বাপ নাই যার তার সবাই মুরুব্বি

আমাদের সমাজে একটি প্রচলিত কথা বাপ নাই যার তার সবাই মুরুব্বি।মানে হচ্ছে যে পরিবারের প্রধান কর্তা জীবিত না থাকলে সেই পরিবারের সবাই কর্ণধার। কোন নিতে হলে একশো জনকে জিজ্ঞেস করে নিতে হয়।আমাদের দেশটি এখন তেমন হয়ে পড়েছে।কোন দিকেই শান্তি স্বস্তি আসছে না।কেউ কাউকে পাত্তা দিচ্ছে না।
এ যেন এক মগের মুল্লুকে বসবাস।
এখন বলছি কেন এই অবস্থা,সব দেশের একজন নেতা থাকে যিনি দেশের সবছেয়ে গ্রহন যোগ্য বেক্তি যিনি বড় ধরনের সঙ্কটে সবাইকে ঐক্যবদ্ধের ডাক দেন এবং সবাই তা মাথা পেতে মেনে নেন।যার কথাই শেষ কথা।

আমাদের সমাজে একটি প্রচলিত কথা বাপ নাই যার তার সবাই মুরুব্বি।মানে হচ্ছে যে পরিবারের প্রধান কর্তা জীবিত না থাকলে সেই পরিবারের সবাই কর্ণধার। কোন নিতে হলে একশো জনকে জিজ্ঞেস করে নিতে হয়।আমাদের দেশটি এখন তেমন হয়ে পড়েছে।কোন দিকেই শান্তি স্বস্তি আসছে না।কেউ কাউকে পাত্তা দিচ্ছে না।
এ যেন এক মগের মুল্লুকে বসবাস।
এখন বলছি কেন এই অবস্থা,সব দেশের একজন নেতা থাকে যিনি দেশের সবছেয়ে গ্রহন যোগ্য বেক্তি যিনি বড় ধরনের সঙ্কটে সবাইকে ঐক্যবদ্ধের ডাক দেন এবং সবাই তা মাথা পেতে মেনে নেন।যার কথাই শেষ কথা।
আপনার বুকে হাত দিয়ে বলেন যে আপনি নিজে এমন কাউকে মানতে পারেন যিনি সবার বিতর্কের উরধে।দলিও দৃষ্টি বাদ দেন,কে সেই মানুষ।
ইতিহাস কি বলে?জী ইতিহাস বলে আমাদের দেশে একজনই ছিল যাকে সবাই মাথার মুকুট করে রেখেছিল।জী আমি বলছি আমার নেতা আমাদের নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুরের কথা। নাম নয় গুনে যার পরিছয়।ছাগলরা বলবে তাইলে উনি এভাবে কেন মারা গেলেন,তাইলে সাইদি সাহেবের মত কুত্তার বাচ্ছার জন্য এত প্রতিবাদ কেন?কে বেশি জনপ্রিয়?
আমি বলব তোদের মনের খায়েস তো পূরণ হইছে,এটা আর জিজ্ঞেস করিস না।কারন দেশ এর এই কাহিল পরিস্তিতি,বঙ্গবন্ধুর সোনার দেশ আজ ধর্ষিত।এক কোটি রাজাকার এর ফাঁশির বদলেও আমাদের নেতা আর আসবেন না।
লম্বা কথা টক সো তেতুলবাজী করে লাভ নেই।যারা বঙ্গবন্ধুর প্রয়ান দিবসে জাতির পিতার কাল দিবসে কেক কাটে সেই মূর্খদের সাথে তর্কে যাব না।
দেশের এই অবস্থা দেখে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতেও পারছি না।

বঙ্গবন্ধুর বাংলা দয়া করে সামলা।

(অনেকে মন্তব্য করবেন ফেইসবুক জাতীয় কথা,লম্বা বলে লিখে কি কিছু করতে পারছেন?)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *