দেশপ্রেম ও ভারতের সংস্কৃতি

অনেক সময়ই আমার প্রতি একটা অভিযোগ আসে বন্ধুদের তা হলো,’তুই ইন্ডিয়ার মিডিয়াকে ঘৃণা করিস,বাংলা মুভি দেখার কথা বলিস অথচ নিজে হলিউডের মুভি দেখিস কেন’?
মুভি নিয়ে কোথাও তর্ক করতে গেলেও এই তীরটা আসে আমার দিকে। এমন কী অনলাইনের অনেক বন্ধু বা বড় ভাইয়েরাও এই ব্যাপার নিয়ে আমার সাথে তর্ক করতে আসেন।
হ্যা আজ বলবো এই ব্যাপারটিকে নিয়েই।
বাংলার মানুষদের আগে বিনোদন বলত্তে ছিলো শুধুই বাংলা ছবি। প্রতি শুক্রবার একটি ছবি দেখাতো বিটিভিতে তাই সবাই মিলে একত্রে দেখতো।
তারপর ধীরে ধীরে প্রসার হলো ডিসের, দাম কমে গেলো রঙিন টিভির। সবার কাছেই সহজলভ্য হয়ে গেলো।
তখন বাঙ্গালীরা ধারন করলো ভারতের সংস্কৃতিকে।

অনেক সময়ই আমার প্রতি একটা অভিযোগ আসে বন্ধুদের তা হলো,’তুই ইন্ডিয়ার মিডিয়াকে ঘৃণা করিস,বাংলা মুভি দেখার কথা বলিস অথচ নিজে হলিউডের মুভি দেখিস কেন’?
মুভি নিয়ে কোথাও তর্ক করতে গেলেও এই তীরটা আসে আমার দিকে। এমন কী অনলাইনের অনেক বন্ধু বা বড় ভাইয়েরাও এই ব্যাপার নিয়ে আমার সাথে তর্ক করতে আসেন।
হ্যা আজ বলবো এই ব্যাপারটিকে নিয়েই।
বাংলার মানুষদের আগে বিনোদন বলত্তে ছিলো শুধুই বাংলা ছবি। প্রতি শুক্রবার একটি ছবি দেখাতো বিটিভিতে তাই সবাই মিলে একত্রে দেখতো।
তারপর ধীরে ধীরে প্রসার হলো ডিসের, দাম কমে গেলো রঙিন টিভির। সবার কাছেই সহজলভ্য হয়ে গেলো।
তখন বাঙ্গালীরা ধারন করলো ভারতের সংস্কৃতিকে।
তাদের বস্তাপচা মুভি অথচ যৌনতাকে সুরসুরি দেবার চলচিত্রগুলি খুব সহজেই জনপ্রিয় হয়ে গেলো এদেশে।
আবার অনেকেই বলে মুভি তো আর দেশ দেখে দেখি না ভালো মুভি হলেই দেখি।
ভারতে ভালো মুভি হয়???
হয় না যে বলছি না । খুবই কম হয়। ভারতে ভালো মুভির মান এতোটাই কম যে বিশ্বের মুভি RANK দাতা সাইট IMDB তে সেরা ২৫০টি মুভির মধ্যে ভারতের চলচিত্র মাত্র তিনটি।
তিনটিই মাস্টারপিস মুভি হিসেবে গন্য হয়েছে।
দেখুন যে ভারত প্রতি বছর হাজারো মুভি রিলিজ দেয় তাদের মুভিই টপ ২৫০এর মধ্যে মাত্র তিনটি। বুঝুন তাহলে তাদের মুভির মান।
অথচ এই মুভির মান নিয়েই কিছু বাঙ্গালীরা ভাইয়েরা তর্ক করতে আসে।
যারা বলেন মুভি দেশ দেখে দেখি না ভালো হলে দেখি তারা আসলে মনেপ্রানে ভারত কে পছন্দ করে তাই এই কথা বলেন।
ভালো মুভির কথা যদি বলেন তবে ইরানী মুভির কথা বলতে হয়। IMDB এর টপ ২৫০এর মধ্যে বেশ কিছু ইরানী মুভি আছে।
আপনারা যারা মিডিয়ার খোজখবর রাখেন তারা অবশ্যই জানেন যে অনেক ইরানি মুভিই অস্কার পেয়েছে।
এবার আসি হলিউডের ব্যাপারটিকে নিয়ে।
হলিউডের মুভির ভাষা ইংলিশ। তাদের মুভির মান নিয়ে আশা করি কিছু বলতে হবে না।
হলিউডের মুভি দেখার ফলে আমার অনেক বন্ধুইই ইংলিশে একটু হলেও বেশী দহ্ম হয়েছে তা তারা নিজেরাই আমাকে বলেছে। ইংলিশ ছাড়া যে আধুনিক বিশ্বে কোথাও টিকা কস্টকর হয় তা আপনারা জানেনই।
এদিকে বলিউডের মুভিগুলোর ভাষা হিন্দি।
“হিন্দি ভাষা ছাড়া আধুনিক বিশ্বে কোথাও টেকা যাবে না তা আশা করি কেও বলতে আসবেন না”। 😉

অর্থহীনের ভোকাল সুমন ভাইকে অনেকেই চিনেন। সুমন ভাইয়ের সাথে ওনার কথোপকথনটা ছিলো ঠিক এরকমঃ

“””””””””জনৈকঃ আপনি কি আশিকি-২ মুভিটা দেখেছেন?

আমিঃ নাহ। আমি হিন্দি মুভি দেখি না।

জনৈকঃ আপনারা এরকম কেন বলুন তো? হিন্দি মানেই তো আর খারাপ কিছু নয়। এটা একটা ভাষা। এখন বলিয়ুড কত ভাল কোয়ালিটির মুভি বানায় জানেন?

আমিঃ শোনো, আমার হিন্দি আর উর্দু ভাষা নিয়া অ্যালার্জি আছে। এই ২ টা ভাষা শুনলেই আমার লিটারেলি গা চুলকাইতে থাকে। প্রেশার বাইরা যায়। মনে হয় সবকিছু ভাইঙ্গা ফালাই। অনেকগুলো কারনের মাঝে এটা একটা আসল কারন, এই জন্যেই আমি হিন্দি / উর্দু মুভি দেখি না। গান শোনার তো প্রশ্নই উঠে না।

জনৈকঃ এটা একটা কথা বললেন? অনেক ভাল ভাল হিন্দি গান আছে।

আমিঃ অবশ্যই আছে। বাট আমি আবার একটু দেশপ্রেমিক আছি। বুঝলা কিনা? এই জন্যে শুনি না।

জনৈকঃ এই ব্যাপারে আমার কিছু কথা আছে সুমন ভাই! আপনারা দেশপ্রেমের দোহাই দিয়া হিন্দি গান শুনেন না। কিন্তু ঠিকই ইংলিশ গান শুনেন! এইটার যৌক্তিকতা কি?

আমিঃ হাহাহা। যুক্তি যদি চাও তাহলে অনেক যুক্তি দেয়া যায়। শোনো, আমি একজন বাংলাদেশি মিউজিশিয়ান। কত টাকা এই বাংলাদেশের মিউজিশিয়ানদের জন্য খরচ কর তোমরা? শাহরুখ খান দেশে আইসা আমাদের স্টেডিয়াম এ গানের সাথে নাচানাচি কইরা কোটি কোটি টাকা নিয়া যায়, আর তোমরা সেই নাচানাচি দেখতে যেই টাকা খরচ কর তার অর্ধেকও আমাদের পিছনে খরচ করনা। ইন্ডিয়া পাকিস্তান থেকে আমরা এই সেক্টরে কত টাকা কামাই? এইসব নিয়া কথা বললেই তোমরা বল যে তারা ভাল তাই খরচ করি। কেন? বাংলাদেশে ভাল মিউজিক হয় না? ইন্ডিয়া আর পাকিস্তান কবে বাংলাদেশের কয়টা মিউজিশিয়ান কে নিয়ে গেছে কনসার্ট করানর জন্যে? এবং নিয়ে গেলেও কত টাকা দেয়? কলকাতায় কি বাংলাদেশ ব্যান্ডের ফ্যান নাই? প্রচুর আছে! ফেসবুকে প্রচুর মেসেজ পাই ফ্যানদের কাছ থেকে। তারাও আমাদের দেখতে চায় সেখানে। তারপরেও বাংলাদেশিরা কেন ইন্ডিয়া/পাকিস্তানে শো পায় না? তারা তো বাংলাদেশিদের ডিম্যান্ড থাকা সত্তেও বেইল দেয় না। আগে তারা আমাদের কালচার/গান কে সম্মান দেয়া শিখুক দেন আশা কইরো যে আমরাও তাদের মিউজিক বা কালচার কে সম্মান দিব।“””””””””

আমিও ওনার কথার পরিপ্রেহ্মিতে বলতে চাই। যারা দেশকে ভালোবাসেন তাদের সকলেরই হিন্দি,উর্দু দুই ভাষার মিডিয়াই ত্যাগ করা উচিত।
আর যদি বলেন,তাদের সংস্কৃতিকে সম্মান দিতে তবে বলবো,আগে তারা আমাদের সংস্কৃতিকে সম্মান দেওক তারপর দেখা যাবে।
আপনারা জানেন যে ইন্ডিয়াতে বাংলাদেশি কোন চ্যানেল চলে না। অথচ ইন্ডিয়ার চ্যানেল ঠিকই এদেশে ধুমছে চলছে।

বলিউডের ছবিকে কেনো ঘৃণা করি আর হলিউডের ছবিকেনো দেখি তা আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

৩ thoughts on “দেশপ্রেম ও ভারতের সংস্কৃতি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *