ব্রেস্ট ক্যান্সার— এক নিঃশব্দ ঘাতকের পদধ্বনি…

যদিও অনেক দেরি হয়ে গেলো পোস্টটা দিতে, তারপরও যদি সবার মধ্যে এই ভয়াল দানব সম্পর্কে একটু হলেও সচেতনতা জাগে, তবেই এই লেখার সার্থকতা…


যদিও অনেক দেরি হয়ে গেলো পোস্টটা দিতে, তারপরও যদি সবার মধ্যে এই ভয়াল দানব সম্পর্কে একটু হলেও সচেতনতা জাগে, তবেই এই লেখার সার্থকতা…

২০১৩ সালের অক্টোবর মাস। সারা বিশ্বে অক্টোবর মাসটি পালিত হচ্ছে ব্রেস্ট ক্যান্সার সচেতনতার মাস হিসেবে। স্তন ক্যান্সার নামক এক ভয়াল নিঃশব্দ দানবের ব্যাপারে মানুষের মাঝে আরও সচেতনতা সৃষ্টিই এই মাসের মূল লক্ষ্য। পাঠকদের মনে প্রশ্ন উঠতে পারে, এতো ক্যান্সার থাকতে ক্যান্সারকে আলাদাভাবে গুরুত্ব দেবার কারন কি? এর কারন হল ক্যান্সারের মধ্যে বিশেষ করে নারীদের ক্ষেত্রে এটির বিস্তৃতি সবচেয়ে নিঃশব্দ ও ভয়াবহ। প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ নারী মারা যাচ্ছেন এই ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে। এর মধ্যে একমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই প্রতি বছর আক্রান্ত হচ্ছে প্রায় ২০ লাখেরও বেশী নারী এবং প্রতি ১৩ মিনিটে মারা যাচ্ছে একজন হতভাগী। আগে ধারনা করা হত পৃথিবীতে জরায়ু ক্যান্সার সবচেয়ে বেশী সংখ্যক নারী আক্রান্ত হন। কিন্তু সাম্প্রতিক এক পরিসংখ্যানে বেরিয়ে আসে এক ভয়াবহ তথ্য। পরিসংখ্যান বলছে, পৃথিবীতে ক্যান্সারে আক্রান্ত মহিলাদের মাঝে প্রায় ১৭-১৭% শতাংশই ব্রেস্ট ক্যান্সারে আক্রান্ত হন, ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হন ১০% আর জরায়ুর ক্যান্সারের শিকার হন প্রায় ৮% নারী। কোন ক্যান্সারই ছোট নয়। কিন্তু সবচেয়ে আশঙ্কাজনক হচ্ছে, আমাদের দেশসহ পুরো পৃথিবীতে নারীদের জরায়ু ক্যান্সারের ক্ষেত্রে যতটুকু সচেতনতা রয়েছে, তার চেয়ে ব্রেস্ট ক্যান্সারে সচেতনতার পরিমান অনেক কম।

যেহেতু বর্তমান পরিসংখ্যান বলছে পৃথিবীর প্রতি ৮ জন নারীর একজন তার জীবনের যেকোন সময়ে এই মরনব্যাধিতে আক্রান্ত হতে পারেন, সুতরাং একে হেলাফেলার পর্যায়ে নেবার কোন সুযোগ নেই। পুরুষ কিংবা নারী যে কারোরই স্তন টিস্যু থেকে উদ্ভব হওয়া এই মরনবীজ তার প্রভাব বিস্তার করা শুরু করে খুব ধীরে ধীরে। তবে নারীদের এই রোগ হবার সম্ভাবনা পুরুষদের চেয়ে ১০০% বেশী।


কিন্তু যখনই ফুটে উঠে, তখনই ট্রিটমেন্ত শুরু করতে পারলে এই ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়া রোধ করা সম্ভব। আজকাল চিকিৎসা বিজ্ঞানের অভূতপূর্ব উন্নতির পরেও ক্যান্সার বিশেষত ব্রেস্ট ক্যান্সারে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা খুবই আশঙ্কাজনক। আর উন্নয়নশীল ও অনুন্নত বিশ্বে এই অবস্থা আরও শোচনীয়। কেননা এইসব দেশে আজো ব্রেস্ট ক্যান্সার একটা ট্যাঁবু… উন্নতবিশ্বেই যেখানে এখনও অনেক পরিবার এইসব ব্যাপারে রক্ষনশীল, সেখানে উন্নত বিশ্বের কথা বলাই বাহুল্য। নারীরা অনেক সময় এই ব্যাপারটা গুরুত্বই দেন না। অথবা বুঝতে পারলেও পরিবারের পুরুষ সদস্যকে বলতে সাহস পান না। শেষপর্যন্ত যখন অবস্থা খুব জটিল হয়ে যায়, তখন প্রকাশ পেলেও কোন লাভ হয় না। অতি প্রিয়জন হারিয়ে যান নিঃশব্দে। অথচ যদি এই ব্যাপারগুলো পরিবারের মধ্যে খোলাখুলি আলোচনা করা সম্ভব হত, তবে বাঁচানো যেত লাখ লাখ প্রান, আপনজন।


ক্যান্সারের করাল গ্রাস

বাংলাদেশে মহিলাদের যেসব ক্যান্সার বেশী হয়, তার মধ্যে অবশ্য এগিয়ে আছে জরায়ু মুখের ক্যান্সার। কিন্তু স্তন ক্যান্সার যে জরায়ুর মতই ভয়াবহ, তার প্রমান প্রতি বছর প্রায় ৩০-৩৫ হাজার নারী এই রোগে আক্রান্ত হওয়া। দুঃখজনক হলেও সত্যি, এইযে পরিসংখ্যানটা পাওয়া গেছে সেটা পাওয়া গেছে শহরে এবং আধুনিক নারীসমাজের উপর চালানো এক জরিপে। কিন্তু অজপাড়াগাঁ, দূরবর্তী অঞ্চল, যেখানে এখনও আধুনিকতা কিংবা এইসব বিষয়ে সচেতনতা গোরে উঠেনি, সেখানকার খবর আমরা জানি না। সেখানে হয়তোবা মৃত্যুর আগেও নারীরা জানতে পারেন না, কোন রোগে তারা মারা গেলেন। শুধু একটা তথ্য পাওয়া যায় এই রোগের ভয়াবহতা সমর্থনে। ১৯৮৫ থেকে ২০০৫ পর্যন্ত সময়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ক্যান্সার রোগের চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের মধ্যে ব্রেস্ট ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীর পরিসংখ্যান দেখলে একটা আইডিয়া পাওয়া যাবে…

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল— ২২.৭৪%

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল— ২৫.৫৮%

সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল-১৭.৪৬%

চটগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল — ২০.৪৬%


Bangladesh Cancer Awareness Forum brings out a procession from Shahbagh in the capital to observe Breast Cancer Awareness Day on
10th October.

৫০ বছরের বেশি বয়সীদের ঝুঁকির মাত্রা সবচেয়ে বেশি। স্তন ক্যান্সারে যতোজন আক্রান্ত হন তাদের ৮০ ভাগেরই বয়স হচ্ছে ৫০-এর ওপর। সেই সাথে যাদের পরিবারে কারোর স্তন ক্যান্সার রয়েছে তাদেরও এই ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রচুর।

Bangladesh Cancer Awareness Forum নামের একটা সংগঠন নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে ব্রেস্ট ক্যান্সারে সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করার জন্য। ১০ই অক্টোবর ব্রেস্ট ক্যান্সার সচেতনতা দিবস পালনের মাধ্যমে তারা জনগণকে সচেতন করার চেষ্টা করছেন। ফোরামের কোঅরডিনেটর ডঃ মোঃ হাবিবুল্লাহ তালুকদার এ সম্পর্কে বলেন, ব্রেস্ট ক্যান্সার সম্পর্কে সচেতনতা এবং প্রতি মাসে মিনিমাম একবার পরীক্ষার মাধ্যমে এই রোগে মৃত্যু এড়ানো সম্ভব। কেননা প্রথমেই যদি এই রোগটা ধরা পড়ে, তবে এর নিরাময় পুরোপুরি নিশ্চিত। বাংলাদেশের প্রায় সব হাসপাতালেই এই রোগের লক্ষন পরীক্ষার ব্যবস্থা আছে। তারপরও নারীরা যদি সচেতন হয়ে প্রতি মাসে মিনিমাম একবার নিজেরাই নিজেদের স্তন পরীক্ষা করে দেখেন যে কোন রকমের LUMP কিংবা অন্যকোন অসঙ্গতি ধরা পড়ছে কিনা,তবে সেটা সবচেয়ে ভালো হয়। ৫০ থেকে ৭০ বছর বয়সী নারীদের প্রতি তিনবছর পর পর ব্রেস্ট স্ক্রিনিং বা ম্যামোগ্রাম করানো উচিত। ম্যামোগ্রাম হচ্ছে এক্স-রে’র মাধ্যমে নারীদের স্তনের অবস্থা পরীক্ষা করা। সাধারণত প্রাথমিক অবস্থায় ক্যান্সার এতো ছোট থাকে যে বাইরে থেকে সেটা বোঝা সম্ভব হয় না। কিন্তু ম্যামোগ্রামের মাধ্যমে খুব ছোট থাকা অবস্থাতেই বা প্রাথমিক পর্যায়েই ক্যান্সার নির্ণয় করা যায়। প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পরলে ক্যান্সার থেকে সুস্থ্য হয়ে ওঠার সম্ভাবনা প্রচুর থাকে। আর এই পরীক্ষার জন্য মাত্র কয়েক মিনিট সময় লাগে।

এর ফলে রোগটা প্রতিকার করা সহজ হয়। একমাত্র সচেতনতাই পারে এই মরনব্যধিকে রুখতে…

আমি জানি আমাদের মত রক্ষনশীল দেশে এই রোগ নিয় কথা বলাটাই একটা বিব্রতকর বিষয়। শতকরা ৯৫% নারীও এই ব্যাপারটা নিয়ে কথা বলতে চাননা। কিন্তু আমাদের একটা ব্যাপার আগে পরিস্কার হতে হবে। আমরা কি আজাইরা লজ্জার দোহাই দিয়ে আমাদের মা,বোন,স্ত্রী,আত্মীয়-স্বজনদের ধীরে ধীরে মরতে দেব?? তারা ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাবে আর আমরা অদ্ভুতুড়ে এক সমাজব্যবস্থার দোহাই দিয়ে তাদের চুপ থাকতে বাধ্য করবো?? আমার মনে হয় আমাদের পুরুষদের এই ব্যাপারে সবচেয়ে উৎসাহ নিয়ে এগিয়ে আসা উচিৎ। সহজভাবে পরিবারের সদস্যদের সাথে এই ব্যাপারটা খোলাখুলি আলোচনা করলে নারীদের মনে থাকা অযথা বিব্রতকর মনোভাবটা কেটে যাবে। আর কাওকে আমার নানী কিংবা আমার চাচাতো বোনের মত হঠাৎ চলে যেতে হবে না। ক্যান্সার প্রায় অর্ধেক শরীরে ছড়িয়ে যাবার পর আমার বোনের ট্রিটমেন্ত শুরু হয়েছিল,চিকিৎসকরা আফসোস করেছিলেন, আর কয়েকটা দিন আগে যদি আনা যেত…ওরা মারা যাওয়ার পর খুব অবাক হয়ে ভেবেছিলাম, মানুষের জীবনমরণও আজ আমরা সমাজের তথাকথিত রক্ষনশীলতার মোড়কে আবদ্ধ করে ফেলেছি… কি অদ্ভুত এই সমাজব্যবস্থা। তাই আসুন , আমরা আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করি, এক নিঃশব্দ ঘাতকের নীলবিষ থেকে বাঁচাই আমাদের প্রিয়মানুষগুলোকে… তাদের হাসিমুখগুলোর জন্য এই চাওয়াটা কি খুব বেশী????????

৩৩ thoughts on “ব্রেস্ট ক্যান্সার— এক নিঃশব্দ ঘাতকের পদধ্বনি…

  1. হায় হায় এইডা কি করলেন?আমার সব
    হায় হায় এইডা কি করলেন?আমার সব পরিশ্রম মাটি হইয়ে গেলো। :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

    1. হায় হায়, এইডা কি হইল …
      হায় হায়, এইডা কি হইল :দেখুমনা: … আহারে, লেখার আরো কত বিষয় ছিল, আর শেষপর্যন্ত এই টপিকে এসে তিনজন একলগে এক্সিডেন্ট করলাম… :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :কানতেছি: :দেখুমনা: তবে আমি এই পোস্টে যত তথ্য দেই না কেন শঙ্খনীল কারাগারের অসংখ্য তথ্যভিত্তিক অনবদ্য শক্তিশালী লেখনীর সাথে এর কোন তুলনাই হতে পারে না। :থাম্বসআপ: :মাথানষ্ট: কোন কথা শুনুম না, কোন ধানাইপানাই নাই, আজকেই আপনার পোস্ট দেন। :আমারকুনোদোষনাই: আপনার পোস্ট পড়ার অপেক্ষায় থাকলাম … :জলদিকর: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি:

      1. এই সমস্যাটা নিয়ে সারা বছরই
        এই সমস্যাটা নিয়ে সারা বছরই আলোচনা করা যেতে পারে।একই টপিক পর পর দিলে আপুরাও বিরক্ত হতে পারে।শেষে বিটিভির মত অবস্থা হবে।বিটিভিতে যেমন বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে এতটাই বেশী বাড়া বারী হয় যে অবস্থাটা এমন বঙ্গবন্ধুও যদি বেঁচে থাকতেন তাইলে বিরক্তের শেষ সীমায় তিনিও টিভি আছাড় মেরে ভেঙ্গে ফেলতেন।আপাতত সময় এবং সুযোগের অপেক্ষায় রইলাম।রেডিই আছে একসময় পেস্ট করে দিলেই হল।আর আপনার এই অনবদ্য পোস্টটির কাছে আমারটা কিছুই হয়নি।তবে আপনার পোস্টটি থেকে বেশ কিছু নতুন তথ্য জানা হল।যা আমার পরে কাজে আসবে।পোস্টটি স্টিকি হওয়ার মত,তার দাবী জানালাম। :bow: :bow: :bow:

  2. ব্রেস্ট ক্যান্সার নিয়ে
    ব্রেস্ট ক্যান্সার নিয়ে অসাধারন তথ্যপূর্ন গোছানো এই লিখাটি স্টিকি হওয়ার দাবী রাখে।

    আর, ডন ভাই শুধু কারাগার ভাইয়ের বুক ভাঙেন নাই। আমারও বুক ভাইঙা দিছেন। আমি কয়েকদিন ধরেই একটা পোস্ট দেবো দেবো করতেছিলাম। অনেক রেফারেন্স জোগাড় করলাম। এখন দেখি, তারচেয়ে বেশি সাবলীল ভাবে ডন ভাই পোস্ট দিয়ে বসে আছেন!! ঠুশ করে বুকে চলে আসেন আগে। :বুখেআয়বাবুল:

    1. কেউ আম্রে কুপায়া মাইরালা
      কেউ আম্রে কুপায়া মাইরালা :কানতেছি: :কানতেছি: … আমি দুদুইজনের লেখার বারটা বাজায়া দিছি :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :আমারকুনোদোষনাই: :আমারকুনোদোষনাই: … তবে আমি এই পোস্টে যত তথ্য দেই না কেন, অঘূর্ণায়মান ইলেকট্রনের অসংখ্য রেফারেন্স দেয়া অসম্ভব চমৎকার ইনফরমেটিভ পোস্টের সাথে এর কোন তুলনা হতে পারে না। :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :bow: যত ত্রাত্রি পারেন, আপ্নের পোস্ট দেন। মানুষের মধ্যে সচেতনতা জাগাতে এই টপিকের উপর আরও পোস্টের কোন বিকল্প নাই :টাইমশ্যাষ: … পারলে আজকেই দেন :জলদিকর: … অনেকগুলো পোস্ট দেখলে আপুরা বিষয়টা সিরিয়াসলি নিবে। :ভাবতেছি: :থাম্বসআপ: যদিও আমাদের সবাইকেই বিষয়টা খুবই সিরিয়াসলি নেয়া উচিৎ… :জলদিকর: কিন্তু আপুদের জন্য বিষয়টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ… :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ: অপেক্ষায় আছি…

  3. যা বলার, বোঝানোর দরকার ছিল,
    যা বলার, বোঝানোর দরকার ছিল, মনে হয় তার সবই ডন ভাই বলে, বুঝিয়ে দিয়েছেন। এর আগেও খেয়াল করেছি, ডন ভাই তাঁর পোষ্ট কখনো খালি ভুঁড়ি ভুঁড়ি ইনফরমেশন দিয়ে লেখা ভারী করার চেষ্টা করেন না, এমন হালকা চালে যে কোন ধরণের টপিক সামনে নিয়ে আসেন, যে মনে হয় এখানে লুকাচাপার কিছুই তো নাই, নির্দ্বিধায় ব্যাপারটা নিয়ে আলাপ করা যায়!!! :থাম্বসআপ: :bow: :থাম্বসআপ:
    তাও শঙ্খনীল ভাই আর ইলেকট্রনের পোষ্টের অপেক্ষায় থাকলাম। আরও অনেক কিছুই আছে এ নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটির। বিশেষ করে এই ক্যান্সার হওয়ার কারণগুলো কি, কিভাবে হয়……… :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :জলদিকর: :জলদিকর:
    আমি :salute: :salute: :salute: :salute: মারতে থাকি…… :খুশি:

    1. কই লুকাই… অশেষ
      কই লুকাই… :লইজ্জালাগে: :লইজ্জালাগে: :লইজ্জালাগে: :মুগ্ধৈছি: :দেখুমনা: :আমারকুনোদোষনাই: অশেষ ধইন্নাপাতাসহ গোলাপ রইল রোবোস্যাপিয়েন্স আপু… :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :বুখেআয়বাবুল:

    2. সেটাই। আসল ব্যাপারগুলো জানা
      :থাম্বসআপ:
      সেটাই। আসল ব্যাপারগুলো জানা বেশি জরুরী। কারন অযাচিত লজ্জা দূর করার পরেই দরকার হবে লক্ষণ ও এথেকে প্রতিকার জানা…

      1. বিনাবাক্যে সহমত সফিক ভাই…
        বিনাবাক্যে সহমত সফিক ভাই… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :বুখেআয়বাবুল: :বুখেআয়বাবুল: :গোলাপ:

  4. লক্ষণ কি তা ক্লিয়ার বুঝতে
    লক্ষণ কি তা ক্লিয়ার বুঝতে পারলাম না। আর ধন্যবাদ এমন পোস্টের জন্য…… আমার এক বৌদি মারা গিয়েছে, তাকে সিঙ্গাপুর নেয়ার পরও কোন লাভ হয়নি।
    এখন এক বোন দিল্লীতে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি ভাল হবেন কিনা তার ও নিশ্চয়তা নেই।

    1. জয়, উপরে একটা পিক দেয়া আছে,
      জয়, উপরে একটা পিক দেয়া আছে, যেখানে ৫টা লক্ষন দেখিয়ে দেয়া আছে। মূলত লাম্প মানে ফুলে যাওয়াটা, স্তনের চারপাশের চামড়ার রঙ পরিবর্তন হয়ে যাওয়া কিংবা চামড়া কুঁচকে যাওয়া,নিপল ভেতরে ঢুকে যাওয়া, নিপল থেকে রক্তপাত হওয়া ইত্যাদি লক্ষনগুলো দেখা দেয়ামাত্র দেরি না করে পরীক্ষা করানো প্রয়োজন। :জলদিকর: এগুলো হলেই যে ক্যান্সার হবে, সেরকম না। বাট এগুলো দেখা দিলে অনতিবিলম্বে পরীক্ষা করে ব্যাপারটা সিউর হতে হবে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই লক্ষনগুলো ক্যান্সারের লক্ষন হিসেবে প্রমানিত হয়। :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :টাইমশ্যাষ:

      গোলাপ রইল… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ:

  5. এটা খুবই সত্যি যে, লজ্জার
    এটা খুবই সত্যি যে, লজ্জার কারণে মেয়েরা শারীরিক সমস্যা নিয়ে কথা বলতে চায় না। কিন্তু আজকাল এই লজ্জা কাটছে। এখন মেয়েরা ব্রেস্ট ক্যান্সার, জরায়ুমুখের ক্যান্সার সম্পর্কে বেশ সচেতন। ব্রেস্ট ক্যান্সার নিয়ে এতো প্রচারণাই হয়ত এই লজ্জা কাটাতে সাহায্য করছে!
    এই ধরণের পোস্ট, লেখালেখি আরও যতো বেশী আসবে, সচেতনতাও ততো বাড়বে, আমার ধারণা।

    ডনকে অনেক ধন্যবাদ এই মাসের কথা মনে রাখার জন্য এবং অতি দরকারী এই পোস্টটি দেওয়ার জন্য।
    তবে ভয়াবহ ওই চিত্রটি দেখে আমি প্রচণ্ড শক খেয়েছি । :দেখুমনা:

    1. লজ্জা পাওয়ার কারণ হচ্ছে শফি
      লজ্জা পাওয়ার কারণ হচ্ছে শফি টাইপের লোকেরা নারীদের লজ্জার এক হাত মোটা দড়ি দিয়ে বেঁধে দিয়েছে :মাথানষ্ট:

      যেমন একজন আমাকে বলেছিল, উনারা এই জগতের নারীদের তেঁতুল ভাবেন,নোংরা ভাবেন অথচ বেহেশেতের এক লক্ষ নারীদের বলেন হুর,পাক-পবিত্র! :ক্ষেপছি:

      1. ওই মানুষরুপী জারজ কীটগুলো
        ওই মানুষরুপী জারজ কীটগুলো মাকেও তেঁতুল হিসেবে দেখতে ভালবাসে :মানেকি: :মানেকি: … জাস্ট এই শুয়োরগুলোর জন্য মনুষ্যত্ব আর মানবিকতা আজ জাদুঘরে যাওয়ার উপক্রম হইছে… :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি:

    2. আমি সত্যই দুঃখিত আপু ওই ভয়াবহ
      আমি সত্যই দুঃখিত আপু ওই ভয়াবহ ছবিটা দেয়ার জন্য :দেখুমনা: … কিন্তু বিশ্বাস করো, এই রোগটার ভয়াবহতা বোঝাবার জন্য এ ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না… :আমারকুনোদোষনাই: আমাদের অজ্ঞানতা, আজাইরা বিব্রত হবার মনোভাব আর সর্বোপরি অসচেতনতা আমাদের প্রিয়জনকে ছিনিয়ে নিয়ে যাচ্ছে আমাদের কাছ থেকে :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মনখারাপ: … অথচ একটু সচেতন হলে আর শুয়োর শফিদের তেঁতুল সংক্রান্ত নীতিমালা প্রত্যাখ্যান করে এই বিষয়গুলো নিয়ে খোলাখুলি আলোচনা করতে পারলে আমরা হয়তোবা আমাদের প্রিয়জনদের এভাবে হারাতাম না… :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি:

      তোমাকে অজস্র গোলাপের শুভেচ্ছা… :থাম্বসআপ: :ফুল: :ফুল: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ:

  6. বহুত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়
    WWE

    বহুত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় :থাম্বসআপ:

    WWE পর্যন্ত ব্রেস্ট ক্যান্সার সম্বন্ধে নারীদের সচেতন করার লক্ষ্যে তাদের রিং এর এক লাইন গোলাপি করে দিয়েছে,রেসলারদের টি-শার্ট পর্যন্ত ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধী চিহ্ন…..
    আমাদের দেশে প্যারাস্যুট নাকি জুই মনে হয় ব্রেস্ট ক্যান্সার নিয়ে কয়দিন বিজ্ঞাপন করসিল,ব্যস এই!

    এখন বিভিন্ন ইলেকট্রিক গণমাধ্যমেরও উচিৎ এমন কিছু করা….

    আর হালার স্টারজলসা,জী বাংলা সারাদিন মহিলাদের আকাইম্যা সিরিয়াল দেখায় অথচ এই নিয়ে কিছু দেখায় না কা? :মানেকি:

    ডন ভাইরে বিশেষ ধন্যবাদ :থাম্বসআপ:

    1. হিস্তারজলশা আর ঝি বাঙলা যদি
      হিস্তারজলশা আর ঝি বাঙলা যদি এই বিষয়গুলো দেখায়, তাইলে দর্শকদের তাদের সিরিয়াল নামক বিষ কখন গেলাইব… :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি:

      সাব্বির ভাই, অসংখ্য ধইন্না পাতা :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ:

      1. হুম তারা শুধু দেখাইতে
        হুম তারা শুধু দেখাইতে পারে
        কেমনে গেঞ্জাম লাগানো যায়।
        কেমনে আরেক জনের সাথে প্রেম করা যায়।
        কেমনে জামাই গো সন্দেহ করা যায়।

        মাথানষ্ট!!!

  7. পোস্টটি স্টিকি হওয়ার যোগ্যতা
    পোস্টটি স্টিকি হওয়ার যোগ্যতা রাখে। অসাধারণ গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট :bow: :bow: :bow: । তবে এই আলোচনা যদি সামগ্রিক ভাবে ছড়ানো না যায় তাহলে খুব বেশি লাভ হবে না। গণমাধ্যম গুলো একটু উদার হলে এরকম অনেক রোগের হাত থেকে মানুষ বাঁচতে পারে। আজ সচেতনতার কারণে পানি বাহিত রোগের পরিমাণ অনেক কমে গেছে। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গুলো যদি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে এগিয়ে আসে তাহলে এরকম রোগের প্রকোপ থেকে অনেকে রক্ষা পাবেন।

    1. আমাদের মিডিয়াগুলোর এই
      আমাদের মিডিয়াগুলোর এই ব্যাপারে কোন চিন্তাভাবনা আছে বলে মনে হয় না। কোন প্রতিষ্ঠানকেও এই ব্যাপারে সোচ্চার হতে দেখি না। মাঝে মাঝে খুব কষ্ট লাগে ভাই। যে বিষয়গুলোতে সবার একসাথে এগিয়ে আসা উচিত,সেখানেই কাওকে খুঁজে পাওয়া যায় না… :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :ভাঙামন: :ভাঙামন: :মনখারাপ:

  8. আমি জানি আমাদের মত রক্ষনশীল

    আমি জানি আমাদের মত রক্ষনশীল দেশে এই রোগ নিয় কথা বলাটাই একটা বিব্রতকর বিষয়। শতকরা ৯৫% নারীও এই ব্যাপারটা নিয়ে কথা বলতে চাননা। কিন্তু আমাদের একটা ব্যাপার আগে পরিস্কার হতে হবে। আমরা কি আজাইরা লজ্জার দোহাই দিয়ে আমাদের মা,বোন,স্ত্রী,আত্মীয়-স্বজনদের ধীরে ধীরে মরতে দেব?? তারা ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাবে আর আমরা অদ্ভুতুড়ে এক সমাজব্যবস্থার দোহাই দিয়ে তাদের চুপ থাকতে বাধ্য করবো?

    — অর্থবহ কিছু গুরুত্বপূর্ণ লাইন!! আসলেই তাই ধর্মীয় অন্ধকারাচ্ছন্ন আর প্রতিক্রিয়াশীল পশ্চাৎপদ নোংরা অমানবিক মানসিকতা এবং শিক্ষা শুধু অসচেতনতার মূলে নয় মানবিক সকল অনুভুতির বিরুদ্ধের অপশক্তিও বটে। তাই বিজ্ঞান সম্মত আধুনিক তথ্য ও প্রযুক্তিজ্ঞাননির্ভর বাস্তবধর্মী শিক্ষায় পারে আমাদের মত ৩য় বিশ্বের মানুষের এমন সকল অন্তরায় থেকে উত্তরণ করতে…
    প্রতিক্রিয়াশীলতা নিপাত যাক, মানবতা মুক্তি পাক…

    ডনের পরিবারের জন্য হৃদয়ের অন্তঃস্থল থেকে সমবেদনা। সমবেদনায় ব্যথিত না হয়ে শক্তিতে সকলকে সচেতন করার চেষ্টায় মানুষের আসল পরিচয়।। ডন-ভাই :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow: :bow:

    1. আসলেই তাই ধর্মীয়

      আসলেই তাই ধর্মীয় অন্ধকারাচ্ছন্ন আর প্রতিক্রিয়াশীল পশ্চাৎপদ নোংরা অমানবিক মানসিকতা এবং শিক্ষা শুধু অসচেতনতার মূলে নয় মানবিক সকল অনুভুতির বিরুদ্ধের অপশক্তিও বটে। তাই বিজ্ঞান সম্মত আধুনিক তথ্য ও প্রযুক্তিজ্ঞাননির্ভর বাস্তবধর্মী শিক্ষায় পারে আমাদের মত ৩য় বিশ্বের মানুষের এমন সকল অন্তরায় থেকে উত্তরণ করতে… প্রতিক্রিয়াশীলতা নিপাত যাক, মানবতা মুক্তি পাক..

      এতো চমৎকার করে গুছিয়ে কথাটা বলার জন্য আপনাকে অজস্র গোলাপ উপহার দিলাম লিংকন ভাই… :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :bow: :bow: :bow: :তালিয়া: :তালিয়া: :চশমুদ্দিন:

  9. ডন খুব খারাপ লাগছে ডন।আপু আর
    ডন খুব খারাপ লাগছে ডন।আপু আর নানুর জন্য খারাপ লাগছে।আল্লাহ যেনো সবাইকে এসব বিপদ থেকে দূর রাখেন,আপু আর নানুকে যেনো বেহেস্ত নসীব করেন।

    1. ধন্যবাদ আপু… সবাই
      ধন্যবাদ আপু… :ধইন্যাপাতা: :ফুল: সবাই মিলে যদি সচেতনতা সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখি, তবে এই মরনব্যাধির প্রতিরোধ করা সম্ভব… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:

  10. গুরুত্বপূর্ণ টপিক।
    শরীরের

    গুরুত্বপূর্ণ টপিক।
    শরীরের অন্যান্য জায়গায় ক্যানসার হলে যেমন এটা লুকিয়ে রাখার কিছু নেই, তেমনি স্তন্য ক্যানসারও লুকিয়ে রাখার মত নয়। এটা মরনব্যাধি। চিকিৎসা যার জন্য উত্তম। কোন ধর্মীয় কুসংস্কারের এখানে জায়গা নেই।

  11. আমাদের মত তৃতীয় বিশ্বের,
    আমাদের মত তৃতীয় বিশ্বের, রক্ষণশীল, মুসলিম সমাজে ব্রেস্ট ক্যান্সার একটা ভয়াবহ ব্যাধি। বলা যায়, না পারি সইতে না পারি কইতে। সুতরাং, সচেতনতা বৃদ্ধির কোন বিকল্প নেই।

    ডন ভাইকে ধন্যবাদ এমন গোছানো ইনফরমেটিভ পোস্টের জন্য…

    1. অশেষ কৃতজ্ঞতা রইল কালবৈশাখি
      অশেষ কৃতজ্ঞতা রইল কালবৈশাখি পড়বার জন্য… :ফুল: :ফুল: :বুখেআয়বাবুল: আমাদের সবাইকে এই বিষয়ে সচেতনতা তৈরিতে এগিয়ে আসতে হবে… :জলদিকর: এর কোন বিকল্প নাই… :ভাবতেছি: :অপেক্ষায়আছি:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *