেস্ট ইন পাকিস্তান

    :শয়তান: :শয়তান: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :ভেংচি: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :bow: :bow: :নৃত্য: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :বুখেআয়বাবুল: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :ভালাপাইছি:

  6. আমরা যদি না জাগি মা, কেমনে
    আমরা যদি না জাগি মা, কেমনে সকাল হবে …
    ফেব্রুয়ারি থেকে ১০মাস প্রতিটি দিন আমাদের মায়েরা অস্থির ছিলেন, আমাদের সাথে সাথে তারাও জেগে ছিলেন । আজ শাহাবাগের জয়ে আমাদের মায়েরা হাসছেন , তাও জানি। মা…… তোমাদের এতদিনের আতঙ্ক , অপেক্ষা আর আশীর্বাদের উপহার
    কালকের পবিত্র সূর্যোদয় , নতুন সকাল ! আমরা না জাগলে কি হত !!! মনে পড়ছে শহীদ
    জননী জাহানারাইমাম কে……

    -Jyotika Jyoti

  7. -বাচ্চারা আমরা সবচে বেশী

    -বাচ্চারা আমরা সবচে বেশী মানবতা,সর্বোচ্চ

    মানবাধিকার কোথায় দেখেছি?

    ‘স্যার,ইরাকের আবুগারিব কারাগারে স্যার’

    -বাচ্চারা বলতো এই পৃথিবীতে মানবাধিকার

    এবং মানবতার দিক

    দিয়ে কারা বেশী এগিয়ে আছে?

    ‘স্যার আম্রিকা স্যার’

    -একটি মানবতাবাদী যন্ত্রের নাম বলো?

    ‘স্যার ড্রোন স্যার’

    -বাচ্চারা লাষ্ট

    কোশ্চেন,একটি সুবিধাবাদী মানবাধিকারী সংঠনের

    নাম বলো।

    ‘স্যার,জাতিসংঘ স্যার!দি গ্রেট ইউনাইটেড ন্যাশন!

    এসোসিয়েশন অব চুতিয়াবাদ’

    ফ্লাই এওয়ে পিটার

    ফ্লাই এওয়ে পল…

    গুড বাই পিটার

    গুড বাই পল!

    রাজু রনরাজ

  8. কয়েকটি স্ট্যাটাস দারুণ লেগেছে
    কয়েকটি স্ট্যাটাস দারুণ লেগেছে । বিশেষ করে আরিফ আর হুসাইনের টা … বলতে দ্বিধা নেই উনার কাছে এমন স্ট্যাটাস অপ্রত্যাশিত ছিল ।

    1. উনি এই স্ট্যাটাস এর আগেও
      উনি এই স্ট্যাটাস এর আগেও দিয়েছিলেন খুব সম্ভবত । তবে স্ট্যাটাসটি আমারও ভালো লেগেছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *