আমার হৃদয়পুরে সঞ্জীবদা…!

তখন কলেজে পড়ি। আমার বেষ্ট ফ্রেন্ড তখন আমাদের পাশের বাড়ীতে এসেছে কিছুদিন হলো। আমরা সমবয়সী এবং একই কলেজে পড়তাম, একই এলাকায় থাকতাম, সারাদিন একই সাথে থাকতাম। ও কল্যানপুরের একটা মেয়েকে খুব পছন্দ করতো, মেয়েটি ওর চাইতে দেড়-দুবছরের বড়। ঢামেকে পড়ে। ও ডাকতো নিপা আপু। আমি ওর বাসায় গেলেই তার নিপা আপুর গল্প। প্রথমটায় খুব আগ্রহ নিয়ে শুনতাম, পরবর্তীতে বোর হয়ে গেলাম।


তখন কলেজে পড়ি। আমার বেষ্ট ফ্রেন্ড তখন আমাদের পাশের বাড়ীতে এসেছে কিছুদিন হলো। আমরা সমবয়সী এবং একই কলেজে পড়তাম, একই এলাকায় থাকতাম, সারাদিন একই সাথে থাকতাম। ও কল্যানপুরের একটা মেয়েকে খুব পছন্দ করতো, মেয়েটি ওর চাইতে দেড়-দুবছরের বড়। ঢামেকে পড়ে। ও ডাকতো নিপা আপু। আমি ওর বাসায় গেলেই তার নিপা আপুর গল্প। প্রথমটায় খুব আগ্রহ নিয়ে শুনতাম, পরবর্তীতে বোর হয়ে গেলাম।

একদিন নিপা আপু ওকে নিয়ে সারাদিন এদিক সেদিক ঘুরে বেড়ালো। প্রথম অফিসিয়াল ডেটিং যাকে বলে। টিএসসি, রমনা আর শিশুপার্ক। ফেরার পথে একটা সিডি গিফট করলো আমার বন্ধুকে। দলছুটের একটা গানের এ্যালবাম। নামঃ হৃদয়পুরে দলছুট। আপুর কাছ থেকে পাওয়া ওর প্রথম গিফট। ও ওর বাসায় যাবার আগে আমাকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে ওর ঘরে নিয়ে গেলো। আমার সামনে প্যাকেট খুলে ডেক সেটে সিডিটা চালিয়ে দিলো। খুশীতে তার চোখ মুখ ঝলমল করছে। ১১/১২ বছর আগের কথা, কোন গানটা আগে বেজেছিলো মনে নেই, শুধু মনে আছে একটা গানের বাজনা আমার খুব ভালো লেগে গেলো। সঞ্জীবদা আর বাপ্পাদা একসাথে গাইছেন-

সবুজ যখন বাধেঁ বাসা
গাছের পাতায় বনে,
মনে তখন দুঃখ লুকায়
অন্তগহীন কোণে।
বৃষ্টি যখন সুরের সাথে
রিমঝিমিয়ে পড়ে,
কান্নাগুলো চোখের মায়া
ছিন্ন করে পড়ে।

গারেন শুরুতে যে গিটারটা বাজানো হয়েছিলো, সেটা পাকাপাকিভাবে মাথায় গাথাঁ গেলো। এরপর যখনি ওর ঘরে যেতাম, দেখতাম এই গানটা বাজছে। ও রাতদিন প্রায় ২৪ ঘন্টা এই সিডিটার প্রতিটা গান শুনতো। একদিন খুব সকালে ওর বাসায় গিয়েছি ওকে নিয়ে ঢাবির ভর্তি ফরম আনতে যাবো, তখনও সে এই গানটা শুনছিলো। সকালের নরম আর ঠান্ডা আবেশের সাথে গানটা একাকার হয়ে মিশে গিয়েছিলো-

সূর্য যখন জাগায় ভুব,ন
পাখির শিসে ভোর।
আমার কেন উদাস দুপুর
বিরহে প্রহর?

গানের লিরিক, সুর ও কন্ঠ দিয়েছিলেন সঞ্জীবদা স্বয়ং। এই গানটার সাথে তাই আমার কিশোর বয়সের স্মৃতি এবং আমার খুব কাছের এক বন্ধু আর তার প্রথম প্রেমের স্মৃতি জড়িয়ে আছে। এখনো এই গানটা শুনলে আমার সেসব স্মৃতি স্পষ্ট চোখের সামনে ভেসে ওঠে। এর অনেক বছর পর, একদিন মাঝ রাতে বাংলাদেশ থেকে হাজার হাজার মাইল দূরে আইপডে গানটা শুনতে শুনতে পাহাড়ী রাস্তা বেয়ে বেয়ে ওপরে ওঠছি…আমার প্রতিরাতের বাড়ী ফেরা পথ…আকাশে তখন বিশাল চাদঁ…সঞ্জীবদা গাইছেন-

চাদঁকে যখন দেখি অনেক
আলো দিয়ে ঘেরা
আমার কেন হয়না তবু
আলোর পথে ফেরা।

দলছুট একবার একটা আউটডোর কনসার্ট করলো গুলশান ওয়ান্ডারল্যান্ডে। সেখানে গিয়ে দেখি সঞ্জীবদা তার চিরাচরিত জিনস আর টি শার্ট পড়ে একটা টুলের উপর এক কোনায় বসে আছেন। মাথা জুড়ে ঝাকড়াঁ কোকড়াঁ চুল। সাহস করে কাছে গিয়ে বল্লাম, আপনার ’সবুজ যখন’ গানটা আমার খুব প্রিয়। আমাকে ইনট্রোটা শুধু বাজিয়ে শুনাবেন? সঞ্জীবদা হাসলেন। মুচকি হাসলে তার হাসিটা ঘন গোফেঁর আড়ালে খানিকটা ঢাকা পড়ে যায়। কিন্তু চেহারার এখানে ওখানে ভাজঁ দেখে বেশ বোঝা যায় যে তিনি হাসছেন। শুধু ইনট্রো না, উপস্থিত সবাইকে সে সবুজ যখন গানটা গেয়ে শোনালেন। গানের শেষ বিরতির ফাকেঁ আমার পিঠে গিটার ঝোলানো দেখে জিগেস করলেন, গিটার বাজাও? আমি প্রচন্ড লজ্জা পেয়ে মাথা ঝাকাঁলাম। তিনি বল্লেন, এই গানটা তুলেছো গিটারে? আমি প্রচন্ড লজ্জা পেয়ে মাথা নাড়লাম। এরপর তিনি একটা ব্যাগের ভেতর থেকে একটা কাগজ বের করে বল্লেন- ”এখানে ওটার নোট লেখা আছে। বাইরে থেকে ফটোকপি করে এটা আমাকে দিয়ে যাও।” আমি প্রচন্ড অবাক হলাম, এত অবাক হয়েছিলাম যে খুশী হতেও ভুলে গিয়েছিলাম। সঞ্জীবদা নিজের হাতে তার গানের নোট আমাকে দিচ্ছেন!!!

সঞ্জীবদা, দেখতে দেখতে ছয় ছয়টা বছর হয়ে গেলো। কিন্তু তাতে কিছু যায় আসে না। কারন আপনি বেচেঁ ছিলেন…বেচেঁ থাকবেন আমার মতো আপনার লাখো ভক্তের হৃদয়পুরে।

গানটির ইউটিউব লিংকঃ

১৪ thoughts on “আমার হৃদয়পুরে সঞ্জীবদা…!

  1. সঞ্জীবদা এমনই ছিলেন- অফিসে
    সঞ্জীবদা এমনই ছিলেন- অফিসে গিয়ে তার কাছে রিক্সা ভাড়া চাইলে বেশ বড় এখানা নোট বের করে দিয়ে বলতেন- বাকিটা রেখে দিও। তোমরা এখনও ছাত্র- তোমাদের টাকা লাগে তো!

    1. তার অফিসে গিয়ে রিক্সা ভাড়া
      তার অফিসে গিয়ে রিক্সা ভাড়া চাইতেন কেন? বেচারা সাংবাদিকতা করে আর গান গেয়ে ক পয়সাই বা রোজগার করতেন বলুন?

  2. কথাগুলো পড়ে প্রচণ্ড কষ্ট
    কথাগুলো পড়ে প্রচণ্ড কষ্ট পেলাম :মাথাঠুকি: :কানতেছি: :মনখারাপ: কোথায় হারিয়ে গেলেন হে কান্নার জাদুকর… :মাথাঠুকি: :মনখারাপ: :ভাঙামন: :ভাঙামন:

  3. সঞ্জীবদার গান গুলো বড্ড বেশি
    সঞ্জীবদার গান গুলো বড্ড বেশি হৃদয় ছুঁয়ে যেত, এখনও যায়;
    আজ সঞ্জীবদা নাই, গানগুলো আছে। :মনখারাপ: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:
    দাদা, আপনি ভাল থাকুন না ফেরার দেশে। :salute: :salute:

    1. এই জন্যই তো তাঁকে আমরা আমাদের
      এই জন্যই তো তাঁকে আমরা আমাদের হৃদয়পুরে এখনো রেখে দিয়েছি। ভেতরের কথাটা তো সবাই এভাবে বলে ফেলতে পারে না। উনি পারতেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *