আমাদের মুক্তিযুদ্ধঃ গেরিলা ওয়ারফেয়ার

২৬ মার্চের ক্র্যাক ডাউনের পরে বাংলাদেশের জন্মযুদ্ধটা অনিবার্য হয়ে পরে । ঢাকার রাস্তায় লাশের স্তুপ বারতে থাকলে প্রাথমিক বিপর্যয় কাটিয়ে পাল্টা আঘাতের প্রয়োজন অনুভব করে এদেশের মানুষ । এপ্রিলের ৩ তারিখে এম এ জি ওসমানীর সাথে খালেদ মোশাররফ , মেজর সফিউল্লাহ এবং লেফটেন্যান্ট কর্নেল রব এর এক বৈঠকের মাধ্যমে শুরু হয় আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সশস্ত্র প্রতিরোধ ।

২৬ মার্চের ক্র্যাক ডাউনের পরে বাংলাদেশের জন্মযুদ্ধটা অনিবার্য হয়ে পরে । ঢাকার রাস্তায় লাশের স্তুপ বারতে থাকলে প্রাথমিক বিপর্যয় কাটিয়ে পাল্টা আঘাতের প্রয়োজন অনুভব করে এদেশের মানুষ । এপ্রিলের ৩ তারিখে এম এ জি ওসমানীর সাথে খালেদ মোশাররফ , মেজর সফিউল্লাহ এবং লেফটেন্যান্ট কর্নেল রব এর এক বৈঠকের মাধ্যমে শুরু হয় আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সশস্ত্র প্রতিরোধ ।
খালেদ মোশাররফ ছিলেন ফোর্থ বেঙ্গল রেজিমেন্টের উপ অধিনায়ক । সেনা শৃঙ্খল ভেঙ্গে তিনি ২৭ মার্চ তার বাহিনী নিয়ে ঝাপিয়ে পরেন মাতৃভূমির জন্যে । পরবর্তীতে ২ নং সেক্টর এবং কে ফোর্সের কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

২ নং সেক্টর ছিলো মুক্তিযুদ্ধের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সেক্টর । রাজধানী ঢাকা এবং দুই দুইটা ক্যান্টনমেন্ট । সারা দেশের কার্যক্রম পাক হানাদাররা পরিচালনা করে এখান থেকেই । তাই সাধারণ নিয়মিত কৌশলে ২ নং সেক্টরকে শত্রুমুক্ত করা সম্ভব ছিলো না । অসম্ভব সাহসী খালেদ মোশাররফের রণকৌশলে দিশেহারা হয় পাক বাহিনী ।
আলফা , চার্লি , ব্রাভো এবং ডেলটা । এই চারটা কোম্পানিতে বিভক্ত খালেদের নিয়মিত বাহিনী । কিন্তু প্রবল পরাক্রমশালী পাকিস্তান সেনাবাহিনীর অত্যাধুনিক অস্ত্রের সাথে টিকে থাকতে হলে প্রয়োজন ছিলো অভিনব এক যুদ্ধপদ্ধতি । সেই করলেন খালেদ মোশাররফ । এ টি এম হায়দার কে গেরিলা স্টাফ অফিসার নিযুক্ত করে গড়ে তোলা হয় গেরিলা বাহিনী । মেজর হায়দার সেসময়ের শ্রেষ্ঠ গেরিলা কমান্ডোদের একজন ছিলেন । মেলাঘর ক্যাম্পে ট্রেনিং নিতে থাকে প্রায় চার হাজার গেরিলা , মে মাসের প্রথম দিকেই ।
গেরিলা অপারেশনের মূল লক্ষ্যই ছিলো ক্রমাগত আক্রমনে পাকবাহিনীকে ব্যাতিব্যাস্ত করে ফেলা । হিট এন্ড রান ট্যাকটিক্সকে কিংবদন্তী পর্যায়ে নিয়ে যায় ঢাকার গেরিলা ওয়ার ফেরার । অত্যাধুনিক অস্ত্র সজ্জিত পাকিস্তানী বাহিনী বিপর্যস্ত হয়ে পরে । মে মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে পরিচালিত এসব গেরিলা অপারেশন আমাদের স্বাধীনতাকে তরান্বিত করে । নভেম্বর ডিসেম্বর মাসের গেরিলা আক্রমন গুলো পরিচালিত হতো মেজর হায়দার ও শাহবেগ সিং এর যৌথ কমান্ডে । খালেদ মোশাররফ তখন গুরুতর আহত অবস্থায় ভারতে চিকিত্‍সাধীন ।

গেরিলা তত্পরতা

২১ মে
জামাল কবির (বীর প্রতীক) এবং খোকন নামে দুই গেরিলা এন্টি ট্যাংক মাইন দিয়ে শত্রুবাহী একটা ট্রাক উড়িয়ে দেয় ।
গেরিলাদের আরেকটি দল দেবীদ্বার থানা আক্রমন করে ছয়জন দালাল পুলিশ হত্যা করে । তারা হাজীগঞ্জ থানার সাব ইন্সপেক্টর সহ দুজনকে মেরে ফেলে ।
২৯ মে
তিনজন গেরিলার একটি দল চৌদ্দগ্রাম থানা আক্রমন করে । তিনজন পাকসেনা নিহত হয়
৬ জুন
চারজন গেরিলার একটি দল গোমতী নদী পেরিয়ে কুমিল্লা পৌছে ।
১০- ১১ জুন
কুমিল্লার কমার্স ব্যাংক , ন্যাশনাল ব্যাংক ও জর্জকোর্টে পাকসেনাদের আক্রমন করে গেরিলা বাহিনী
চারজন গেরিলার ডেমোলিশন দলটি জাঙ্গালিয়ার কাছে মাইন পুতে একটি ডিজেল ইঞ্জিন লাইনচ্যুত করে ।
২১ ও ২৭ জুন
জুন মাসের ১৬ তারিখে দুটি গেরিলা টিমকে পাঠানো হয় । প্রথম দলটি ২১ জুন কুমিল্লার দক্ষিনে দুটি ইলেকট্রিক পাইলন উড়িয়ে দেয় । ফলে নোয়াখালীতে বিদ্যুত সরবরাহ সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায় ।
দ্বিতীয় দলটি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উত্তরে তালশহরে তিতাস গ্যাসের চার ফুট পাইপ উড়িয়ে দেয় । ঢাকা নারায়ণগঞ্জ আশুগঞ্জের শিল্প কারখানা গুলো বিকল হয় পড়ে
২৭ জুন
গেরিলাদের ষাটজনের একটি দল ফরিদপুরে পৌছে এবং ছোট ছোট প্লাটুনে বিভক্ত হয় । ২৭ তারিখ রাত এগারোটায় গেরিলা কমান্ডার খলিলের নেতৃত্বে পালং থানায় হামলা চালানো হয় । তিনজন নিহত হয় এবং নয়টি রাইফেল দখলে আসে ।
২৮ জুন
রাজৈর থানার টাহেরহাটে অবস্থানরত কিছু পাকিস্থানী সেনার উপর ২০ জনের একটি গেরিলা দল আক্রমন চালায় । এতে ১০ জন পাক সেনা নিহত হয় এবং তারা টাহের হাট থেকে পালিয়ে যায় ।
জুলাই
জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে খালেদ মোশাররফ খবর পান যে নারায়ণগঞ্জের ‘পাক বে’ কোম্পানীকে তিনশ ফাইবার গ্লাস স্পিডবোট তৈরীর নির্দেশ দিয়েছে পাকিস্তান বাহিনী । পাকিস্তানীদের পানিভীতি সর্বজন বিদিত । এসব স্পিডবোট তৈরী হয়ে গেলে শত্রুদের গতিবিধি অনেকগুন বেড়ে যাবে এবং বর্ষা মৌসুমে হায়েনারা বাংলাদেশের আনাচে কানাচে পৌছতে পারতো ।
১০ জনের একটি গেরিলা প্লাটুন পাক বে আক্রমন করে এবং সকল যন্ত্রপাতি ধ্বংস করে দেয় । ফলে পাকিস্তানি বাহিনী তাদের গতিবিধি অনেকাংশে সীমিত করতে বাধ্য হয় ।
৪ জুলাই
দুপর বারটায় পাঁচজন গেরিলার একটি দল পাগলায় বিদ্যুত সরবরাহের একটি পাইলন উড়িয়ে দেয় ।
৫ জুলাই
নারায়ণগঞ্জের গুলশান সিনেমা হলে দুজন গেরিলা গ্রেনেড চার্জ করে । পাচজন দালাল আহত হয় এবং সমগ্র এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি হয় ।
১২ জুলাই
রাত সাড়ে দশটার দিকে নারায়ণগঞ্জ পোস্ট অফিসে বিস্ফোরণ ঘটায় গেরিলা বাহিনী । এছাড়া মন্ডলপাড়া ও চৌধূরীবাড়ি ইলেক্ট্রিক সাবস্টেশন এবং সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার চারটি বৈদ্যুতিক পাইলন উড়িয়ে দেয় । বিস্তীর্ন এলাকা বিদ্যুত শুন্য হয়ে পরে ।
অধ্যাপক মুনীর চৌধুরীর ছেলে ভাষণের নেতৃত্বে একটি গেরিলা ডেমোলিশন দল বাউসিয়া সেতুটি ধ্বংস করতে যায় । কিন্তু বিস্ফোরকের ইগনিশন কাজ না করায় সেতুটি ধ্বংস করা সম্ভব হয়নি । স্থানীয় কিছু দালালের মাধ্যমে খবর পেয়ে সেসময় পাক বাহিনী গেরিলাদের উপর আক্রমন চালায় । কয়েকজন গেরিলা গুরুতর আহত হয় এবং ২৬০ পাউন্ড টিএনটি ফেলে পালিয়ে আসতে বাধ্য হয় ।
১৫ জুলাই
ফতুল্লা ও ঢাকার মাঝের একটি রেলসেতু এক্সপ্লোসিভ দিয়ে উড়িয়ে দেয় গেরিলারা । ফলে ঢাকা নারায়ণগঞ্জ রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায় ।
৪ ও ৫ আগস্ট
আগস্ট মাসের চার তারিখ আড়াইহাজার থানার এবং দরগাঁও থানার দুটি সড়ক সেতু উড়িয়ে দেয় গেরিলারা । ফলে নরসিংদী ডেমরা সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় । পাঁচ তারিখে বাতের চর ও দাউদকান্দির দুটি সড়কসেতু উড়িয়ে দিলে ঢাকা কুমিল্লা সড়ক যোগাযোগও বন্ধ হয়ে যায় ।
১৩ আগস্ট
বেলা তিনটার দিকে পাকিস্থান বিমানবাহিনীর একটি জিপ এমবুশ করে গেরিলা দল , ডেমরা এলাকায় । এতে চারজন বিমান ও সেনা গোয়েন্দা নিহত হয় । তাদের কাগজপত্র , পরিচয় পত্র ও রিভলবার উদ্ধার করে হেডকোয়ার্টারসে পাঠিয়ে দেয় তারা ।
পাক সেনাদের ঝিনারদি ক্যাম্পে আক্রমন করে আরেকটি গেরিলা দল । আড়াইঘন্টার যুদ্ধে একজন পাকসেনা নিহত হয় এবং পনেরো জন পাকসেনা আত্মসমর্পন করে । গেরিলারা একটি মেশিনগান , ১১ টি রাইফেল , সাড়ে চার হাজার গুলি , ১৭ ব্যাগ আটা এবং ১১ পেটি দুধ জব্দ করে ।
২০ আগস্ট
নরসিংদী গেরিলা ইউনিটের একটি দল তিতাস গ্যাস পাইপ লাইন উড়িয়ে দেয় । ফলে ঘোড়াশাল বিদ্যুত কেন্দ্র তথা সমগ্র শিল্প কারখানা বন্ধ হয়ে যায় ।
৩০ ও ৩১ আগস্ট
গেরিলাদের একটি দল আড়াইহাজার থানা আক্রমণ করে দালাল দারোগাকে হত্যা করে । থানার সব অস্ত্র নিয়ে আসে ।
এর পরেরদিন এক পাকিস্তানী দালালের ২ লাখ টাকা মূল্যের সূতাবাহী নৌকা ডুবিয়ে দেয় । পাকিস্থানী একটি দল ঘটনাস্থলের দিকে অগ্রসর হলে পূর্ব পরিকল্পিত গেরিলা এমবুশে পরে এবং ৩৩ টি মৃতদেহ ফেলেই পালিয়ে যায় ।
২ সেপ্টেম্বর
পাক সেনাদের গজারিয়া চৌকি আক্রমন করে একটি গেরিলা টিম । এতে তিনজন ইপকাফ নিহত হয় এবং প্রায় ১৫০ টি গুলি হস্তগত হয় ।
পাক সেনারা ভবেরচর সেতু পুনরুদ্ধারে ফেরির ব্যবস্থা করেলা গেরিলারা ফেরিটি ধ্বংস করে দেয় । ফেরির চারটি ব্যাটারি খুলে নিয়ে আসে ।
৬ সেপ্টেম্বর
৫০ জনের একটি গেরিলা দল নরিয়া থানা আক্রমন করে । ১৭ জন পাক সেনা নিহত হয় ।থানার তিরিশটি রাইফেল হস্তগত হয় ।
২১ সেপ্টেম্বর
জুন মাসের পর পুনরায় পালং থানা আক্রমন করা হয় । প্রায় ৩০০ গেরিলার এই আক্রমনের শতাধিক রাজাকার ও পাক সেনা নিহত হয় এবং পুরো এলাকা মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রণে আসে ।
অক্টোবর
পাকসেনাদের একটি শক্তিশালী দল নারায়ণপুরের দিকে অগ্রসর হয় । তারা সেখানে অসংখ্য নারী ধর্ষণ করে । নারায়ণপুরের মাত্র ১৩ সদস্যের গেরিলা দল সিদ্ধান্ত নেয় প্রতিশোধ নেয়ার । তাদের আক্রমনে ১৪ জন পাকসেনা ও ২৯ জন রাজাকার নিহত হয় । গুলি শেষ না হওয়া পর্যন্ত তারা আক্রমন চালিয়ে যায় । এ যুদ্ধে পাঁচজন গেরিলা যোদ্ধা শহীদ হয় । এই আক্রমন গেরিলাযুদ্ধের ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে ।।
নভেম্বর মাসে গেরিলা তত্‍পরতা অনেকটা কমিয়ে আনা হয় এবং ব্রিগেড ফোর্স গুলো সরাসরি আক্রমনে পাক বাহিনিকে কোণঠাসা করে ফেলে ।
বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে গেরিলা ওয়ারফেয়ার ছিলো অবিচ্ছেদ্য এক অংশ । আমাদের অস্ত্র ছিলো না । আমাদের ট্রেনিং ছিলো না । পাকিস্তানী বাহিনীকে পরাজিত করতে তাই গেরিলা আক্রমনের বিকল্প ছিলো না ।
হলিউডের একশন মুভির মতো স্মার্ট গেরিলা না , আমাদের গেরিলারা ছিলো লুঙ্গি অথবা প্যান্ট পরা সাধারণ ছাত্র বা কৃষক । একবেলা খেয়ে বা না খেয়ে অপারেশনে যেতো তারা । তবুও এক মুহুর্তের জন্যে মাতৃভূমীর প্রতি তাদের ভালোবাসার কমতি ছিলো না । শহীদ জননী জাহানারা ইমামের একাত্তরের দিনগুলির কয়েকটি লাইন এরকম-
… … প্রথমদিকে ওদের অনেক বেশি কষ্ট করতে হয়েছে । প্রায় কিছুই ছিলো না । উন্মুক্ত আকাশে ঘাসের উপর শুয়েছে কতদিন । ভাত খেয়েছে মাটির সানকিতে , গ্রেনেডের খালি বাকসো আড়াআড়ি কেটে তার মধ্যে । ভারতীয় ব্রিগেডিয়ার পান্ডে যখন ওদের ক্যাম্প পরিদর্শনে আসেন , সানকি আর গ্রেণেডের বাকসো দেখে ওদের বাসন প্লেট দেবার হুকুম দেন । ছেলেরা বলে ‘বাসন প্লেট চাই না , তার বদলে আমাদের বুলেট দিতে বলুন’ … ..
অনেক কষ্টে অর্জিত বড় মমতার এই দেশটাতে যেনো আর কোনো শকুনের আঁচড় না পরে ।
জয় বাংলা

১২ thoughts on “আমাদের মুক্তিযুদ্ধঃ গেরিলা ওয়ারফেয়ার

  1. অপেক্ষা সার্থক হল…
    অপেক্ষা সার্থক হল… :বুখেআয়বাবুল: লেখাটা সিমপ্লি চমৎকার হয়েছে অর্ফি… :তালিয়া: :থাম্বসআপ: :মাথানষ্ট: তথ্যগুলো অনেক অজানাকে জানিয়ে দিয়ে গেলো… :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: এরকম লেখা আরও চাই… :জলদিকর: :অপেক্ষায়আছি:

  2. প্রথমদিকে ওদের অনেক বেশি কষ্ট

    প্রথমদিকে ওদের অনেক বেশি কষ্ট করতে হয়েছে । প্রায় কিছুই ছিলো না । উন্মুক্ত আকাশে ঘাসের উপর শুয়েছে কতদিন । ভাত খেয়েছে মাটির সানকিতে , গ্রেনেডের খালি বাকসো আড়াআড়ি কেটে তার মধ্যে । ভারতীয় ব্রিগেডিয়ার পান্ডে যখন ওদের ক্যাম্প পরিদর্শনে আসেন , সানকি আর গ্রেণেডের বাকসো দেখে ওদের বাসন প্লেট দেবার হুকুম দেন । ছেলেরা বলে ‘বাসন প্লেট চাই না , তার বদলে আমাদের বুলেট দিতে বলুন’ … .

    :bow: :bow: :bow: :bow: :salute: :salute: :salute:

    1. খুব ভালো হবে তাহলে…
      খুব ভালো হবে তাহলে… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: বিশেষ করে শহীদ রুমি আর তার বাহিনীর অপারেশনগুলোর উপর একটা লেখা পেলে ভালো হয়… :ভাবতেছি: :বুখেআয়বাবুল:

  3. . … প্রথমদিকে ওদের অনেক

    . … প্রথমদিকে ওদের অনেক বেশি কষ্ট করতে হয়েছে । প্রায় কিছুই ছিলো না । উন্মুক্ত আকাশে ঘাসের উপর শুয়েছে কতদিন । ভাত খেয়েছে মাটির সানকিতে , গ্রেনেডের খালি বাকসো আড়াআড়ি কেটে তার মধ্যে । ভারতীয় ব্রিগেডিয়ার পান্ডে যখন ওদের ক্যাম্প পরিদর্শনে আসেন , সানকি আর গ্রেণেডের বাকসো দেখে ওদের বাসন প্লেট দেবার হুকুম দেন । ছেলেরা বলে ‘বাসন প্লেট চাই না , তার বদলে আমাদের বুলেট দিতে বলুন’ … ..
    অনেক কষ্টে অর্জিত বড় মমতার এই দেশটাতে যেনো আর কোনো শকুনের আঁচড় না পরে।

    এই পোস্ট কীভাবে চোখ এড়িয়ে গেল জানি না!! অসাধারণ সংগ্রহে রাখার মত পোস্ট!! :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *