সাধু সাবধান! বাড়িতে কোন আওয়ামী লীগ আছে কি???

আজকাল অনেক সুশীল ব্যক্তিকেই ফেয়ার নির্বাচনের কথা বলতে শুনি।আসলে ফেয়ার নির্বাচন বলতে তারা কোন নির্বাচনকে বোঝান??
যে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পরাজিত হবে এবং বিএনপি বিপুল ভাবে জয়ী হবে সেই নির্বাচনকেই কি তারা ফেয়ার নির্বাচন বলবেন???
যদি তাই হয় তবে মনে রাখবেন সেই নির্বাচনে শুধুমাত্র আওয়ামী লীগের পরাজয় ঘটবে নাহ্,পরাজয় ঘটবে স্বাধীনতার স্বপক্ষের সকল শক্তির।স্বাধীনতা পুনরায় হবে কুলসিত, ইতিহাস হবে বিকৃত।

স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি সে আপনি জামায়াত/বিএনপি যে নামেই ডাকেন না কেন, তারা পুনরায় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হবে।চিহ্নিত রাজাকাররা হবে মন্ত্রী যাদের গাড়িতে থাকবে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা।

আজকাল অনেক সুশীল ব্যক্তিকেই ফেয়ার নির্বাচনের কথা বলতে শুনি।আসলে ফেয়ার নির্বাচন বলতে তারা কোন নির্বাচনকে বোঝান??
যে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পরাজিত হবে এবং বিএনপি বিপুল ভাবে জয়ী হবে সেই নির্বাচনকেই কি তারা ফেয়ার নির্বাচন বলবেন???
যদি তাই হয় তবে মনে রাখবেন সেই নির্বাচনে শুধুমাত্র আওয়ামী লীগের পরাজয় ঘটবে নাহ্,পরাজয় ঘটবে স্বাধীনতার স্বপক্ষের সকল শক্তির।স্বাধীনতা পুনরায় হবে কুলসিত, ইতিহাস হবে বিকৃত।

স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি সে আপনি জামায়াত/বিএনপি যে নামেই ডাকেন না কেন, তারা পুনরায় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হবে।চিহ্নিত রাজাকাররা হবে মন্ত্রী যাদের গাড়িতে থাকবে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা।
যুদ্ধাপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত রাজাকারেরা মুক্তি পাবে রাজবন্দি হিসাবে।

তখন আপনারা আসলে কি করবেন?সেই স্বাধীনতা বিরোধী সরকারের বিরোধিতা করবেন নাকি ৭৫ পরবর্তী সরকারের মন্ত্রী,এমপি,উপদেষ্টা হয়ে সে সরকারকে যেভাবে বৈধতা দিয়েছিলেন!!!! সেভাবে বৈধতা দিয়ে মন্ত্রী,এমপি হবেন???

আপনারা আসলে কি করবেন তা আমাদের ভাল করেই জানা আছে।তাই আপনারা সরাসরি বললেই পারেন যে আপনারা মন্ত্রী,এমপি হতে চান!!!!!শুধু শুধু সুশীলতার মুখোশ পরার কি দরকার????

আর আমাদের মত সাধারন মানুষই বা কি করবে তখন????
হুম আমাদের মত সাধারন মানুষ এখন বলতেই পারে যে আমরা গণআদালত কিংবা শাহবাগ আন্দোলনের মত কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলব।
কিন্তু ভাই এইবার একটু বাস্তবতায় আসি,আমাদের আসলে সে সময় কিছুই করার থাকবে নাহ্।আমরা তখন জামায়াত-শিবির আর বিএনপির তান্ডব লীলায় হতচকিত হয়ে যাব যেমনটা হয়েছিলাম জাতির পিতার হত্যাকাণ্ডের পর।
তারপরও হয়তো আমরা একদিন আন্দোলনের উদ্দেশ্যে শাহবাগে জড়ো হবো সত্য কিন্তু সেখানে যে আমরা পাঁচ মিনিটের বেশি টিকতে পারব নাহ্ এ কথা বলাই যায়।
আর হ্যাঁ আন্দোলনের মধ্যমে যুদ্ধাপরাধীদের মুক্তি আমরা কখনই রুখতে পারব নাহ্, যদি তাই পারতাম তা হলে গণআদালতের রায় উপেক্ষা করে মুজাহিদরা কখনই মন্ত্রী হতে পারত নাহ্।
তাই ভাই ভাল মানুষতা রাখেন।যে কোন মূল্যে অন্তত পক্ষে এই বার স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তিকে ক্ষমতায় আনার চেষ্টা করুন।
না হলে যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে তা আমাদের কল্পনার অতীত।তবে তখন যে জামায়াত-শিবির স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি আওয়ামী লীগকে সমূলে শেষ করার চেষ্টার কোন ত্রুটি রাখবে নাহ্ একথা বলাই যায়।

এটাও মনে রাখবেন আগামী জাতীয় নির্বাচনে যদি বিএনপি-জামায়াত জোট জয়ী হয় তাহলে,
১৯৭১ সালে যেমন পাক-হানাদার বাহিনী বাড়ি বাড়ি গিয়ে জিজ্ঞাসা করত,”ঘর মে কোয়ি মুক্তি হে কিয়া????”
তেমনি জামায়াত-শিবির বাড়ি বাড়ি গিয়ে জিজ্ঞাসা করবে,”বাড়িতে কোন আওয়ামী লীগ আছে নাকি?????”

তাই সাধু সাবধান!!!!! বাড়িতে কোন আওয়ামী লীগ আছে কি?????

১০ thoughts on “সাধু সাবধান! বাড়িতে কোন আওয়ামী লীগ আছে কি???

  1. দেশে সুশীল আর কোথায় পেলেন?
    দেশে সুশীল আর কোথায় পেলেন? টিভি-টকশো, সভা-সেমিনার গুলোতে যে কয়টা দেখা যায় ওরা তো সুশীল নয়, চুতিয়াশীল ।

  2. লেখার মূল থীমটা আমি সমর্থন
    লেখার মূল থীমটা আমি সমর্থন করি শতভাগ। এই প্রসঙ্গে ইষ্টিশনেই লিখেছিলাম আগে। তবে কিছু বিষয়ে দ্বিমত করবো। যেমন, নেক্সট টাইম জামাত বিএনপি ক্ষমতায় আসলে আমরা কি করবো? এখন হয়তো মনে হচ্ছে আমাদের কিছুই করার থাকবে না। কিন্তু আসলেই কি অবস্থা ওত নাজুক হবে? মনে রাখতে হবে গণ আদালত গঠিত হয়েছিল এমন একটা সময়ে যখন স্বাধীনতার ছয় বছর পরে রাজনীতি করার সুযোগ পাওয়ার পরে সব চাইতে ভালো অবস্থানে ছিল জামাত। তাই তখন যদি করতে পারি তাহলে আগামীতেও পারবো ইনশাল্লাহ। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে চাইনা তেমন কোন পরিস্থিতির সৃষ্টি হোক। আর এই কারণেই মূল থিমটাকে সমর্থন করি। চাই আরও একবারের জন্য হলেও চৌদ্দ দলের সরকার ক্ষমতায় আসুক। ধন্যবাদ খাজা বাবা।

    1. উত্তর বাংলা ভাই হয়তো আমরা
      উত্তর বাংলা ভাই হয়তো আমরা আন্দোলন গড়ে তুলব কিন্তু লাভ টা কি হবে????
      গণআদালতের রায় উপেক্ষা করেই তো বিএনপি মুজাহিদের মন্ত্রী বানিয়েছিল?????
      সরকারের সদিচ্ছা ছাড়া তাদের বিরুদ্ধে কিছু করা যাবে নাহ্।

      তাছাড়া দিন পাল্টেছে ভাই, আগামী নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় গেলে জামায়াত তার বিরুদ্ধে সকল আন্দোলন কঠোরভাবে দমন করবে।

  3. খাজা ভাই,আপনার ধারনা একেবারে
    খাজা ভাই,আপনার ধারনা একেবারে অমূলক নয়।ইতিহাস সাহাক্ষী ২০০১ নির্বাচন পরবর্তী বিএনপি জামাতের তান্ডব দেশের মানুষ প্রত্যক্ষ করেছে।খুবতো দুরের কোনো কথা নয় যে ভুলে যাবো। শত বছর ধরে মনে রাখার মতো পুর্ণিমা ধর্ষনের খবর কি ভোলা যায়? ভোলা যায় আতংকিত মায়ের সেই উক্তি ? “বাবারা আমার মেয়েটা ছোট, তোমরা একজন একজন করে যেও”, ভুলিনি শুধুমাত্র বিরুদ্ধ রাজনৈতিক দল করার কারনে নগর থেকে শান্ত গ্রাম অবধি লাশের মিছিল, গ্রেনেড হামলায় ঝরে যাওয়া মুখগুলোকে কিভাবে ভুলে যাওয়া যাবে? সেই শাহ এ এম এস কিবরিয়া’র মতো সজ্জন, আইভী রহমানের প্রতিবাদি মুখ, গাজীপুরের প্রেম আহসানউল্লাহ মাষ্টার, খুলনার বিদ্রোহী মঞ্জুরুল ইমাম, সাহসী কলম যোদ্ধা হুমায়ুন কবির বালু… কত শত মুখ, লাশের দীর্ঘ সারি! :শয়তান: রা এবার প্রস্তুত হয়েই আছে :তুইরাজাকার: ওরা প্রস্তুত হয়েই নামবে আবার রক্তের হলি খেলায়।

    1. শঙকনীল ভাই বিএনপি-জামায়াত জোট
      শঙকনীল ভাই বিএনপি-জামায়াত জোট এই বার ক্ষমতায় গেলে তাদের তান্ডবলীলা আগের সব রেকর্ডকে ছাড়িয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *