অমানুষদের জন্যই মানবাধিকার

এই দেশের প্রত্যেকটি ঘরে ঘরে রাজাকারের জন্ম দিয়ে এই দেশটা যুক্তরাষ্ট্রের পায়ের নীচে চেপা রাখার জন্য এই দেশে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের পোষ্য সংঘঠন জাতিসংঘ।

আমার কথা যদি ভুল হয় তাহলে আমি সাদ্দাম হুসাইনের ব্যপারটা একটু মনে করিয়ে দিতে চাই। তখন কোথায় ছিলো চুদমারানি জাতিসংঘ মানবাধিকার?

আমাদের দেশ আমাদের মা। আর আমাদের মাকে ধর্ষণ করে আমাদের কাছে কনডম চাইবে, এই খেলায় কোন বাংলার সূর্য সন্তান থাকতে পারে না, থাকবে না। আমরা মুক্ত চিন্তার স্বাধীনতা চাই, যেখানে নব্য সংযোজিত ৫৭ ধারা কার্যকর হবে না। কারণ কিছু গালি সরকারের পাওনা।


এই দেশের প্রত্যেকটি ঘরে ঘরে রাজাকারের জন্ম দিয়ে এই দেশটা যুক্তরাষ্ট্রের পায়ের নীচে চেপা রাখার জন্য এই দেশে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের পোষ্য সংঘঠন জাতিসংঘ।

আমার কথা যদি ভুল হয় তাহলে আমি সাদ্দাম হুসাইনের ব্যপারটা একটু মনে করিয়ে দিতে চাই। তখন কোথায় ছিলো চুদমারানি জাতিসংঘ মানবাধিকার?

আমাদের দেশ আমাদের মা। আর আমাদের মাকে ধর্ষণ করে আমাদের কাছে কনডম চাইবে, এই খেলায় কোন বাংলার সূর্য সন্তান থাকতে পারে না, থাকবে না। আমরা মুক্ত চিন্তার স্বাধীনতা চাই, যেখানে নব্য সংযোজিত ৫৭ ধারা কার্যকর হবে না। কারণ কিছু গালি সরকারের পাওনা।

এতকিছুর পরেও শেষ চাওয়া, যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দিন। নিজের বগলে বিচার বিভাগ রেখে আপনারা বিচার বিভাগকে স্বাধীন বলে আপনারা বিচার বিভাগের প্রতি শ্রদ্ধাশীল প্রমাণিত করবেন না প্লিজ। কারণ বিচার বিভাগ থেকে আপনাদের বগলের বাজে দুর্গন্ধ বের হয়। সুতারাং, সমস্ত বাঙ্গালীর প্রাণের দাবী নিয়ে রাজনীতি বন্ধ করেন। আমরা মুজিবের সন্তান, তাই তাঁর উপদেশ আমরা ভুলি নাই। তিনি বলেছেন, “তুমি ভদ্র লোকের সাথে কথা বলার সময় তোমাকে ওই ভদ্রলোকের চেয়ে বেশী ভদ্র প্রমাণ করবে আর অভদ্রের বেলায় তুমি হবে জঘন্যতম শ্রেণির একজন।”

৮ thoughts on “অমানুষদের জন্যই মানবাধিকার

  1. তখন কোথায় ছিলো চুদমারানি

    তখন কোথায় ছিলো চুদমারানি জাতিসংঘ মানবাধিকার?

    আপনি কি পাপিয়া আফার কোন দূর সম্পর্কের মানুষ ……… :কনফিউজড:

  2. “এক রূপে শত রঙ্গ !
    জাতিসংঘ !

    “এক রূপে শত রঙ্গ !
    জাতিসংঘ ! জাতিসংঘ !!

    সৌদি’র মানুষ বলি
    একাত্তরের রক্তের হলি
    সব কিছু ভুলে গেলি?

    মানবাধিকারের বায়না,
    বাঁচাতে চায় হায়েনা।
    হায়েনাধিকার চায়, মানবাধিকার চায়না…

    ফাঁসি ফাঁসি ফাঁসি চাই,
    সকল যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসি চাই,
    একাত্তরের বাঙলায়…”

    জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের প্রধান নাভি পিল্লাই এর কাছে তিনটি প্রশ্নঃ
    ক) আপনি কি কখনও মিরপুরস্থ জল্লাদখানা ঘুরে এসেছেন?
    খ) সন্দেহ হলে আগেই পর্যবেক্ষক পাঠান নাই কেন?
    গ) শেষ মুহূর্তে এই ধরনের বিচিত্র চিঠি চালাচালি কেন?

    ‘পিল্লাই এইটা পাকিস্তান না বাঙলাদেশ,
    তাই ড্রোনের চিন্তা হবে অঙ্কুরেই শেষ…’

  3. আপনি যুদ্ধাপরাধীদের মৃত্যু
    আপনি যুদ্ধাপরাধীদের মৃত্যু দন্ড কার্যকর হোক এটা চান……….

    আবার আপনি বিচার বিভাগ নিয়েও প্রশ্ন তুললেন?????

    আপনি ঠিক কি বোঝাতে চাইলেন????

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *