অত্যন্ত সহজ কিন্তু অসাধারন এক রান্নার রেসিপি !?!?!?

আজকে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি একটি অত্যন্ত সহজ কিন্তু অসাধারন রান্নার রেসিপি নিয়ে। বিশ্বাস করুন, এর কোন তুলনা হয় না। এর বিশেষ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এটি একদিকে যেমন তৈরী করা সহজ, তেমনি আছে আপনার রাতারাতি খবর হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা। এবার তাহলে শুরু করি?

যা যা লাগবে =

1. ৩টি প্রমান সাইজ কাঁচা পেঁপে বাটা।
2. মরিচ বাটা ১.৫ কেজি।
3. আদা বাটা ২০ টেবিল চামুচ।
4. রসুন বাটা ১৫ চা চামুচ।
5. পেঁয়াজ বাটা ৩০ টেবিল চামুচ।
6. লবন পরিমান মত।
7. আপনি।
8. একটি লোকাল বাসের জানালার পাশের সিট।
9. নেত্রীর কড়া নির্দেশ (প্রয়াত স্বামী অথবা পিতার স্বপ্ন মাখা)।
10. একজন দক্ষ পেট্রোল বোমাবাজ।


আজকে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি একটি অত্যন্ত সহজ কিন্তু অসাধারন রান্নার রেসিপি নিয়ে। বিশ্বাস করুন, এর কোন তুলনা হয় না। এর বিশেষ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এটি একদিকে যেমন তৈরী করা সহজ, তেমনি আছে আপনার রাতারাতি খবর হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা। এবার তাহলে শুরু করি?

যা যা লাগবে =

1. ৩টি প্রমান সাইজ কাঁচা পেঁপে বাটা।
2. মরিচ বাটা ১.৫ কেজি।
3. আদা বাটা ২০ টেবিল চামুচ।
4. রসুন বাটা ১৫ চা চামুচ।
5. পেঁয়াজ বাটা ৩০ টেবিল চামুচ।
6. লবন পরিমান মত।
7. আপনি।
8. একটি লোকাল বাসের জানালার পাশের সিট।
9. নেত্রীর কড়া নির্দেশ (প্রয়াত স্বামী অথবা পিতার স্বপ্ন মাখা)।
10. একজন দক্ষ পেট্রোল বোমাবাজ।

সকালে ঘুম থেকে উঠে সুগন্ধি সাবান দিয়ে একদফা দলাই-মলাই গোসল দিন। তারপর গা মুছে লোশনের পরিবর্তে সারা গায়ে পেঁপে বাটা মেখে পরিবারের সকল সদস্যদের সাথে জমিয়ে আধা ঘন্টা আলাপচারিতা চালান (রন্ধন পরবর্তী নির্দেশ সম্বলিত আলোচনা হলে ভালো হয়)। এবার মরিচ, আদা, রসুন এবং পেঁয়াজ বাটা একসাথে মিশিয়ে সারা শরীরে মাখান (চুল, চোখ এবং দেহের “স্পর্শকাতর” অংশ ব্যাতীত)। এবার পছন্দনীয় এক সেট আরামদায়ক পোশাক পরে পরিবারের সকল সদস্যের কাছ থেকে প্রতিদিনের মত “হাসিমুখে” বিদায় নিয়ে শাহবাগগামী একটি লোকাল বাসে উঠে যান। মনে রাখবেন আপনার সীটখানা যেন অবশ্যই দরজা থেকে দূরে এবং জানালার পাশে হয়। বাস শাহবাগ এসে পৌঁছুলেই রান্নার চুরান্ত পর্যায়ের জন্য মানসিক ভাবে প্রস্তুত হোন। বাস এগিয়ে যাচ্ছে, আপনি ফুরফুরে মন নিয়ে জানালা গলে আসা হাওয়া খাচ্ছেন, বাস আরো এগিয়ে যাচ্ছে, আপনার পাশের যাত্রী পান চিবুচ্ছে, আরেকজন কন্ডাক্টারের সাথে দু’টাকা ভাড়া কম বেশী নিয়ে ঝগড়া করছে, একজন মা ভিড়ে অতিষ্ট শিশুর কান্না থামানোর চেষ্টা করছে, বাস চলছে, এইমাত্র গরর করে একজন গলা পরিষ্কার করে জানালার বাইরে কফ ছুঁড়ে দিল, একটি স্কুল ড্রেস পরা মেয়ে বাবার পাশে চাপাচাপি করে বসে ভীড়ের মধ্যেই পরীক্ষার পড়া রিভিশন দিচ্ছে, আপনি প্রতিদিনের চেনা দৃশ্য অভ্যস্ত চোখে দেখছেন, বাস চলছে…….।

হঠাৎ রেসিপির ৯ নম্বর উপাদানের প্রভাবে ১০ নম্বর উপাদানের আবির্ভাব!!! বুম্‌ শব্দ, তীব্র আলোর ঝলকানি, পেট্রোলের ঝাঁঝাঁলো গন্ধ, আগুনের লাল-কমলা লেলিহান শিখা ছড়িয়ে গেল সাথে সাথে। মুহূর্তের মধ্যে সব পুড়ে যাচ্ছে। কনডাক্টর, ছাত্রী, বাবা, শিশু, মা, পড়ার বই, আপনি, একবাস ভর্তি ভবিষ্যত স্বপ্ন, মানুষের স্বপ্ন, এক জীবনের প্রতিটি মুহুর্ত নিয়ে একটু একটু করে লেখা অনেকগুলো আলাদা আলাদা আনন্দ-বেদনার কাব্য, একটি প্রেম, একটি অসম্পুর্ন কালজয়ী কবিতা, অনেক না বলা কথা, সব পুড়ছে, পুড়ছে, জ্বলে যাচ্ছে, জ্বলে যাচ্ছে। আহ্‌, কি সুন্দর আশরাফুল মাখলুকাত পোড়া গন্ধ ছড়িয়ে পরছে শাহবাগের বাতাসে! কি অদ্ভুত মাদকতাময় সুবাস, আহা। শাহবাগ থেকে ছড়িয়ে যাচ্ছে ৫৬ হাজার বর্গমাইলের প্রতিটি কোনায়।

প্লিজ, প্লিজ, প্লিজ ভাই, বাঁচাও বাঁচাও বলে অহেতুক চিৎকার করবেন না, প্লিজ। আরো অনেকেই তো বাঁচাও, বাঁচাও বলে চিৎকার করছে। আপনি না করলেও চলবে। আপনি জানেন গনতন্ত্র উদ্ধারের দাওয়াত মেহ্‌ফিলে আপনি আজ প্রধান আইটেম। ওহ্‌, এই দেখুন, আপনাকে রেসিপির নামই বলা হয় নি, এটা হচ্ছে “নেত্রী পসন্দ্‌ শাহী বাঙ্গালী কাবাব”। সুন্দর না নামটা! কষ্ট হচ্ছে? আর কয়েক সেকেন্ড মাত্র। সুন্দর কিছু ভাবুন। আমরা যেই সুন্দর, সভ্য বাংলাদেশের স্বপ্ন বুকে নিয়ে দেশের মহান গণতন্ত্রের ধারকরা এগিয়ে যাচ্ছে, সেই স্বপ্ন মন্দিরের দেবীদ্বয়ের চরনে আপনি হচ্ছেন অমূল্য উপঢৌকন। আজকের অনলাইন পত্রিকা আর কালকের দৈনিকের প্রথম পাতায় আপনার, আপনার স্ত্রী-সন্তান আর মায়ের ছবি ছাপা হবে। আপনার রন্ধন পুর্ববর্তী একটা আর আপনার কাবাবের কিয়দংশও ছাপানো হবে। ভাবুনতো একবার, এ রেসিপিটা না হলে সম্ভব হতো?

এইতো, এইতো, এই, এই, হ্যাঁ এবার আমাদের কাবাব রান্না শেষ। ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা, রাজশাহী, বগুরা, টেকনাফ, তেতুলিয়া, সন্দ্বীপ, মহেশখালী, সিলেট সবখান থেকেই কি পাওয়া যাচ্ছে না কাবাবের সুঘ্রাণ? চলমান “নেত্রী পসন্দ্‌ শাহী বাঙ্গালী কাবাব” রান্নার উৎসবে আপনাকে প্রতিদিন জানাই স্বাগতম।

১১ thoughts on “অত্যন্ত সহজ কিন্তু অসাধারন এক রান্নার রেসিপি !?!?!?

    1. দুজনকেই মিন করছি। রাজনীতি বড়
      দুজনকেই মিন করছি। রাজনীতি বড় নোংরা বিষয়। ফায়দা লুটার জন্য এরা যে কোন কিছুই করতে পারে। এদের দুজনের একজনকেও আমি বিশ্বাস করি না। ব্যাক্তিগত স্বার্থ উদ্ধারের জন্য একে অপরের উপর দোষ চাপানোর উদ্দেশ্যে এ দু’জনের পক্ষে সবই করা সম্ভব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *