“আকাশের বৃষ্টি”

পুরো ঢাকাই বৃষ্টিঢাকা।শুভ্রও ঢাকার বাইরে নয়।আজ ভার্সিটি বন্ধ।আবার বাইরে প্রচন্ড বৃষ্টি।বৃষ্টি তার খুব প্রিয়।বারান্দায় বসে বৃষ্টি উপভোগের মজাই আলাদা।তবে আজ মজা পাচ্ছে না শুভ্র।তার সামনে বৃষ্টিকে নিয়ে অনেক স্মৃতি ডানা মেলছে।স্মৃতি নিরব ঘাতক।যখন যাকে আক্রমন করে তাকে নাজেহাল করেই ছাড়ে।বৃষ্টিমুখর দিনে শীতল বাতাশে আজ শুভ্রর সামনে স্মৃতির পাতা খুলে গেছে।সে ভাবছে,অনেক কিছুই ভাবছে।

সেই বৃষ্টির দিনে বৃষ্টির ফোন,
-হ্যলো শুভ্র?
-হ্য বল।
-চলনা একটু বাইরে ঘুরে আসি!
-এখন?এখন তো অনেক বৃষ্টি?
-আজ বৃষ্টিতে ভিজবো।আয়না প্লিজ?
-আচ্ছা আসছি।

পুরো ঢাকাই বৃষ্টিঢাকা।শুভ্রও ঢাকার বাইরে নয়।আজ ভার্সিটি বন্ধ।আবার বাইরে প্রচন্ড বৃষ্টি।বৃষ্টি তার খুব প্রিয়।বারান্দায় বসে বৃষ্টি উপভোগের মজাই আলাদা।তবে আজ মজা পাচ্ছে না শুভ্র।তার সামনে বৃষ্টিকে নিয়ে অনেক স্মৃতি ডানা মেলছে।স্মৃতি নিরব ঘাতক।যখন যাকে আক্রমন করে তাকে নাজেহাল করেই ছাড়ে।বৃষ্টিমুখর দিনে শীতল বাতাশে আজ শুভ্রর সামনে স্মৃতির পাতা খুলে গেছে।সে ভাবছে,অনেক কিছুই ভাবছে।

সেই বৃষ্টির দিনে বৃষ্টির ফোন,
-হ্যলো শুভ্র?
-হ্য বল।
-চলনা একটু বাইরে ঘুরে আসি!
-এখন?এখন তো অনেক বৃষ্টি?
-আজ বৃষ্টিতে ভিজবো।আয়না প্লিজ?
-আচ্ছা আসছি।
ফোনটা রেখে বৃষ্টি রাস্তায় চলে আসছে।তার আজ ভীষন ভাল লাগছে।চারদিক জনশুন্য।আকাশ থেকে অঝরে পরা বৃষ্টি ভিজিয়ে দিচ্ছে বৃষ্টিকে।বৃষ্টি ভিজছে।
-এই বৃষ্টি?
-শুভ্র!এত দেরি হলো তোর?
-না মানে ইয়ে—-
-হইছে আর ইয়ে ইয়ে করতে হবেনা।চল হাটি।
-কোথায় যাবি?
-দুচোখ যেদিকে যায়।পারবিনা আমার সাথে হাড়িয়ে যেতে?
-তুই সাথে থাকলে সাত সাগর আর তের নদীও পাড়ি দিতে পারি।
-(বৃষ্টির ভালাবাসাময় মুচকি হাসি)

দুজন হাটছে।নির্জন মেঠো কাঁদা যুক্ত পথ।রাস্তায় ছোট ছোট বাচ্চারা খেলছে।বৃষ্টি তা উপভোগ করছে।কেউ কোন কথা বলছেনা।হঠাৎ শুভ্রই প্রথম মুখ খুলে,
-বৃষ্টি?তুই যদি আমায় ভুলে যাস তাহলে আমি বাঁচবোনা।
-পাগল কোথাকার!তোকে আমি ভূলতে পারবোনা।আমার সপ্ন,আমার আশা,আমার ভাবনা,আমার প্রতিটি নিঃশ্বাষে আমার ভালবাসা মিশে আছে আর সেই ভালবাসা তো তুই।সেই তোকে কিভাবে ভুলি বল?
শুভ্র হাসছে।আকাশে এখন বৃষ্টি নেই,শুভ্রর চোখে বৃষ্টি।বৃষ্টি এখন আকাশের নয় বৃষ্টি তো চিরকালের জন্য শুভ্রর।

এটাই ছিল শুভ্রর সাথে বৃষ্টির শেষ বৃষ্টিতে ভেজা।তারপর শুভ্র ঢাকায় চলে আসে এবং বৃষ্টির বিয়ে হয়ে যায় শুভ্রর বন্ধু আকাশের সাথে।

আজ ঢাকার আকাশে বৃষ্টি ঝরছে।কিন্তু শুভ্রর বৃষ্টি তার থেকে অনেক দুর,বন্ধু আকাশের সাথে সংসার করছে।আজ বৃষ্টি শুভ্রকে কাঁদাচ্ছে।রাগ করে বারান্দা থেকে রুমে চলে আসে শুভ্র।বৃষ্টি বেড়েই চলছে।শুভ্র ঘুমুচ্ছে।

৩ thoughts on ““আকাশের বৃষ্টি”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *