চাই না এই গনতন্ত্র, বন্ধ করুন এই হরতাল রাজনীতি। আর সহ্য হচ্ছে না। একদম না।

রবিবার থেকে শুনতে পাচ্ছি ৩ দিন একটানা হরতাল। কিন্তু কেন ????

৩ দিন হরতাল মানে কত্ত বড় একটা ক্ষতি আমাদের প্রত্যেকের জন্যে চিন্তা করেছেন ???

সেই ছেলেটি যে হয়ত ১ কিংবা ২ মাসের ধরে ইন্টার্ভিউ এর জন্যে অপেক্ষা করছে, এবার তার একটা গতি হবে, টাকা রোজগার করবে সেই স্বপ্নে, আবার তার স্বপ্ন টা আটকে পড়ে যাবে সে জানেও না কত দিনের জন্যে।

আর ব্যাবসায়ি দের কথা কি বলব একটা দিন বন্ধ মানে কত বড় ক্ষতি যারা একবার ও ব্যাবসার পথে গিয়েছেন তারা খুব ভালো করে জানেন।


রবিবার থেকে শুনতে পাচ্ছি ৩ দিন একটানা হরতাল। কিন্তু কেন ????

৩ দিন হরতাল মানে কত্ত বড় একটা ক্ষতি আমাদের প্রত্যেকের জন্যে চিন্তা করেছেন ???

সেই ছেলেটি যে হয়ত ১ কিংবা ২ মাসের ধরে ইন্টার্ভিউ এর জন্যে অপেক্ষা করছে, এবার তার একটা গতি হবে, টাকা রোজগার করবে সেই স্বপ্নে, আবার তার স্বপ্ন টা আটকে পড়ে যাবে সে জানেও না কত দিনের জন্যে।

আর ব্যাবসায়ি দের কথা কি বলব একটা দিন বন্ধ মানে কত বড় ক্ষতি যারা একবার ও ব্যাবসার পথে গিয়েছেন তারা খুব ভালো করে জানেন।

সেই পিচ্চি পিচ্চি ভবিষ্যৎ গুলো যারা গত এক বছর ধরে অপেক্ষায় আছে জে. এস . সি পরীক্ষা কেমন হবে কিভাবে হবে সেই অপেক্ষায় আর তাদের এখন পরীক্ষা দিতে এসে আটকে পড়তে হচ্ছে হরতালের জালে।

সেই মধ্যবিত্ত কিংবা নিম্মবিত্ত মানুষ টি যে প্রতিদিন ২০ – ৩০ টাকা খরচ করে অফিসে আসা যাওয়া করে, এই ২০ – ৩০ টাকাই তার পোষাতে হিমসিম খেতে হয়, মাঝে মাঝে মাস শেষে অর্ধেক পথ হেঁটে আসতে হয় কিংবা পুরোটা। কারন শরীর কে কষ্ট দেওয়া যায় কিন্তু বাড়িওয়ালা তো বুঝে না তাকে মাসের শুরুতেই ভাড়া টা ঠিকমত দিয়ে দিতে হয়। আর সেই মানুষ টির হরতালের দিন যেতে খরচ হয় ৬০ – ৮০ টাকা, এই চিন্তায় বিভোর সেই সব কর্মজীবী মানুষ রা কিভাবে তাদের পুরা মাস যাবে, মাত্র তো মাস শুরু।

তার মাঝে আবার তাদের আরেক চিন্তা হরতাল মানেই তো প্রতি টা জিনিসের দাম দিগুন হওয়া, এমনেই পেয়াজের ঝাঁঝে চোখের পানি অহরহ পড়ছে, তার উপর প্রতিটা জিনিস এর এই দাম। অনেকেই হয়ত ইতিমধ্যে কয়েক কেজি আলু আর ডিমের দাম যেহেতু একটু কমেছে তাই, ৬ টা ডিম কিনে দিয়ে ঘরে বলে দিয়েছে এই হরতালের মাঝে যাতে আর বাজারের নাম মুখে না আনে।

হয়ত কোন রাজনৈতিক দল এই হরতাল প্রীতি ছাড়বে না আর তাই বন্ধ ও করবে না, কিন্তু তারা কি একবার জবাব দিবেন এই যে অর্থকষ্টে কিংবা দারিদ্রতায় জর্জরিত মানুষ গুলোর এই চিন্তার ভার গুলো কি তারা নিবেন ?????

হরতাল রাজনীতি বন্ধ হোক, এই গণতন্ত্র চাই না যেখানে গণতন্ত্র মানেই হরতাল দিয়ে মানুষ কে আবদ্ধ করে রাখা। আর আমাদের দেশের কয়জনই বা গনতন্ত্র বুঝে। আমরা আমজনতার কাছে গনতন্ত্র মানে ভোট দিয়ে কয়েক টা ভাড় নির্বাচিত করে সংসদ নামক এক আলিশান ভবনে পাঠিয়ে দেওয়া, সাথে গাড়ি বাড়ি বিলাস বহুল সুবিধা, আর তারা থাকে ৫ বছর ধরে কিভাবে কোন দিক দিয়ে কার রক্ত চুষবে সেই চেষ্টায়। কখনও বা গোপনে চুষে আর কখনও বা সবার সামনে।

চাই না এই গনতন্ত্র, বন্ধ করুন এই হরতাল রাজনীতি। আর সহ্য হচ্ছে না। একদম না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *