লালা ঝরা কবিতা

ওগো পাশের বাড়ির বালা
তুমি বাঁধালে কি জ্বালা
তুমি চলতে ফিরতে ঝরিয়ে গেলে এই মুমিনের লালা।

তোমার সুডৌল ঐ গতর,
তাও রয় না ঢাকা সতর
তায় তিন্তিড়ি জ্ঞান করায় লালা ঝরছে মুমিন শত’র।



ওগো পাশের বাড়ির বালা
তুমি বাঁধালে কি জ্বালা
তুমি চলতে ফিরতে ঝরিয়ে গেলে এই মুমিনের লালা।

তোমার সুডৌল ঐ গতর,
তাও রয় না ঢাকা সতর
তায় তিন্তিড়ি জ্ঞান করায় লালা ঝরছে মুমিন শত’র।

আমি রোজ সুবা আর শামে
কাবু হয়ে যাই প্রচুর ঘামে
যখন রাস্তা ধরে আস্তা আস্তা লেড়কিগো ঢল নামে।

যেন তিন্তিড়িবন চলে
ঐ জেনানাদের ঢলে
আমি বয়রা হয়ে যাই যে আপন লালার কলকলে।

তোমার জন্যে হতভাগী
আমার আল্লামা যায় রাগি
তারে বসানো বেশ কষ্ট যদি একবার ওঠে জাগি।

তুমি রও না কেন ঘরে?
স্বামীর চেয়ার টেবিল ‘পরে?
তুমি বাইরে গেলে সে সব নিয়ে যায় যদি তস্করে?

তোমার একটা মোটে ছানা
আর একশো টাল বাহানা
খালি জন্মনিয়ন্ত্রণের বেলায় আহ্লাদে আটখানা।

তুমি ছাড়বে না আর বাড়ি
ওরে বেলাল্লা বদ নারী
তোমায় পড়লে চোখে সারাটা দিন কাম কি করতে পারি?

তোমার মুমিন মারা ফন্দি
ছেড়ে বাড়িতে রও বন্দী
আর রাস্তাঘাটে আমরা একটু দ্বীন-দুনিয়ায় মন দি।

যদি এ প্রস্তাবে রাজি
নও, তাহলে বদ পাজি
আমার গলায় বাঁধার জন্যে একটা বিবি কিনে দাও আজই।

(সংগৃহীত)

২ thoughts on “লালা ঝরা কবিতা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *