মনে থাকা কয়েকটি কথা

# আমাদের বয়সী বা বয়সে একটু বড় মানুষদের একটি অভ্যাস হয়ে গেছে সবকিছুতেই ভারতকে কটাক্ষ করা । সে কাজ করতে করতে আমরা তাদের ভালো জিনিসগুলো , অনুসরণীয় ব্যাপারগুলোকেও ছোট করে ফেলি । আমরা ছোট করে ফেলি গড অব ক্রিকেট শচীনকে , এমনকি অস্কারজয়ী এ আর রেহমানকেও । তাদের যেটা ভালো সেটাও গ্রহণ করি না উল্টো অনেকে খারাপ , বিরক্তিকর , মানহীন অংশগুলোই মনে ধারণ করে বসে থাকি ।


# আমাদের বয়সী বা বয়সে একটু বড় মানুষদের একটি অভ্যাস হয়ে গেছে সবকিছুতেই ভারতকে কটাক্ষ করা । সে কাজ করতে করতে আমরা তাদের ভালো জিনিসগুলো , অনুসরণীয় ব্যাপারগুলোকেও ছোট করে ফেলি । আমরা ছোট করে ফেলি গড অব ক্রিকেট শচীনকে , এমনকি অস্কারজয়ী এ আর রেহমানকেও । তাদের যেটা ভালো সেটাও গ্রহণ করি না উল্টো অনেকে খারাপ , বিরক্তিকর , মানহীন অংশগুলোই মনে ধারণ করে বসে থাকি ।

# স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে তৈরি করা চলচ্চিত্র প্রলয় পশ্চিম বাংলায় মুক্তি পেয়েছে প্রায় কোন বাঁধা ছাড়াই , ব্লকবাসটারও হয়েছে । আমাদের কাছেও অনেক ভালো লেগেছে কিছুটা ভিন্নধারার বলে । কিন্তু আমাদের এখানে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক কোন চলচ্চিত্রে কোন তরুণের পায়ে কেডস দেখানো হলে তা সেন্সরে আটকে থাকে বছরের পর বছর । অবাক করা বাস্তবতা ।

# লক্ষ – কোটি মাইল দূরে থাকা হলিউডের অভিনেতা , ফাস্ট এন্ড ফিউরিয়াসের অন্যতম জনপ্রিয় চরিত্র পল ওয়াকার মারা গেলেন কয়েকদিন আগে । পুরো সাইবার জগতে যেন শোকের মাতম পড়ে গেল । সবার কত কষ্ট , কত দুঃখ ! অথচ আমাদের বাসাবাড়ির কাছেই শাহবাগে ১৯টা মানুষ বাসের মধ্যে পুড়ে যাওয়ার পরেও কোন অনুভূতি থাকে না তাদের । দেশের মানুষ , তাই কিছু না ? নাকি সাধারণ মানুষ , তাই ?

# রাজনৈতিক দলগুলোর ফটোশপ রাজনীতি দেখে না হেসে উপায় নেই । আনাড়ি হাতের ছোঁয়ায় তিলকে তাল বানায় তারা । আর আমরা আমজনতা সেগুলো নিয়ে নাচানাচি করি । অদ্ভুত ।

# আর কাল এক বড়ভাই মুনীর চৌধুরীর উক্তি অনুসারে বলেছিল , ‘মানুষ মরে গেলে পচে যায় , বেঁচে থাকলে এরশাদ হয় । কারণে অকারণে এরশাদ হয় ।’ মজার ব্যাপার । উনার মনোভাব যে কখন কি হয় , বোঝা মুশকিল ।

দেশটা ভালো থাকুক । হিংসা – বিদ্বেষ চলে যাক । সবাই একসাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দেশটা এগিয়ে নিতে চাই । আর লাশ দেখতে চাই না ।

আমরা যে ভাই আমজনতা , একটু ক্ষান্ত চাই ।

১৬ thoughts on “মনে থাকা কয়েকটি কথা

  1. দেশটা ভালো থাকুক । হিংসা –

    দেশটা ভালো থাকুক । হিংসা – বিদ্বেষ চলে যাক । সবাই একসাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দেশটা এগিয়ে নিতে চাই । আর লাশ দেখতে চাই না ।

  2. একটু দ্বিমত আছে । শাহবাগ এ
    একটু দ্বিমত আছে । শাহবাগ এ মানুষ পুড়ে মারা যাবার ব্যপার টা আমাদের সবাইকেই নাড়া দিয়েছে । আমি ফেসবুকে তাই নিয়ে সবার ক্ষোভ হতাশা ঝরে পড়তেও দেখেছি ! আমি নিজেও খুব্ধ !

    কিন্তু তাই বলে কারো প্রিয় অভিনেতা মারা গেলে পোস্ট দিয়ে স্মরণ করতে পারবে না বা করলেই নিজের দেশের স্থান ছোট হয়ে যাবে এটা আমি মানতে পারলাম না মাশরিক !

    আমাদের দেশ এত ঠুনকো নয় বা এই দেশ নিয়ে আবেগ টাও ক্ষনস্থায়ী নয় !

    1. আমারও দ্বিমত আছে । শাহবাগের
      আমারও দ্বিমত আছে । শাহবাগের ঘটনাটি নিয়ে ব্লগার এবং লেখক সম্প্রদায় বাদে খুব কম মানুষকেই কথা বলতে , শোক প্রকাশ করতে দেখেছি । নাহলে এ পয়েন্টটা আমার লেখায় আসত না ।
      পল ওয়াকারের মৃত্যুর পর এমন অনেক স্ট্যাটাস দেখেছি যে , ‘মন খুব খারাপ।” ‘এখনো বিশ্বাস করতে পারছি না।’ ‘সারাদিন শুধু উনার মুভিই দেখছি।’ সে তুলনায় ১৯টা মানুষ সম্পর্কে তেমন কোনকিছুই চোখে পড়ল না ।
      আর এ সময়ে এসব স্ট্যাটাস দেয়া কি খুবই জরুরী ??
      মাঝে মাঝে আবেগ তো প্রকাশ করতে হয় !

  3. ভালোয় লিখেছেন সত্যি বলতে কি
    ভালোয় লিখেছেন সত্যি বলতে কি ভারতীয়দের কথা যদি বলেন তাহলে বলব ভারতীয়দের নাম শুনলেই কিছু মানুষের গায়ে জ্বালা উঠে আসলেই ওরা ভালোকে গ্রহণ করতে জানেনা বলেই এই অবস্থা ……

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *